ইংলিশ ফুটবল শিরোপাধারী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইংরেজ লীগ
প্রথম বিভাগ (১৮৮৮-১৯৯২)- - প্রিমিয়ার লীগ (১৯৯২-বর্তমান)
প্রতিষ্ঠা
১৮৮৮
দলের সংখ্যা
২০
বর্তমান চ্যাম্পিয়ন
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
দেশ
ইংল্যান্ড
ইংল্যান্ড
সফলতম ক্লাব
লিভারপুল
(১৮ বার বিজয়ী)

ইংলিশ ফুটবল শিরোপাধারীরা হচ্ছে ইংরেজ ফুটবলের সর্বোচ্চ লীগ বিজয়ী বর্তমানে যে লিগের নাম প্রিমিয়ার লীগমোটা হরফে লেখা দলগুলি একই মৌসুমে দ্বৈত-শিরোপা (লীগ ও এফএ কাপ)জিতেছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৮৮-১৮৮৯ সালের প্রেস্টন নর্থ এন্ড, প্রথম ফুটবল লীগ শিরোপাধারী

১৮৮৫ সালে ফুটবল এসোসিয়েশন কর্তৃক পেশাদারী ফুটবল আইনসিদ্ধ হওয়ার[১] পরে, ১৮৮৮ সালে অ্যাস্টন ভিলা পরিচালক উইলিয়াম ম্যাকগ্রেগর ইংলিশ ফুটবল লীগ প্রতিষ্ঠা করেন। এটি বিশ্বের প্রথম পেশাদার ফুটবল লীগ।

১৮৮৮-৮৯ মৌসুম শেষে প্রেস্টন নর্থ এন্ড প্রথম শিরোপা লাভের গৌরব অর্জন করে। তারাই প্রথম অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সম্মান পায়। ১৯৯২ সালে তৎকালীন প্রথম বিভাগের দলগুলো এই লীগ বর্জন করে এফএ প্রিমিয়ার লীগ প্রতিষ্ঠা করে, যা ইংল্যান্ডের ফুটবলের শীর্ষবিভাগ।

১৮টি শিরোপা নিয়ে লিভারপুল শিরোপার তালিকায় শীর্ষস্থানে রয়েছে। মাঠে তাদের আধিপত্য ছিল মূলত ১৯৭০ ও ১৯৮০ দশকে। তবে ১৯৯২ সালে প্রিমিয়ার লীগ চালু হওয়ার পর থেকে তারা এ পর্যন্ত একটি শিরোপা লাভেও সমর্থ হয়নি। শিরোপা তালিকায় ১৬টি শিরোপা নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তারা স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসনের অধীনে ১৯৯০ দশকে মাঠে প্রাধান্য বিস্তার করেছিল। এর পরেই আছে আর্সেনাল যাদের ১৩টি শিরোপার সবকয়টি এসেছে ১৯৩০ সালের পরে। এভারটন ৯টি, অ্যাস্টন ভিলা ৭টি ও সান্ডারল্যান্ড ৬টি শিরোপা নিয়ে পরবর্তী অবস্থানে রয়েছে, যাদের অধিকাংশ শিরোপা এসেছে ১৮৯০ দশকে।

প্রেস্টন নর্থ এন্ড, বার্নলে, এবং হাডার্সফিল্ড টাউন দল তিনটি ফুটবল লীগে সর্বোচ্চ সম্মান জিতলেও এখন পর্যন্ত প্রিমিয়ারশিপে খেলার সুযোগ পায়নি।

যে কয়েকটি দল টানা তিনবার শিরোপা লাভ করেছে তারা হচ্ছে হাডার্সফিল্ড টাউন (১৯২৪-২৬), আর্সেনাল (১৯৩৩-৩৫), লিভারপুল (১৯৮২-৮৪) এবং ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১৯৯৯-২০০১)।

প্রথম বিভাগ ফুটবল লীগ (১৮৮৮-১৯৯২)[সম্পাদনা]

বছর বিজয়ী (শিরোপার সংখ্যা) দ্বিতীয়-স্থান সোনালী জুতা (সর্বোচ্চ গোলদাতা)
১৮৮৮-৮৯ প্রেস্টন নর্থ এন্ড[২] (১) অ্যাস্টন ভিলা জন গুডল (প্রেস্টন) (২১ গোল)
১৮৮৯-৯০ প্রেস্টন নর্থ এন্ড (২) এভারটন জিমি রস (প্রেস্টন) (২১)
১৮৯০-৯১ এভারটন (১) প্রেস্টন নর্থ এন্ড জ্যাক সাউথওর্থ (ব্ল্যাকবার্ন) (২৬)
১৮৯১-৯২ সান্ডারল্যান্ড (১) প্রেস্টন নর্থ এন্ড জনি ক্যাম্পবেল (সান্ডারল্যান্ড) (৩২)
১৮৯২-৯৩ সান্ডারল্যান্ড (২) প্রেস্টন নর্থ এন্ড জনি ক্যাম্পবেল (সান্ডারল্যান্ড) (৩১)
১৮৯৩-৯৪ অ্যাস্টন ভিলা (১) সান্ডারল্যান্ড জ্যাক সাউথওর্থ (এভারটন) (২৭)
১৮৯৪-৯৫ সান্ডারল্যান্ড (৩) এভারটন জনি ক্যাম্পবেল (সান্ডারল্যান্ড) (২২)
১৮৯৫-৯৬ অ্যাস্টন ভিলা (২) ডার্বি কাউন্টি জনি ক্যাম্পবেল (অ্যাস্টন ভিলা) এবং স্টিভ বুমার (ডার্বি) (২০)
১৮৯৬-৯৭ অ্যাস্টন ভিলা (৩) শেফিল্ড ইউনাইটেড স্টিভ বুমার (ডার্বি) (২২)
১৮৯৭-৯৮ শেফিল্ড ইউনাইটেড (১) সান্ডারল্যান্ড জর্জ হোয়েলডন (অ্যাস্টন ভিলা) (২১)
১৮৯৮-৯৯ অ্যাস্টন ভিলা (৪) লিভারপুল স্টিভ বুমার (ডার্বি) (২৩)
১৮৯৯-১৯০০ অ্যাস্টন ভিলা (৫) শেফিল্ড ইউনাইটেড বিলি গ্যারাটি (অ্যাস্টন ভিলা) (২৭)
১৯০০-০১ লিভারপুল (১) সান্ডারল্যান্ড স্টিভ বুমার (ডার্বি) (২৩)
১৯০১-০২ সান্ডারল্যান্ড (৪) এভারটন জিমি সেটল (এভারটন) (১৮)
১৯০২-০৩ দি ওয়েডনেজডে (১) অ্যাস্টন ভিলা স্যাম রেবাউল্ড (লিভারপুল) (৩১)
১৯০৩-০৪ দি ওয়েডনেজডে (২) ম্যানচেস্টার সিটি স্টিভ বুমার (ডার্বি) (২০)
১৯০৪-০৫ নিউকাসল ইউনাইটেড (১) এভারটন আর্থার ব্রাউন (শেফিল্ড ইউনাইটেড) (২২)
১৯০৫-০৬ লিভারপুল (২) প্রেস্টন নর্থ এন্ড ওয়াল্টার হোয়াইট (বোল্টন) (২৬)
১৯০৬-০৭ নিউকাসল ইউনাইটেড (২) ব্রিস্টল সিটি এলফ ইয়ং (এভারটন) (২৮)
১৯০৭-০৮ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১) অ্যাস্টন ভিলা ইনোক ওয়েস্ট (নটংহাম ফরেস্ট) (২৭)
১৯০৮-০৯ নিউকাসল ইউনাইটেড (৩) এভারটন বার্ট ফ্রিম্যান (এভারটন) (৩৮)
১৯০৯-১০ অ্যাস্টন ভিলা (৬) লিভারপুল জ্যাক পার্কিনসন (লিভারপুল) (৩০)
১১৯১০-১১ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (২) অ্যাস্টন ভিলা অ্যালবার্ট শেফার্ড (নিউকাসল) (২৫)
১৯১১-১২ ব্ল্যাকবার্ন রোভার্স (১) এভারটন হ্যারি হ্যাম্পটন (অ্যাস্টন ভিলা), জর্জ হলি (সান্ডারল্যান্ড) এবং ডেভিড ম্যাকলিন (দি ওয়েডনেজডে) (২৫)
১৯১২-১৩ সান্ডারল্যান্ড (৫) অ্যাস্টন ভিলা ডেভিড ম্যাকলিন (দি ওয়েডনেজডে) (৩০)
১৯১৩-১৪ ব্ল্যাকবার্ন রোভার্স (২) অ্যাস্টন ভিলা জর্জ এলিয়ট (মিডলসব্রো) (৩২)
১৯১৪-১৫ এভারটন (২) ওল্ডহ্যাম এথলেটিক ববি পার্কার (এভারটন) (৩৫)
১৯১৬-১৯ বিশ্বযুদ্ধের কারণে লীগ বন্ধ ছিল
১৯১৯-২০ ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন (১) বার্নলে ফ্রেড মরিস (ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন) (৩৭)
১৯২০-২১ বার্নলে (১) ম্যানচেস্টার সিটি জো স্মিথ (বোল্টন) (৩৮)
১৯২১-২২ লিভারপুল (৩) টোটেনহাম হটস্পার এন্ড্রু উইলসন (মিডলসব্রো) (৩১)
১৯২২-২৩ লিভারপুল (৪) সান্ডারল্যান্ড চার্লি বুচান (সান্ডারল্যান্ড) (৩০)
১৯২৩-২৪ হাডার্সফিল্ড টাউন (১) কার্ডিফ সিটি উইলফ চ্যাডউইক (এভারটন) (২৮)
১৯২৪-২৫ হাডার্সফিল্ড টাউন (২) ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন ফ্রাঙ্ক রবার্টস (ম্যানচেস্টার সিটি) (৩১)
১৯২৫-২৬ হাডার্সফিল্ড টাউন (৩) আর্সেনাল টেড হার্পার (ব্ল্যাকবার্ন) (৪৩)
১৯২৬-২৭ নিউকাসল ইউনাইটেড (৪) হাডার্সফিল্ড টাউন জিমি ট্রটার (দি ওয়েডনেজডে) (৩৭)
১৯২৭-২৮ এভারটন (৩) হাডার্সফিল্ড টাউন ডিক্সি ডিন (এভারটন) (৬০)
১৯২৮-২৯ শেফিল্ড ওয়েডনেজডে (৩) লিচেস্টার সিটি ডেভ হ্যালিডে (সান্ডারল্যান্ড) (৪৩)
১৯২৯-৩০ শেফিল্ড ওয়েডনেজডে (৪) ডার্বি কাউন্টি ভিচ ওয়াটসন (ওয়েস্ট হ্যাম) (৪১)
১৯৩০-৩১ আর্সেনাল (১) অ্যাস্টন ভিলা টম 'পোঙ্গো' ওয়ারিং (অ্যাস্টন ভিলা) (৪৯)
১৯৩১-৩২ এভারটন (৪) আর্সেনাল ডিক্সি ডিন (এভারটন) (৪৪)
১৯৩২-৩৩ আর্সেনাল (২) অ্যাস্টন ভিলা জ্যাক বাউয়ার্স (ডার্বি) (৩৫)
১৯৩৩-৩৪ আর্সেনাল (৩) হাডার্সফিল্ড টাউন জ্যাক বাউয়ার্স (ডার্বি) (৩৪)
১৯৩৪-৩৫ আর্সেনাল (৪) সান্ডারল্যান্ড টেড ড্রেক (আর্সেনাল) (৪২)
১৯৩৫-৩৬ সান্ডারল্যান্ড (৬) ডার্বি কাউন্টি প্যাট গ্লোভার (গ্রিমসবাই), রাইচ কার্টার (সান্ডারল্যান্ড) এবং ববি গার্নি (সান্ডারল্যান্ড) (৩১)
১৯৩৬-৩৭ ম্যানচেস্টার সিটি (১) চার্লটন এথলেটিক ফ্রেডি স্টি (স্টোক) (৩৩)
১৯৩৭-৩৮ আর্সেনাল (৫) উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স টমি লটন (এভারটন) (৩৮)
১৯৩৮-৩৯ এভারটন (৫) উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স টমি লটন (এভারটন) (৩৫)
১৯৪০-৪৬ বিশ্বযুদ্ধের কারণে লীগ বন্ধ ছিল
১৯৪৬-৪৭ লিভারপুল (৫) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ডেনিস ওয়েস্টকোট (ওভস) (৩৭)
১৯৪৭-৪৮ আর্সেনাল (৬) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড রনি রুকি (আর্সেনাল) (৩৩)
১৯৪৮-৪৯ পোর্টস্‌মাথ (১) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড উইলি মইর (বোল্টন) (২৫)
১৯৪৯-৫০ পোর্টস্‌মাথ (২) উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স ডিকি ডেভিস (সান্ডারল্যান্ড) (২৫)
১৯৫০-৫১ টোটেনহাম হটস্পার (১) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড স্ট্যান মর্টেনসেন (ব্ল্যাকপুল) (৩০)
১৯৫১-৫২ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (৩) টোটেনহাম হটস্পার জর্জ রোবেলেদো (নিউকাসল) (৩৩)
১৯৫২-৫৩ আর্সেনাল (৭) প্রেস্টন নর্থ এন্ড চার্লি ওয়েম্যান (প্রেস্টন) (২৪)
১৯৫৩-৫৪ উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স (১) ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন জিমি গ্ল্যাজার্ড (হাডার্সফিল্ড) (২৯)
১৯৫৪-৫৫ চেলসি (১) উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স রনি অ্যালেন (ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন) (২৭)
১৯৫৫-৫৬ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (৪) ব্ল্যাকপুল ন্যাট লফটহাউজ (বোল্টন) (৩৩)
১৯৫৬-৫৭ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (৫) টোটেনহাম হটস্পার জন চার্লস (লিডস) (৩৮)
১৯৫৭-৫৮ উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স (২) প্রেস্টন নর্থ এন্ড ববি স্মিথ (টোটেমহাম) (৩৬)
১৯৫৮-৫৯ উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স (৩) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড জিমি গ্রেভিস (চেলসি) (৩৩)
১৯৫৯-৬০ বার্নলে (২) উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স ডেনিস ভায়োলেট (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড) (৩২)
১৯৬০-৬১ টোটেনহাম হটস্পার (২) শেফিল্ড ওয়েডনেজডে জিমি গ্রেভিস (চেলসি) (৪১)
১৯৬১-৬২ ইপসুইচ টাউন (১) বার্নলে রে ক্রফোর্ড (ইপসুইচ) এন্ড ডেরেক কেভান (ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন) (৩৩)
১৯৬২-৬৩ এভারটন (৬) টোটেনহাম হটস্পার জিমি গ্রেভিস (টোটেমহাম) (৩৭)
১৯৬৩-৬৪ লিভারপুল (৬) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড জিমি গ্রেভিস (টোটেমহাম) (৩৫)
১৯৬৪-৬৫ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (৬) লিডস ইউনাইটেড অ্যান্ডি ম্যাককভি (ব্ল্যাকবার্ন) এবং জিমি গ্রেভিস (টোটেমহাম) (২৯)
১৯৬৫-৬৬ লিভারপুল (৭) লিডস ইউনাইটেড উইলি আর্ভাইন (বার্নলে) (২৯)
১৯৬৬-৬৭ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (৭) নটিংহ্যাম ফরেস্ট রন ডেভিস (সাউদাম্পটন) (৩৭)
১৯৬৭-৬৮ ম্যানচেস্টার সিটি (২) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড জর্জ বেস্ট (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড) এবং রন ডেফিডস (সাউদাম্পটন) (২৮)
১৯৬৮-৬৯ লিডস ইউনাইটেড (১) লিভারপুল জিমি গ্রেভিস (টোটেমহাম) (২৭)
১৯৬৯-৭০ এভারটন (৭) লিডস ইউনাইটেড জেফ অ্যাসলে (ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন) (২৫)
১৯৭০-৭১ আর্সেনাল (৮) লিডস ইউনাইটেড টনি ব্রাউন (ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন) (২৮)
১৯৭১-৭২ ডার্বি কাউন্টি (১) লিডস ইউনাইটেড ফ্রান্সিস লী (ম্যানচেস্টার সিটি) (৩৩)
১৯৭২-৭৩ লিভারপুল[৩] (৮) আর্সেনাল ব্রায়ান 'পপ' রবসন (ওয়েস্ট হ্যাম) (২৮)
১৯৭৩-৭৪ লিডস ইউনাইটেড (২) লিভারপুল মিক শ্যানন (সাউদাম্পটন) (২১)
১৯৭৪-৭৫ ডার্বি কাউন্টি (২) লিভারপুল ম্যালকম ম্যাকডোনাল্ড (নিউকাসল) (২১)
১৯৭৫-৭৬ লিভারপুল[৩] (৯) কুইনস পার্ল রেঞ্জারস টেড ম্যাকডুগাল (নরউইচ) (২৩)
১৯৭৬-৭৭ লিভারপুল[৪] (১০) ম্যানচেস্টার সিটি ম্যালকম ম্যাকডোনাল্ড (আর্সেনাল) এবং অ্যান্ডি গ্রে (অ্যাস্টন ভিলা) (২৫)
১৯৭৭-৭৮ নটিংহ্যাম ফরেস্ট[৫] (১) লিভারপুল বব ল্যাচফোর্ড (এভারটন) (৩০)
১৯৭৮-৭৯ লিভারপুল (১১) নটিংহ্যাম ফরেস্ট ফ্রাঙ্ক ওয়র্থিঙ্গটন (বোল্টন) (২৪)
১৯৭৯-৮০ লিভারপুল (১২) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ফিল বয়ার (সাউদাম্পটন) (২৩)
১৯৮০-৮১ অ্যাস্টন ভিলা (৭) ইপসুইচ টাউন পিটার উইদে (অ্যাস্টন ভিলা) এবং স্টীভ আর্কিবল্ড (টোটেমহাম) (২০)
১৯৮১-৮২[৬] লিভারপুল [৫](১৩) ইপসুইচ টাউন কেভিন কিগান (সাউদাম্পটন) (২৬)
১৯৮২-৮৩ লিভারপুল [৫] (১৪) ওয়াটফোর্ড লুথার ব্লিসেট (ওয়াটফোর্ড) (২৭)
১৯৮৩-৮৪ লিভারপুল[৪] [৫] (১৫) সাউদাম্পটন ইয়ান রাশ (লিভারপুল) (৩২)
১৯৮৪-৮৫ এভারটন [৭](৮) লিভারপুল কেরি ডিক্সন (চেলসি) এবং গ্যারি লিনেকার (লিচেস্টার) (২৪)
১৯৮৫-৮৬ লিভারপুল (১৬) এভারটন গ্যারি লিনেকার (এভারটন) (৩০)
১৯৮৬-৮৭ এভারটন (৯) লিভারপুল ক্লাইভ এলেন (টোটেমহাম) (৩৩)
১৯৮৭-৮৮ লিভারপুল (১৭) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড জন অল্ডরিজ (লিভারপুল) (২৬)
১৯৮৮-৮৯ আর্সেনাল (৯) লিভারপুল অ্যালান স্মিথ (আর্সেনাল) (২৩)
১৯৮৯-৯০ লিভারপুল (১৮) অ্যাস্টন ভিলা গ্যারি লিনেকার (টোটেমহাম) (২৪)
১৯৯০-৯১ আর্সেনাল (১০) লিভারপুল অ্যালান স্মিথ (আর্সেনাল) (২২)
১৯৯১-৯২ লিডস ইউনাইটেড (৩) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ইয়ান রাইট (ক্রিস্টাল প্যালেস/আর্সেনাল) (২৯)

এফএ প্রিমিয়ার লীগ (১৯৯২-বর্তমান)[সম্পাদনা]

বছর বিজয়ী (শিরোপার সংখ্যা) দ্বিতীয়-স্থান সর্বোচ্চ গোলদাতা
১৯৯২–৯৩ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (৮) অ্যাস্টন ভিলা টেডি শেরিংহ্যাম (টোটেনহাম) (২২)
১৯৯৩–৯৪ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (৯) ব্ল্যাকবার্ন রোভার্স অ্যান্ডি কোল (নিউকাসল) (৩৪)
১৯৯৪–৯৫ ব্ল্যাকবার্ন রোভার্স (৩) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড অ্যালান শিয়ারার (ব্ল্যাকবার্ন) (৩৪)
১৯৯৫–৯৬ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১০) নিউকাসল ইউনাইটেড অ্যালান শিয়ারার (ব্ল্যাকবার্ন) (৩১)
১৯৯৬–৯৭ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১১) নিউকাসল ইউনাইটেড অ্যালান শিয়ারার (নিউকাসল) (২৫)
১৯৯৭–৯৮ আর্সেনাল (১১) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ক্রিস সাটন (ব্ল্যাকবার্ন), ডিওন ডাবলিন (কনভেন্ট্রি), মাইকেল ওয়েন (লিভারপুল) (১৮)
১৯৯৮–৯৯ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড[৮] (১২) আর্সেনাল জিমি ফ্লয়েড হ্যাসলবেইঙ্ক (লিডস), মাইকেল ওয়েন (লিভারপুল), ডুইট ইয়র্ক (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড) (১৮)
১৯৯৯–২০০০ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১৩) আর্সেনাল কেভিন ফিলিপস (সান্ডারল্যান্ড) (৩০)
২০০০–০১ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১৪) আর্সেনাল জিমি ফ্লয়েড হ্যাসলবেইঙ্ক (চেলসি) (২৩)
২০০১–০২ আর্সেনাল (১২) লিভারপুল থিয়েরি অঁরি (আর্সেনাল) (২৪)
২০০২–০৩ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১৫) আর্সেনাল রুড ভ্যান নিস্তেলরয় (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড) (২৫)
২০০৩–০৪ আর্সেনাল [২](১৩) চেলসি থিয়েরি অঁরি (আর্সেনাল) (৩০)
২০০৪–০৫ চেলসি[৫] (২) আর্সেনাল থিয়েরি অঁরি (আর্সেনাল) (২৫)
২০০৫–০৬ চেলসি (৩) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থিয়েরি অঁরি (আর্সেনাল) (২৭)
২০০৬–০৭ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (১৬) চেলসি দিদিয়ের দ্রগবা (চেলসি) (২০)

মোট খেতাবের সংখ্যা[সম্পাদনা]

কেবল ২৩ টি দল এ পর্যন্ত শিরোপা জিতেছে।

দল বিজয়ী দ্বিতীয়-স্থান শিরোপার বছর
লিভারপুল
১৮
১১
১৯০০-০১, ১৯০৫-০৬, ১৯২১-২২, ১৯২২-২৩, ১৯৪৬-৪৭, ১৯৬৩-৬৪, ১৯৬৫-৬৬, ১৯৭২-৭৩, ১৯৭৫-৭৬, ১৯৭৬-৭৭, ১৯৭৮-৭৯, ১৯৭৯-৮০, ১৯৮১-৮২, ১৯৮২-৮৩, ১৯৮৩-৮৪, ১৯৮৫-৮৬, ১৯৮৭-৮৮, ১৯৮৯-৯০
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
১৬
১৩
১৯০৭-০৮, ১৯১০-১১, ১৯৫১-৫২, ১৯৫৫-৫৬, ১৯৫৬-৫৭, ১৯৬৪-৬৫, ১৯৬৬-৬৭, ১৯৯২-৯৩, ১৯৯৩-৯৪, ১৯৯৫-৯৬, ১৯৯৬-৯৭, ১৯৯৮-৯৯, ১৯৯৯-০০, ২০০০-০১, ২০০২-০৩, ২০০৬-০৭
আর্সেনাল
১৩
১৯৩০-৩১, ১৯৩২-৩৩, ১৯৩৩-৩৪, ১৯৩৪-৩৫, ১৯৩৭-৩৮, ১৯৪৭-৪৮, ১৯৫২-৫৩, ১৯৭০-৭১, ১৯৮৮-৮৯, ১৯৯০-৯১, ১৯৯৭-৯৮, ২০০১-০২, ২০০৩-০৪
এভারটন
১৮৯০–৯১, ১৯১৪–১৫, ১৯২৭–২৮, ১৯৩১–৩২, ১৯৩৮–৩৯, ১৯৬২–৬৩, ১৯৬৯–৭০, ১৯৮৪–৮৫, ১৯৮৬–৮৭
অ্যাস্টন ভিলা
১০
১৮৯৩-৯৪, ১৮৯৫-৯৬, ১৮৯৬-৯৭, ১৮৯৮-৯৯, ১৮৯৯-১৯০০, ১৯০৯-১০,১৯৮০-৮১
সান্ডারল্যান্ড
১৮৯১-৯২, ১৮৯২-৯৩, ১৮৯৪-৯৫, ১৯০১-০২, ১৯১২-১৩, ১৯৩৫-৩৬
নিউকাসল ইউনাইটেড
১৯০৪-০৫, ১৯০৬-০৭, ১৯০৮-০৯, ১৯২৬-২৭
শেফিল্ড ওয়েডনেজডে[৯]
১৯০১-০৩, ১৯০৩-০৪, ১৯২৮-২৯, ১৯২৯-৩০
লিডস ইউনাইটেড
১৯৬৮-৬৯, ১৯৭৩-৭৪, ১৯৯১-৯২
উভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স
১৯৫৩-৫৪, ১৯৫৭-৫৮, ১৯৫৮-৫৯
হাডার্সফিল্ড টাউন
১৯২৩-২৪, ১৯২৪-২৫, ১৯২৫-২৬
ব্ল্যাকবার্ন রোভার্স
১৯১১-১২, ১৯১৩-১৪, ১৯৯৪-৯৫
চেলসি
১৯৫৪-৫৫, ২০০৪-০৫, ২০০৫-০৬
প্রেস্টন নর্থ এন্ড
১৮৮৮-৮৯, ১৮৮৯-৯০
টোটেনহাম হটস্পার
১৯৫০-৫১, ১৯৬০-৬১
ম্যানচেস্টার সিটি
১৯৩৬-৩৭, ১৯৬৭-৬৮
বার্নলে
১৯২০-২১, ১৯৫৯-৬০
ডার্বি কাউন্টি
১৯৭১-৭২, ১৯৭৪-৭৫
পোর্টস্‌মাথ
১৯৪৮-৪৯, ১৯৪৯-৫০
ইপসুইচ টাউন
১৯৬১-৬২
শেফিল্ড ইউনাইটেড
১৮৯৭-৯৮
ওয়েস্ট ব্রমইউচ অ্যালবিওন
১৯১৯-২০
নটিংহ্যাম ফরেস্ট
১৯৭৭-৭৮

দ্বৈত ও ত্রয়ী[সম্পাদনা]

কেবলমাত্র লীগের পাশাপাশি যারা দ্বৈত ও ত্রয়ী জিতেছে তাদের তালিকা।

ইংরেজ ফুটবলে দ্বৈত (The Double) বলতে বোঝায় যারা একই মৌসুমে প্রিমিয়ার লীগ (অথবা পূর্বের ফুটবল লীগ প্রথম বিভাগ) এবং সেই সাথে এফ.এ. কাপও জেতে। প্রথম দ্বৈত অর্জনকারী দল হচ্ছে প্রেস্টন নর্থ এন্ড ১৮৮৯ সালে এবং সর্বশেষ দ্বৈত জিতেছে আর্সেনাল ২০০২ সালে।

ত্রয়ী (The Treble) বলতে সাধারণত দ্বৈতের সাথে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ (সাবেক ইউরোপীয়ান কাপ) জেতাকেও বোঝায়। ইংরেজ দলগুলোর জন্য এই তিনটি সবচেয়ে সম্মানজনক ট্রফি। একমাত্র যে দল ত্রয়ী জিতেছে তারা হল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ইউনাইটেড ১৯৯৯ সালে ত্রয়ী জেতার গৌরব অর্জন করে। ত্রয়ী বলতে ঘরোয়া ত্রয়ীকেও বোঝান হয়। এর অর্থ হল একই মৌসুমে কোন দলের দ্বৈতের পাশাপাশি লীগ কাপ জেতা। যদিও এই ঘটনা ইংরেজ ফুটবল ইতিহাসে এখনো ঘটেনি। লিভারপুল দল ২০০১ সালে লীগ কাপ, এফএ কাপ ও উয়েফা কাপ জিতে আরেক ধরনের ত্রয়ীর গৌরব অর্জন করেছে।

বছর বিজয়ী অন্যান্য ট্রফি টুকিটাকি
১৮৮৮–৮৯ প্রেস্টন নর্থ এন্ড এফএ কাপ মৌসুমে অপরাজিত (২২ খেলা)
১৮৯৫-৯৬ অ্যাস্টন ভিলা এফএ কাপ
১৯৬০-৬১ টোটেনহাম হটস্পার এফএ কাপ আধুনিক যুগে 'দ্বৈত' জেতা প্রথম দল
১৯৭০-৭১ আর্সেনাল এফএ কাপ
১৯৭২-৭৩ লিভারপুল উয়েফা কাপ প্রথম ঘরোয়া ও ইউরোপীয় দ্বৈত
১৯৭৫-৭৬ লিভারপুল উয়েফা কাপ
১৯৭৬-৭৭ লিভারপুল ইউরোপীয়ান কাপ ত্রয়ী ছুটে গেছে, এফএ কাপ রানার্স আপ
১৯৮৩-৮৪ লিভারপুল ইউরোপীয়ান কাপ এবং লীগ কাপ প্রথম ত্রয়ী
১৯৮৪-৮৫ এভারটন উয়েফা কাপ উইনার্স কাপ ত্রয়ী ছুটে গেছে, এফএ কাপ রানার্স আপ
১৯৮৫-৮৬ লিভারপুল এফএ কাপ
১৯৯৩-৯৪ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এফএ কাপ প্রথম ঘরোয়া ত্রয়ীর সুযোগ হারিয়েছে, লীগ কাপ রানার্স আপ
১৯৯৫-৯৬ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এফএ কাপ
১৯৯৭-৯৮ আর্সেনাল এফএ কাপ
১৯৯৮-৯৯ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ এবং এফএ কাপ লীগ, এফএ কাপ এবং চ্যাম্পিয়নস লীগ মিলিয়ে প্রথম ত্রয়ী
২০০১-০২ আর্সেনাল এফএ কাপ

টুকিটাকি[সম্পাদনা]

  1. a "ফুটবল লীগের ইতিহাস"ফুটবল লীগ ওয়েবসাইট। সংগৃহীত ফেব্রুয়ারি ১৪  |accessyear= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  2. a  b মৌসুম অপরাজিত থেকে শেষ করেছে।
  3. a  b উয়েফা কাপও জিতেছে।
  4. a  b উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগও জিতেছে।
  5. a  b  c  d e ফুটবল লীগ কাপও জিতেছে।
  6. a  ১৯৮১-৮২ মৌসুম থেকে আজ পর্যন্ত প্রতি খেলায় বিজয়ের জন্য ৩ পয়েন্ট দেয়া হয়। এর আগে দুই পয়েন্ট দেয়া হত।
  7. a  উয়েফা কাপ উইনার্স কাপও জিতেছে।
  8. a ১৯৯৯ সালে লীগ ও এফএ কাপসহ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগও জিতেছে। এই অর্জনকে ত্রয়ী বলা হয়।
  9. a  ১৯২৯ সালের আগে শেফিল্ড ওয়েডনেজডে দ্যা ওয়েডনেজডে নামে পরিচিত ছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]