আমিইউন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আমিইউন
أميون (আরবি)
Αμιούν (গ্রিক)
City
Map showing the location of Amioun within Lebanon
Map showing the location of Amioun within Lebanon
আমিইউন
Location within Lebanon
স্থানাঙ্ক: ৩৪°১৮′০″ উত্তর ৩৫°৪৮′০″ পূর্ব / ৩৪.৩০০০০° উত্তর ৩৫.৮০০০০° পূর্ব / 34.30000; 35.80000স্থানাঙ্ক: ৩৪°১৮′০″ উত্তর ৩৫°৪৮′০″ পূর্ব / ৩৪.৩০০০০° উত্তর ৩৫.৮০০০০° পূর্ব / 34.30000; 35.80000
Country লেবানন
GovernorateNorth Lebanon Governorate
DistrictKoura District
প্রতিষ্ঠা করেনPhoenicians
আয়তন
 • মোট১,১৩৭ বর্গকিমি (৪৩৯ বর্গমাইল)
 along the "Cedars' way"
সর্বোচ্চ উচ্চতা৩৩০ মিটার (১,০৮০ ফুট)
সর্বনিন্ম উচ্চতা২৯৮ মিটার (৯৭৮ ফুট)
জনসংখ্যা (2010)
 • মোট১০,৬৫৮[১]
 • Religion৯৯.৫% Eastern Orthodox
সময় অঞ্চলEET (ইউটিসি+2)
 • গ্রীষ্মকালীন (দিসস)EEST (ইউটিসি+3)
Dialing code+961 6
ওয়েবসাইটhttp://www.amioun.org

আমিউন (আরবি: أميون‎‎, গ্রিক: Αμιούν) উত্তর লেবাননের গ্রিক অর্থোডক্স কর্তৃত্বাধীন কৌরার (গ্রিক: χώρα) রাজধানী।[২]

বুৎপত্তি[সম্পাদনা]

আমিইউন শহরের নাম এসেছে আরামাইক ভাষার "অ্যাম ইয়াওয়ান" থেকে, যার অর্থ "গ্রীকদের জায়গা", অথবা সুরক্ষিত শহর। অমিউন খ্রিস্টপূর্ব ২য় সহস্রাব্দের আগের একটি প্রাচীন পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত এবং এই সময়কালে এই শহরটিকে "অ্যামিয়া" নামে অভিহিত করা হতো।[৩] অ্যামিয়া শব্দটি টেল এল অমর্ণার চিঠিতে উদ্ধৃত হয়েছিল, যা খ্রিস্টপূর্ব ১৪০০ সালের দিকে স্থানীয় গভর্নররা তাদের অধিপতি, মিশরের ফারাওদের কাছে প্রেরণ করেছিলো। ঐতিহাসিক আনিস ফ্রেইহা লেবাননের শহর ও গ্রামগুলির নাম সম্পর্কে তার ব্যুৎপত্তিগত গবেষণায় উদ্ধৃত করেছেন যে অ্যামিয়া সেমিটিক শব্দ ইমন থেকে এসেছে, যার অর্থ "অদম্য দুর্গ"।

জনগোষ্ঠী[সম্পাদনা]

আমিইউনের জনসংখ্যা ১০,৬৫৮। এর জনসংখ্যার বেশিরভাগ লেবাননের বাইরে থাকে। প্রায় সমস্ত বাসিন্দা গ্রিক অর্থোডক্স চার্চ অফ অ্যান্টিওকের অনুসারী । আমিইউন লেবাননের বৃহত্তম পূর্ব অর্থোডক্স শহর এবং লেভান্টের মধ্যে মহার্দেহ, আল- সুকায়লাবিয়াহ এবং কাফর বুহুম এর পরে চতুর্থ বৃহত্তম (সমস্ত সিরিয়ায়)।

ধর্ম[সম্পাদনা]

আমিইউনে তেরটি পূর্ব অর্থোডক্স গির্জা রয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য: সেন্ট জর্জ এল ডাহেলিজ, সেন্ট জন আল শিয়ার, আল সায়িদেহ, সেন্ট সের্গিয়াস, সেন্ট বারবারা, সেন্ট ডোমিয়াস, সেন্ট মেরিনা, সেন্ট ফোকাস, সেন্ট সাইমন, সেন্ট জর্জ আল-কাফার এবং সেন্ট গালা।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

এখানে তিনটি সরকারি এবং দুটি বেসরকারী স্কুল রয়েছে। বালাম্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয় নিকটে, 12 কিলোমিটার (7.5 মাইল) উত্তরে অবস্থিত। এখানে একটি পাবলিক লাইব্রেরি এবং একটি বেসরকারী হাসপাতাল রয়েছে।

ভূগোল[সম্পাদনা]

অ্যামিয়ুন হাইওয়ে

উত্তর লেবাননের বুকে অবস্থিত আমিইউন কৌরার প্রশাসনিক কেন্দ্র। আমিইউন সমুদ্রতল থেকে প্রায় ৩৭০ মিটার (১০৮৩ ফুট) উঁচুতে এবং বৈরুত থেকে উত্তর-উত্তর পূর্বে প্রায় ৭৮(৪৮.৫ মাইল) কিলোমিটার দূরে। এটি ঈশ্বরের সিডার থেকে প্রায় ৪২ কিলোমিটার (২৬ মাইল) এবং উত্তর গভর্নরের রাজধানী ত্রিপোলি থেকে ১৮ কিলোমিটার (১১ মাইল) দূরে।

পূর্ব থেকে পশ্চিমে প্রসারিত সুন্দর পাহাড়ের শৃঙ্খলে, সমুদ্র এবং পাহাড়ের মাঝে অবস্থিত আমিইউনের নিজস্ব অবস্থান এবং স্বতন্ত্র প্রাকৃতিক দৃশ্যপট রয়েছে। আমিইউন ঘিরে যে পাহাড়, তার উত্তরে জলপাই বাগান এবং দক্ষিণে আঙ্গুর, বাদাম ও জলপাই গাছ। পাহাড়ের গা ঘেঁষে চলে গেছে বৈরুত-সিডারস প্রধান মহাসড়কের পিচঢালা রাস্তাগুলি। আগে এই পাহাড়গুলিতে ঘরবাড়ির সংখ্যা বেশ কম ছিলো, সেজন্য আমিইউনকে "সুন্দর পাহাড়ের শহর" বলা হত। বাইব্লোস, ব্যাট্রোন, চেক্কা এবং কাফারহাজির হাইওয়ে দিয়ে অ্যামিইউন যাওয়া যায়। বোহসাস, দহর-আল-আইন, আবা এবং বিশ্মিজাইন হয়েও ত্রিপোলি হয়ে এখানে পৌঁছোনো যায়।

আমিইউন জলপাই গাছগুলির জন্যও পরিচিত, যা সম্ভবত বিশ্বের প্রাচীনতম,[৪] এবং উচ্চ গ্রেডের জলপাই তেল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২৮ জন মানবসৃষ্ট ক্রিপ্টস cl

আমিইউন একটি অতি প্রাচীন মানব অঞ্চল, যার ইতিহাস পুরা প্রস্তর যুগ থেকে খুঁজে পাওয়া যায়। এর পুরাতন শহরের শিলায় নির্মিত ছোট ছোট গুহাগুলির সংখ্যা দ্বারা এর প্রমাণ পাওয়া যায়। বিগত বছরগুলিতে, বেশ কয়েকটি ফরাসী এবং জার্মান প্রাচ্যবিদ-যার মধ্যে প্রধানত ছিলেন ফরাসী আর্নেস্ট রেনান, এটি পরিদর্শন করেন, এর প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানগুলি অধ্যয়ন করেন এবং সেগুলি সম্পর্কে লেখেন। প্রাচীন সেমেটিক লোকেরা খ্রিস্টপূর্ব ৪০০০ সালের দিকে এই অঞ্চলে এসেছিল বলে মনে করা হয়।

ফাদার ল্যামেন্স তাঁর The Monuments of Lebanon গ্রন্থে বেশ কয়েকটি শহরের কথা উল্লেখ করেছেন, যার মধ্যে একটি হল 'অ্যামিয়া' (পৃষ্ঠাঃ ৭৬)। যদি এই সংযোগটি সঠিক হয় তবে আমিইউন লেবাননের বুকে প্রাচীনতম শহর হিসেবে বিবেচিত হতে পারে।

প্রাচীন, মধ্যযুগীয় বা আধুনিক যাই হোক না কেন আমিইউনের ইতিহাস বিভিন্ন ঐতিহাসিক সময়কালে তার চিহ্ন রেখে গেছে। এর বিভিন্ন স্মৃতিচিহ্নগুলি থেকে এমনও সময়কাল শনাক্ত করা যায় যখন বিভিন্ন পৌত্তলিক ধর্মগুলি প্রাধান্য পাচ্ছিল। খ্রিস্ট ধর্ম আবির্ভাবের সাথে সাথে, আমিইউনের পৌত্তলিক মন্দিরগুলো গির্জায় রূপান্তরিত হয়েছে।

বিশেষ ভৌগোলিক স্থান[সম্পাদনা]

সেন্ট জন "আল শিয়ার" গির্জা (ক্লিফ)
  • সেন্ট জর্জ ক্যাথেড্রাল: এটি শহরের সবচেয়ে জনবহুল স্থানে একটি প্রাক্তন মন্দিরের উপরে স্থাপিত।লেবাননের সরকারি বিদ্যালয় চৌক্রাল্লাহ আল-নবাব্বতে ইতিহাসের একজন প্রশিক্ষকের লেখা একটি বিজ্ঞপ্তিতে এমনটি উল্লেখ করা হয়েছে।
  • সেন্ট জন "আল-সিয়ার" গির্জা: পাহাড়ের দক্ষিণ-পূর্ব সম্মুখভাগের দিকের কয়েকটি ভল্টের উপরে একটি পাথুরে পাহাড়ে অবস্থিত। ক্রুসেডার চার্চের ফেকডের ২৮ টি মনুষ্যনির্মিত ক্রিপ্টগুলির উপরে একটি প্যানোরামিক ত্রয়ীদৃশ্য (১০৯৯-১১০০)। যার কার্বন-ডেটিং থেকে এর বয়স ধারণা করা হয় ১৫,০০০-২৪,০০০ বছর।
  • আমিইউনের শহর, আমিইউন যুদ্ধক্ষেত্র হিসেবেও পরিচিত। আমিইউন যুদ্ধ ৬৯৪ খ্রিস্টাব্দে মুরিক ও মুরিকিয়ান নেতৃত্বাধীন এবং কিছু মনোথেলবাদের সমর্থক বাইজেন্টাইন সৈন্যদের মধ্যে সংঘটিত হয়।

বিংশ শতাব্দীতে, বড় কিছু পরিবর্তন স্থানীয় জনগোষ্ঠীর মাঝে ব্যাপক পরিবর্তন আনে, যা মূলত কৃষিকাজ, জলপাই, জলপাই তেল এবং সাবান উৎপাদনের উপর ভিত্তি করে ছিল। এর ফলস্বরূপ লেবাননের বিশাল জনগোষ্ঠী, প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষ উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] এবং এর বেশিরভাগই চিকিত্সা ক্ষেত্রে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিবর্গ[সম্পাদনা]

  • নাসিম নিকোলাস তালেব (বিখ্যাত প্রাবন্ধিক, পণ্ডিত, পরিসংখ্যানবিদ, প্রাক্তন ব্যবসায়ী, এবং ঝুঁকি বিশ্লেষক)
  • অ্যালেক্স আজার (ইউএস হেলথ সেক্রেটারি)।[৫]
  • জর্জ এন এতিয়াহ
  • সেলিম সাদেহ (লেবাননের সংসদ সদস্য)
  • সেলিম এল বাদাউই (কৌড়া জেলার প্রথম উদ্যোক্তা)
  • ক্যারেন চামাস
  • জ্যাক নাসের (ফোর্ড মোটর কোম্পানির প্রাক্তন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা)
  • জ্যাকোবো মজলুত আজার[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ( ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্রের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি )
  • ডাঃ নাইম এন আতিয়াহ (শিক্ষাবিদ, মনোবিজ্ঞানী, আন্তর্জাতিক পরামর্শক, অধ্যাপক, স্কুল অফ এডুকেশন, ইউনেস্কোর ডিন)

অবস্থান[সম্পাদনা]

আধুনিক শহর অমিউন একটি প্রত্নতাত্ত্বিক গুরুত্বসম্পন্ন টিলার উপর অবস্থিত। এর প্রধান আকর্ষণ হল ক্রুসেডার আমলে স্থানীয় জৈষ্ঠিকদের দ্বারা রোমীয় মন্দিরের ভান্ডারের উপর নির্মিত মার জুুরিয়াস (সেন্ট জর্জ) গির্জা এবং মার ফৌকা বা সেন্ট ফোকাস চার্চগুলি। সেন্ট ফোকাসের পুরো অভ্যন্তরটি দ্বাদশ এবং ত্রয়োদশ শতাব্দীর বাইজেন্টাইন স্টাইলের দেয়াল পেইন্টিংগুলির দিয়ে আবৃত। তৃতীয় চার্চটি হল আধুনিক লাল-ছাদযুক্ত মার ইউহান্না (সেন্ট জন), যার দক্ষিণ পূর্ব দিকে উন্মুক্ত সমাধি এবং পাথুরে পর্বতগাত্রে অবস্থিত।[৬] পুরানো শহরের সরকারি ভবন বা "সেরাইল" এর কাছে রয়েছে মেরিনার চ্যাপেল, এটি একটি প্রাচীন সমাধি খিলান যেটিকে পরে একটি চ্যাপেলে রূপান্তর করা হয়।

গির্জা এবং মঠ[সম্পাদনা]

অ্যামিইউনে গির্জা, মঠ ও মন্দিরের মতো খ্রিস্টীয় উপাসনার ১৩ টি স্থান রয়েছে।

ক্যাথেড্রালস

  • সেন্ট জর্জ এল ডাহেলিজ (গ্রীক অর্থোডক্স) এর ক্যাথেড্রাল

গীর্জা

  • সেন্ট জন আল শিয়ার গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • আল সায়িদেহ (আমাদের মহিলা) গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • সেন্ট সার্জিওস গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • সেন্ট বার্বারার গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • সেন্ট ডমিতোস গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • এন্টিওকের সেন্ট মার্গারেট|সেন্ট মেরিনা গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • সেন্ট ফোকাস গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • সেন্ট গালা (আমাদের মহিলা) গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • সাইমন দ্য জিলিয়ট গির্জা (গ্রীক অর্থোডক্স)

মঠ

  • সেন্ট জর্জ আল-কাফার মঠ (গ্রীক অর্থোডক্স)

মন্দির

  • সেন্ট মেরিনার গুহা (গ্রীক অর্থোডক্স)
  • সেন্ট জর্জ এর পবিত্র স্থান (ধ্বংসপ্রাপ্ত গ্রিক অর্থোডক্স চার্চ)

যমজ শহর এবং বোন শহর[সম্পাদনা]

আমিইউন এর যমজ ও বোন শহরগুলো হলো:

অন্যান্য তথ্য[সম্পাদনা]

কৌড়া গ্রাম
ঘ। আবা ঘ। আফসডিক ঘ। আইন আকরিন ঘ। আলী-আল-মুরান
৫। অ্যামিয়ুন ।। আনফাহ 7। বদেভৌন 8। বারঘৌন
9। বার্সা 10। দেব্বা 11। ব্যাট্রোমাইন 12। বিসমিজাইন
13। ভবাউচ 14। বিশ্রিয়াটা 15। কোমরা 16। নেয়েল
17। বোহসাস 18। টোররাম 19। টোরাটিজ 20। কেফটাইন
21। নেহরণ 22। সারমা 23। টাবৌরা 24 জিজা
25। চার্লিটা 26। চিড়া 27। দহর-আল-আইন 28। দারবেচটার
29। ডার্কমেজাইন 30 দেদ্দেহ 31। ফিহ 32। ইজডেব্রাইন
33। কাফতুন 34। কিফরায্যা 35। কেলবাটা 36। কেলহাট
37। ফারাক্কা 38। ফারহাতা 39। ফারহাজির 40 কাফেরকাহেল
41। ফারসারুন 42। কাউসবা 43। মাজিরিত তোলা 44। মিত্রিট
45। মিজডেল 46। নাখলেহ 47। রাশেডবাইন 48 রাস মাসকা
49। রস ওস্তা 50 ওয়াটা ফারেস 51। জাকরউন 52। জাকজুক

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

  • লেবানন শহরগুলির তালিকা
  • লেবাননে পূর্ব অর্থোডক্স খ্রিস্টান
  • গ্রিক অর্থোডক্স চার্চ অফ এন্টিওক
  • বালামন্ড বিশ্ববিদ্যালয়
  1. Amioun. baldati.com
  2. "Municipal and ikhtiyariah elections in Northern Lebanon" (PDF)। The Monthly। মার্চ ২০১০। পৃষ্ঠা 22–23। ২০১৬-০৬-০৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ অক্টোবর ২০১৬ 
  3. North Lebanon. Lebanon-tourism.gov.lb. Retrieved on 2016-04-29.
  4. Drinkwater, Carol (২০০৬)। The Olive Route। Weidenfeld & Nicolson। আইএসবিএন 978-0-297-84789-2 
  5. <https://www.hhs.gov/about/leadership/secretary/speeches/2019-speeches/remarks-to-the-american-task-force-for-lebanon.html>
  6. Amyoun ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১১-০৫-২১ তারিখে. Ikamalebanon.com. Retrieved on 2016-04-29.

বাহ্যিক লিঙ্কগুলি[সম্পাদনা]

অতিরিক্ত ছবি:

অতিরিক্ত রেফারেন্স:

অতিরিক্ত ভৌগোলিক তথ্য: