কোমল ঝা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কোমল ঝা
Komal Jha.jpg
মি. এমবিএ-এর সেটে কোমল ঝা
জন্ম (1987-03-15) ১৫ মার্চ ১৯৮৭ (বয়স ৩৫)
রাঁচি, বিহার, ভারত
(বর্তমানে ঝাড়খণ্ড, ভারত)
জাতীয়তাভারতীয়
অন্যান্য নামকোমল
শিক্ষাইঞ্জিনিয়ারিং স্নাতকপুরকৌশল
পেশাঅভিনেত্রী, সিভিল ইঞ্জিনিয়ার, লেখিকা
কর্মজীবন২০১০–বর্তমান
ওয়েবসাইটiamkomaljha.com

কোমল ঝা (জন্ম: ১৫ই মার্চ ১৯৮৭) হলেন একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী এবং লেখিকা। তিনি তেলুগু, কন্নড়, মালয়ালম এবং হিন্দি চলচ্চিত্র জগতে অভিনয় করেছেন এবং সিভিল ইঞ্জিনিয়ার থেকে একজন অভিনেত্রী হয়ে জীবন তৈরি করার জন্য খ্যাতি অর্জন করেছেন।[১] তিনি বেশ কয়েকটি ভাষার অভিনয়ের পাশাপাশি চায়না সিনেমানামক তেলুগু চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। অভিনয়ের পাশাপাশি ঝা মঞ্চ অনুষ্ঠানেও অংশগ্রহণ করে থাকেন[২] এবং প্রধানত দক্ষিণ ভারতে কয়েকটি পণ্যের বিজ্ঞাপনে উপস্থিত হয়েছেন।

কোমল ঝা ২০০৯ সালে বলিউডের অন্যতম সেরা চলচ্চিত্র থ্রি ইডিয়টসে অভিনয়ের মাধ্যমে অভিনয় জগতে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন; উক্ত সময়ে তিনি কলেজে পড়াশোনা করতেন। ২০১০ সালে তাঁর প্রথম মালয়ালম চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছিল; যার নাম ছিল ২৪ আওয়ার্স । একই বছরে ঝা দুবাই চলে যান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইতে অবস্থিত একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে চাকরি করা শুরু করেন। ২০১১ সালে ঝা নিম্বে হুলি[৩] এবং রামচারী নামক দুটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ভারতে ফিরে আসেন। ঝা এই সময়ে টেলিভিশন বিজ্ঞাপন এবং প্রিন্ট বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানে, যার মধ্যে এক্সিস ব্যাংক, বিএনপি পরিবাস মিউচুয়াল ফান্ড এবং মতি সোপ অন্যতম, কাজ করেন।

ঝা পরবর্তীকালে চিন্না সিনেমা (২০১৩), প্রিয়তমা নীভাচটা কুশলম (২০১৩) এবং এডুরুলেনি আলেকজান্ডার (২০১৩)-এর মতো বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন।[৪] ২০১৪ সালে, ঝা বিল্লা রাঙ্গা এবং ম্যায়নে পেয়ার কিয়া-এর মতো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন;, উভয় চলচ্চিত্রইতেলুগু ভাষায় ছিল।[৫][৬] পরবর্তীকালে ঝা মি. এমবিএ নামে একটি বলিউড চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন;[৭][৮] যার মাধ্যমে তিনি হিন্দি চলচ্চিত্র জগত তথা বলিউড জগতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিষেক করতে চলেছেন। [৯]

পেশা[সম্পাদনা]

২০০৯ সালে ঝা বলিউড চলচ্চিত্র থ্রি ইডিয়টস এ অভিনয়ের মাধ্যমে বলিউডে পা রাখেন, যেখানে তিনি "অল ইজ ওয়েল" নামক গানে একজন কলেজ শিক্ষার্থীর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। তিনি তখন পেশাদার অভিনেত্রী ছিলেন না তিনি কলেজে পড়াশোনা করাকালীন দুবাইয়ে চলে যান, সেখানে একটি নির্মাণ সংস্থায় কাজ করা শুরু করেছিলেন। তাঁর মালয়ালম অভিষেকের পরে ঝা দুটি তেলুগু চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন; যেগুলোর নাম হচ্ছে কালচক্রম এবং পার্বতী; এই চলচ্চিত্র দুটি মুক্তি পায়নি কেননা এগুলোর চিত্রায়ন মাঝ পথেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

তাঁর এই চলচ্চিত্রগুলি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় হতাশ হয়ে ঝা দুবাই চলে গিয়েছিলেন এবং তিনি এই নিরর্থকতায় (চলচ্চিত্র জগতে বোঝানো হয়েছে) আর লিপ্ত না হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। অতঃপর তাকে দুটি ভিন্ন ভাষার (যথাক্রমে কন্নড় ও তেলুগু ভাষায়) দুটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল; যেগুলোর নাম ছিল নিম্বে হুলি এবং রামচারী[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "'Nimbe Huli' croses 80,000 Internet hits". News 18.
  2. "Actress performances at FNCC New Year eve Stills"telugu.zustcinema.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৬-১০ 
  3. "Nimbe Huli Movie Review, Trailer, & Show timings at Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  4. "Eduruleni Alexander Movie Review, Trailer, & Show timings at Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  5. "REVIEW : BILLA RANGA"APHerald [Andhra Pradesh Herald] (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৬-১০ 
  6. "Movie review 'Maine Pyar Kiya': Good attempt by a debutant director!"Deccan Chronicle। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  7. "Komal Jha to make her Bollywood debut"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  8. Jha, Neha (৫ জুলাই ২০১৪)। "'Why I left Tollywood'"Deccan Chronicle। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১৬ 
  9. "Komal Jha to make her Bollywood debut"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৬-১০ 
  10. "Kannada industry needs a brand makeover"। ৮ ডিসেম্বর ২০১১। ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]