উত্তরা ইন্দো-আর্য ভাষাসমূহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
উত্তরা ইন্দো-আর্য
পাহাড়ী
ভৌগলিক বিস্তারনেপাল এবং উত্তর-পশ্চিম ভারত
ভাষাগত শ্রেণীবিভাগইন্দো-ইউরোপীয়
উপবিভাগ
গ্লোটোলগindo1310[১]
দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তর ইন্দো-আর্য ভাষাসমূহ; উত্তরা আর্য ভাষাগুলি বেগুনি রঙে বর্ণিত

উত্তরা ইন্দো-আর্য ভাষাগোষ্ঠী বা পাহাড়ি ভাষা নামে পরিচিত এই ভাষাগোষ্ঠী ইন্দো-আর্য ভাষা পরিবারের অন্তর্গত এবং হিমালয়ের নিম্ন পার্বত্য অঞ্চলে পূর্ব দিকে নেপাল থেকে পশ্চিমে ভারতের উত্তরাখণ্ডহিমাচল প্রদেশ রাজ্য হয়ে জম্মু ও কাশ্মীরের জম্মু বিভাগ অবধি বিস্তৃত৷[২]

শ্রেণীবিন্যাস[সম্পাদনা]

পাহাড়ী ভাষাগুলিকে তিনটি উপশ্রেণীতে ভাগ করা যায়৷

পূর্বা পাহাড়ী
কেন্দ্রীয় পাহাড়ী
পশ্চিমা পাহাড়ী
  • পশ্চিমা পাহাড়ী ভাষাগোষ্ঠীর মধ্যে রয়েছে উত্তরাখণ্ডের জৌনসার অঞ্চল থেকে পশ্চিম দিকে জম্মু অবধি বিস্তৃত একাধিক ভাষাগুচ্ছ, যার মধ্যে ডোগরিকাংড়ি ভাষা সর্বাধিক প্রচলিত৷

তুলনা[সম্পাদনা]

নেপালি অক্ষর
তুলনামূলক ভাষা
  খশকুরা কুমায়ূনী কাশ্মীরি
  পুং স্ত্রী পুং স্ত্রী পুং স্ত্রী
আছি ছু ছু ছিক ছু ছুস ছেস
আছো ছাস ছেস ছাই ছি ছুখ ছেখ
আছে ছে ছি ছুহ্ ছেহ্

পশ্চিমা পাহাড়ীর বিষয়ে জানার ঝোঁক কম৷ তারা তিব্বতি-বর্মা ভাষাগুলির সংস্পর্শে থাকার কোনো সূত্র পাওয়া যায় না৷ উত্তর পশ্চিম থেকে পূর্ব থেকে তিব্বতি ভাষার মিশ্রণ ক্ষীণ হয়ে আসে৷ শব্দ তালিকার ক্ষেত্রে পশ্চিমা পাহাড়ী ভাষাগুলির সাথে সহজেই উত্তর পশ্চিমের ইন্দো-আর্য দারদীয় ভাষা ও নূরিস্তানী ভাষার মিল পাওয়া যায়৷[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. হ্যামারস্ট্রোম, হারাল্ড; ফোরকেল, রবার্ট; হাস্পেলম্যাথ, মার্টিন, সম্পাদকগণ (২০১৭)। "ইন্দো-আর্য উত্তরা ক্ষেত্র"গ্লোটোলগ ৩.০ (ইংরেজি ভাষায়)। জেনা, জার্মানি: মানব ইতিহাস বিজ্ঞানের জন্য ম্যাক্স প্লাংক ইনস্টিটিউট। 
  2. Masica, Colin P. (১৯৯১)। The Indo-Aryan languages। Cambridge language surveys। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 439। আইএসবিএন 978-0-521-23420-7 
  3. "Jumli"Ethnologue: Languages of the World। SIL International। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ডিসেম্বর ২০১২ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  4. "Nepali"Ethnologue: Languages of the World। SIL International। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ডিসেম্বর ২০১২ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  5. "Kumaoni"Ethnologue: Languages of the World। SIL International। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ডিসেম্বর ২০১২ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]