অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মাপানুসারে অঙ্কন, পানির নিচে
দক্ষিণ ক্যারোলিনার মারে হ্রদ ১৯২৭ সালে যখন নির্মাণাধীন ছিল তখনকার সময়ের শিলা-বাড়ি বসতি চিত্রের বামে প্রদর্শিত হয়েছে এবং মধ্য ও ডানের চিত্রে ২০০৫ সালে পানির ১০০ মিটার গভীরে পার্শ্ব-স্ক্যান সোনার দ্বারা গৃহীত দুই পাশের দর্শন কোন প্রদর্শিত হয়েছে
এস্তোনিয়ায় অবস্থিত পানির নিচে নিমজ্জিত ই. রুসের ধ্বংসাবশেষ দেশটির জাতীয় ঐতিহ্য স্মৃতিস্তম্ভ হিসেবে পরিগণিত হয়

অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব বলতে পানির নিচে সম্পাদিত প্রত্নতত্ত্ব প্রাসঙ্গিক যেকোনো বিষয় বা কার্যক্রমকে বোঝায়।[১] প্রত্নতত্ত্বের অন্যান্য শাখার মতোই এর উৎপত্তি হয়েছে সেই প্রাগৈতিহাসিক কালে ও ধ্রুপদী সভ্যতার স্বর্ণযুগে, যার অন্তর্ভুক্ত হয়েছে ঐতিহাসিক যুগ ও শিল্পযুগের বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান। মানুষের জন্য পানির নিচে গমন ও মুক্তভাবে চলাচলে প্রতিকূলতা থাকার দরুন এবং জাহাজের ধ্বংসাবশেষ উদ্ধারকারীদের দ্বারা প্রাথমিকভাবে অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান সমূহে গমন ও ব্যবহৃত যন্ত্রপাতির উদ্ভব হওয়ার কারণে এর গ্রহণযোগ্যতা আপেক্ষিকভাবে বেশ দেরিতে উন্নতির মুখ দেখে।[২] তার ফলস্বরূপ অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব প্রাথমিকভাবে প্রকৃত প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার জন্য বেশ চড়াই উৎরাই পেরিয়ে এসেছে।[৩] এই অবস্থার পরিবর্তন ঘটে যখন বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এই বিষয়ের উপর পড়াতে শুরু করে এবং তাত্ত্বিক এবং ব্যাবহারিক উভয় দিক দিয়েই উপ-বিষয় হিসেবে এটি দৃঢ়রূপে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। আর গত শতাব্দীর আশির দশকে ব্যাপক আকারে গ্রহণযোগ্যতা পাওয়ার পর থেকে বর্তমানে অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক বিষয়েই বেশ কয়েকটি শাখা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যেমন, সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব: সমুদ্র, নদী ও নদীর মোহনার পানির মধ্যে, উপরে অথবা এর আশেপাশে অতীতে মানুষের পরিচালিত কর্মকান্ড, জীবন, আচরণ, সংস্কৃতি ইত্যাদির বিষয়ের উপর বিজ্ঞান নির্ভর গবেষণা।[৪] সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রগুলি এবং পানির নিচে নিমজ্জিত ধ্বংসপ্রাপ্ত বিমানের গবেষণা অন্তর্জলীয় বিমান প্রত্নতত্ত্ব রূপে মূল ধারার প্রত্নতাত্ত্বিক কর্মকাণ্ড হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে।[৫]

যদিও প্রায়শই এটি ভুলবসত মনে করা হয়, তবে অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব কেবল জাহাজের ভগ্নাংশ ও ধ্বংসাবশেষ অধ্যয়নের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। স্থানীয় ভূমিকম্পন-সংক্রান্ত ঘটনা যেমন, পোর্ট-রয়্যাল এবং আলেকজান্দ্রিয়া বিধ্বস্তকারী ভূমিকম্প বা মহাদেশীয় পর্যায়ে আরও ব্যাপক জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সমুদ্র স্তরের পরিবর্তনের ফলস্বরূপ কোনো এক কালে মানব বসতি ছিল এমন শুকনো স্থলভাগ এখন পানির তলায় ডুবে গেছে।[৬][৭] শেষ বরফ যুগের শেষের দিকে, উত্তর সাগর একটি বৃহৎ সমভূমি ছিল এবং নৃতাত্ত্বিক বিভিন্ন উপাদানের পাশাপাশি ম্যামথের মতো প্রাণীর দেহাবশেষ কখনও কখনও মাছ ধরার ট্রলারের সাহায্যে পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল। এছাড়াও, যেহেতু মানব বসতিগুলি সর্বদা জলের ব্যবহার করে চলেছে, কখনও কখনও শুকনো জমির চিহ্নগুলি হারিয়ে যাওয়ার পরে পানির নিচে তৎকালীন বসতিগুলোর দ্বারা নির্মিত এই  কাঠামোগুলির অবশেষ এখনও  রয়েছে (যেমন ক্র্যানোগ[৮], পোতাশ্রয় এবং সেতুগুলির ভিত্তি সমূহ,)। ফলস্বরূপ, অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানগুলি বৃহৎ পরিসরে বিস্তৃত রয়েছে: ডুবে থাকা আদি বসতি এবং এমন জায়গাগুলি যেখানে লোকেরা একসময় বসবাস করত বা ভ্রমণ করেছিল যেগুলি পরবর্তীকালে সমুদ্রের স্তর বাড়ার কারণে পানির নিচে ঢাকা পড়েছিল; কুয়ো, সিনোতে, ধ্বংসাবশেষ (জাহাজ ও বিমানের ধ্বংসাবশেষ); জলে তৈরি কাঠামোর অবশেষ (যেমন ক্র্যানোগ, সেতু বা পোতাশ্রয়); অন্যান্য বন্দর সম্পর্কিত কাঠামো; যেমন, আবর্জনা বা ধ্বংসাবশেষের জায়গাগুলি যেখানে লোকেরা তাদের বর্জ্য, আবর্জনা এবং অন্যান্য জিনিসপত্র যেমন জাহাজ, বিমান, অস্ত্রশস্ত্র এবং যন্ত্রপাতি জলে ফেলে দিয়ে ফেলেছিল।

অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব প্রায়শই স্থলজগতের প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণার পরিপূরক হয় কারণ প্রত্নতত্ত্বের এই দু'টি শাখা প্রায়শই বিভিন্ন উপাদান দ্বারা সংযুক্ত থাকে; যেমন, ভৌগলিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং অন্যান্য আরো অনেক উপাদান। ফলস্বরূপ, একটি অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান সংক্রান্ত অধ্যায়নে বিভিন্ন বিষয়াদি অন্তর্ভুক্ত করতে হয় যেখানে বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষ বিশেষজ্ঞদের প্রয়োজন হয়; যেমন, প্রাগৈতিহাসিক বিষয়াদি, ঐতিহাসিক প্রত্নতত্ত্ব, সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব এবং নৃবিজ্ঞান সহ বিভিন্ন শাখা থেকে অনেক বিশেষজ্ঞের অন্তর্ভুক্ত প্রয়োজন হয় একটি বহুপক্ষীয় পদ্ধতির অধ্যয়ন চলমান থাকতে পারে। এর অনেক উদাহরণ রয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হ'ল ভি.ও.সি. জাহাজ জুয়েডর্প্প ১৭১১ সালে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়া উপকূলে হারিয়ে গিয়েছিল, যেখানে বেশ কিছু নাবিক বেঁচে গিয়েছিলেন এবং নিজেদেরকে উপকূলে প্রতিষ্ঠিত করার পরে ওই অঞ্চলের আদিবাসী উপজাতির সাথে পারস্পরিকভাবে বসবাস করে মিলিত হয়েছিল বলে যথেষ্ট জল্পনা-কল্পনা চলছে।[৯] এই সাইটের প্রত্নতাত্ত্বিক স্বাক্ষরটি এখন আঞ্চলিক মানুষ এবং ইউরোপীয় যাজকবাদীদের মধ্যে যারা ঊনবিংশ শতকের মধ্যভাগে এই অঞ্চলে প্রবেশ করেছিল তাদের মধ্যে মিথস্ক্রিয়ায় প্রসারিত হয়েছে।[১০]

গবেষণার সম্ভাব্য বিষয়সমূহ[সম্পাদনা]

আমাদের অতীত সংক্রান্ত জ্ঞান ভাণ্ডারে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারার পেছনে অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্বের যুক্তিসংগত অনেকগুলি কারণ রয়েছে। কেবলমাত্র জাহাজ ধ্বংসের প্রসঙ্গ, জীবনের যাবতীয় ক্ষয়ক্ষতির মাত্রা (যেমনটা টাইটানিকের ক্ষেত্রে হয়েছিল) বা ক্ষতির পরিস্থিতির (যেমন, হাউসাটোনিক জাহাজ, যা ছিল শত্রু সাবমেরিনের দ্বারা ডুবে যাওয়া ইতিহাসে প্রথম কোনো জলযান) কারণ বিবেচনায় একেকটি জাহাজ ডুবি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক বিষয় হতে পারে।[১১][১২] প্রত্নতত্ত্বের জন্য মেরি রোজের মতো জাহাজগুলিও গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে কারণ জাহাজটি হারিয়ে যাওয়ার মুহুর্তে তারা মানবিক নিদর্শনগুলির এক সম্মিলিত সংরক্ষণ করে দুর্ঘটনাক্রমে এক ধরনের সময় খোলক তৈরি করতে পারে।[১৩][১৪]

কখনও কখনও জাহাজটির ধ্বংসটা গুরুত্বপূর্ণ নয়, তবে সত্য যে আমাদের এর ধ্বংসাবশেষে গমনের সুযোগ রয়েছে আমাদের, বিশেষত যেখানে জাহাজটি তার স্বতন্ত্র ধারার জাহাজের সর্ববপ্রথম নমুনা হওয়ার দরুন বিজ্ঞান ও প্রকৌশল (বা যুদ্ধ) ইতিহাসে জাহাজটির গুরুত্ব ও তাত্পর্য ছিল। ডুবোজাহাজের বিকাশসাধন, উদাহরণস্বরূপ, অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণার দ্বারা অনুসন্ধান ও সনাক্ত করা যায়, হানলি, যা শত্রু জাহাজ ডুবানোর জন্য প্রথম সাবমেরিন ছিল (হানলির একটি অনন্য গঠন বিবরণ ছিল যা এর পূর্ববর্তী জলযান সমূহে দেখতে পাওয়া যায় নি এবং কয়েকটি অবিচ্ছিন্নভাবে উত্থাপিত গুটিকয়েক ঐতিহাসিক যুদ্ধজাহাজের মধ্যে এটি ছিল  অন্যতম); রিসারগাম দ্বিতীয়, প্রথম ইঞ্জিন-চালিত সাবমেরিন[১৫]; এবং হল্যান্ড-৫, যা ব্রিটিশ নৌবাহিনীতে সাবমেরিনগুলির বিকাশের অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে।[১৬]

ইউনেস্কো সম্মেলন[সম্পাদনা]

পানিতে নিমজ্জিত একশো বছরের পুরানো বা তারও অধিক পুরানো মানবতার অস্তিত্বের সমস্ত চিহ্নগুলি অন্তর্জলীয় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ সম্পর্কিত ইউনেস্কো সম্মেলন দ্বারা সুরক্ষিত। এই সম্মেলনের লক্ষ্য হলো ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিকর  তথ্য ধ্বংস বা ক্ষতি রোধ করা ও লুটপাট বন্ধ করা। এটি রাষ্ট্রিয় দলগুলিকে আন্তর্জাতিক আইনী কাঠামোর সাহায্যে তাদের অন্তর্জলীয় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষা করতে সহায়তা করে।[১৭] উপরে বর্ণিত ইউনেস্কো কনভেনশনে সংজ্ঞায়িত সুপারিশের ভিত্তিতে পানির নিচে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনগুলি যে পরিস্থিতিতে আছে সেই পরিস্থিতিতে সংরক্ষণের পরিকল্পনার জন্য ইউরোপীয় বিভিন্ন প্রকল্পকে কো.এম.এ.এস. প্রকল্পের[১৮] মতো অর্থানুদান দেয়া হয়েছে।[১৯][২০]

বাধা সমূহ[সম্পাদনা]

শুকনো জমিতে কাজ করার তুলনায় অন্তর্জলীয় স্থানগুলোতে গমন করা অনিবার্যভাবে আরো কঠিন এবং আরও ঝুঁকিপূর্ণ। অন্তর্জলীয় স্থানগুলোতে সরাসরি গমনের জন্য, ডাইভিংয়ের সরঞ্জাম এবং ডাইভিংয়ের দক্ষতা বিশেষভাবে প্রয়োজন। ডাইভার অতিক্রম করতে পারে এমন গভীরতা এবং গভীরতায় প্রয়োজনীয় পর্যাপ্ত সময়ের দৈর্ঘ্য সীমাবদ্ধ। আর, ডাইভারের নাগালের বাইরের গভীর স্থানগুলির জন্য ডুবোজাহাজ বা দূরবর্তী সংবেদন সরঞ্জামাদি প্রয়োজন।

একটি সামুদ্রিক প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকার ক্ষেত্রে, যদিও যদিও কাজ করার জন্য বিশেষ কিছু কাঠামো(সাধারণত একটি নৌকা বা জাহাজ) প্রায়শই প্রয়োজন হয়, উপকূল ভিত্তিক কর্মকান্ড সাধারণ বিষয়। তা সত্ত্বেও অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব এমন একটি ক্ষেত্র যা রসদ সরবরাহ সংক্রান্ত সমস্যায় জর্জরিত। অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্বের নির্দিষ্ট কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য একটি কার্যক্ষম কাঠামো গঠন করা প্রয়োজন; উদাহরণস্বরূপ, বায়ু সরবরাহের জন্য , রিকম্প্রেশন এবং চিকিত্সা সুবিধা, বা দূরবর্তী সংবেদনের বিশেষ সরঞ্জাম, প্রত্নতাত্ত্বিক ফলাফলগুলির বিশ্লেষণ, জলে তলায় পরিচালিত ক্রিয়াকলাপের জন্য সমর্থন ও সহায়তা অর্জন, সরবরাহের সঞ্চয়, জল থেকে পুনরুদ্ধার করা যে কোনও নিদর্শনের সংরক্ষণের জন্য বিশেষ সুবিধা এর পাশাপাশি শ্রমিকদের থাকার জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা করা। জলের তলায় খনন কাজ এবং আকাশপথে পরিবহন সহ প্রত্নতাত্ত্বিক তদন্তের জন্য ব্যবহৃত সরঞ্জামগুলি অধিক বিপত্তি এবং রসদ সংক্রান্ত সমস্যা তৈরি করে। অধিকন্তু, নির্দিষ্ট সামুদ্রিক প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকাগুলি তীব্র স্রোত বা খারাপ আবহাওয়ার সাথে সম্পর্কিত হতে পারে যার অর্থ দাঁড়ায় ওই এলাকাটিতে কেবলমাত্র সীমিত সময়ের জন্য অভিগমন করা সম্ভব। কিছু সামুদ্রিক প্রাণী জলের তলায় ডুবুরির ব্যক্তিগত সুরক্ষার জন্যও হুমকিস্বরূপ রয়েছে।

পানির নীচে থাকা প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন গুলো প্রায়শই গতিশীল থাকে, কারণ এগুলি সামুদ্রিক স্রোত, ঢেউ, জল-প্রবাহ এবং ঝড়ের শিকার হয়। প্রত্নতাত্ত্বিক কাঠামোটি অপ্রত্যাশিতভাবে অনাবৃত হতে পারে, বা পললের নীচে চাপা পরে যেতে পারে। সময়ের সাথে সাথে, উন্মুক্ত কাঠামোগুলি ক্ষয়ে যাবে, ভেঙে যাবে এবং ছড়িয়ে যাবে। পরিবেশের গতিশীল প্রকৃতি নির্দিষ্ট নিদর্শনের স্বঅবস্থানে-সংরক্ষণ অকার্যকর করে তুলতে পারে; বিশেষত জাহাজের কাঠের মতো উন্মুক্ত জৈবপদ পিডকসের মতো সামুদ্রিক জীবের গ্রাস করে ফেলতে পারে। তদ্ব্যতীত, অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রগুলো রাসায়নিকভাবে সক্রিয় হতে পারে, ফলস্বরূপ ধাতু কাঠামো থেকে লোহা ক্ষয়সাধিত হয়ে জমাটাকার ধারণ করতে পারে। আসল ধাতুটি তখন ভঙ্গুর অবস্থায় অবশিষ্ট থাকবে। অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকাগুলি থেকে উদ্ধারকৃত নিদর্শনগুলির বিশেষ যত্ন প্রয়োজন।

পানিতে পলি বা শেত্তলা এবং আলোক অনুপ্রবেশের প্রতিকূল পরিবেশের দরুন দৃশ্যমানতা খুব কম হতে পারে।[২১] এর অর্থ হল জরিপের বিভিন্ন কৌশল যা স্থলে ভাল কাজ করে (যেমন ত্রিভঙ্গীকরণ), সাধারণত জলের নিচে তার সাহায্যে কার্যকরভাবে ব্যবহার করা যায় না।

তদ্ব্যতীত, প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণার ফলাফলগুলি সাধারণ মানুষের জানা ও ব্যবহারে অনুমতি দেওয়াও কঠিন হতে পারে কারণ পানির নীচে থাকা ক্ষেত্রগুলি সাধারণ মানুষের ক্ষেত্রে ভাল প্রচারের সুযোগ বা অভিগমনের সুযোগ প্রদান করে না। এই অসুবিধা দূর করার জন্য বিভিন্ন কর্মকান্ড চলমান রয়েছে; যেমন, ওয়েবকাস্টিং প্রকল্পগুলির জন্য ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব ব্যবহার করার মাধ্যমে বা সুনিবেদিত কাল্পনিক বাস্তবতা ব্যবস্থাগুলি[২২] প্রয়োগ করার মাধ্যমে ব্যবহারকারীদেরকে কৃত্রিমভাবে পুনঃনির্মিত থ্রি-ডি অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকাগুলিতে একটি সরাসরি কাল্পনিক ডাইভিং সম্পাদন করতে সক্ষম ব্যবস্থা ও পরিবেশ তৈরী করে দেয়া হয়েছে । উদাহরণস্বরূপ "কুইন অ্যানের প্রতিশোধ"[২৩] নামক জাহাজটির খননক্ষেত্রে এবং কিউ.এ.আর. ডাইভ-লাইভ প্রোগ্রামের[২৪] রেকর্ডটিতে সরাসরি মাঠপর্যায়ের পরিদর্শনের কাল্পনিক ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ব্যবহৃত কৌশল ও প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

যদিও পানির নিচে কাজ করার বাধাগুলি মোকাবিলার জন্য বিশেষ কৌশল এবং সরঞ্জামাদির বিকাশ সাধন করা হয়েছে, তবে প্রত্নতাত্ত্বিক লক্ষ্য এবং প্রক্রিয়াটি মূলত অন্য যে কোনও প্রসঙ্গেই সমান ভূমিকা পালন করে চলেছে। অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রগুলি তদন্ত করতে গেলে, সমতুল্য স্থলজ প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রের চেয়ে বেশি সময় লাগে এবং বেশি ব্যয়বহুল হতে পারে।[৪]

প্রকল্পের নকশার একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক সম্ভবত জলযান থেকে রসদ ব্যবস্থাপনা এবং ডাইভিং প্রক্রিয়া পরিচালনা করতে পারে। অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রের উপর পানির গভীরতা এবং জোয়ার, স্রোত ও প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রে অভিগমন সীমাবদ্ধ কিনা তা বিভিন্ন কার্য-পদ্ধতিতে যা সাধ্যের মধ্যে পরিচালনা সম্ভব এবং নির্দিষ্ট পরিমান ব্যয় ও সময়সীমার মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে এমন একাধিক তদন্তে সম্ভাব্য বাধা সৃষ্টি করবে। মেরি রোজের প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্র সহ সর্বাধিক সাবধানতার সাথে অনুসন্ধান করা ক্ষেত্রগুলির উপর সংগঠিত কর্মকান্ড বেশ দীর্ঘ দিন ধরে শখের বসে এই বিষয়ে কাজ করে এমন প্রত্নতাত্ত্বিকদের উপর যথেষ্ট নির্ভর করে সম্পন্ন হয়েছে।[১৪]

স্থলে সংগঠিত প্রত্নতত্ত্বের মতো, কিছু কিছু কৌশল প্রয়োজনীয়ভাবে হস্তসাধিত, যেখানে সাধারণ সরঞ্জামগুলি ব্যবহার করা হয় (যা সাধারণত এক বা একাধিক স্কুবা ডাইভারের প্রচেষ্টার উপর নির্ভর করে), অন্যরা উন্নত প্রযুক্তি এবং আরও জটিল রসদ ব্যবহার করে (উদাহরণস্বরূপ সরঞ্জাম পরিচালনার সাথে একটি বৃহত সহায়তা জলযানের প্রয়োজন হয়, সরঞ্জামাদি পরিচালনার জন্য ক্রেন, অন্তর্জলীয় যোগাযোগের প্রযুক্তি এবং কম্পিউটার ভিজুয়ালাইজেশন)।

অবস্থান নির্ধারণ[সম্পাদনা]

অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব অধ্যয়ন করার সক্ষমতা অর্জনের ভিত্তি হলো প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকাগুলোর অবস্থান জানা। খোলা সমুদ্রে অবস্থান নির্ণয়ের কোনও বিশেষ চিহ্ন নেই, তাই সাধারণত জিপিএস ব্যবহার করে অবস্থান নির্ণয় করা হয়। অতীতে, দর্শন সীমার মধ্যে উপকূলের সন্নিকটে অবস্থিত জায়গাগুলির অবস্থান ট্র্যানস্যাক্ট ব্যবহার করে নির্ণয় করা হতো। জমির উপর দুটি নির্দিষ্ট (মানচিত্রযুক্ত) স্থান থেকে চিহ্নিত কোনো কাঠামো(যেমন একটি বয়া) এর সাথে চোখের দেখায় জরিপ করে কোনও প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকার অবস্থান নির্ণয় করা যেতে পারে। কোনও স্থানে পানির গভীরতা পূর্ববর্তী রেকর্ড বা সোনার  সরঞ্জামগুলোর দ্বারা নির্ধারণ করার যেতে পারে যা বিশেষত জাহাজে ব্যবহারের উপযুক্ত সরঞ্জাম হিসেবে পরিচিত। গবেষণা কার্যে নিয়োজিত জাহাজটিতে জি.পি.এস. একবার প্রায় সঠিক জায়গায় স্থাপন করা গেলে এই জাতীয় সোনার প্রায়শই একটি জাহাজের ধ্বংসাবশেষের মতো একটি উঁচু কাঠামো সনাক্ত করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

ক্ষেত্র জরিপ[সম্পাদনা]

পার্শ্ব-স্ক্যান সোনার দ্বারা গৃহীত এইড জাহাজের ধ্বংসাবশেষের চিত্র, এস্তোনিয়া

প্রত্নতাত্ত্বিক বিষয় সংক্রান্ত প্রশ্নগুলি সমাধান করার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্যের উপর  জরিপের প্রকারভেদ নির্ভর করে, তবে বেশিরভাগ অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রের কমপক্ষে কিছু না কিছু ভূ-সংস্থান-সংক্রান্ত জরিপ প্রয়োজন হবে এবং নিদর্শনগুলি এবং অন্যান্য প্রত্নতাত্ত্বিক উপাদানের অবস্থান সুনির্দিষ্ট করার জন্য একটি ক্ষেত্র-পরিকল্পনা প্রয়োজন হবে যে ক্ষেত্র থেকে নমুনা নেওয়া হয়েছিল এবং বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক তদন্ত সম্পন্ন হয়েছিল। প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রগুলির পরিবেশগত মূল্যায়নের জন্য পরিবেশ পরিস্থিতি (জল রসায়ন, গতিশীল বৈশিষ্ট্য) পাশাপাশি ক্ষেত্রে উপস্থিত প্রাকৃতিক জীবগুলি রেকর্ড করা দরকার। জাহাজের ধ্বংসাবশেষের জন্য, বিশেষত শিল্প-পরবর্তী যুগের ধ্বংসাবশেষের জন্য, বিধ্বস্ত উপাদান থেকে দূষণের হুমকি তদন্ত ও রেকর্ড করা দরকার।

গভীরতা পরিমাপক গেজ এবং ফিতা মাপন ব্যবহার করে ডাইভারদের দ্বারা ত্রিমাত্রিক জরিপ পরিচালনা জরিপের সবচেয়ে সহজ দিক।[২৫] গবেষণা দেখায় যে এই জাতীয় পরিমাপগুলি সাধারণত জমিতে পরিচালিত সমতুল্য সমীক্ষার চেয়ে কম নির্ভুল।[২৬] যেখানে ডাইভারদের জন্য শারীরিকভাবে কোন ক্ষেত্র পরিদর্শন করা যথার্থ  বা নিরাপদ নয়, সেখানে দূরবর্তীভাবে চালিত যানগুলি (আর.ও.ভি.) পর্যবেক্ষণ ও কর্মকান্ড পরিচালনার সক্ষমতা তৈরী করে যা জলপৃষ্ঠে অবস্থান করা কর্মীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।[২৭] ফিতা এবং গভীরতা পরিমাপক গেজের মাধ্যমে পরিমাপের স্বল্প-মাত্রার প্রযুক্তি ধ্বনিতাত্ত্বিক অবস্থান নির্ণয় পদ্ধতির মতো আরও নির্ভুল উচ্চ-মাত্রার দ্রুত পদ্ধতি দ্বারা প্রতিস্থাপিত করা যেতে পারে।[২৮] মার্ডি গ্রাস জাহাজের ধ্বংসাবশেষ প্রকল্পের সময় আর.ও.ভি. প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছিল। "মার্ডি গ্রাস জাহাজের ধ্বংসাবশেষ" প্রায় ২০০ বছর আগে মেক্সিকো উপসাগরেলুইসিয়ানা উপকূলের ৩৫ কিলোমিটার দূরে প্রায় ৪০০০ ফুট (১২২০ মিটার) গভীর পানিতে ডুবে গেছে।[২৯]

দূরবর্তী সংবেদন বা সামুদ্রিক ভূপ্রকৃতিবিদ্যা[৩০] সংক্রান্ত অনুসন্ধান সাধারণত পৃষ্ঠে অবস্থিত কোনো জলযানের সাথে সংযুক্ত সরঞ্জাম ব্যবহার করে পরিচালিত হয় এবং তাই সাইটের পুরো গভীরতায় প্রবেশের জন্য কোনও এক বা একাধিক সরঞ্জামের প্রয়োজন হয় না। সংবেদনশীল সোনার, বিশেষত পার্শ্ব-স্ক্যান সোনার বা মাল্টি-বিম সোনার কোনও ডুবো সাইটের চিত্র ধারণ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। ধাতব অবশেষ যেমন ধাতব ধ্বংসাবশেষ, নোঙ্গর এবং কামান সনাক্ত করতে চৌম্বকীয় পরিমাপক পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে। উপ-তলদেশীয় প্রোফাইলিং[৩১][৩২] পলির নীচে সমাহিত কাঠামো সনাক্ত করতে সোনারকে বিশেষভাবে সহায়তা ব্যবহার করে।

লিপিবদ্ধকরণ[সম্পাদনা]

এল.এ.এম.পি.-এর একজন প্রত্নতত্ত্ববিদ ১৮-শ শতকের শেষের দিকে ফ্লোরিডার সেন্ট. অগাস্টিন উপকূলের অদূরে আবিষ্কৃত "স্টর্ম রেক" জাহাজের ঘন্টার মাপানুসারে অঙ্কন রেকর্ড করছেন।

পানির নিচে নিদর্শন অনুসন্ধান ও রেকর্ড করার জন্য ডাইভারদের কাছে বিভিন্ন কৌশল রয়েছে। মাপানুসারে অঙ্কন হল প্রত্নতত্ত্বের একটি মৌলিক সরঞ্জাম এবং এটি পানির নীচে ব্যবহার করা সম্ভব। পানির নিচে পেনসিল দ্বারা পারমাট্রেস, প্লাস্টিকের ডাইভ স্লেট বা ম্যাট স্তরিত কাগজে লেখা সম্ভব।

ফটোগ্রাফি এবং ভিডিওগ্রাফি রেকর্ডিংয়ের মূল ভিত্তি, যা যুক্তিসঙ্গত দামের ডিজিটাল স্টিল এবং এইচ.ডি. ভিডিও ক্যামেরার আবির্ভাবের সাথে অনেক বেশি সুবিধাজনক হয়ে উঠেছে। ভিডিও ক্যামেরা সহ অন্যান্য ক্যামেরাগুলিকে অন্তর্জলীয় বিশেষ ব্যবস্থার আওতায় আনা যেতে পারে যা পানির নিচে চিত্রধারণের জন্য তাদের ব্যবহার করার বিশেষ সক্ষমতা তৈরী করে। প্রতিসরণের কারণে পানির নীচে স্বল্প দৃশ্যমানতা এবং চিত্রের বিকৃতির অর্থ হলো ধারণ করা চিত্র সনাক্ত ও উপলব্ধি করা কঠিন হতে পারে। তবে, সংলগ্ন স্থানগুলিতে কয়েকটি ধারাবাহিক ছবি তোলা এবং তারপরে চিত্র-সংযুক্তকরণ পদ্ধতি ব্যবহার করে পুরো ক্ষেত্রের সংযুক্ত একক চিত্রে একত্রিত করা সম্ভব। অন্তর্জলীয় সাংস্কৃতিক নিদর্শন এবং জাহাজ ধ্বংসাবশেষের ক্ষেত্রগুলোর চিত্র ধরনের জন্য ত্রি-মাত্রিক ফটোগ্রামেট্রিও একটি খুব জনপ্রিয় উপায়ে পরিণত হয়েছে।[৩৩]

খনন[সম্পাদনা]

যেখানে অনধিকারপ্রবেশ মূলক খনন যথার্থ, পলি এবং তলানিগুলি অন্তর্জলীয় খনন বা উড়োযান ব্যবহার করে তদন্তের অঞ্চল থেকে উদ্ধার করে যেতে পারে। সঠিকভাবে ব্যবহৃত হলে, তদন্তের সংলগ্ন আশেপাশে দৃশ্যমানতা উন্নত করার জন্য এই যন্ত্রগুলির একটি অতিরিক্ত সুবিধা রয়েছে। এটি উল্লেখ করা গুরুত্বপূর্ণ যে খুব গভীর সমুদ্র খননের জন্য সাবমেরিনগুলি কখনও কখনও প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকাগুলি দেখার জন্য ব্যবহৃত হয়। এই সাবমেরিনগুলি থেকেও অন্তর্জলীয় চিত্রগ্রহণ নেওয়া যেতে পারে যা রেকর্ডিং প্রক্রিয়াটিতে সহায়তা করে।

প্রত্নতাত্ত্বিক বিজ্ঞান[সম্পাদনা]

অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্বে প্রত্নতাত্ত্বিক বিজ্ঞানের বিভিন্ন ধরনের কলা-কৌশল ব্যবহৃত হয়। বিশেষত কাঠ দ্বারা নির্মিত জাহাজে ব্যবহৃত কাঠের বয়স নির্ধারণ করার জন্য ডেনড্রোক্রোনোলজির মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। জাহাজ তৈরিতে ব্যবহৃত কাঠ যে অঞ্চল থেকে সংগ্রহ করা হয়েছিল তার তথ্য সহ (যেমন জাহাজটি কোথায় নির্মিত হয়েছিল সম্ভবত) এবং পরবর্তী সময়ে উদ্ধারকৃত সামগ্রীর মেরামত বা পুনঃব্যবস্থা করা হয়েছিল কিনা তার তথ্য এই পদ্ধতিতে জানা যায়। যেহেতু উদ্ভিদ এবং প্রাণীজ পদার্থগুলি পানির নীচে সংরক্ষণ করা যায়, তাই অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্বে উদ্ভিদ-প্রত্নতত্ত্ব এবং জৈব-প্রত্নতত্ত্বের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, পানিতে নিমজ্জিত স্থলজ ক্ষেত্ৰ বা স্থল-বেষ্টিত জলাশয়ের ক্ষেত্রে, পলল বা পলি স্তরগুলো থেকে পরাগ নমুনাগুলির সনাক্তকরণ আশেপাশের জমিতে জন্মানো উদ্ভিদগুলি এবং পরিবেশ ও প্রকৃতির তথ্য সরবরাহ করতে পারে। জমাটবদ্ধ বস্তুর এক্স-রে এর মাধ্যমে ধাতব নিদর্শন সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়। ভূতত্ত্বের মাধ্যমে সমুদ্র-স্তরের পরিবর্তন, নদী দ্বারা ক্ষয় এবং নদী বা সমুদ্রের দ্বারা পরিবর্তন সহ প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রটি কীভাবে বিকশিত হয়েছিল সে সম্পর্কে অন্তর্দৃষ্টি অর্জন করা যায়।

নিদর্শন পুনরুদ্ধার ও তার সংরক্ষণ[সম্পাদনা]

অন্তর্জলীয় ক্ষেত্রগুলো থেকে পুনরুদ্ধার করা নিদর্শনগুলো থেকে জল অপসারণ এবং সংরক্ষণের প্রক্রিয়াটি পরিচালনা করতে প্রাপ্ত নিদর্শনগুলির স্থিতিশীলতা প্রয়োজন।[৩৪][৩৫] নিদর্শনটি হয় সাবধানে শুকানো দরকার, বা কিছু জড় মাধ্যমের (দ্য মেরি রোজের ক্ষেত্রে যেমনটা করা হয়েছিল) দ্বারা জল অপসারণ করা দরকার। লবনাক্ত জল থেকে উদ্ধারকৃত নিদর্শনগুলি, বিশেষত ধাতব বস্তু এবং কাঁচ  জাতীয় বস্তু হতে লবণের শোষণ বা ধাতব ক্ষয় অপসারণ করার পরে স্থিতিশীল করা দরকার। জলের তলায় নিমজ্জিত কাঠামোর স্বঅবস্থানে সংরক্ষণ সম্ভব, তবে প্রত্নতাত্ত্বিক কাঠামোর গতিশীল প্রকৃতি বিবেচনা করা দরকার। হস্তক্ষেপমূলক তদন্ত বা নিদর্শনগুলি আহরণের সময় এমন ঘষা-মাজার  ফলস্বরূপ কাঠামোতে পরিবর্তন হতে পারে যা কাঠামোটিকে আরও অবনতির দিকে ঠেলে দেয়।

অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্বের ব্যাখ্যা ও উপস্থাপন[সম্পাদনা]

ডাইভার ট্রেইলকে (রেক ট্রেইল নামেও ডাকা হয়) স্কুবা-ডুবুরিদের স্কুবা ডাইভিংয়ের[৩৬] জন্য উপযুক্ত প্রত্নতাত্ত্বিক সাইটগুলি দেখা এবং বোঝার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। এর একটি চমৎকার উদাহরণ হলো ফ্লোরিডা পাবলিক প্রত্নতত্ত্ব নেটওয়ার্কের (এফ.পি.এ.এন.) "ফ্লোরিডা প্যানহ্যান্ডেল শিপরেক ট্রেইল"। ফ্লোরিডা প্যানহ্যান্ডেল শিপরেক ট্রেলটিতে পেনসাকোলা, ডেসটিন, পানামা সিটি এবং ফ্লোরিডার পোর্ট সেন্ট জো উপকূলবর্তী অঞ্চলে ১২টি জাহাজের ধ্বংসাবশেষ রয়েছে যেখানে ডাইভিং, স্নোর্কলিং এবং ফিশিংয়ের জন্য কৃত্রিম রিফ সহ সমুদ্র সংক্রান্ত বিভিন্ন কর্মকান্ডের ব্যবস্থা রয়েছে। অন্যথায় এর উপস্থাপনা সাধারণত প্রকাশনার উপর নির্ভর করে (যেমন, বই বা সাময়িক পত্রিকার নিবন্ধ, ওয়েব সাইট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়া যেমন সিডি-রম)। টেলিভিশনের অনুষ্ঠান, ওয়েব ভিডিও এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমও বিস্তৃত পরিসরে দর্শকদের কাছে অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্বের ধারণা বয়ে নিয়ে আসতে পারে। মার্ডি গ্রাস শিপ ওয়ার্ক প্রকল্প শিক্ষার প্রচারের অংশ হিসাবে এই অভিযানের সময় ধারণ করা মুহূর্তগুলোর এক ঘন্টার একটি প্রামাণ্যচিত্র জনসাধারণকে দেখানোর জন্য প্রদর্শন করেছে। ওয়েবকাস্টিংও শিক্ষাগত প্রসারের জন্য অন্য একটি সরঞ্জাম। ২০০০ এবং ২০০১ সালে এক সপ্তাহের জন্য, কিউ.এ.আর. ডাইভলাইভ শিক্ষাগত প্রোগ্রামের অংশ হিসাবে কুইন অ্যানের রিভেঞ্জ শিপ রেক প্রকল্পের সরাসরি অন্তর্জলীয় ভিডিও ইন্টারনেটে সম্প্রচার করা হয়েছিল যা বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার বাচ্চার কাছে পৌঁছেছিল। নটিলাস প্রযোজনা এবং মেরিন গ্রাফিক্স দ্বারা নির্মিত এবং সহ-প্রযোজিত, এই প্রকল্পটি শিক্ষার্থীদেরকে বিজ্ঞানীদের সাথে কথা বলার এবং অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব দল দ্বারা ব্যবহৃত পদ্ধতি এবং প্রযুক্তি সম্পর্কে শেখার সুযোগ করে দিয়েছে। বিগত বছরগুলিতে অন্তর্জলীয় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য অভিযানের স্বাদ লাভের জন্য বেশ কয়েকটি গবেষণা প্রকল্প  ভার্চুয়াল এবং অগমেন্টেড রিয়েলিটি প্রযুক্তির বিকাশ সাধন করে চলেছে।[৩৭]

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

প্রকাশনা প্রত্নতাত্ত্বিক প্রক্রিয়ার একটি অপরিহার্য অঙ্গ এবং এটি অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্বের জন্য বিশেষত গুরুত্বপূর্ণ, যেখানে ক্ষেত্রগুলি সাধারণত অভিগমনযোগ্য হয় না এবং প্রায়শই এমনটি ঘটে যায় যে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনগুলোকে পানির নিচে স্ব-অবস্থানে সংরক্ষণ করা যায় না।

সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব সম্পর্কিত বিশেষ সাময়িক পত্রিকাসমূহ, যার মধ্যে সুদীর্ঘকাল যাবৎ প্রতিষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব জার্নাল, দ্য অস্ট্রেলেশিয়ান সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব ইনস্টিটিউটের বুলেটিন এবং সম্প্রতি চালু হওয়া সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব জার্নাল সামুদ্রিক প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণা এবং অন্তর্জলীয় প্রত্নতত্ত্ব সম্পর্কিত নিবন্ধ প্রকাশ করে থাকে। তবে মূল ধারার প্রত্নতাত্ত্বিক জার্নাল বা বিষয়ভিত্তিক প্রত্নতাত্ত্বিক জার্নালগুলিতেও অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্রগুলোর উপর গবেষণা প্রকাশ করা যেতে পারে। কিছু প্রতিষ্ঠান অপ্রকাশিত প্রতিবেদনগুলিও তৈরি করে থাকে, যেগুলোকে প্রায়শই ধূসর সাহিত্য বলে অভিহিত করা হয়, যার ফলে গ্রন্থ ও জার্নালের ক্ষেত্রেগুলির চেয়ে প্রত্নতাত্ত্বিক তথ্যগুলির অনেক বেশি বিশদ এবং বিস্তৃত পরিসীমায় গমনের সক্ষমতা তৈরী হয়। এর একটি উদাহরণ হলো পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ান যাদুঘরের সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের কর্মকান্ডসমূহ।

জনগণের আগ্রহের ক্ষেত্রটি ডাইভিং, জাহাজডুবি, জাহাজের ধ্বংসাবশেষ ও অন্তর্জলীয় প্রত্নতাত্ত্বিক বিষয় সংক্রান্ত কয়েকটি বই দ্বারা আবদ্ধ রয়েছে, যার সূচনা হয়েছে জ্যাক কৌস্টের কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে।

জলের নীচে প্রত্নতত্ত্বের কৌশলগুলি প্রকাশিত রচনায় নথিভুক্ত রয়েছে, যার মধ্যে বেশ কয়েকটি হ্যান্ডবুক[৩৮][৩৯], এবং সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ে মাকলরয়-এর অতুলনীয় অবদানসমূহ রয়েছে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Leshikar-Denton, Margaret E (২০১৬-০৬-০৩)। "Underwater and Maritime Archaeology in Latin America and the Caribbean"doi:10.4324/9781315416090 
  2. Akesson, Per। "A history of underwater archaeology"Nordic Underwater Archaeology 
  3. Gibbins, David & Adams, Jonathan (২০০১)। "Shipwrecks and maritime archaeology"। World Archaeology32 (3): 279–291। doi:10.1080/00438240120048635 
  4. Muckelroy, K. (১৯৭৮)। Maritime archaeology। Cambridge University Press। আইএসবিএন 978-0-521-29348-8 
  5. "Broken Wings"Western Australian MuseumGovernment of Western Australia। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৫ 
  6. Kretzmann, Norman। General and Rational Grammar। Berlin, Boston: DE GRUYTER। আইএসবিএন 9783110874716 
  7. "Roe, Prof. Howard Stanley James, (born 23 May 1943), Director, Southampton Oceanography Centre, NERC and the University of Southampton, 1999–2005; Professor, University of Southampton, 2000–05, now Emeritus"Who's Who। Oxford University Press। ২০০৭-১২-০১। 
  8. Munro, Robert (অক্টোবর ১৮৭৮)। "Discovery of a Scottish Crannog"Nature18 (470): 695–695। doi:10.1038/018695a0আইএসএসএন 0028-0836 
  9. van Duivenvoorde, Wendy; Kaiser, Bruce; Megens, Luc; van Bronswijk, Wilhelm (২০১৫-০৫-০৪)। "Pigments from the Zuiddorp (Zuytdorp) ship sculpture: red, white and blue?"Post-Medieval Archaeology49 (2): 269–290। doi:10.1080/00794236.2015.1124196আইএসএসএন 0079-4236 
  10. FONDEUR, FERNANDOF (২০০৪-০৩-১২)। "Aluminum Leaching of Archived Sludge from Tanks 8F, 11H, and 12H" 
  11. DeBacker, Jason Matthew (২০১৪-০৬-২৫)। "FLIP-FLOPPING: IDEOLOGICAL ADJUSTMENT COSTS IN THE UNITED STATES SENATE"Economic Inquiry53 (1): 108–128। doi:10.1111/ecin.12114আইএসএসএন 0095-2583 
  12. McClurken, Jeffrey, সম্পাদক (২০১৫-০৮-২৬)। "Naval History and Heritage Command"Journal of American History102 (2): 638–638। doi:10.1093/jahist/jav401আইএসএসএন 0021-8723 
  13. Subramanian, Dr Jayanthan Bhaskar (২০১৮-০৮-১৮)। "What Lies Beneath?"Journal of Medical Science And clinical Research6 (8)। doi:10.18535/jmscr/v6i8.110আইএসএসএন 2347-176X 
  14. "Mary Rose shawm"Oxford Music Online। Oxford University Press। ২০০১। 
  15. "Prescott, Dr Robert George Whitelock, (born 9 Dec. 1938), Chairman, Department for Culture Media and Sport Advisory Committee on National Historic Ships, University of St Andrews, since 2006"Who's Who। Oxford University Press। ২০০৭-১২-০১। 
  16. "Hancock, Rt Hon. Matthew (John David), (born 2 Oct. 1978), PC 2014; MP (C) West Suffolk, since 2010; Minister of State (Minister for Digital), Department for Digital, Culture, Media and Sport (formerly Minister of State (Minister for Digital and Culture), Department for Culture, Media and Sport), since 2016"Who's Who। Oxford University Press। ২০১০-১২-০১। 
  17. Scovazzi, Tullio (২০১০-০১-০১)। Cultural Heritage Issues। Brill | Nijhoff। আইএসবিএন 9789004189928 
  18. "CoMAS project"। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১৮ 
  19. Electromechanical devices for supporting the restoration of underwater archaeological artefacts। MTS/IEEE OCEANS 2015 - Genova: Discovering Sustainable Ocean Energy for a New World। doi:10.1109/OCEANS-Genova.2015.7271597 
  20. A ROV for supporting the planned maintenance in underwater archaeological sites। MTS/IEEE OCEANS 2015 - Genova: Discovering Sustainable Ocean Energy for a New World। doi:10.1109/OCEANS-Genova.2015.7271602 
  21. Cantelas, FJ; Rodgers, BA (১৯৯৭)। "Tools, Techniques, and Zero Visibility Archaeology."In: EJ Maney, Jr and CH Ellis, Jr (Eds.) Diving for Science...1997.। Proceedings of the American Academy of Underwater Sciences (17th Annual Scientific Diving Symposium)। সংগ্রহের তারিখ ২০ অক্টোবর ২০১০ 
  22. Bruno, F.; Barbieri, L.; Muzzupappa, M.; Tusa, S.; Fresina, A.; Oliveri, F.; Lagudi, A.; Cozza, A.; Peluso, R. (২০১৯)। "Enhancing learning and access to Underwater Cultural Heritage through digital technologies: the case study of the "Cala Minnola" shipwreck site"। Digital Applications in Archaeology and Cultural Heritage13: e00103। doi:10.1016/j.daach.2019.e00103 
  23. Southerly, C; Gillman-Bryan, J (২০০৩)। "Diving on the Queen Anne's Revenge"In: SF Norton (ed). Diving for Science...2003.। Proceedings of the American Academy of Underwater Sciences (22nd Annual Scientific Diving Symposium)। সংগ্রহের তারিখ ২০ অক্টোবর ২০১০ 
  24. "Live from Morehead City, it's Queen Anne's Revenge"ncdcr.gov 
  25. Fourspring PM (২০০৭-০৩-১৯)। "Tandem Filter Development for Thermophotovoltaic Energy Conversion from January 2003 to February 2006" 
  26. Holt, Peter। "Research on the accuracy of tape survey methods from 3H" (PDF)। ১ জুন ২০০৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১৮ 
  27. ""ROV" stands for remotely operated vehicle"Ocean ExplorerOffice of Ocean Exploration। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৫ 
  28. "The Acoustic Tracking System" 
  29. "Mystery Mardi Gras Shipwreck"Nautilus Productions 
  30. "Geophysical Survey Methodology" 
  31. Sub-bottom profiling sonar evaluated by Wessex Archaeology as part of ALSF funded "Wrecks on the Seabed" project
  32. Sub-bottom profile investigation of the Grace Dieu from The University of Southampton
  33. ^
  34. Singley, Katherine; Hamilton, Donny L. (১৯৯৮)। "Basic Methods of Conserving Underwater Archaeological Material Culture"Journal of the American Institute for Conservation37 (3): 379। doi:10.2307/3179822আইএসএসএন 0197-1360 
  35. The Oregon interagency guide for conservation and forage seedings.। [Place of publication not identified] :: [publisher not identified],। ১৯৭১। 
  36. e.g. Souter, C., 2006 Cultural Tourism and Diver Education. In Maritime Archaeology: Australian Approaches. The Springer Series in Underwater Archaeology. Staniforth, M. & Nash, M. (eds) Springer, New York.
  37. Bruno, Fabio; Lagudi, Antonio; Barbieri, Loris; Muzzupappa, Maurizio; Ritacco, Gerardo; Cozza, Alessandro; Cozza, Marco; Peluso, Raffaele; Lupia, Marco (২০১৬)। Digital Heritage. Progress in Cultural Heritage: Documentation, Preservation, and Protection। Cham: Springer International Publishing। পৃষ্ঠা 269–280। আইএসবিএন 9783319484952 
  38. International handbook of underwater archaeology। Ruppé, Carol., Barstad, Jan.। New York: Kluwer Academic/Plenum Publishers। ২০০২। আইএসবিএন 0306463458ওসিএলসি 45791351 
  39. Archaeology underwater : the NAS guide to principles and practice। Dean, Martin., Nautical Archaeology Society.। [London]: Nautical Archaeology Society। ১৯৯২। আইএসবিএন 1873132255ওসিএলসি 34513380 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]