চন্দ্রনাথ পাহাড়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Chandranath Hill, also known as Sitakunda Hill, as seen from the Dhaka-Chittagong railroad. It is the tallest peak in Chittagong district, and is the location of Chandranath and Birupakkha temples.
চন্দ্রনাথ পাহাড়, যা সীতাকুণ্ড পাহাড় নামেও পরিচিত, ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ হতে দৃশ্যমান অবস্থায়। পাহাড়ের চূড়ায় চন্দ্রনাথ মন্দির ও বাম-পাশে বিরূপাক্ষ মন্দির দেখা যাচ্ছে।

সীতাকুণ্ড পাহাড় হিমালয় হতে বিচ্ছিন্ন হিমালয়ের পূর্বাঞ্চলীয় অংশ। এই পাহাড়টি হিমালয়ের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব দিক ঘুরে ভারতের আসাম এবং ত্রিপুরা রাজ্যের মধ্য দিয়ে ফেনী নদী পার হয়ে চট্টগ্রামের সঙ্গে মিশেছে। চট্টগ্রাম অংশে ফেনী নদী থেকে চট্টগ্রাম শহর পর্যন্ত এর দৈর্ঘ্য প্রায় ৭০ কিলোমিটার। এই পাহাড়ের পাদদেশে নির্মিত হয়েছে সীতাকুণ্ড ইকো পার্ক[১][২][৩]

উচ্চতা ও শৃঙ্গ[সম্পাদনা]

সীতাকুণ্ড শহরের পূর্বে অবস্থিত চন্দ্রনাথ শৃঙ্গ প্রায় ১০২০ফুট (প্রায়) অথবা (৩১০ মিটার) উঁচু এবং চট্টগ্রাম জেলার সর্বোচ্চ স্থান। রাজবাড়ি টিলার উচ্চতা ৯০০ ফুট এবং সাজিঢালার উচ্চতা ৮০১ ফুট। চট্টগ্রাম শহরের কাছাকাছি এসে এই পাহাড়ের উচ্চতা অনেক কমে এসেছে। চট্টগ্রাম শহরের উপকন্ঠে বাটালি হিলের উচ্চতা ২৮০ ফুট এবং শহর থেকে সামান্য উত্তরে নঙ্গরখানা ২৯৮ ফুট উঁচু।[৪]

ঝর্ণা ও প্রশ্রবণ[সম্পাদনা]

শ্রী শ্রী সীতা মন্দির, চন্দ্রনাথ ধাম, সীতাকুণ্ড।

এখানে রয়েছে সহস্রধারা আর সুপ্তধারা নামের দুটি জলপ্রপাত। মীরসরাই অংশে রয়েছে খৈয়াছড়া, হরিণমারা, হাটুভাঙ্গা, নাপিত্তাছড়া, বাঘবিয়ানী, বোয়ালিয়া, অমরমানিক্যসহ আরো অনেক অনেক ঝর্ণা ও জলপ্রপাত। পূর্বদিকে এই পাহাড় থেকে উৎসারিত হয়ে কয়েকটি ঝর্ণা তথা খাল হালদা নদীতে গিয়ে মিলিত হয়েছে। এর মাঝে গজারিয়া, বারমাসিয়া, ফটিকছড়ি, হারুয়ালছড়ি এবং বোয়ালিয়া অন্যতম। পশ্চিম দিকে মহামায়া, মিঠাছড়া সহ আরো কয়েকটি ছড়া ও ঝর্ণা বঙ্গোপসাগরে পতিত হয়েছে। বর্তমানে মহামায়া ছড়ার উপর একটি রাবার ড্যাম নির্মিত হয়েছে। এই লেক দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কৃত্রিম লেক, তাছাড়া নীলাম্বর হ্রদ নামে একটি মনোরম লেক এই পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত।

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. [ http://www.banglapedia.org/HTB/101487.htm ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৫ অক্টোবর ২০০৮ তারিখে বাংলাপিডিয়া]
  2. "চন্দ্রনাথের পাহাড় চূড়ায় 'তীর্থস্থান'"। বাংলানিউজ২৪। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৯ 
  3. "ঘুরে আসুন চন্দ্রনাথের চূড়ায়"। বাংলা ট্রিবিউন। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১৯ 
  4. "বাংলাপিডিয়া"। ১ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]