ইউসেবিও

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
ইউসেবিও
Eusébio 2001.jpg
২০০১ সালে ইউসেবিও
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ইউসেবিও দা সিলভা ফেরেইরা
জন্ম (১৯৪২-০১-২৫)২৫ জানুয়ারি ১৯৪২
জন্ম স্থান মাপুতো, মোজাম্বিক [১]
মৃত্যু ৫ জানুয়ারি ২০১৪(২০১৪-০১-০৫) (৭১ বছর)
মৃত্যুর স্থান লিসবন, পর্তুগাল
উচ্চতা ১.৭৫ মিটার (৫ ফুট ৯ ইঞ্চি)
মাঠে অবস্থান ফরওয়ার্ড
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর দল উপস্থিতি (গোল)
১৯৫৭-১৯৬০ Sporting de Lourenço Marques ৪২ (৭৭)
১৯৬০-১৯৭৫ বেনফিকা ৩০১ (৩১৭)
১৯৭৫ Boston Minutemen (২)
১৯৭৫ Monterrey ১০ (১)
১৯৭৫১৯৭৬ Toronto Metros-Croatia ২৫ (১৮)
১৯৭৬ Beira-Mar ১২ (৩)
১৯৭৬১৯৭৭ Las Vegas Quicksilvers ১৭ (২)
১৯৭৭১৯৭৮ União de Tomar ১২ (৩)
১৯৭৮১৯৭৯ New Jersey Americans (৫)
মোট ৪৩০ (৪২৮)
জাতীয় দল
১৯৬১-১৯৭৩ পর্তুগাল[২] ৬৪ (৪১)
  • পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে।
† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

ইউসেবিও, পুরো নাম ইউসেবিও দা সিলভা ফেরেইরা, (জন্ম: জানুয়ারি ২৫, ১৯৪২, মোজাম্বিক, মৃত্যু:৫ জানুয়ারি ২০১৪) একজন প্রাক্তন পর্তুগীজ ফুটবলার। ভক্তরা তাকে 'কালো চিতা' (ইংরেজি: Black Panther) বলে থাকে। প্রচন্ড গতি, চমৎকার ড্রিবলিং আর নিঁখুত শুটিং-এর জন্য বিখ্যাত এই ফুটবলারকে ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই স্ট্রাইকার ৪১টি আন্তর্জাতিক গোল করেছিলেন মাত্র ৬৪ ম্যাচে।[৩] তিনি তার ফুটবলীয় জীবনে ৭৪৫টি পেশাদার ম্যাচ খেলে ৭৩৩টি গোল করেছিলেন।

জন্ম ও শৈশব[সম্পাদনা]

ইউসেবিও দা সিলভা ফেরেইরার জন্ম দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ২৫ জানুয়ারি ১৯৪২ সালে পর্তুগালের তৎকালীন উপনিবেশ মোজাম্বিকের মাপুতো শহরে। বাবা লোরিন্দো অ্যান্টনিও দা সিলভা ফেরেইরার ছিলেন অ্যাঙ্গোলিয়ান রেল শ্রমিক। এবং মা এলিসা বেনি ছিলেন আফ্রিকান কৃষ্ণাঙ্গ। তিনি তার ভাই বোনদের মধ্যে চতুর্থ ছিলেন। ছোটবেলা থেকেই ইউসেবিওর ছিল ফুটবলের অদম্য নেশা।

ক্লাব ফুটবল[সম্পাদনা]

ক্লাব ফুটবলে বিভিন্ন ক্লাবে খেললেও ক্যারিয়ার সেরা সময়ের সম্পূর্ণটাই খেলেছেন পর্তুগালের বেনফিকা ক্লাবে। এই ক্লাবের হয়ে ৩০১টি ম্যাচে তিনি ৩১৭টি গোল করেছেন। বেনফিকার হয়ে তিনি ১৫ বছর খেলেন। এসময় ১০টি লিগ চ্যাম্পিয়নশিপস ও পাঁচটি পর্তুগিজ কাপ এবং ১৯৬২ সালে ইউরোপিয়ান কাপ জেতেন ইউসেবিও।[৩] বেনফিকার হয়ে তিনি ১৯৬২ ইউরপীয় বর্ষসেরা ফুটবলারের খেতাব অর্জন করেন।

জাতীয় দল[সম্পাদনা]

পর্তুগাল জাতীয় দলের হয়ে ১৯৬১ থেকে ১৯৭৩ সালের মধ্যে মোট ৬৪টি খেলায় তার গোলসংখ্যা ৪১।[৩] ১৯৬৬ সালের বিশ্বকাপে পর্তুগালের তৃতীয় স্থান লাভের পেছনে প্রধান ভূমিকা রেখেছেন। এই আসরে তিনি ৬ ম্যচ খেলে ৯টি গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা হন। এর মাঝে বিশেষভাবে স্মরণীয় উত্তর কোরিয়ার বিপক্ষে পর্তুগালের কোয়ার্টার ফাইনাল খেলাটি। এতে মাত্র ২৪ মিনিটের মধ্যে উত্তর কোরিয়া ৩-০ গোলে এগিয়ে যায়। এরপরও পর্তুগাল ম্যাচ জেতে ৫-৩ গোলে, যার ৪টি গোল একাই করেছিলেন ইউসেবিও। ইংল্যান্ডের কাছে সেমিফাইনালে ২-১ গোলে হারের পর তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নকে ২-১ গোলে হারিয়ে আসরে তৃতীয় হয় পর্তুগাল।[১]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

ফুটবল জগৎে অনেক কীর্তি গড়ে অমর হয়ে থাকলেও ইউসেবিও হৃদরোগের সাথে প্রতিদ্বন্দ্ব্বীতায় কীর্তি গড়তে পারলেননা। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি তিনি ৭১ বছর বয়সেই না ফেরার দেশে চলে যান। তার মৃত্যুতে ফুটবল অঙ্গণে স্তব্ধতা নেমে আসে। তার মৃত্যুতে বর্তমান পর্তুগীজরিয়াল তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, সাবেক পর্তুগীজ ফুটবলার লুইস ফিগো, সাবেক পর্তুগীজ ও বর্তমান চেলসি কোচ হোসে মরিনহো, ফিফা সভাপতি সেপ ব্ল্যাটার, পর্তুগীজ রাষ্ট্রপতি সহ অনেকে শোক জ্ঞাপন করেন। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো টুইটে বলেনঃ

সবসময় চিরন্তন থাকবেন ইউসেবিও, শান্তিতে ঘুমান।

মৃত্যুর পর ভক্তদের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য তার কফিন বানফিকোর পতাকা জড়িয়ে বানফিকো ক্লাব স্টেডিয়ামে রাখা হয়। [৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "বিদায় 'কালো চিতা'"প্রথম আলো৬ জানুয়ারি ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৪, ২৩ পৌষ ১৪২০ বঙ্গাব্দ, সোমবার  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. Pierrend, José Luis (২৯ অক্টোবর ২০০৫)। "Eusébio Ferreira da Silva – Goals in International Matches" (ইংরেজি ভাষায়)। Rec.Sport.Soccer Statistics Foundation। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৪, ২৩ পৌষ ১৪২০ বঙ্গাব্দ, সোমবার  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  3. "ফুটবল কিংবদন্তি ইউসেবিওর জীবনাবসান"দৈনিক কালের কন্ঠ৬ জানুয়ারি ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৪, ২৩ পৌষ ১৪২০ বঙ্গাব্দ, সোমবার  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  4. "চলে গেলেন পর্তুগাল ফুটবল কিংবদন্তি ইউসেবিও"সময়। ২০১৪-০১-০৬। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৪, ২৩ পৌষ ১৪২০ বঙ্গাব্দ, সোমবার  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]