আবদুল্লাহ কুতুব শাহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আবদুল্লাহ কুতুব শাহ
কুতুব শাহি রাজবংশের সপ্তম সুলতান
Abdullah Qutb Shah.jpg
রাজত্ব১৬২৬-১৬৭২
পূর্বসূরিসুলতান মুহাম্মদ কুতুব শাহ
উত্তরসূরিআবুল হাসান কুতুব শাহ
জন্ম১৬১৪
মৃত্যু২১ এপ্রিল ১৬৭২(1672-04-21) (বয়স ৫৭–৫৮)
বংশধর৩ কন্যা
রাজবংশকুতুব শাহি রাজবংশ
পিতাসুলতান মুহাম্মদ কুতুব শাহ
মাতাহায়াত বকশি বেগম
ভারতের হায়দ্রাবাদে আবদুল্লাহ কুতুব শাহের মাজার

আবদুল্লাহ কুতুব শাহ' (বিভিন্নভাবে অনূদিতও ছিলেন) দক্ষিণ ভারতের কুতুব শাহি রাজবংশের গোলকোন্ডা রাজ্যের সপ্তম শাসক ছিলেন। তিনি ১৬২৬ থেকে ১৬৭২ সাল পর্যন্ত শাসন করেছিলেন।[১]

সুলতান মুহাম্মদ কুতুব শাহের পুত্র আবদুল্লাহ ছিলেন বহুবিবাহ এবং কবিতা ও সংগীতের প্রেমিক। তিনি তাঁর দরবারে ক্ষেত্রায়াকে আমন্ত্রিত করেছিলেন। ক্ষেত্রায়া তাঁর রোমান্টিক কবিতার জন্য পরিচিত।[২]

রাজত্ব[সম্পাদনা]

তাঁর রাজত্ব দুঃখ ও সমস্যায় পূর্ণ ছিল। তাঁর একমাত্র সাফল্য ১৬৫২ সালে বিজয়নগর সাম্রাজ্যর সর্বশেষ রাজধানী ভেলোর দখল করে ধ্বংস করে দেওয়া। শাহ জাহানের আদেশে আওরঙ্গজেব চমকপ্রদ ভাবে হায়দ্রাবাদকে দখল করেছিলেন এবং গোলকোন্ডা দুর্গে আবদুল্লাহকে বন্দি করেছিলেন। আবদুল্লাহ আত্মসমর্পণের যুক্তিসঙ্গত শর্তাদি আলোচনার জন্য পরিশ্রম করেছিলেন তবে মুঘলরা তাকে কঠোর শর্ত মেনে নিতে বাধ্য করেছিল। যাইহোক, দুই পরিবারের মধ্যে বৈবাহিক সম্পর্কের মাধ্যমে গুরুতর শর্তগুলি মিটানো হয়েছিল। আবদুল্লাহর দ্বিতীয় কন্যা, পাদশাহ বিবি সাহিবা নামে পরিচিত, আওরঙ্গজেবের বড় ছেলে মুহাম্মদ সুলতান মির্জার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন। তিনি তাঁর প্রথম স্ত্রী ছিলেন এবং তাই তাঁর বংশধর মুঘল সম্রাট হওয়ার সম্ভাবনা ছিল দুর্দান্ত। তবে শেষ পর্যন্ত তা ঘটেনি।

এই অসুখী রাজা ১৬৭২ সালে মারা যান এবং তাঁর মেয়ে জামাই আবুল হাসান কুতুব শাহ তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন।

পরিবার[সম্পাদনা]

আবদুল্লাহর তিন মেয়ে ছিল।[৩][৪]

  • জ্যেষ্ঠ কন্যা: মুঘল রাজপুত্র মুহাম্মদ সুলতানকে বিয়ে করেছিলেন।
  • দ্বিতীয় কন্যা: পারস্যের দ্বিতীয় আব্বাসের মাতৃ ভাতিজা সৈয়দ নিজামউদ্দিন আহমদকে।
  • বাদশা বিবি: আবুল হাসান কুতুব শাহকে বিয়ে করেছিলেন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী:
সুলতান মুহাম্মদ কুতুব শাহ
কুতুব শাহি রাজবংশ
১৬২৬-১৬৭২
উত্তরসূরী:
আবুল হাসান কুতুব শাহ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Ahmed, Farooqui Salma (২০১১)। A Comprehensive History of Medieval India: From Twelfth to the Mid-Eighteenth Century (ইংরেজি ভাষায়)। Pearson Education India। আইএসবিএন 978-81-317-3202-1 
  2. Nanisetti, Serish (৫ জানুয়ারি ২০২০)। "Restoration of a Qutb Shahi tomb leads to new discovery"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। 
  3. Mohd. Ilyas Quddusi (২০০৬)। Islamic India: studies in history, epigraphy, onomastics, and numismatics। Islamic Wonders Bureau। আইএসবিএন 978-81-87763-33-8 
  4. Sarkar, Jagadish Narayan (১৯৫১)। The Life of Mir Jumla, the General of Aurangzab। Thacker, Spink। পৃষ্ঠা 301। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]