আইএনএস সিন্ধুরক্ষক (এস৬৩)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
INS Sindhurakshak (S63).jpg
আইএনএস সিন্ধুরক্ষক
ইতিহাস
ভারত
নাম: আইএনএস সিন্ধুরক্ষক
নির্মাতা: অ্যাডমিরাল্টি শিপইয়ার্ড, সেন্ট পিটার্সবার্গ
নির্মাণের সময়: ১৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৫
অভিষেক: ২৬ জুন ১৯৯৭
কমিশন লাভ: ২৪ ডিসেম্বর ১৯৯৭
ডিকমিশন: ৬ মার্চ ২০১৭[১]
অকার্যকর: ১৪ অগাস্ট ২০১৩
শনাক্তকরণ: ক্ষুদ্র পতাকার সংখ্যা: এস৬৩
নিয়তি: বোর্ডে বিস্ফোরণের কারণে ২০১৩ সালের ১৪ ই আগস্টে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে; জুন ২০১৭ সালে আরব সাগরে গভীর জলে ডুবে গেছে
ব্যাজ: আইএনএস সিন্ধুরাক্ষক
সাধারণ বৈশিষ্ট্য
প্রকার ও শ্রেণী: সিন্ধুঘোষ-শ্রেণী ডুবোজাহাজ
ওজন:
  • ২,৩২৫ টন (২,৫৬৩ শর্ট টন) ভাসিয়া ত্তঠা
  • ৩,০৭৬ টন (৩,৩৯১ শর্ট টন) নিমজ্জিত
দৈর্ঘ্য: ৭২.৬ মি (২৩৮ ফু)
প্রস্থ: ৯.৯ মি (৩২ ফু)
গভীরতা: ৬.৬ মি (২২ ফু)
প্রচালনশক্তি:
  • ২ × ৩,৬৫০ অশ্বশক্তি (২,৭২০ কিওয়াট) ডিজেল বৈদ্যুতিক মোটর
  • ১ × ৫,৯০০ অশ্বশক্তি (৪,৪০০ কিওয়াট) মোটর
  • ২ × ২০৪ অশ্বশক্তি (১৫২ কিওয়াট) সহায়ক মোটর
  • ১ × ১৩০ অশ্বশক্তি (৯৭ কিওয়াট) অর্থনৈতিক গতি মোটর
গতিবেগ:
  • ভাসিয়া ত্তঠা: ১০ নট (১৯ কিমি/ঘ)
  • স্নরকেল মোড: ৯ নট (১৭ কিমি/ঘ)
  • নিমজ্জিত: ১৭ নট (৩১ কিমি/ঘ)
সীমা:
  • স্নরকেল মোড: ৭ নট (১৩ কিমি/ঘ) গতিতে ৬,০০০ মা (৯,৭০০ কিমি)-এ
  • নিমজ্জিত: ৩ নট (৫.৬ কিমি/ঘ) গতিতে ৪০০ মাইল (৬৪০ কিমি)
সহনশীলতা: ৫২ জন ক্রু'সহ ৪৫ দিন পর্যন্ত
পরীক্ষিত গভীরতা:
  • পরিচালনাগত গভীরতা: ২৪০ মি (৭৯০ ফু)
  • সর্বোচ্চ গভীরতা: ৩০০ মি (৯৮০ ফু)
লোকবল: সাত জন কর্মকর্তা এবং ৬১ জন সৈনিক[২]
রণসজ্জা:
  • ৯এম৩৬ স্ট্রেলা-৩ (এসএ-এন -৮) পৃষ্ঠ থেকে বায়ু ক্ষেপণাস্ত্র
  • ৩এম-৫৪ ক্লুব-এস অ্যান্টি-শিপ এবং ল্যান্ড-অ্যাটাক মিসাইল
  • টাইপ ৫৩-৬৫ প্যাসিভ ওয়েক-হোমিং টর্পেডো
  • টিইসটি ৭১/৭৬ অ্যান্টি-সাবমেরিন অ্যাক্টিভ-প্যাসিভ হোমিং টর্পেডো
  • ২৪-ডিএম -১ মাইন, টর্পেডো টিউবে

আইএনএস সিন্ধুরক্ষক[৩] হল রাশিয়ায় তৈরি কিলো-শ্রেণীর ৮৭৭ইকেএম[৪][৫][৬] (সিন্ধুঘোষ-শ্রেণি) ডিজেল-বৈদ্যুতিন ডুবোজাহাজ, যা ভারতীয় নৌবাহিনীতে পরিষেবার নিয়জিত ছিল।[৭] ২৪ ডিসেম্বর ১৯৯৭ সালে ডুবোজাহাজটির কমিশন করা হয়, এটি ভারতীয় নৌবাহিনীতে দশটি কিলো-শ্রেণীর ডুবোজাহাজগুলির মধ্যে নবমতম ছিল।[৮] ২০১০ সালের ৪ জুন, ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এবং জাভেজডোচকা শিপইয়ার্ড ডুবোজাহাজের আধুনিকীকরণ ও পর্যবেক্ষণের জন্য $৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করে। পর্যবেক্ষণ ও ঢেলে সাজানোর পরে, ২০১৩ সালের মে থেকে জুনের মধ্যে রাশিয়া থেকে ভারতে ফিরে আসে।[৯]

১৪ ই আগস্ট ২০১৩ সালে ডুবোজাহাজে একটি বিশাল অগ্নিকাণ্ড এবং বিস্ফোরণ ঘটে এবং ১৮ জন ক্রু সদস্যের মৃত্যুর সাথে মুম্বাইয়ের নৌ ডকইয়ার্ডে ডুবে যায় ডুবোজাহাজটি।[১০][১১][১২][১৩][১৪]

নির্মাণ[সম্পাদনা]

রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গের অ্যাডমিরাল্টি শিপইয়ার্ডে সিন্ধুরক্ষক নির্মিত হয়। ডুবোজাহাজটির নির্মাণ কাজ ১৯৯৫ সালে শুরু হয়। এটি ১৯৯৭ সালের জুনে চালু হয় এবং ১৯৯৭ সালের ডিসেম্বরে ভারতে পৌঁছে দেওয়া হয়।[৮][১৫]

পরিষেবার ইতিহাস[সম্পাদনা]

কার্গিল যুদ্ধ (১৯৯৯)[সম্পাদনা]

১৯৯৯ সালে কার্গিল যুদ্ধের সময় সিন্ধুরক্ষক পাকিস্তানের করাচির খুব কাছাকাছি মোতায়েন ছিল।[১৬][১৭]

রাষ্ট্রপতি কালাম (২০০৬)[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রপতি এপিজে আবদুল কালাম সিন্ধুরক্ষকয়ে

১৩ ই ফেব্রুয়ারি ২০০৬ সালে, পূর্ব নৌ কমান্ডের অধীনে বিশাখাপত্তনম ঘাঁটিতে ডুবোজাহাজটি মোতায়েনের সময়, তৎকালীন রাষ্ট্রপতি এ পি জে আবদুল কালাম ডুবোজাহাজটিতে যাত্রা করার কারণে ডুবোজাহাজে যাত্রাকারী প্রথম ভারতের রাষ্ট্রপতি হন। তাঁকে একটি প্রদর্শনমূলক ভ্রমণে নিয়া যাওয়া হয়, এই সময়ে ডুবোজাহাজ কয়েক ঘণ্টার জন্য বঙ্গোপসাগরে ডুব দিয়ে যাত্রা করে। তাঁর সাথে ছিলেন নৌবাহিনী প্রধান অরুণ প্রকাশ। ডুবোজাহাজটি কমান্ডার পি এস বিশ্ট দ্বারা পরিচালিত হয়।[১৮][১৯]

দুর্ঘটনা (২০১০)[সম্পাদনা]

২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে সিন্ধুরক্ষক ডুবোজাহাজে বিশাখাপত্তনমে থাকাকালীন আগুন লাগে। এতে একজন নাবিক নিহত ও দুজন আহত হয়েছেন। নৌবাহিনীর কর্মকর্তারা জানান যে ডুবোজাহাজের ব্যাটারি বিভাগের বিস্ফোরণে আগুন লেগেছিল, যা হাইড্রোজেন গ্যাস নিঃসরণকারী ব্যাটারি ভালভের কারণে ঘটেছিল।[২০][২১]

আধুনিকীকরণ[সম্পাদনা]

২০১০ সালে অগ্নিকাণ্ডের পরে সিন্ধুরক্ষককে জুন, ২০১০ সালে বিশাখাপত্তনম থেকে ভারী লিফট জাহাজে করে রাশিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল মেরামত, ওভারহল এবং আধুনিকীকরণের জন্য, যার জন্য আড়াই বছর সময় লাগে।[২২] ২০১০ সালের আগস্টে সিন্ধুরক্ষক রাশিয়ার জাভেজডোচকা শিপইয়ার্ডে পৌঁছায়। প্রকল্প ০৮৭৭৩-এর আওতায় ডুবোজাহাজটি আধুনিকীকরণ, মেরামত ও পুনঃনির্মাণ করা হয় এবং আধুনিকীকরণের পরে, ২০১২ সালের অক্টোবরে সমুদ্রের পরীক্ষা শুরু হয়। আধুনিকীকরণের উন্নত ইলেকট্রনিক যুদ্ধ ব্যবস্থা, একটি সংহত অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা এবং একটি নতুন শীতলকরণ ব্যবস্থা অন্তর্ভুক্ত ছিল এবং ডুবোজাহাজটির পরিষেবা জীবন দশ বছর বাড়ানো হবে বলে আশা করা হয়।[২০][২৩] ক্লাব-এস (৩ইএম৫৪ই১ অ্যান্টি-শিপ এবং ৩এম১৪ই স্থল আক্রমণ) ক্ষেপণাস্ত্র, ইউএসএইচএস সোনার, এসিএস-এমকে-২ রেডিও যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং পোরপাইস রেডিও-অবস্থান নির্ণয়ক রাডার এবং অন্যান্য সুরক্ষা-বর্ধনকারী বৈশিষ্ট্যগুলি অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[৮] ডুবোজাহাজটি ২৭ জানুয়ারী ২০১৩ সালে, ভারতীয় নৌবাহিনীর কাছে ফেরত দেওয়া হয়।[১৫] এর পরে কমান্ডার রাজেশ রামকুমারের নেতৃত্বে এটি ভারতে ফেরার যাত্রা করে। এই যাত্রার মাধ্যমে প্রথম কোনও ভারতীয় ডুবোজাহাজ বরফের নিচে চলাচল করে।[২৪][২৫][২৬]

যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথয়ে সিন্ধুরক্ষক , ভারতে ফেরার পথে যেখানে নোঙ্গর করেছিল।

ভূমধ্যসাগরের ঘটনা[সম্পাদনা]

২০১৩ সালের মার্চ মাসে, মেরামত সম্পূর্ণ করে ফেরার সময়, সিন্ধুরাক্ষক ভূমধ্যসাগরে যখন আলেকজান্দ্রিয়ার কাছে ভ্রমণ করছিল, তখন প্রচণ্ড ঝড়ের মুখোমুখি হয়। এটি ডুবোজাহাজের তিন মাসব্যাপী স্থাপনার অংশের অংশ ছিল, যেখানে এটি ১০,০০০ মাইল ভ্রমণ করে।[২৩][২৭] ঝড়ের তীব্রতা আলেকজান্দ্রিয়া বন্দর কর্তৃপক্ষকে টাগ বোট পাঠাতে বাধা দেয় এবং অগভীর জল ডুবোজাহাজকে জলে ডুব দিতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। মিশরীয় নৌবাহিনীর কাছে ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের মাধ্যমে একটি জরুরি কল পাঠানো হয়, শেষ পর্যন্ত মিশরীয় নৌবাহিনী টগবোট প্রেরণ করে এবং এটি ডুবোজাহাজটি পোর্ট সাইদ পর্যন্ত টেনে নিয়ে যায়া।[২৮][২৯]

বিস্ফোরণ এবং ডুবে যাওয়া (২০১৩)[সম্পাদনা]

১৪ ই আগস্ট ২০১৩, ডুবোজাহাজ সিন্ধুরক্ষক মুম্বইয়ে নোঙ্গর করার সময় বোর্ডে আগুনের বিস্ফোরণে ডুবে যায়। সশস্ত্র ডুবোজাহাজে ধারাবাহিকভাবে বিস্ফোরণে আগুন লাগে, মধ্যরাতের পরপরই। যদিও দু'ঘণ্টার মধ্যে আগুন লাগে, বিস্ফোরণে ক্ষতি হওয়ার কারণে, সাবমেরিন আংশিকভাবে ডুবে যায় নোঙ্গর করার ঘাটের ১৫ মিটার গভীর জলে, শুধুমাত্র পালের একটি অংশ জলের পৃষ্ঠের উপরে দৃশ্যমান ছিল।[২৩][৩০][৩১][৩২][৩৩] বোর্ডে তিনজন নাবিক নিরাপত্তার উদ্দেশ্যে সমুদ্রে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। নৌবাহিনীর ডুবুরিদের আনা হয়, কারণ সেখানে ১৮ জন কর্মী আটকা পড়েছিল এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী এ কে অ্যান্টনি নিশ্চিত করেন যে সেখানে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে।[১৩] অন্যান্য সূত্র জানায় যে মধ্যরাতের দিকে একটি ছোট্ট বিস্ফোরণ ঘটে, যা পরে দুটি বৃহত বিস্ফোরণ ঘটায়।[২৩][৩৪]

বিস্ফোরণের কারণে, ডুবোজাহাজের সামনের অংশটি বেঁকে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে যায় এবং সামনের অংশে জল প্রবেশ করে। আর একটি ডুবোজাহাজ, আইএনএস সিন্ধুঘোষ বিস্ফোরণের সময়ে মুম্বাই নৌ ডকইয়ার্ডে সিন্ধুরক্ষক-এর খুব কাছাকাছি নোঙ্গর করা ছিল; এবং আগুনে সামান্য ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল, যদিও নৌবাহিনী ক্ষতির পরিমাণ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেনি।[৩০][৩৫] আশেপাশের নৌযানের আরও ক্ষয়ক্ষতি রোধ করার জন্য সিন্ধুরক্ষকের দ্বৈত হুল প্রদান করা হয়।[৩২][৩৬][৩৭] তৎকালীন সরকারি সূত্র জানিয়েছিল যে ডুবোজাহাজটি পরিষেবাতে ফিরতে "অত্যন্ত সম্ভাবনা" নেই। নৌবাহিনী উদ্ধার অভিযান শেষ হওয়ার পরে জাহাজের মাল রক্ষা করার কাজ শুরু করার পরিকল্পনা করে।[৩৮][৩৯] ১৯ আগস্টের মধ্যে সাতটি মরদেহ উদ্ধার করা হয় এবং ১১ জন নিখোঁজ ছিল।[৪০][৪১][৪২] ৩১ আগস্ট, এগারো জন উদ্ধারকৃত দেহকে শনাক্ত করা হয় এবং সামরিক সম্মানের সাথে শেষকৃত্যের জন্য বাড়িতে পাঠানো হয়।[৪৩]

নৌবাহিনীর থেকে প্রাথমিক প্রতিবেদনে ইঙ্গিত দেওয়া হয় যে "একটি দুর্ঘটনা বা গোলাবারুদের ব্যবহারে অনিচ্ছাকৃত অসাবধানতা" এই বিস্ফোরণের কারণ ছিল; ডুবোজাহাজটির উদ্ধার কাজ সম্পূর্ণ হওয়ার পরে পুরো ঘটনার প্রতিবেদনই সম্পন্ন হবে।[৪৪][৪৫][৪৬] উদ্ধার চুক্তিটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক রিসলভ মেরিন গ্রুপের সহযোগী সংস্থা রিজলভ ইন্ডিয়াকে ৩১ জানুয়ারী ২০১৪ সালে প্রদান করা হয়।[৪৭] ৬ জুন ২০১৪ সালে ডুবোজাহাজটি সমুদ্র পৃষ্ঠে উত্তোলন করা হয়।[৪৮] ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে, তদন্তের একটি ন্যাশনাল কোর্ট প্রাথমিক সিদ্ধান্তে পৌঁছায় যে কর্মীদের ক্লান্তির ফলে মানসিক ত্রুটি বিপর্যয়ের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। একজন প্রবীণ কর্মকর্তা বলেছিলেন যে "কর্মীরা তাদের নির্ধারিত সময়ের বাইরে কাজ করছিলেন। ক্লান্তি এবং ক্লান্তি মানসিক ত্রুটি সৃষ্টি করেছিল, যা দুর্ঘটনাটির দিকে পরিচালিত করেছিল। আদর্শ পরিচালনা পদ্ধতিগুলি (স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর) বেশ কয়েকটি স্তরে লঙ্ঘন করা হয়েছিল।"[৪৯] ভারতের নিয়ন্ত্রক ও নিরীক্ষক জেনারেলের ২০১৭ সালের একটি প্রতিবেদনে নৌবাহিনীর তদন্ত বোর্ডের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন যে "ডুবোজাহাজ কর্তৃপক্ষ কর্মীদের ক্লান্তির যথাযথ মূল্যায়ন করতে পারেনি, তদুপরি, ডুবোজাহাজটি পরিষেবার মেয়াদ শেষ হওয়ার কাছাকাছি সময়ে গোলাবারুদ ধারণ করেছিল"।[৫০]

প্রথমদিকে, নৌবাহিনী সিন্ধুরক্ষককে উদ্ধার করার পরে ব্যবহার করার ব্যাপারে আশাবাদী ছিল, তবে ২০১৫ সালের নৌবাহিনী দিবসে উপ-নৌসেনাপতি চিমা নিশ্চিত করেছেন যে সিন্ধুরক্ষককে বরখাস্ত করা হবে।[৫১][৫২][৫৩] সামুদ্রিক কমান্ডো প্রশিক্ষণের জন্য কিছু সময় ব্যবহারের পরে, ডুবোজাহাজটি ২০১৭ সালের জুন মাসে আরব সাগরে ৩,০০০ মিটার গভীর জলে নিমজ্জিত করা হয়।[৫৪][৫৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Submarine Sindhurakshak to be decommissioned before rains - Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ৯ মার্চ ২০১৭ 
  2. "Sindhughosh Class"। Indian Navy। ১৯ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  3. "18 sailors feared killed in INS Sindhurakshak explosion"Livemint। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৩ 
  4. "Project 877 Paltus Kilo-class Submarine"Rian। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১৩ 
  5. "INS Sindhurakshak tragedy: Defence PRO says chances of survivors unlikely"India Today। ১৬ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১৩ 
  6. "'India should seek Russian help in INS Sindhurakshak rescue': Defence experts"Business Standard। ২৩ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১৩ 
  7. "Sindhughosh Class - Active submarines of the Indian Navy"। Indian Navy। ১৯ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  8. "INS Sindhurakshak was refitted in Russia's Zvezdochka shipyard"India Today। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  9. "Fire-ravaged Indian Navy submarine sinks, Antony confirms deaths"। The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  10. "ডুবোজাহাজে বিস্ফোরণ, আশঙ্কা মৃত ১৮"। আনন্দবাজার পত্রিকা। ১৫ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জানুয়ারি ২০২০ 
  11. "Submarine INS Sindhurakshak sinks after major blast in Mumbai; all 18 feared dead"Deccan Chronicle। ১৪ আগস্ট ২০১৩। ১৭ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  12. "Submarine Sindhurakshak sinks after blast, casualties feared"The Hindu। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  13. "India's defence minister confirms deaths on submarine"। ITV। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  14. "Huge blow to Indian Navy as submarine explodes with 18 men"। The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  15. "Russia hands over to India refitted submarine"Zee News। ২৭ জানুয়ারি ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  16. "Torpedoes are coolest place to sleep on"The Times of India। ১৭ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৩ 
  17. Dey, J (১৭ আগস্ট ২০১৩)। "INS Sindhurakshak tragedy: We revisit the late J Dey's 2009 report on the submarine"Mid Day। Mumbai। ২০১৩-১১-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৭-৩১ 
  18. "Kalam's sortie in INS Sindhurakshak"The Hindu। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৩ 
  19. "When an ecstatic Kalam rode the INS Sindhurakshak"India Today। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৩ 
  20. "Explosion on Indian Navy submarine INS Sindhurakshak possibly due to gas buildup"। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  21. "Fire mishap on INS Sindhurakshak due to explosion in battery: Navy"। Hindustan Times। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০। ১৭ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  22. Commodore (Retd) Ranjit B Rai। "The Indian Navy's Submarine Arm is Dependable"। India Strategic। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১৩ 
  23. "Explosion Partly Sinks Indian Naval Submarine"The New York Times। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  24. "Sindhurakshak Set"Russian Embassy, India। ২৭ জুন ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  25. "Russia to modernize fifth Indian submarine"। RIA Novosti। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১০ 
  26. "Zvezdochka Ship Repair Delivers Upgraded Submarine Sindhurakshak to Indian Navy"Naval Today। ১ ফেব্রু ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  27. "Russian-Built Submarine Catches Fire in Mumbai, Sailors Feared Dead"The Moscow Times। ১৫ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৩ 
  28. "Egyptian Navy rescued Sindhurakshak in April"Indian Express। ১৫ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৫ আগস্ট ২০১৩ 
  29. "Indian submarine INS Sindhurakshak in distress gets Egyptian help"The Economic Times। ২৭ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৫ আগস্ট ২০১৩ 
  30. "International help to salvage sunken submarine"Business Standard। ২০ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০ আগস্ট ২০১৩ 
  31. "PHOTOS: INS Sindhurakshak submarine submerges after explosion Photo Gallery, Picture News Gallery"। The Indian Express। ১৮ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৩ 
  32. "INS Sindhurakshak fire set off torpedoes causing minor damage to INS Sindhuratna; fate of 18 sailors on board, Initial immediate Salvage was conducted by Grafftech Marine & Engineering Pvt Ltd, a registered marine firm with the Indian Navy for providing diving & dredging services, the Salvage operation was headed as an joint military operations by Capt. Varun Singh MARCOS OIC CCDT & Dypt CEO (Salvage Expert) - Harish Naidu under the continued monitoring of INS VAJRABAHU IMMEDIATE BASE-HQ for ekm submarines, HQWNC, CCDT (Command clearance diving team) HQ-WNC (Headquarters Western Naval Command), initial cadaver were salvaged in multiple parts."DNA India। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  33. "Fears for 18 as Indian navy submarine explodes and sinks in Mumbai"The Guardian। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  34. "ভারতীয় ডুবোজাহাজে বিস্ফোরণ"। প্রথম আলো। ১৫ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জানুয়ারি ২০২০ 
  35. "Divers reach front cabin"The Telegraph। ১৯ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০ আগস্ট ২০১৩ 
  36. "INS Sindhurakshak tragedy: Submarine's twin hulls contained fire, reduced losses"Indian Express। ১৬ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৩ 
  37. "INS Sindhurakshak: A Sindhughosh-class submarine with latest weapons"IBN Live। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  38. "INS Sindurakshak: Indian Navy mulls over roping in Singapore firm for salvage"DNA India। ১৬ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৩ 
  39. "INS Sindhurakshak: Indian navy's submarine woes"। BBC News। ১৪ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৩ 
  40. "Seventh body recovered from INS Sindhurakshak"The Hindu। ১৯ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১৩ 
  41. "INS Sindhurakshak: Sixth body recovered, divers continue search in zero visibility"Indian Express। ১৮ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১৩ 
  42. "Navy divers recover 5 bodies from Indian submarine INS Sindhurakshak"। CNN। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৩ 
  43. PTI (৩১ আগস্ট ২০১৩)। "Sindhurakshak tragedy: Six bodies to be sent to hometowns"Zee News। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৩ 
  44. "Forget salvaging sunk sub INS Sindhurakshak, Navy yet to float tender"DNA India। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ অক্টোবর ২০১৩ 
  45. "Navy's probe into submarine INS Sindhurakshak tragedy nowhere near completion"The Times of India। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ অক্টোবর ২০১৩ 
  46. Nazakat, Syed; Dasgupta, Anupam (৩ মার্চ ২০১৪)। "'Sub'dued"The Week। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৪ 
  47. Narayan, V (১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "Indian arm of US company wins Sindhurakshak salvage bid"Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৪ 
  48. "US firm salvages INS Sindhurakshak out of water"Firstpost। ৬ জুন ২০১৪। 
  49. "Tired crew may have caused mishap on INS Sindhurakshak"Hindustan Times। ৯ ডিসেম্বর ২০১৪। ২২ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  50. "Indian Navy likely to appoint inspector general to ensure safety of warships"hindustantimes.com/ (ইংরেজি ভাষায়)। Hindustan Times। ২০ জুলাই ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৮ 
  51. Mumbai (৪ ডিসেম্বর ২০১৫)। "Submarine Sindhurakshak to be disposed of soon: Vice Admiral"The Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ৯ মার্চ ২০১৬ 
  52. "Indian Navy hopeful of using submarine that sank"Hindustan Times। ৩ ডিসেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  53. "Possible reuse of Sindhurakshak being explored"The Hindu। ৩ ডিসেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  54. Singh, Rahul (১০ জুলাই ২০১৭)। "Defunct submarine Sindhurakshak finally disposed of"Hindustan Times। New Delhi। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  55. Rajput, Rashmi (৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭)। "Navy sinks 'graveyard' INS Sindhurakshak"Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]