উলুবেড়িয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
উলুবেড়িয়া
ইএসআই হাসপাতাল, উলুবেড়িয়া।
ইএসআই হাসপাতাল, উলুবেড়িয়া।
উলুবেড়িয়া পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
উলুবেড়িয়া
উলুবেড়িয়া
ভারতের পশ্চিমবঙ্গে উলুবেড়িয়ার অবস্থান।
স্থানাঙ্ক: ২২°২৮′ উত্তর ৮৮°০৭′ পূর্ব / ২২.৪৭° উত্তর ৮৮.১১° পূর্ব / 22.47; 88.11স্থানাঙ্ক: ২২°২৮′ উত্তর ৮৮°০৭′ পূর্ব / ২২.৪৭° উত্তর ৮৮.১১° পূর্ব / 22.47; 88.11
দেশ India
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
জেলাহাওড়া
উচ্চতা১ মিটার (৩ ফুট)
জনসংখ্যা (২০০১)
 • মোট২,০২,০৯৫
ভাষাসমূহ
 • সরকারিবাংলা, ইংরেজি
সময় অঞ্চলIST (ইউটিসি+5:30)
লোকসভা নির্বাচন কেন্দ্রউলুবেড়িয়া
বিধানসভা নির্বাচন কেন্দ্রউলুবেড়িয়া পূর্ব

উলুবেড়িয়া ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের হাওড়া জেলার একটি শহর ও পুরসভা এলাকা। এটি উলুবেড়িয়া মহকুমার সদর দফতর। এটি কলকাতা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (কেএমডিএ) আওতাধীন এলাকার একটি অংশ। শহরটি এর শিল্প-বলয়ের জন্য বিখ্যাত ৷

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

ভারতের ২০০১ সালের আদমশুমারি অনুসারে, উলুবেড়িয়া শহরের জনসংখ্যা হল ২০২,০৯৫ জন।[১] এর মধ্যে পুরুষ ৫২% এবং নারী ৪৮%।

এখানে সাক্ষরতার হার ৬৪%। পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ৭০% এবং নারীদের মধ্যে এই হার ৫৮%। সারা ভারতের সাক্ষরতার হার ৫৯.৫%, তার চাইতে উলুবেড়িয়া-র সাক্ষরতার হার বেশি।

এই শহরের জনসংখ্যার ১৩% হল ৬ বছর বা তার কম বয়সি। পুরসভার তথ্য অনুযায়ী, ৩৩.৭২ বর্গ/কিমি এলাকায় ২ লক্ষ ৩২ হাজার ২৯০ জন (সেনসাস, ২০১১) জনসংখ্যা নিয়ে গঠিত উলুবেড়িয়া পুরসভা। উক্ত জনসংখ্যার মধ্যে বার্ধক্য ভাতা পান ৬৪৮৭ জন (এর মধ্যে ৫৮৫ জন ৮০ বছরের উর্ধ্বে), বিধবা ভাতা পান ২৮০১ জন এবং প্রতিবন্ধী ভাতা পান ২৬৩ জন মানুষ। মোট ৯৫৫১ জন বিধবা ভাতা, বার্ধক্য ভাতা ও প্রতিবন্ধী ভাতা পান উলুবেড়িয়া পুরসভা থেকে।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

উলুবেড়িয়া একটি শিল্প-শহর। ২০০৬ সালে ইন্দোনেশিয়ার 'সেলিম গ্ৰুপ' এখানে একটি মোটরসাইকেল কারখানায় ২৫০ মিলিয়ন ডলার অর্থ বিনিয়োগের জন্য পরিকল্পনা করেছিল।

পরিবহন[সম্পাদনা]

উলুবেড়িয়ায় রয়েছে ৬ নং জাতীয় সড়ক, দক্ষিণ-পূর্ব রেলওয়ে জ়োন, এবং শহরের মধ্য দিয়ে চলে গিয়েছে ওড়িশা ট্যাঙ্ক রোড, যা শহর উলুবেড়িয়ার মূল সড়কপথ হিসেবেও পরিচিত। উলুবেড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন দ্বারা শহরটি পরিষেবাপ্রাপ্ত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ভারতের ২০০১ সালের আদম শুমারি"। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০০৬