উন্মুক্ত-উৎসের সফটওয়্যার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(ওপেন-সোর্স সফটওয়্যার থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শটওয়েল ও স্ক্যানসহ ট্রিস্কল গ্নু/লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেমের স্ক্রিনশট। তিনটিই উন্মুক্ত উৎস

উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যার (ইংরেজি: Open-source software) হল এক ধরনের কম্পিউটার সফটওয়্যার যেটা উন্মুক্ত উৎস লাইসেন্সের অধীনে প্রকাশ করা হয়, এবং সফটওয়্যারটির কপিরাইট অধিকারী ব্যবহারকারীকে সফটওয়্যারটি পরিবর্তন, পরিবর্ধন, সম্পাদনা এবং উন্নয়নের অধিকার প্রদান করে একই সাথে তাকে সফটওয়্যারটি বিতরণেরও অধিকার প্রদান করে।

কিছু উন্মুক্ত উৎস লাইসেন্স মুক্ত উৎস লাইসেন্সের সংজ্ঞা মেনে প্রকাশ করা হয় আবার এমন অনেক উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যার আছে যা পাবলিক ডোমেইন লাইসেন্সের অধীনে প্রকাশিত।

উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যার প্রায় সময়ই ডেভলপ করা হয় সকলের দলগত প্রচেষ্টার মাধ্যমে। উন্মুক্ত উৎস ডেভলপমেন্টের একটি উজ্জ্বল উদাহরণ হল উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যার, একই সাথে ওপেন কন্টেন্ট আন্দোলনও দিন দিন জনপ্রিয়তা পাচ্ছে।[১]

স্ট্যান্ডিশ গ্রুপের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যার ব্যবহার করার ফলে গ্রাহকদের প্রতিবছর ৬ হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় হয়।[২][৩]

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

উন্মুক্ত উৎস উদ্যোগের লোগো

মুক্ত উৎসের সংজ্ঞা ব্যবহার করা হয় যেকোন ধরনের মুক্ত উৎস উদ্যোগের ক্ষেত্রে। কোন সফটওয়্যার লাইসেন্সসমূহ মুক্ত উৎসের আওতায় পড়বে সেটি নির্ধারনের জন্য এই সংজ্ঞা ব্যবহার করা হয়।

এই সংজ্ঞাটি তৈরী করা হয়েছে ডেবিয়ান মুক্ত সফটওয়্যার নির্দেশিকার উপর ভিত্তি করে। ব্রুস পেরেন্স সর্বপ্রথম এটি তৈরীর কাজ শুরু করেছিলেন। উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যারের সাধারণ কিছু বৈশিষ্ট্য এখানে বর্ণনা করা হয়েছে। এছাড়া ৩য় পয়েন্টে মুক্ত সফটওয়্যার এবং উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যারের মধ্যে আইনী পার্থক্য উল্লেখ করা হয়েছে। ওপেন কন্টেন্ট লাইসেন্স বিষয়ে বর্ণনা রয়েছে ৫ম এবং ৬ষ্ঠ অংশে, যেখানে এই ধরনের তথ্যের ব্যবহারকারী এবং এর ব্যবহার সম্পর্কে বলা হয়েছে। ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্স পণ্যের বাণিজ্যিক ব্যবহারের অনুমতি দেয় না।

ভূমিকা

উন্মুক্ত উৎস অর্থ শুধুমাত্র কোড দেখার অনুমতি পাওয়া নয়।
উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যার বিতরণের ক্ষেত্রে যে নীতিমালাগুলি অবশ্যই মেনে চলতে হবে সেগুলি হল:

১. পুনঃ বিতরণের স্বাধীনতা

সফটওয়্যারের লাইসেন্স কাউকে এটি বিক্রি বা বিতরণে বাধা দিতে পারবে না। একাধিক উৎস থেকে সংগৃহিত বিভিন্ন সফটওয়্যারের সমন্বয়ে একটি বিতরণ হিসাবে এটি বিতরণ করা যাবে। এবং এর জন্য লাইসেন্সধারীকে কোনো নির্দিষ্ট মূল্য বা বিক্রির পর প্রাপ্ত অর্থের কোনো অংশ দিতে হবে না।

২. উৎস কোড

প্রোগ্রামের সাথে অবশ্যই উৎস কোড থাকতে হবে, এবং একই সাথে কম্পাইল করা বা উৎসকোড বিতরণের অধিকার থাকতে হবে। বিশেষ ক্ষেত্রে সফটওয়্যারের সাথে এর উৎস কোড নাও থাকতে পারে। তবে এই উৎস কোড অবশ্যই এমন কোনো স্থানে প্রকাশিত থাকতে হবে যেন সকলে সহজেই এটি পরবর্তীতে ব্যবহারের জন্য পেতে পারে, এবং ইন্টারনেট থেকে বিনামূল্যে ডাউনলোড করার ব্যস্থা থাকতে হবে। উৎস কোডটি অবশ্যি এমনভাবে প্রকাশিত হতে হবে যেন প্রোগ্রামাররা পরবর্তীতে এটি সম্পাদনা করতে পারে। ইচ্ছাকৃতভাবে বিকৃত কোড দেয়া যাবে না। এমনকি কোডের মধ্যমরূপ যেমন আউটপুট, ট্রান্সলেটর দ্বারা অনুবাদকৃত কোন কোড এক্ষেত্রে গ্রহনযোগ্য নয়।

৩. পরিবর্তন করার সুযোগ

লাইসেন্স অবশ্যই পরিবর্তন এবং ডিরাইভড সফটওয়্যার তৈরীর অনুমতি দেয়। একই সাথে লাইসেন্সে পরিবর্তীত সংস্করণটি পূনঃবিতরণের অধিকার দেয় তবে অবশ্যই নতুন সফটওয়্যারটি মূল সংস্করনে উল্লেখিত নীতিমালাগুলি সংরক্ষিত থাকতে হবে।

৪. লেখকের উৎস কোডের শুদ্ধতা

লাইসেন্সে উৎস কোড পুনঃবিতরণ না করার ব্যাপারে নিশ্চিত করা হতে পারে যদি পরিবর্তীত উৎস কোড লাইসেন্সে এমন "প্যাচ ফাইল" তৈরী ও বিতরণের অনুমতি দেয় যা কোড কম্পাইল করার সময় মূল প্রোগ্রামটি ভিন্নভাবে পরিবর্তন করে দেয়। লাইসেন্সে অবশ্যই পরিবর্তীত উৎসকোড পুনঃবিতরণের অধিকার দিতে হবে। তবে পরিবর্তীত সংস্করণটির নাম বা ভার্সন নম্বর আলাদা হতে পারে।

৫. কোনো ব্যক্তি বা দলের প্রতি বৈশম্য নয়

লাইসেন্সে অবশ্যই কোনো ব্যক্তি বা দলের প্রতি বৈশম্য করা যা না।

৬. বিশেষ কোনো ক্ষেত্রে ব্যবহারে বাধা দান বা বৈশম্য সৃষ্টি

লাইসেন্সের মাধ্যমে কোন ভাবেই ব্যবহারকারীদের বিশেষ কোন ক্ষেত্রে ব্যবহারে বাধ্য বা বাধা দেয়া যাবে না। যেমন কোনো সফটওয়্যার ব্যবসাঅ ক্ষেত্রে ব্যবহারে বাধা দেয়া বা শুধুমাত্র গবেষনার ক্ষেত্রে ব্যবহারে বাধ্য করা যাবে না।

৭. লাইসেন্সের বিতরণ

প্রোগ্রাম ব্যবহারের ক্ষেত্রে যে সকল অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে, সেগুলি এর সকল ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে সমনভাবে প্রযোজ্য হবে। এবং সফটওয়্যারটি ব্যবহার করার ক্ষেত্রে অতিরিক্ত কোনো লাইসেন্স ব্যবহারের প্রয়োজন হবে না।

৮. লাইসেন্সটি নির্দিষ্ট কোনো পণ্যের ব্যাপারে সীমাবদ্ধ হওয়া যাবে না

প্রোগ্রামটি ব্যবহার করার ক্ষেত্রে যেসকল অধিকার সংরক্ষিত থাকবে তা কেবল মাত্র নির্দিষ্ট একটি ডিস্ট্রিবিউশনে সম্পৃক্ত হওয়ার জন্য প্রযোজ্য হওয়া যাবে না। সফটওয়্যারটি যদি মূল লাইসেন্সের অধিনে থেকে ঐ ডিস্ট্রিবিউশন থেকে আলাদা করে বিতরণ বা ব্যবহার করা হয় তবে ঐ প্রত্যেক ব্যবহারকারীই সেই সকল অধিকার পাবে যা ডিস্ট্রিবিউশনের সাথে থাকা অবস্থায় সফটওয়্যারের মূল সংস্করণে দেয়া হয়েছে।

৯. লাইসেন্সের মাধ্যমে অন্যান্য কোনো সফটওয়্যারেও বিধিনিষেধ আরোপ করা যাবে না

এই লাইসেন্সের অধীনে প্রকাশিত এবং অন্যান্য সফটওয়্যারের সমন্বয়ে তৈরী ডিস্টিবিউশনের ক্ষেত্রে লাইসেন্সের মাধ্যমে ঐ সকল সফটওয়্যারের জন্য কোনো ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করা যাবে না। উদাহারণ স্বরূপ বলা যেতে পারে, লাইসেন্সে এমন কিছু উল্লেখ করা যাবে না যেন কম্পিউটারে এই সফটওয়্যারের পাশাপাশি অন্য যেসকল সফটওয়্যার ব্যবহার করা হবে প্রত্যেকটিই মুক্ত উৎস হতে হবে।

১০. লাইসেন্স নির্দিষ্ট কোনো প্রযুক্তির ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ রাখা যাবে না

লাইসেন্সের কোনো অংশের মাধ্যমে এটি নির্দিষ্ট কোনো প্রযুক্তি বা ব্যবহারকারী মাধ্যমের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ করা যাবে না
— মুক্ত উৎস আন্দোলন, http://opensource.org/docs/osd

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ফ্রি সফটওয়্যার আন্দোলন শুরু হয় ১৯৮৩ সালে। পরবর্তীতে ১৯৯৮ সালে ফ্রি সফটওয়্যার এর পরিবর্তে উন্মুক্ত উৎস সফটওয়্যার ইংরেজি: open source software (OSS) কথাটি ব্যবহার শুরু হয়। এর মাধ্যমে আন্দোলনের মূল কথাগুলি সঠিকভাবে প্রকাশ করা বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে ব্যবহারে সহজ হয়।[৪] সফটওয়্যার ডেভলপারগণ তাদের তৈরী সফটওয়্যার মুক্ত উৎস লাইসেন্সের অধীনে প্রকাশ করে থাকেন যেন অন্যান্য ব্যবহারকারীরা এই সফটওয়্যারের উপর ভিত্তি করে নতুন কোনো সফটওয়্যার তৈরী করতে পারে অথবা এটির অভ্যন্তরীন বিভিন্ন বৈশিষ্ট বুঝতে পারে। মুক্ত উৎস সফটওয়্যার সমূহ সাধারণত যে কোন ব্যবহারকারী সম্পাদনা করতে, নতুন অপারেটিং সিস্টম এবং প্রসেসর আর্কিটেকচারের উপযোগী করে তৈরী করতে বিতরণ এবং বাজারজাত করার অনুমতি দেয়। স্কলার ক্যাসন এবং রায়ন গবেষণার মাধ্যমে মুক্ত উৎস সফটওয়্যার ব্যবহার করার বেশ কিছু কারণ অনুসন্ধান করেছেন।-

মুক্ত উৎসের সংজ্ঞা, উল্লেখযোগ্যভাবে মুক্ত উৎস দর্শনকে উপস্থাপন করে। একই সাথে এর মাধ্যমে মুক্ত উৎস সফটওয়্যারসমূহ ব্যবহার, সম্পাদনা, বিতরণ পদ্ধতির প্রতি দিক নির্দেশনা দেয়। সফটওয়্যার লাইসেন্সের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের এমন কিছু অধিকার দেয়া হয় যা অন্যান্য ক্ষেত্রে কপিরাইন আইনে মালিকের নিকট সংরক্ষিত থাকে।

বহুল ব্যবহৃত মুক্ত উৎস পণ্য[সম্পাদনা]

সাধারণত মুক্ত উৎস সফটওয়্যার প্রকল্পসমূহ তৈরী এবং ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকেন একদল স্বেচ্ছাসেবক প্রোগ্রামার। অত্যধিক জনপ্রিয় মুক্ত উৎস পণ্যের মধ্যে রয়েছে অ্যাপাচি এইচটিটিপি সার্ভার, ই-কমার্স প্লাটফর্ম ওএসকমার্স, ইন্টারনেট ব্রাউজার মোজিলা ফায়ারফক্সগ্নু/ লিনাক্স হল অন্যতম সফল মুক্ত উৎস প্রকল্প, এটি একটি মুক্ত উৎস ইউনিক্স-সদৃশ অপারেটিং সিস্টেম[৫][৬] কিছু কিছু ক্ষেত্রে মুক্ত উৎস সফটওয়্যার ব্যবহার একটি আদর্শ হিসাবে গ্রহণ করা হয়, যেমন অ্যাসটেরিক্স (পিবিএক্স) ভিত্তিক ভিওআইপি অ্যপলিকেশন। মুক্ত উৎস স্ট্যান্ডার্ড শুধুমাত্র মুক্ত উৎস সফটওয়্যারেই ব্যবহার করা হয় এমন নয়। যেমন মাইক্রোসফট মুক্ত ডকুমেন্ট ফরম্যাট[৭] গ্রহন করার মাধ্যমে মুক্ত উৎস আলোচনায় এসেছে, মূলত তারা অফিস মুক্ত এক্সএমএল ফরম্যাট নামে একটি নতুন মুক্ত স্ট্যান্ডার্ড তৈরী করেছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Verts, William T. (২০০৮-০১-১৩)। "Open source software"World Book Online Reference Center 
  2. Rothwell, Richard (২০০৮-০৮-০৫)। "Creating wealth with free software"Free Software Magazine। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-০৮ 
  3. "Standish Newsroom - Open Source" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। Boston। ২০০৮-০৪-১৬। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-০৮ 
  4. Raymond, Eric S. (১৯৯৮-০২-০৮)। "Goodbye, "free software"; hello, "open source""। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৮-১৩ 
  5. Michael J. Gallivan, “Striking a Balance Between Trust and Control in a Virtual Organization: A Content Analysis of Open Source Software Case Studies”, Info Systems Journal 11 (2001): 277–304
  6. Hal Plotkin, “What (and Why) you should know about open-source software” Harvard Management Update 12 (1998): 8-9
  7. name="papers.ssrn.com"