হুমায়ুন খালিদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(অধ্যক্ষ হুমায়ুন খালিদ থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অধ্যক্ষ হুমায়ুন খালিদ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
নাগরিকত্ববাংলাদেশ Flag of Bangladesh.svg

ইতিহাস[সম্পাদনা]

করটিয়া সা’দত কলেজ ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি (১৯৫৩-১৯৫৪) এবং তৎকালীন নূরুল আমিন সরকারের বিরুদ্ধে সংগ্রামী ভূমিকা পালন করেন। আওয়ামী লীগের মনোনয়নে তৎকালীন জাতীয় পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন (১৯৭০)। জাতীয় মুক্তি সংগ্রামে তাঁর অংশগ্রহণ স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে (২৫ মার্চ ১৯৭১)। ৮ মাস এফজে সেক্টর (ভারত) মুক্তিবাহিনীর ম্যোটিভেশনের দায়িত্ব পালন করেন সেই সাথে তিনি ৪ মাস গেরিলা ট্রেনিং নেন এবং ১৬ হাজার মুক্তিবাহিনীর সদস্য শপথ নিয়ে মুক্তিসংগ্রামে আত্মনিয়োগ করতে দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। প্রখ্যাত মুক্তিযোদ্ধা বঙ্গবীর আব্দুল কাদের সিদ্দিকী বীরোত্তমকে তিনি উন্নতমানের অস্ত্র যোগানের ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ সহায়তা করেন এবং টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ'র ভালো ভালো মিলিটান্ট ছেলেদেরকে বঙ্গবীর আব্দুল কাদের সিদ্দিকী বিরোত্তমের কাছে সরাসরি পাঠিয়ে দিতেন। স্বাধীনতার পর তিনি দেশ গড়ার কাজে ঝাঁপিয়ে পড়েন। বাংলাদেশের শাসনতন্ত্র কমিটির অন্যতম সদস্য হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন(১৯৭২) এবং বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন (১৯৭৩)। সামরিক অভ্যুত্থানের পর রাজনীতি থেকে অবসর গ্রহণ করেন (১৯৭৫)। ২৯ ডিসেম্বর ২০০২ সালে হুমায়ুন খালিদ মৃত্যুবরণ করেন।

জন্ম[সম্পাদনা]

টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ার উপজেলার সুবর্ণতলীতে তিনি জন্মগ্রহণ করেন (১ আগস্ট ১৯৩৫)।

শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএ (১৯৫৯) এবং এলএলবি (১৯৬৭) ডিগ্রি লাভ করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

নাগরপুর কলেজ থেকে অধ্যাপনার পর শরীয়তপুর হাজী শরীয়তুল্লাহ কলেজর প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন (১৯৯২)।

সফলতা[সম্পাদনা]

তিনি টাঙ্গাইল জেলার শ্রেষ্ঠ কলেজ শিক্ষক হিসেবে প্রেসিডেন্ট পুরস্কার প্রাপ্ত হন।

উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ[সম্পাদনা]

  • চরমোনাই পীর সাহেব কেবলা,
  • ভারতে কয়েকদিন,
  • মওয়াজে কারিনয়া (চার খন্ড),
  • আদর্শ শিক্ষক ও শিক্ষা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]