ক্লোজআপ ওয়ান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ক্লোজআপ ওয়ান
ক্লোজআপ ওয়ান.png
ধরনআপাতবাস্তব টেলিভিশন অনুষ্ঠান
উপস্থাপকদেবাশিস বিশ্বাস (২০০৫-০৬), আফরিন সামিয়া (২০০৫-০৬), আবিদ শাহরিয়ার (২০০৮), সাজিয়া সুলতানা পুতুল (২০০৮,২০১২),সায়েম সালেক (২০১২)
বিচারকআহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল (২০০৫-০৮,২০১২), কুমার বিশ্বজিৎ (২০০৫-০৬), শাকিলা জাফর (২০০৫), সামিনা চৌধুরী (২০০৬), পার্থ বড়ুয়া (২০০৮,২০১২), ফাহমিদা নবী (২০০৮,২০১২)
আবহ সঙ্গীত রচয়িতানকীব খান
উদ্বোধনী সঙ্গীতযদি লক্ষ থাকে অটুট, বিশ্বাস হৃদয়ে/ হবেই হবেই দেখা, দেখা হবে বিজয়ে
মৌসুমের সংখ্যা
নির্মাণ
নির্বাহী প্রযোজকতানভীর খান (২০০৫-০৬), সুপন রায় (২০০৮), আলফ্রেড খোকন (২০১২)
নির্মাণের স্থানবঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র, ঢাকা, বাংলাদেশ
ব্যাপ্তিকাল১ ঘণ্টা
নির্মাণ কোম্পানিইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেড, ক্লোজআপ বাংলাদেশ, এনটিভি
মুক্তি
মূল নেটওয়ার্কএনটিভি
প্রথম প্রকাশ২০০৫
বহিঃসংযোগ
ওয়েবসাইট

ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ, বাংলাদেশি এনটিভি টেলিভিশন এর একটি আপাতবাস্তব টেলিভিশন অনুষ্ঠান। সঙ্গীত প্রতিভা অন্বেষণভিত্তিক দেশের অন্যতম বৃহত্তম আপাতবাস্তব টেলিভিশন অনুষ্ঠান 'ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ'।[১][২] ২০০৫ সালে যাত্রা শুরু হয় সঙ্গীতবিষয়ক আপাতবাস্তব টেলিভিশন অনুষ্ঠান ‘ক্লোজআপ ওয়ান : তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’। দ্বিতীয় আসর অনুষ্ঠিত হয় ২০০৬ সালে। পরবর্তিতে এক বছর বিরতি দিয়ে তৃতীয় আসর অনুষ্ঠিত হয় ২০০৮ সালে এবং সর্বশেষ আসর অনুষ্ঠিত হয় ২০১২ সালে। ২০০৫ সালে নোলক বাবু, ২০০৬ সালে সালমা এবং ২০০৮ সালে লিজা ক্লোজআপ ওয়ান চ্যাম্পিয়ন হন। সর্বশেষ আসরে বিজয়ীর মুকুট উঠেছিল নাটোরের মেয়ে লায়লার মাথায়।

ক্লোজআপ ওয়ান ২০০৫[সম্পাদনা]

আসরের প্রথম বিজয়ী ছিলেন নোলক বাবু । একেবারে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে উঠে আসা একজন গায়ক। যার কোনো গানের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছিল না। ছিল না কোনো সাধারণ শিক্ষাও। তবুও মানুষের আবেগ ও ভালোবাসায় প্রথমবারের আসরে চ্যাম্পিয়ন হন এ শিল্পী। রিয়ালিটি শো’র মাধ্যমে সংগীতজগতে আসেন জামালপুরের ছেলে নোলক বাবু। দারিদ্র্যের সঙ্গে লড়াই করা নোলক ২০০৫ সালের ‘ক্লোজআপ ওয়ান: তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতার প্রথম আসরের একজন প্রতিযোগী ছিলেন।[৩] বিচারকদের রায় আর দর্শকের ভোটে চূড়ান্ত লড়াইয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন নোলক। এরপর পেশাদার শিল্পী হিসেবে গানের জগতে বিচরণ করেন তিনি।

ক্লোজআপ ওয়ান ২০০৬[সম্পাদনা]

ক্লোজআপ ওয়ানের দ্বিতীয় আসরের বিজয়ী সালমা আক্তার। লালন কন্যাখ্যাত সালমা ২০০৬ সালে ক্লোজআপ ওয়ান প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেছেন।[৪] কণ্ঠ শৈলীর গুণে শ্রোতারা তাকে বেশ আনন্দের সঙ্গেই গ্রহণ করেছেন। ২০১০ সালে তিনি দিনাজপুরের পৌর চেয়ারম্যান শিবলী সাদিককে বিয়ে করেন। এ পর্যন্ত সালমার ৬টি একক অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে, ‘বন্ধু আইয়ো আইয়ো’, ‘বেস্ট অব সালমা’, ‘বিনোদিনী’, ‘বন্ধু আইলা না’, ‘বৃন্দাবন’ ও ‘প্রেমের জানাজা’।[৫]

দ্বিতীয় রানারআপ হয়েছিলেন নিশিতা বড়ুয়া। ‘রংধনু ভালো লাগে, নীল আকাশ ভালো লাগে’ গানটির মাধ্যমে ক্লোজআপ ওয়ানের দ্বিতীয় আসরের প্রিয়মুখ হয়ে উঠা এই শিল্পী এখন দেশের একজন জনপ্রিয় শিল্পী। ২০১৯ সালে প্রথমবারের মতো কলকাতার পথিকৃৎ বসু পরিচালিত ‘কে তুমি নন্দিনী’ ছবিতে ‘ইশক খুদা হে’ গানটিতে নিশিতা কণ্ঠ দিয়েছেন। [৬]

ক্লোজআপ ওয়ান ২০০৮[সম্পাদনা]

২০০৮ সালের ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতায় প্রথম হন সানিয়া সুলতানা লিজা। একক অ্যালবামের পাশাপাশি মিক্সড অ্যালবামে গান করেন এ শিল্পী। অ্যালবামের গানের বাইরে প্লেব্যাকও করছেন তিনি। বলা যায় অনেকটা জনপ্রিয়তার তকমা জুড়েছেন নিজের নামের সঙ্গে। । তার প্রথম একক অ্যালবাম তৌসিফ ফিচারিং লিজা পার্ট-১ প্রকাশিত হয় ২০১২ সালে,[৭] দ্বিতীয় একক অ্যালবাম পাগলি সুরাইয়া প্রকাশিত হয় ২০১৫ সালে।[৮][৯] প্লেব্যাকও করেছেন ৪০টিরও বেশি সিনেমাতে।[১০][১১] গানের মিশ্র অ্যালবাম বেরিয়েছে ৫০টিরও বেশি।[১২][১৩][১৪] লন্ডনভিত্তিক বলিউডের গানের চ্যানেল বিফোরইউ মিউজিক-এ প্রথম বাংলাদেশি গায়িকা হিসেবে চ্যানেলটিতে প্রচার হয় লিজার মিউজিক ভিডিও 'পাগলী সুরাইয়া'।[১৫][১৬] তৌসিফের কম্পোজিশনে এ মনের আঙ্গিনায়/তোরই তো ঠিকানা গানটি গেয়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেন তিনি। এ ছাড়া এই তো ভালোবাসা চলচ্চিত্রের জন্য গাওয়া লিজা ও তৌসিফ এর টাইটেল সঙ ‘‘এই তো ভালোবাসা’’ বর্তমান তরুণ প্রজন্মসহ সব শ্রেণীর শ্রোতা হৃদয় জয় করে নিয়েছে। ২০১৫ সালে প্রকাশিত পাগলি সুরাইয়া অ্যালবাম এর সুরাইয়া গানটি ব্যাপক শ্রোতাপ্রিয়তা লাভ করে।[১৭] উপস্থাপনায়ও বেশ সুনাম রয়েছে তার।[১৮]

ক্লোজআপ ওয়ান ২০১২[সম্পাদনা]

ক্লোজআপ ওয়ান প্রতিযোগিতার সর্বশেষ আসরের সেরা হয়েছেন নাটোরের মেয়ে সুলতানা ইয়াসমিন লায়লা। বাবা শফিকুল ইসলাম মৃধা ও চাচা খালেক দেওয়ানের অনুপ্রেরণাতেই গানের ভুবনে পা রেখেছেন তিনি। তার বাবা একজন বাউলশিল্পী। তাই ছোটবেলা থেকেই গানের পরিবেশে বেড়ে উঠেছেন তিনি। লায়লা সেরা ক্লোজআপ তারকা’খ্যাতি কয়েক মাস আগেই পেয়েছেন।

বিজয়ীদের তালিকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ""Closeup 1 Tomakei Khujchhey Bangladesh" is back"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৩-১৪ 
  2. "কেমন আছেন ক্লোজআপ ওয়ান তারকারা?"। ২০১৭-০৫-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-০৪ 
  3. "'গান আর সংসার— এই আমার জগৎ'"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২৫ 
  4. Team, Samakal Online। "দুই লালন কন্যার কথা"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২৫ 
  5. jugantor.com। "গানেই নিয়মিত লালন কন্যা | আনন্দ নগর | Jugantor"jugantor.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২৫ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  6. https://www.prothomalo.com/entertainment/song/%E0%A6%AA%E0%A7%82%E0%A6%B0%E0%A6%A3-%E0%A6%B9%E0%A6%B2%E0%A7%8B-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%8F%E0%A6%95%E0%A6%9F%E0%A6%BF-%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%A8%7C[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] পশ্চিমবঙ্গের ছবিতে গাইলেন নিশিতা
  7. "আসছে লিজার অ্যালবাম"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৯ 
  8. "প্রকাশিত হলো লিজার 'পাগলী সুরাইয়া'"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৭-১৫ 
  9. "ঈদে লিজার 'পাগলী সুরাইয়া'"। ২০১৬-০৯-১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৭-০৮ 
  10. "আবারও দ্বৈত গানে তৌসিফ-লিজা"। ২০২০-০৬-৩০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৪-০১ 
  11. "'নিয়মিত প্লেব্যাক করছি'"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-১০-০৮ 
  12. "একসঙ্গে লিজা ও নদী"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৮-২৬ 
  13. "তিন ভাষায় কনা-লিজার গান"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৭-৩১ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  14. "লিজা ও নদীর 'চাঁদমুখ'"। ২০১৬-০৮-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৮-২৭ 
  15. "বিফোরইউ মিউজিকে লিজা"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-২৭ 
  16. "হাবিবের পর বিফোরইউ মিউজিকে লিজা"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-২৫ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  17. "পাগলি সুরাইয়া"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৭-৩০ 
  18. "এই গান এই উপস্থাপনা"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]