২০১২ রহস্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

২০১২ এর রহস্য এক সারি পরলোকতত্ত্বিক বিশ্বাসের ধারণ অনুসারে ২১শে ডিসেম্বর ২০১২ সালে আকস্মিকভাবে পরিবর্তন বা রূপান্তরিক ঘটনা ঘটবে।[১][২][৩][৪][৫][৬] এই তারিখটি একটি মেসোআমেরিকান দীর্ঘ গণনার পঞ্জিকা যা ৫১২৫ বছরের দীর্ঘ চক্রের শেষ তারিখ হিসাবে গণ্য হয়।[৭] বিভিন্ন জ্যোতির্বিদ্যা সংক্রান্ত সারিবদ্ধকরণ এবং সংখ্যাতত্ত্বিক সূত্রে এই তারিখ প্রস্তাবিত করা হয়েছে, যদিও মূলধারার পাণ্ডিত্য কাছে কোনটি গ্রহণ করা হয়নি।

নতুন যুগ এই ক্রান্তিকালের ব্যাখ্যা হল এই যে, তারিখটি একটি সময়ের শুরু নির্দেশ করে যা পৃথিবী এবং এখানকার অধিবাসীদের একটি ইতিবাচক শারীরিক বা আধ্যাত্মিক রূপান্তরের সহ্য করবে, এবং এই ২১শে ডিসেম্বর ২০১২ সাল হবে একটি নতুন যুগের প্রারম্ভ চিহ্ন।[৮] অন্যান্যরা ধারণা করে যে, তারিখটি পৃথিবীর অবসান বা অনুরূপ একটি বিপর্যয়কারী ঘটনা চিহ্নিত করে। পৃথিবীর অবসান জন্য প্রেক্ষাপটে প্রস্তাবিত পরবর্তী সোলার ম্যাক্সিমাম আগমনসহ, ছায়াপথের কেন্দ্রে পৃথিবী এবং ব্লাক হোলের মধ্যে মিথষ্ক্রিয়া[৯] বা "নিবিরু" নামে একটি গ্রহ সাথে পৃথিবীর সংঘর্ষ অন্তর্ভুক্ত।

২১শে ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে সম্পর্কে ইন্টারনেট, বই এবং টিভির প্রতিবেদনগুলোর মাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে যে এই তারিখে যেকোন গুরুত্বপূর্ণ একটি ঐতিহাসিক ঘটনা ঘটবে অথবা কোন বড় ধরনের বিপর্যয় হবে বলে মনে করছে। এই গুলো মায়া বর্ষপঞ্জিকার একটি চক্র (b'ak'tun) প্রান্তের উপর ভিত্তি করে করা হয়েছে, যদিও প্রাচীন অন্যান্য সভ্যতাগুলোর কাছে থেকেও এই ধরনের ধারণা পাওয়া গিয়েছে। এই ধারনাটি বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায় সমর্থন করেন না; ভূপদার্থবিদরাও, জ্যোতির্বিজ্ঞানীউদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগের ক্ষেত্রে </ref> ট্যাগ যোগ করা হয়নি

মায়ারা বছর গণনা করতো না, ১৮,৯৮০ দিনের (~ ৫২ বছর) চক্রকে স্থান দেওয়ার জন্য উভয় বর্ষপঞ্জিকার তারিখ তাদের মাঝে সংযুক্ত করা হয়েছে, ফলে মোট ৫২ চক্রে রূপান্তরিত হয়েছে। অন্য অতিরিক্ত একটি বর্ষপঞ্জিকা, তথাকথিত লং গুনতি গণনা করতো, অন্যদিকে, মায়ান পুরাণতত্ত্ব অনুসারে বিশ্ব সৃষ্টির তারিখ থেকেই সময় অতিক্রান্ত হচ্ছে (১১ই আগস্ট ৩১১৪ খ্রীষ্টপূর্বাব্দ গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জিকাতে)। এই বর্ষপঞ্জিকা পূর্ববর্তীর বর্ষপঞ্জিকার মত নয়, অগ্রগতিমূলক ছিল এবং সময়কে ভাগ করা হয়েছে চক্রতে, ১৪৪,০০০ দিনের সময়কালের আবর্তকে (b'ak'tun) না। ২০শে ডিসেম্বর ২০১২ ১৩তম b'ak'tun (১২ ১৯ ১৯ ১৭ ১৯ বর্ষপঞ্জিকার আসল স্বরলিপি) শেষ হবে এবং পরবর্তী দিন হতে ১৪তম b'ak'tun (১৩.০.০.০.০) শুরু হবে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Robert K. Sitler (February ২০০৬)। "The 2012 Phenomenon: New Age Appropriation of an Ancient Mayan Calendar"। Novo Religio: the Journal of Alternative and Emergent Religions (Berkeley: University of California Press) 9 (3): 24–38। আইএসএসএন 1092-6690ওসিএলসি 357082680ডিওআই:10.1525/nr.2006.9.3.024  |month= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  2. Sacha Defesche (২০০৭)। "'The 2012 Phenomenon': A historical and typological approach to a modern apocalyptic mythology."। skepsis। সংগৃহীত ২৯ এপ্রিল ২০১১ 
  3. G. Jeffrey MacDonald (২৭ মার্চ ২০০৭)। "Does Maya calendar predict 2012 apocalypse?"USA Today। সংগৃহীত ১৪ অক্টোবর ২০০৯ 
  4. Hoopes 2011a
  5. Hoopes 2011c
  6. Hoopes 2011d
  7. 2012 Maya Calendar Mystery and Math, Surviving Yucatan
  8. Benjamin Anastas (১ জুলাই ২০০৭)। "The Final Days" (reproduced online, at KSU)। The New York Times Magazine (New York: The New York Times Company): Section ৬, p.৪৮। সংগৃহীত ১৮ মে ২০০৯ 
  9. "2012: Shadow of the Dark Rift"। NASA। ২০১১। সংগৃহীত ২৮ অক্টোবর ২০১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]