আলাপ:ইয়াদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

মুসলমানদের ইয়াদ সম্পর্কে জানতে চাই (ধর্ম-নির্বিশেষে সকলের অংশগ্রহণ কাম্য)[সম্পাদনা]

আমার পর্যবেক্ষণে দেখেছি, ইহুদিদের ইয়াদ-এর মতো একটি অনুষঙ্গ মুসলমানরাও ব্যবহার করেন ক্বোরআনের আয়াত নির্দেশ করার জন্য, ধরে ধরে পড়ার জন্য। সিলেটে, কাগজকে ভাঁজ করে ত্রিকোণাকৃতি দিয়ে বানানো এই বিশেষ অনুষঙ্গকে বলা হয় খুৎবর। খুৎবর দেখতে সম্পূর্ণই কাগজ ভাঁজ করে বানানো একটা সমকোণী ত্রিভুজ। ...আমার মামীর কাছে শুনেছি, বরিশালে নাকি একে তিলা, তিলকা ইত্যাদি নামে ডাকা হয়। কিন্তু তিনি আমাকে তথ্যটির ব্যাপারে নিশ্চিত করতে পারেননি।
আমার প্রশ্ন হচ্ছে:

১. এই বস্তুটা কি বাংলাদেশ-ভারতের অন্যান্য অঞ্চলেও ব্যবহৃত হয় কিনা, এবং হলে, কী নামে ডাকা হয়?
২. এই বস্তুটা কি হিন্দুরা ব্যবহার করেন কিনা ধর্মগ্রন্থ পাঠ করার কাজে, কিংবা পাতার মধ্যে চিহ্ন দিতে?

যে বা যাঁরাই এবিষয়ে জানেন, খোঁজ নিয়ে জানতে পারবেন, অনুগ্রহ করে সাড়া দিন। যদি তথ্যসূত্র থাকে, তো খুব ভালো, উইকিপিডিয়াতেও তথ্য যোগ করা যাবে। তথ্যসূত্র না থাকলেও, ব্যক্তিগত সত্য-অনুসন্ধানও আমার কাজে লাগবে। নামটা জানা খুব জরুরি, কারণ নাম জানা গেলে খোঁজার পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়া যাবে। (প্রসঙ্গটা খানিকটা আমার ব্যক্তিগত, সেজন্য ক্ষমাপ্রার্থী। কিন্তু জ্ঞানের প্রশ্নে আসলে সব প্রশ্নই স্বাগতম। তাই এই অন্যায় আবদার।) —মঈনুল ইসলাম (আলাপ * অবদান) ১১:১১, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ (ইউটিসি)[উত্তর দিন]