২০০৬ লেবানন যুদ্ধ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
২০০৬ লেবানন যুদ্ধ
মূল যুদ্ধ: ইসরায়েলি–লেবানন সংঘাত এবং ইরান-ইসরায়েল প্রক্সি সংঘাত
Tyre air strike.jpg
লেবাননের টায়ারে আইএএফ-এর বিমান হামলার সময় দুটি বোমাবর্ষণের প্রভাবে ধুলা বেড়েছে।
তারিখ১২ জুলাই - ১৪ আগস্ট ২০০৬
(লেবাননের ইসরায়েলি অবরোধ ২০০৬ সালের ৮ সেপ্টেম্বর শেষ হয়)
অবস্থান
ফলাফল

প্রচুর ইসরায়েলি সামরিক শ্রেষ্ঠত্ব থাকা সত্ত্বেও অচলাবস্থা

  • ইউএনএসসি রেজোলিউশন ১৭০১-এর মাধ্যমে যুদ্ধবিরতি
  • লেবাননের সেনাবাহিনীর প্রবর্তন এবং দক্ষিণ লেবাননে ইউএনআইএফআইএল'কে পুনর্বহাল করা
  • হিযবুল্লাহ দাবি করেছিলেন যুদ্ধটি "ঐশ্বরিকশিক বিজয়" [৮]
  • ইসরায়েল সাধারণত যুদ্ধটিকে একটি ব্যর্থতা এবং একটি হারিয়ে যাওয়া সুযোগ বলে বিবেচনা করে[৯]
  • ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী, চিফ অফ স্টাফ এবং বেশ কয়েক জন আইডিএফ জেনারেল সবাই যুদ্ধের পরে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন
বিবাদমান পক্ষ
 ইসরায়েল

হিজবুল্লাহ
অমল[২]
এলসিপি[৩]
পিএফএলপি-জিসি[৪]

সেনাধিপতি ও নেতৃত্ব প্রদানকারী

ইসরায়েল এহুদ ওলমার্ট
(ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী)
ইসরায়েল আমির পেরেজ
ইসরায়েল দেন হ্যালুজ
ইসরায়েল মোশে কাপলিনস্কি
ইসরায়েল উদী আদম
ইসরায়েল এলিয়েজের স্কেদি

ইসরায়েল ডেভিড বেন বাশাত

হাসান নাসরুল্লাহ (হিজবুল্লাহর সেক্রেটারি জেনারেল)
ইমাদ মুগনিয়াহ
নবীহ বেরি
খালেদ হাদাদি

আহমেদ জিব্রিল
শক্তি
২ আগস্টের মধ্যে ১০,০০০ সৈন্য;[১০] গত কয়েক দিনে ৩০,০০০ সৈন্য।[১১] কয়েক শত
(লিটানি নদী-এর দক্ষিণে)[১২][১৩]
হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতি

ইসরায়েল প্রতিরক্ষা বাহিনী:
নিহত: ১২১ জন
আহত: ১,২৪৪ জন [১৪]
২০ টি[১৫] ট্যাঙ্ক মেরামতের অযোগ্য (এটিজিএম এবং আইইডিগুলি থেকে হামলার ফলে)[১৬][১৭]
দুর্ঘটনায় ১ টি হেলিকপ্টার ভূপাতিত ও ৩ জন নিহত হয়[১৮][১৯][২০][২১]
১ টি যুদ্ধ জাহাজ ক্ষতিগ্রস্থ হয়[২২][২৩]
ইসরায়েলি নাগরিকরা:
নিহত: ৪৪ জন [২৪] [২৫]
আহত:১,৩৮৪ [২৬]

বিদেশী বেসামরিক নাগরিকরা:
২ জন নিহত [২৭]

হিজবুল্লাহ যোদ্ধা:
নিহত: ২৫০ জন(হিজবুল্লাহের দাবি)[২৮]
≤৫০০ জন(লেবানিজ ও জাতিসংঘের কর্মকর্তা)[২৯][৩০]
৬০০-৮০০ জন (আইডিএফ এর দাবি))[৩১][৩২]
বন্দী: ৪ জন জন যোদ্ধা[৩৩]

অমল মিলিশিয়া: ১৭ জন নিহত

এলসিপি মিলিশিয়া: ১২ জন নিহত

পিএফএলপি-জিসি মিলিশিয়া: ২ জন নিহত

আইআরজিসি: ≈৬–৯ জন নিহত (লেবাননের কর্মকর্তাদের দাবি, ইরান অস্বীকার করেছে)[৩৪][৩৫][৩৬]

লেবাননের সশস্ত্র বাহিনীঅভ্যন্তরীণ সুরক্ষা বাহিনী: ৪৩ জন নিহত[২]

লেবাননের বেসামরিক নাগরিক (যোদ্ধারা অন্তর্ভুক্ত) এবং বিদেশী বেসামরিক নাগরিকরা:
নিহত:*
১,১৯১ (অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল)[৩৭]
১,১০৯ (২৫০ জন হিজবুল্লাহ যোদ্ধা; মানবাধিকার প্রহরী সহ)[৩৮][৩৯]
১,১৯১ (লেবাননের সরকার)[৪০][৪১][৪২][৪৩][৪৪]
আহত:
৪,৪০৯

বিদেশী বেসামরিক নাগরিকরা:
৫১ জন নিহত[২৭]
২৫ জন আহত

রাষ্ট্রসঙ্ঘ:
৫ জন নিহত
১২ জন আহত[৪৫]
* লেবাননের সরকার বেসামরিক নাগরিক ও যুদ্ধে নিহতদের মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যার পৃথক তথ্য রাখেনি[৩২]
মোট হতাহতের পরিসংখ্যানের জন্য দেখুন: ২০০৬ লেবানন যুদ্ধের হতাহতের ঘটনা

২০০৬ লেবানন যুদ্ধ লেবানন, উত্তর ইসরায়েলগোলান হাইটে ঘটা ৩৪ দিনের একটি সামরিক সংঘাত, যাকে ২০০৬ ইসরায়েল-হিজবুল্লাহ যুদ্ধ[৪৬] বলা হয় এবং লেবাননে জুলাই যুদ্ধ[২] নামে পরিচিত।[৪৭] প্রধান দলগুলি হল হিজবুল্লাহ আধা সামরিক বাহিনী এবং ইসরায়েল প্রতিরক্ষা বাহিনী (আইডিএফ)। এই দ্বন্দ্বটি ২০০৬ সালের ১২ জুলাই শুরু হয় এবং ১৪ ই আগস্ট ২০০৬ সালে জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতি কার্যকর হওয়ার আগ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে, যদিও ২০০৬ সালের ৮ ই সেপ্টেম্বর ইসরায়েলের দ্বারা লেবাননে নৌ অবরোধ প্রত্যাহার করা হলে আনুষ্ঠানিকভাবে যুদ্ধ শেষ হয়। যুদ্ধের আগে ও সময়কালে হিজবুল্লাহকে অভূতপূর্ব ইরানি সামরিক সহায়তার কারণে কেউ কেউ এটিকে আরব-ইসরায়েলি সংঘাতের ধারাবাহিকতার চেয়ে ইরান-ইসরায়েল প্রক্সি সংঘাতের প্রথম পর্ব হিসাবে বিবেচনা করে।[৫]

২০০৬ সালে হিজবুল্লাহের আন্তঃসীমান্ত অভিযানের মাধ্যমে সংঘাতের সূত্রপাত ঘটে। হিজবুল্লাহ যোদ্ধারা ২০০৬ সালের ১২ জুলাই সীমানা বেড়ার ইসরায়েলি দিকে টহলে থাকা দুটি সাঁজোয়া হামভিয়েসের উপর ট্যাঙ্ক-বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জন্য ইসরায়েলি সেনাদের ভিন্নমুখকরণের উদ্দশ্যে ইসরায়েলি সীমান্তবর্তী শহরগুলিতে রকেট হামলা চালায়।[৪৮] আক্রমণে তিন সেনা নিহত হয়। দুই ইসরায়েলি সৈন্যকে হিজবুল্লাহরা অপহরণ করে লেবাননে নিয়ে যায়।[৪৮][৪৯] একটি ব্যর্থ উদ্ধার প্রচেষ্টায় লেবাননে আরও পাঁচজন নিহত হয়। হিজবুল্লাহ অপহৃত সৈন্যদের মুক্তির বিনিময়ে ইসরায়েলের দ্বারা আটক করে রাখা লেবানিজ বন্দীদের মুক্তি দাবি করে।[৫০] ইসরায়েল অস্বীকার করে এবং লেবাননের লক্ষ্যবস্তুগুলিতে বিমান হামলা ও আর্টিলারি হামলা চালিয়ে দিয়ে জবাব দেয়। ইসরায়েল বৈরুতের রাফিক হ্যারি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সহ হিজবুল্লাহয়ের সামরিক ঘাঁটি এবং লেবাননের বেসামরিক অবকাঠামো উভয়েই আক্রমণ করে।[৫১] আইডিএফ দক্ষিণ লেবাননে স্থল আক্রমণ শুরু করে। ইসরায়েল একটি বিমান ও নৌ অবরোধও তৈরি করে।[৫২] এরপরে হিজবুল্লাহ উত্তর ইসরায়েলে আরও রকেট হামলা চালায় এবং কঠিন অবস্থান থেকে আইডিএফ'কে গেরিলা যুদ্ধে জড়িত হতে বাধ্য করে।[৫৩]

ধারণা করা হয়, এই সংঘর্ষে ১,১৯১ জন থেকে ১,৩০০ জন লেবানিজ[৫৪][৫৫][৫৬][৫৭] এবং ১৬৫ জন ইসরায়েলি নিহত হন।[৫৮] এটি লেবাননের নাগরিক অবকাঠামোকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করে এবং প্রায় দশ মিলিয়ন লেবানিজ[৫৯] ও ৩,০০,০০০-৫,০০,০০০ ইসরায়েলিদের বাস্তুচ্যুত করে।[৬০][৬১][৬২]

২০০৬ সালের ১১ ই আগস্ট জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ যুদ্ধের অবসানের লক্ষ্যে সর্বসম্মতভাবে জাতিসংঘের সুরক্ষা কাউন্সিলের রেজোলিউশন ১৭০১ (ইউএনএসসিআর ১৭০১) অনুমোদন করে। পরের দিন লেবানন ও ইসরায়েলি সরকার উভয় পক্ষেই অনুমোদিত এই প্রস্তাবটিতে হিজবুল্লাহকে নিরস্ত্রীকরণ, লেবানন থেকে আইডিএফ প্রত্যাহার এবং লেবাননের সশস্ত্র বাহিনী ও বর্ধিত জাতিসংঘের অন্তর্বর্তীকালীন বাহিনীকে (ইউএনআইএফআইএল) দক্ষিণ লেবাননে স্থাপন করার আহ্বান জানানো হয়। ইউএনআইএফআইএল'কে তাদের সম্প্রসারণের ক্ষেত্রটি প্রতিকূল কর্মকাণ্ডের জন্য ব্যবহার না করা এবং তাদের দায়িত্ব পালনে বাধা দেওয়ার জোর প্রচেষ্টাকে প্রতিরোধ করার জন্য শক্তি প্রয়োগ করার ক্ষমতা সহ এক বিস্তৃত ম্যান্ডেট দেওয়া হয়।[৬৩] লেবাননের সেনাবাহিনী ২০০৬ সালের ১৭ ই আগস্ট দক্ষিণ লেবাননে সৈন্য মোতায়েন শুরু করে। ২০০৬ সালের ৮ ই সেপ্টেম্বর অবরোধ প্রত্যাহার করা হয়।[৬৪] ২০০৬ সালের ১ অক্টোবর, বেশিরভাগ ইসরায়েলি সেনাবাহিনী লেবানন থেকে ফিরে যায়, যদিও সেনাবাহিনীর শেষাংশ সীমান্তবর্তী গাজা গ্রামটি দখল করে থাকে।[৬৫] ইউএনএসসিআর ১৭০১ কার্যকর হওয়ার পর থেকে লেবাননের সরকার এবং ইউএনআইএফআইএল উভয়ই জানায় যে তারা হিজবুল্লাহকে নিরস্ত্রীকরণ করবে না।[৬৬][৬৭][৬৮] বন্দী হওয়া দুই সৈন্যের দেহাবশেষ ২০০৮ সালের ৮ ই জুলাই বন্দি বিনিময়ের অংশ হিসাবে ইসরায়েলে ফিরে আসে, তবে মৃত্যুর কারণ জানা যায়নি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Rebuilding and Security in Focus"The Wall Street Journal। ১১ সেপ্টেম্বর ২০০৬। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  2. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; DailyStarTimeline নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  3. Herbert Docena (১৭ আগস্ট ২০০৬)। "Amid the bombs, unity is forged"Asia Times। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১১The LCP ... has itself been very close to Hezbollah and fought alongside it in the frontlines in the south. According to Hadadeh, at least 12 LCP members and supporters died in the fighting. 
  4. "PFLP claims losses in IDF strike on Lebanon base"The Jerusalem Post। Associated Press। ৬ আগস্ট ২০০৬। ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. Eyal Zisser (মে ২০১১)। "Iranian Involvement in Lebanon" (PDF)Military and Strategic Affairs3 (1)। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; iht_vio_challenge নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  7. Uzi Rubin. The Rocket Campaign against Israel during the 2006 Lebanon War. p. 12. The Begin-Sadat Center for Strategic Studies Bar-Ilan University
  8. Hassan Nasrallah (২২ সেপ্টেম্বর ২০০৬)। "Sayyed Nasrallah Speech on the Divine Victory Rally in Beirut on 22-09-2006"। al-Ahed magazine। সংগ্রহের তারিখ ১০ আগস্ট ২০২০ 
  9. "English Summary of the Winograd Commission Report"The New York Times। ৩০ জানুয়ারি ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১০ আগস্ট ২০২০ 
  10. "Israel captures guerillas in Hezbollah hospital raid", USA Today, Beirut: reprinted from the Associated Press, ২ আগস্ট ২০০৬, সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  11. "Some 30,000 Israeli troops in Lebanon – army radio"Yahoo! News। Reuters। ১৩ আগস্ট ২০০৬। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  12. Nicholas Blanford (১১ আগস্ট ২০০৬)। "Hizbullah's resilience built on years of homework"The Christian Science Monitor। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জানুয়ারি ২০১২ 
  13. Harel and Issacharoff, p. 172
  14. "The Final Winograd Commission report, pp. 598–610" (PDF) (হিব্রু ভাষায়)। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৩  628 wounded according to Northern Command medical census of 9 November 2006 (The Final Winograd Commission Report, page 353)
  15. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; books.google.com নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  16. Rolling Thunder: A Century of tank Warfare, (Pen and Sword, 14 November 2013), By Philip Kaplan, page 172
  17. Cordesman ও Sullivan 2007, পৃ. 110"Only 5–6 of all types represented a lasting vehicle kill"
  18. "Hezbollah Defies Israeli Pressure"BBC News। ২১ জুলাই ২০০৬। 
  19. Egozi, Arie (১ আগস্ট ২০০৬)। "Israeli Air Power Falls Short As Offensive in Southern Lebanon Fails To Halt Hezbollah Rocket Attacks"Flight International। ৪ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  20. Hizbullah shoots down helicopter in southern Lebanon Hanan Greenberg Published: 08.12.06, 23:01, ynetnews
  21. Crash grounds Israel helicopters Page last updated at 09:04 GMT, Thursday, 11 September 2008
  22. Exclusive: Photos of navy ship hit during war revealed. YnetNews. 10.11.07
  23. "Striking Deep Into Israel, Hamas Employs an Upgraded Arsenal" by MARK MAZZETTI, The New York Times, 31 December 2008.
  24. "State snubbed war victim, family says"। ynetnews.com। ৩০ আগস্ট ২০০৭। ২ জুন ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০০৮ 
  25. BBC News Online (8 March 2007). "PM 'says Israel pre-planned war'". Retrieved 9 March 2007.
  26. "The Final Winograd Commission report, pp. 598–610" (PDF) (হিব্রু ভাষায়)। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  27. See Casualties of the 2006 Lebanon War#Foreign civilian casualties in Israel and Casualties of the 2006 Lebanon War#Foreign civilian casualties in Lebanon for a complete and adequately sourced list
  28. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Ghattas নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  29. Con Coughlin (৪ আগস্ট ২০০৬)। "Teheran fund pays war compensation to Hizbollah families"The Daily Telegraph। London। ৩০ মে ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০০৭ 
  30. Patrick Bishop (২২ আগস্ট ২০০৬)। "Peacekeeping force won't disarm Hizbollah"The Daily Telegraph। London। ৫ মার্চ ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০০৭A UN official estimated the deaths at 500 
  31. Lessons of the 2006 Israeli-Hezbollah War, by Anthony H. Cordesman, William D. Sullivan, CSIS, 2007, page 16
  32. "Lebanon Sees More Than 1,000 War Deaths"usti.net। Associated Press। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। Israel initially said 800 Hezbollah fighters died but later lowered that estimate to 600. 
  33. Yossi Melman (১৯ মে ২০০৮)। "Israel to Hezbollah: Forget Palestinian prisoners in swap for IDF soldiers"। সংগ্রহের তারিখ ২০ অক্টোবর ২০১১ 
  34. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; nysun1 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  35. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; ynetnews1 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  36. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; nysun2 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  37. "Lebanon – Amnesty International Report 2007"Human Rights in LEBANESE REPUBLIC। Amnesty International। ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  38. Why They Died: Civilian Casualties in Lebanon during the 2006 War, Human Rights Watch, September 2007
  39. Gross, Michael; Gross, Michael L. (২০১০)। Moral Dilemmas of Modern War: Torture, Assassination, and Blackmail in an Age of Asymmetric Conflict। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 171। আইএসবিএন 978-0-521-86615-6 
  40. Israel/Lebanon: Out of all proportion – civilians bear the brunt of the war, Amnesty International, November 2006.
  41. "Implementation of General Assembly Resolution 60/251 of March 2006 entitled "Human Rights Council"" (PDF)। United Nations Human Rights Council। ২৩ নভেম্বর ২০০৬। ১৭ জুন ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  42. McRae, D.M; De Mestral, A.L.C (২০১০)। The Canadian Yearbook of International Lawআইএসবিএন 9780774859172 
  43. SIPRI Yearbook 2007: Armaments, Disarmament, And International Security, Oxford University Press, page 69.
  44. Yearbook of International Humanitarian Law:Volume 9; Volume 2006। T.M.C Asser Press। ২০০৬। আইএসবিএন 978-90-6704-269-7 
  45. "United Nations Interim Force in Lebanon (UNIFIL)"। United Nations। ৬ আগস্ট ২০০৯। ১০ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জানুয়ারি ২০১১ 
  46. Arkin, William M. (জুলাই ২০০৭)। "Divining Victory: Airpower in the 2006 Israel–Hezbollah War"। Maxwell Air Force Base, Alabama: Air University Press। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  47. See, e.g., Yaakov Katz, "Halutz officers discuss war strategy," Jerusalem Post, 5 September 2006, p. 2
  48. "Clashes spread to Lebanon as Hezbollah raids Israel"International Herald Tribune। ১২ জুলাই ২০০৬। ২৯ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  49. "Israel buries soldiers recovered in prisoner swap"। ABC News (Australian Broadcasting Corporation)। ১৮ জুলাই ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জানুয়ারি ২০১১ 
  50. Myre, Greg; Erlanger, Steven (১৩ জুলাই ২০০৬)। "Israelis Enter Lebanon After Attacks"The New York Times 
  51. "Israeli warplanes hit Beirut suburb"। CNN। ১৪ জুলাই ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১১ 
  52. Cody, Edward (২৪ আগস্ট ২০০৬)। "Lebanese Premier Seeks U.S. Help in Lifting Blockade"The Washington Post। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১১ 
  53. Urquhart, Conal (১১ আগস্ট ২০০৬)। "Computerised weaponry and high morale"The Guardian। London। ৩০ আগস্ট ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০০৬ 
  54. "Cloud of Syria's war hangs over Lebanese cleric's death"The Independent। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  55. Reuters, 12 September 2006; Al-Hayat (London), 13 September 2006
  56. "Country Report—Lebanon," The Economist Intelligence Unit, no. 4 (2006), pp. 3–6.
  57. "Lebanon Death Toll Hits 1,300", by Robert Fisk, 17 August 2006, The Independent
  58. Israel Vs. Iran: The Shadow War, by Yaakov Katz, (NY 2012), page 17
  59. "Lebanon Under Siege"। Lebanon Higher Relief Council। ২০০৭। ২৭ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  60. Israel Ministry of Foreign Affairs (12 July 2006). "Hizbullah attacks northern Israel and Israel's response"; retrieved 5 March 2007.
  61. "Middle East crisis: Facts and Figures"BBC News। ৩১ আগস্ট ২০০৬। ১৯ জুলাই ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০০৮ 
  62. "Israel says it will relinquish positions to Lebanese army"USA Today। ১৫ আগস্ট ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১১ 
  63. "Lebanon: UN peacekeepers lay out rules of engagement, including use of force"। UN News Centre। ৩ অক্টোবর ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১১ 
  64. Pannell, Ian (৯ সেপ্টেম্বর ২০০৬)। "Lebanon breathes after the blockade"BBC News। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০০৮ 
  65. "UN peacekeepers: Israeli troops still in Lebanon"। CNN। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  66. Spiegel Online (16 August 2006). "Who Will Disarm Hezbollah?". Retrieved 10 January 2007.
  67. People's Daily Online (19 August 2006). "Indonesia refuses to help disarm Hezbollah in Lebanon". Retrieved 10 January 2007.
  68. "UN commander says his troops will not disarm Hezbollah"International Herald Tribune। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০০৬। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]