হিন্দু সংহতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হিন্দু সংহতি
সংক্ষেপেএইচএস
গঠিত১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ (১৩ বছর আগে) (2008-02-14)
প্রতিষ্ঠাতাতপন ঘোষ
ধরনসামাজিক ধর্মীয় সংগঠন
আইনি অবস্থাসক্রিয়
সদরদপ্তরকলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত
যে অঞ্চলে কাজ করে
ভারত
সভাপতি
দেবতনু ভট্টাচার্য্য
প্রধান প্রতিষ্ঠান
স্বাধীন
ওয়েবসাইটwww.hindusamhati.net

হিন্দু সংহতি একটি ডানপন্থী হিন্দু জাতীয়বাদী সংগঠন। মূক্ত বাঙালি হিন্দুদের সুরক্ষার জন্য সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০০৮ সালে তপন ঘোষ, যিনি পূর্বে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের প্রচারক ছিলেন,তার কর্তৃক হিন্দু সংহতি প্রতিষ্ঠিত হয়।তিনি রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের সাথে সমস্ত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে হিন্দু সংহতির প্রতিষ্ঠা করেন।রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের কয়েকজন নেতা তাকে অনুসরণ করেন।পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি জেলায় হিন্দু সংহতির কার্যক্রম রয়েছে। সম্প্রতি আসামঝাড়খণ্ডে হিন্দু সংহতির কার্যক্রম বিস্তৃত হয়।[১] সংগঠনের মূল স্লোগান হলো “জয় মা কালী” এবং “জয় শ্রীরাম”।[২] হিন্দু সংহতির প্রতিষ্ঠাতা তপন ঘোষ ২০২০ সালের ১৩ জুলাই কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মারা যান।[৩] ২০১৮ সালের ১৪ ই ফেব্রুয়ারি হিন্দু সংহতি কলকাতায় একটি সমাবেশ করে একটি মুসলিম পরিবারের ১৪ জন সদস্যকে "ঘর ওয়াপসি" করায় এবং রাজ্য জুড়ে একই ধরনের কর্মসূচির আহ্বান জানায়।এই ঘটনায় চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।কিন্তু আদালত তাদের ছেড়ে দেয়।[৪]

এই সংগঠনটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট দেবতনু ভট্টাচার্য্য।যিনি ১৯৯২ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত আরএসএসের প্রচারক হিসেবে পশ্চিমবঙ্গ ও উত্তর-পূর্ব ভারতে কর্মরত ছিলেন। তিনি ২০১৩ সালে হিন্দু সংহতিতে যোগ দিয়েছিলেন ।

কার্যক্রম[সম্পাদনা]

এই সংগঠনটি বিদেশ সমর্থন ,সাহায্য পেয়ে থাকে। সংগঠনটি দানে চলে । এটি একটি মাসিক বুলেটিন পেপার প্রকাশ করে ।বাংলা এবং ইংরেজিতে যার ওয়েবসাইট আছে। এটি সাত সদস্যের অপেশাদার অনলাইন টিমের সহায়তায় "হিন্দুদের উপর আক্রমণ" তুলে ধরে। এর মুখপত্রগুলিতে এর প্রোগ্রামগুলিতে কী বলছে তার বিবরণ দেয়।[৫] এছাড়া হিন্দু সংহতি প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং দাঙ্গায় ত্রাণ সাহায্য করেছে।[৬]

এই সংগঠনটি বলে তারা লাভ জিহাদ বিরোধী প্রচারে হিন্দু যুবকদের সাথে ৩০০ টিরও বেশি মুসলিম মেয়ের বিয়ে দিয়েছে এবং তাদের ভারতের বিভিন্ন স্থানে থাকার বন্দোবস্ত করেছে।সংগঠনটি ২০০ জনেরও বেশি হিন্দু মেয়েকে উদ্ধার করেছি যারা মুসলিম ছেলেদের বিয়ে করেছিল বা করার চেষ্টা করেছিল। সংগঠনটি তাদের আশ্রয় ও দেয়।

২০১৬ সালের ২৯ শে জুন বাংলাদেশে হিন্দু নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করে ও কলকাতার বাংলাদেশ দূতাবাসে ডেপুটেশন দেয়।[৭]

সংগঠনটি এমন এক স্কুল পড়ুয়াকে সমর্থন করেছিল যে ২০১৭ সালে একটি ফেসবুক মন্তব্য পোস্ট করেছিল। যখন সে ১৭ বছর বয়সী ছিল।এতে ইসলাম অবমাননার অভিযোগ করে উত্তর চব্বিশ-পরগনায় সাম্প্রদায়িক সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। যেখানে একজনের মৃত্যু হয়। এ নিয়ে এরপরে বশিরহাটে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।সংগঠনটী তার অভিভাবকের ভুমিকা নেয় । তার আশ্রয় এবং শিক্ষার ব্যবস্থা করে।[৮][৯]এ ঘটনায় পশ্চিমবঙ্গ সরকার কিছু সময়ের জন্য এই সংগঠনটির সভা বা সমাবেশ নিষিদ্ধ করে।[১০]

২০১৭ সালের ১৯ মার্চ শ্রীজাত ফেসবুকে অভিশাপ নামে যোগী আদিত্যনাথকে উদ্দেশ্য করে একটি কবিতা লেখে।[১১]এতে হিন্দু সংহতি সংগঠনের সদস্য অর্ণব সরকার শিলিগুড়ি সাইবার সেলে এফআইআর দায়ের করা হয় শ্রীজাতের বিরুদ্ধে।[১২]

২০২০ সালের ২৮ অক্টোবর এমানুয়েল মাক্রোঁর ইসলামি সন্ত্রাস বিরোধী পদক্ষেপকে সমর্থন করে পোস্ট করেন সংগঠনটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট দেবতনু ভট্টাচার্য্য।[১৩]

২০২০ সালে বাংলাদেশে হিন্দু নির্যাতনের প্রতিবাদে সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য্য একটি ফেসবুক পোস্ট করে বলেন-

বাংলাদেশী মুসলমানদের চালু ভিসা বাতিল করা হোক, নতুন ভিসা দেওয়া বন্ধ করা হোক। হিন্দু সংহতি বিদেশ মন্ত্রকের কাছে এই ভিসা বাতিলের দাবি জানাচ্ছে। কলকাতার বিশেষ কয়েকটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে আবেদন জানানো হবে যে বাংলাদেশে হিন্দু নির্যাতনের প্রতিবাদে তারা যেন বাংলাদেশী মুসলমানদের চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়।সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছে আবেদন, তারা বাংলাদেশী মুসলমান ছাত্রছাত্রীদের অবিলম্বে বহিষ্কার করে দেশে ফেরত পাঠাক।সমস্ত ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের কাছে আবেদন, আপনারা বাংলাদেশের সাথে ব্যবসা বন্ধ করে এই হিন্দু নির্যাতনের প্রতিবাদ জানান।

হিন্দু সংহতি ১০০-১৫০ জন কার্যকর্তার একটি দল নিয়ে মেডিকা এবং পিয়ারলেস হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের কাছে যায়।তারা এ বিষয়ে একটি লিখিত দাবী পত্র তাদের কাছে দেয়।[১৪]

২০২১ সালে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে ‘জন সংহতি’‌ নামে দল তৈরি করে নির্বাচনে লড়ার ঘোষণা করে্রে।কিন্তু পরে তারা নির্বাচনে লড়া থেকে সরে আসে।[১৫]এই নির্বাচনে সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য্য সংগঠনটির সভাপতি বিজেপির হয়ে হাওড়ার আমতা আসনে লড়েন।[১৬]

২০২১ সালে একটি ঘটনা সামনে আসে। পশ্চিম মেদিনীপুরের নয়াগ্ৰামের শঙ্কু চালক পার্শ্ববর্তী গ্ৰামের রেহানা খাতুনকে বিয়ে।মেয়েটি বিয়ে করে হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করে।তাদের একটি বাচ্চাও হয়। কিন্তু এ ঘতনার ফলে তাদের গ্রামে একঘরে করার চেষ্টা হয়।হিন্দু সংহতি তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে এবং তাদের সাহায্য করছে।[১৭]


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bengal Hindutva leader who took on RSS quits organisation he founded" 
  2. "Why so many in Bengal are talking about Hindu Samhati" 
  3. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  4. "Why so many in Bengal are talking about Hindu Samhati"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০২-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  5. "Why so many in Bengal are talking about Hindu Samhati"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০২-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  6. Chatterjee, Tanmay (২০২০-০৭-১২)। "করোনায় মৃত্যু হিন্দু সংহতির প্রতিষ্ঠাতা তপন ঘোষের"Hindustantimes Bangla। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  7. http://www.hindusamhati.com/SS201607.pdf
  8. "Why so many in Bengal are talking about Hindu Samhati"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০২-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  9. "বসিরহাট-বাদুড়িয়া কাণ্ড নিয়ে বিতর্কিত পোস্ট হিন্দু সংহতির নেতার, উত্তাপ ফেসবুকে"Zee24Ghanta.com। ২০১৭-০৭-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  10. সংবাদদাতা, নিজস্ব। "রাজ্যে হিন্দু সংহতি এবং এমআইএম-এর সমাবেশ নিষিদ্ধ করল সরকার"www.anandabazar.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  11. "শ্রীজাতর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের– News18 Bangla"News18 Bengali। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  12. "কবিতার জন্য নিশানায় কবি, এফআইআর দায়ের হল শ্রীজাতর বিরুদ্ধে"Zee24Ghanta.com। ২০১৭-০৩-২১। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  13. Samhati, Hindu (২০২০-১০-২৯)। "#IStandWithFrance টুইটার ট্রেন্ডিয়ে ফ্রান্স এর পাশে ভারত"হিন্দুর সাথে, হিন্দুর পাশে (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  14. Samhati, Hindu (২০২০-১১-০৪)। "বাংলাদেশের হিন্দুদের পাশে দাঁড়িয়ে আন্দোলনে হিন্দু সংহতি"হিন্দুর সাথে, হিন্দুর পাশে (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  15. Saha, Dibyendu (২০২১-০৩-১৩)। "রাজ্যে বিজেপির প্রতিদ্বন্দ্বীর সংখ্যা কমল, ২১-এর লড়াইয়ে অ্যাডভান্টেজ গেরুয়া শিবিরের"bengali.oneindia.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  16. "Debtanu Bhattacharya(Bharatiya Janata Party(BJP)):Constituency- AMTA(HOWRAH) - Affidavit Information of Candidate:"myneta.info। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 
  17. Samhati, Hindu (২০২১-০৭-১৮)। "মুসলিম মেয়েকে বিয়ে করা শঙ্কু চালকের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে, তাদের উপর থেকে সামাজিক বয়কটের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করার জন্য বাউরি সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তিদের কাছে লিখিতভাবে অনুরোধ জানালেন হিন্দু সংহতির সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য্য"হিন্দুর সাথে, হিন্দুর পাশে (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-২২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]