আলাপ:বেহেশতী জেওর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

জুন ২০২১[সম্পাদনা]

@আফতাবুজ্জামান: কয়েকদিনের জন্য সুরক্ষা দেওয়া হোক। বইটি নিয়ে একটি অনলাইন ডিবেট অনুষ্ঠিত হয়েছে। -ধর্মমন্ত্রী ওয়াইস আলাপ ০৬:০৫, ৭ জুন ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]

নাম[সম্পাদনা]

@Safi Mahfouz: বইটি পূর্বের নাম প্রচলিত–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ০৮:৩৭, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]

@Owais Al Qarni: ভুল বানান প্রচলিত হওয়ার দ্বারা সঠিক হয়ে যায়না। (বি: দ্র: "দেওবন্দী"-ও কিন্তু বেশি প্রচলিত)• — সাফি মাহফুজ 《ডাকঘর》 ০৮:৪৬, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]
@Safi Mahfouz: দেওবন্দি একটা বিশেষণ। ব্যক্তি বা বইয়ের নাম নয়। ব্যক্তি বা বইয়ের নাম উল্লেখিত ব্যক্তি বা প্রকাশক যেভাবে লিখেছেন হুবহু সেভাবে লিখতে হয়। এক্ষেত্রে ভুল/শুদ্ধ হয় না। আমরা অনেক সময় ব্যক্তির নাম অনুবাদ করি, সেক্ষেত্রে ভুল/শুদ্ধ হতে পারে। কারণ বাংলাটা তার স্থানীয় নাম নয়। কিন্তু বইয়ের ক্ষেত্রে প্রকাশক যেটা দেয় সেটা।–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ০৮:৫৩, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]
@Owais Al Qarni: আপনি নিশ্চয়ই অবগত আছেন, "বেহেশতি"-ও একটি বিশেষণ। "দেওবন্দ" এর সাথে ইয়ায়ে নিসবত যুক্ত হওয়ার কারণে "দেওবন্দি" হয়েছে, একই বিষয় "বেহেশত" শব্দের সাথেও হয়েছে। আর উল্লেখ্য; উক্ত বইটি মূলত উর্দু, তাই এর নামটিও উর্দু (বেহেশতি ফারসি, জেওর উর্দু)। আর বাংলা অনুবাদগ্রন্থের প্রকাশক কি নাম দিলো না দিলো, তা ডিপেন্ড করেনা। যেহেতু সে মূল বইয়ের স্বত্ত্বাধিকারী (বানান মনে পরছেনা) নয়। তাই নাম প্রতিবর্ণীর ক্ষেত্রে নির্ধারিত নিয়ম অনুসরন করা উচিত। • — সাফি মাহফুজ 《ডাকঘর》 ০৯:১৬, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]
@Safi Mahfouz: নামের কোনো বিশেষ্য-বিশেষণ হয় না। নাম পদটাই বিশেষ্য। অনূদিত বইয়ের ক্ষেত্রে যিনি প্রথমে অনুবাদ করেছেন তার নামটাই ধর্তব্য। @আফতাবুজ্জামান: ভালো বলতে পারবেন।–ধর্মমন্ত্রী (আলাপ) ১১:২১, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]
@Safi Mahfouz এবং Owais Al Qarni: কাউকে খুশি বা অখুশি করার উদ্দেশ্যে মন্তব্য করছি না। আমার মতে অন্তত এখন ঈ-কার বানানে শিরোনাম থাকা উচিত। যেহেতু বইয়ের নামের বানান হিসেবে "বেহেশতী" নামটা অতি প্রচলিত, ব্যবহৃত। ভবিষ্যতে যদি "বেহেশতি" প্রচলিত হয়ে যায়, তবে আমরা সেই সময় নাম পরিবর্তন করতে পারব। -- আফতাবুজ্জামান (আলাপ) ১৭:৫৯, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]
@আফতাবুজ্জামান: বেশ কিছু বানান অধিক প্রচলিত/ব্যবহৃত হওয়া সত্ত্বেও বাংলা উইকিপিডিয়ায় তা পরিবর্তন করা হয়েছে। আমি যতদূর জানি অধিক প্রচলিত হওয়া (বাংলা উইকিপিডিয়ার মতে) শুদ্ধ হবার প্রমাণ বহন করেনা, যদি তা ভূল হয়। আর এখানে বাংলা উইকিপিডিয়ার একটি নিবন্ধের সঠিক বানানের ব্যাপারে আলোচনা হচ্ছে, কারো খুশি বা অখুশি হবার কোন বিষয় নেই। • — সাফি মাহফুজ 《ডাকঘর》 ০৬:৪৬, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]
@Safi Mahfouz: হ্যাঁ কিন্তু সেসবের অপর বানানটি কিছুটা হলেও প্রচলিত। সংখ্যার হিসেবে বলতে গেলে, হয়ত ক ৬০% আর খ ৪০% হওয়া সত্ত্বেও সঠিক বানান হিসেবে খ-কে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে (আমি জানি পক্ষে ও বিপক্ষে বহু ব্যতিক্রম দেখানো সম্ভব)। কিন্তু এই মুহুর্তে এই বইয়ের বানান হিসেবে "বেহেশতি" একদম প্রচলিত নয়; যদি এটা বাংলায় না অনূদিত হত, প্রচলিত না হত, "বেহেশতি জেওর"-এ আমার আপত্তি থাকত না (ই-কারের বেশ ব্যবহার থাকা সত্ত্বেও প্রচলিত বানান ব্যবহারের একটি আলোচনা হিসেবে আলাপ:নবী দেখা যেতে পারে)।
বাংলা অক্ষরে লেখা এই "বেহেশতী জেওর" নামবাচক বিশেষ্যও বটে, সবচেয়ে বড় বিষয় এটি বাংলায় প্রসিদ্ধ। আমাদের বাংলা নামবাচক বিশেষ্যের ভুল-শুদ্ধ ধরা অনুচিত, বরং বাংলা নামবাচক বিশেষ্য হিসেবে এটার যে বানান প্রচলিত, প্রসিদ্ধ তাই ব্যবহার করা উচিত। নাম পরিবর্তনের জন্য, আমাদের এই মুহুর্তে "বেহেশতি জেওর" বানান প্রচলিত হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা উচিত। -- আফতাবুজ্জামান (আলাপ) ১৪:৫২, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]
@আফতাবুজ্জামান: যদিও আমার ব্যক্তিগত মতানুসারে "বেহেশতি"-ই সঠিক, তবে আপাতত প্রচলিত নামের উপর গুরুত্ব দিয়ে আমার সম্পাদনা রোলব্যাক করে নিচ্ছি। যদিও আমার মনে হয়না, বাঙালীরা কখনও এই নামের ক্ষেত্রে ঈ-কারের চেয়ে ই-কারকে প্রাধাণ্য দিবে, কারণ এসব বিষয়ে আমরা খুবই উদাসীন। আর "নবী-নবি" এর বিষয়টাই আলাদা। কারণ, "বেহেশতি/বেহেশতী" শব্দের শেষের ই/ঈ-কারটি "বেহেশত"-এর সাথে সম্মন্ধিত বস্তু বোঝাতে আনা হয়েছে। তবে নবী (نبي) শব্দের শেষের ঈ-কারটা তার মূল অক্ষরের অন্তর্ভুক্ত।• — সাফি মাহফুজ 《ডাকঘর》 ১৬:০০, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]