অলিভার কান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
অলিভার কান
16-04-11-Pressekonferenz ARD und ZDF Fußball-EM 2016 RalfR-WAT 7205d.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম অলিভার রলফ কান
জন্ম (১৯৬৯-০৬-১৫) জুন ১৫, ১৯৬৯ (বয়স ৪৭)
জন্ম স্থান Karlsruhe, পশ্চিম জার্মানি
উচ্চতা ১.৮৮ মি (৬ ফু ২ ইঞ্চি)
মাঠে অবস্থান গোলরক্ষক
ক্লাবের তথ্য
বর্তমান ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখ
জার্সি নম্বর
তারূণ্যের কর্মজীবন
১৯৭৫–১৯৮৭ Karlsruher SC
বলিষ্ঠ কর্মজীবন*
বছর দল উপস্থিতি
(গোল)
১৯৮৭–১৯৯৪
১৯৯৪–
Karlsruher SC
বায়ার্ন মিউনিখ
১২৮ (০)
৪২১ (০)
জাতীয় দল
১৯৯৪–২০০৬ জার্মানি ৮৬ 0(০)
* পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে এবং ৮ মার্চ২০০৮ তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

‡ জাতীয় দলের হয়ে খেলার সংখ্যা এবং গোল ১২ আগস্ট২০০৭ তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

অলিভার রলফ কান (জন্ম ১৫ জুন ১৯৬৯) একজন জার্মান গোলরক্ষক।, কার্লস রুহে'র এসসি দলের পক্ষে তিনি পেশাদার খেলা শুরু করেন। ১৯৯৪ সালে তিনি বর্তমান ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখে যোগ দেন। সাম্প্রতিককালের জার্মান খেলোয়াড়দের মধ্যে তিনিই সফলতম। দলের সাথে তিনি সাতটি জার্মান চ্যাম্পিয়নশিপ, পাঁচটি জার্মান কাপ, উয়েফা কাপ (১৯৯৬)। উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগইন্টারকন্টিনেন্টাল কাল (দুটিই ২০০১ সালে) জিতেছেন। তার ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের কারণে তিনি পরপর চারবার উয়েফা শ্রেষ্ঠ ইউরোপীয় গোলরক্ষক পুরস্কার এবং দুটি বর্ষসেরা জার্মান ফুটবলার পুরস্কার পেয়েছেন। ১৯৯৪ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি জার্মানির পক্ষে খেলেছেন। ২০০২ সালের বিশ্বকাপে তিনি জার্মানির মূল গোলরক্ষক হিসেবে খেলেছেন এবং ব্যক্তিগত নৈপুণ্য দেখিয়ে গোল্ডেন বল পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। কানকে প্রায়ই কিং কান নামে ডাকা হয়।[১] or "The Titan."[২]

ব্যক্তি ও পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

কান জার্মানির কার্লস্রুহে তে জন্মগ্রহণ করেন।মাধ্যমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন হেলমহোলট্‌জ জিমন্যাসিয়াম কার্লস্রুহে তে তারপর হেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন অর্থনীতি বিষয়ে পড়াশোনার জন্যে,কিন্তু পড়াশোনা শেষ করতে পারেননি।তার স্ত্রীর নাম ছিল সিমোনে,তাদের দুই সন্তান রয়েছে।২০০৯ সালে কান সিমোনের সাথে বিবাহ বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন।[৩] কানের বাবা রোল্‌ফ কান সাবেক পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড় ছিলেন।

সম্মাননা[সম্পাদনা]

বায়ার্ন মিউনিখ[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Marc Heidenreich (২০০৩-০৪-১৫)। "Training mit "King Kahn"" (German ভাষায়)। ZDF.de। সংগৃহীত ২০০৭-১১-১১ 
  2. "Der Titan sagt Servus" (German ভাষায়)। Vanity Fair। ২০০৭-০৭-১৩। সংগৃহীত ২০০৭-১১-১১ 
  3. "Oliver Kahn lässt sich scheiden" (German ভাষায়)। spiegel.de। ১৭ আগস্ট ২০০৯। সংগৃহীত ৪ অক্টোবর ২০০৯