ইপ্সিতা পাটি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইপ্সিতা পাটি
Ipsita Pati at Fashion Theatrical fashion show.jpg
ফ্যাশন থিয়েট্রিকাল অনুষ্ঠানে ইপ্সিতা
জন্ম (1991-06-18) ১৮ জুন ১৯৯১ (বয়স ৩০)[১]
জাতীয়তাভারতীয়
পেশামডেল, অভিনেত্রী[৪], গায়িকা, নৃত্যশিল্পী , লোকহিতৈষী.
কর্মজীবন২০০৮–বর্তমান
উচ্চতা১.৭৫ মিটার (৫ ফুট ৯ ইঞ্চি)
পিতা-মাতাব্যোমকেশ পাটি (বাবা)
পূজা পাটি (মা)[৫][৬]

ইপ্সিতা পাটি হলেন একজন ভারতীয় মডেল, অভিনেত্রী, গায়িকা, নৃত্যশিল্পী এবং লোকহিতৈষী। তিনি ভারতীয় "প্রিন্সেস মিস এশিয়া" এবং মিস ইন্টারন্যাশনাল সহ বেশ কয়েকটি সুন্দরী প্রতিযোগিতায় জয়লাভ করেছেন। তিনি ২০১৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত হিন্দি চলচ্চিত্র চোর বাজারী-তে অভিনয় করেছেন। ওড়িশার বুগুদার বুধখোলে ইপ্সিতা পাটি ভগবান শিব ও পার্বতীর চল্লিশটি বড় বড় মূর্তি দান করেছিলেন। অভিনেত্রী ইপ্সিতা পাটি ভারতীয় জনতা পার্টির কর্মসূচির কারণেএই দলে যোগদান করেছেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ইপ্সিতা পাটি ১৯৯১ সালের ১৮ই জুন তারিখে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের বিশাখাপত্তনমের স্টীল পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছেন, সেখানেই তাঁর পরিবারের সাথে তিনি তাঁর শৈশব অতিবাহিত করেছেন। তাঁর বাবা ব্যোমকেশ পাটি একজন এজিএম (সহকারী সাধারণ ব্যবস্থাপক), চিত্রশিল্পী এবং তাঁর মা পূজা পাটি একজন অভিনেত্রী এবং মডেল ছিলেন, যিনি ওড়িয়া এবং বাংলা চলচ্চিত্রে কাজ করার পাশাপাশি ২০০৬ সালের গ্ল্যাডরাগস মিসেস ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন। তাঁর ছোট বোন অন্বেষা পাটি একজন অভিনয়শিল্পী। ইপ্সিতা দিল্লি পাবলিক স্কুল থেকে স্কুল জীবনের পড়াশোনা শেষ করেছিলেন এবং শ্রীচৈতন্য আইআইটি একাডেমি হতে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা গ্রহণ করেছিলেন। তিনি স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করার পর বর্তমানে অন্ধ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকশাসন বিভাগে স্নাতকোত্তর করছেন।[৭][৮]

পেশা[সম্পাদনা]

মাত্র ১৬ বছর বয়সে ইপ্সিতা পাটি প্রথমবারের মতো একজন মডেল হিসেবে র‌্যাম্পে হেঁটেছিলেন।[৯] ২০০৮ সালে, তিনি মিস দক্ষিণ ভারতের খেতাব অর্জন করেছিলেন। ২০১০ সালে, তিনি মিস ইউনিভার্স ইন্ডিয়ার ফাইনালে উঠেছিলেন।[১০] তিনি ২০১০ সালের আই অ্যাম শি - মিস ইউনিভার্স ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন এবং শীর্ষ ৩০-এর চূড়ান্ত প্রতিযোগীদের মধ্যে একজন হয়েছিলেন, তবে পরে তাঁকে তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল।[১১] পাটি অভিযোগ করেছিলেন যে তাঁকে তালিকা থেকে "ইচ্ছাকৃতভাবে অপসারণ করা হয়েছে" এবং আয়োজকদের বিরুদ্ধে "পক্ষপাতমূলক মনোভাব" রাখার এবং তাঁকে "মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন" করার জন্য অভিযোগ করেছেন।[১২] তিনি ভুবনেশ্বর মহিলা থানায় এবং জাতীয় মানবাধিকার কমিশনে এই অভিযোগ দায়ের করেছিলেন।[১৩][১৪]

২০১১ সালে, তিনি থাইল্যান্ডে ভারতীয় প্রিন্সেস[১৫] খেতাব এবং স্পেনের মিস ইন্টারকন্টিনেন্টাল ভারত এবং ২০১২ সালে, ফেমিনা মিস ইন্ডিয়ার পিপলস চয়েস অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছিলেন।[১৬][১৭][১৮][১৯][২০] তিনি মিস ইন্টারন্যাশনাল[৯][২১][২২] এবং ২০১৩ সালে মিস এশিয়া খেতাবও অর্জন করেছেন।

ইপ্সিতা পাটি ২০১৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত হিন্দি চলচ্চিত্র চোর বাজারী-এ অভিনয় করার মাধ্যমে অভিনয় জগতে পদার্পণ করেছেন; যেখানে তিনি কেন্দ্রীয় নারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন।[১০] সেলেবস ট্রেন্ড নাউ-এর মতে তিনি একজন সফল অভিনেত্রী। তিনি ১৯৯১ সালের ১৮ই জুন তারিখে জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত শিল্পীদের তালিকায় স্থান করে নিয়েছিলেন। এছাড়াও সর্বাধিক জনপ্রিয় অভিনেত্রীদের তালিকায়ও তাঁর অবস্থান রয়েছে। পাটি যথাক্রমে অন্ধ্র প্রদেশ এবং ওড়িশা রাজ্য সরকার থেকে অন্ধ্র রত্ন এবং যুব আইকন পুরস্কার লাভ করেছেন।[২৩][২৪][২৫]

পুরস্কার এবং প্রশংসা[সম্পাদনা]

ইপ্সিতা তাঁর চলচ্চিত্র জীবনের বেশ কয়েকটি পুরস্কার জয়লাভ করেছেন; যার মধ্যে ২০১১ সালে "প্রথম ভারতীয় রাজকুমারি (থাইল্যান্ড) অন্যতম।[১৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  2. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  3. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  4. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  5. "Ipsita pati"Odishabuzz.com। ২০১৬-১১-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-২৬ 
  6. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  7. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  8. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  9. "Tiaras to tinsel town"Deccan Chronicle। ১৩ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  10. Patnaik, Santosh (১৪ জুন ২০১৫)। "Chor Bazaari girl dreams big"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  11. Priya Ranjan Sahu (৯ জুন ২০১০)। "Oriya beauty levels charges against Sushmita"Hindustan Times। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  12. Priya Ranjan Sahu; Minakshi Saini (১১ জুন ২০১০)। "'Sush cheated me'"Hindustan Times। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  13. "Model fires torture charge at pageant – 18-yr-old moves National Human Rights Commission for justice"The Telegragh India। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  14. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  15. By odishaviews (২০১২-০৯-০৯)। "The First Indian Princess of India – Ipsita Pati"। Odisha Views। ২০১৬-০৯-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-২৬ 
  16. "In Pics: Miss Facebook Ipsita Pati goes gaga over Bhopal"Dainik Bhaskar। ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  17. Sumit Bhattacharji (১০ জুন ২০১১)। "Sydney ho!"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  18. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  19. "These super sexy pictures of beauty queen Ipsita Pati will make you go 'Wow'!"OdishaSunTimes.com। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। ১৬ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  20. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  21. Sumit Bhattacharji (২৮ মে ২০১১)। "Beauty and brains"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  22. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  23. Diana Sahu (৩ জুলাই ২০১২)। "People's choice"Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 
  24. "Ipsita pati"wikiandbio.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৮ 
  25. Ganguly, Nivedita (২০ জুন ২০১৪)। "From fashion to films"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]