সোনালু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সোনালু
Konnamaram.JPG
Golden shower tree in bloom
মূল্যায়িত নয় (আইইউসিএন ৩.১)
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Plantae
(শ্রেণীবিহীন): Angiosperms
(শ্রেণীবিহীন): Eudicots
(শ্রেণীবিহীন): Rosids
বর্গ: Fabales
পরিবার: Fabaceae
গণ: Cassia
প্রজাতি: C. fistula
দ্বিপদী নাম
Cassia fistula
L.
প্রতিশব্দ[১]
  • Bactyrilobium fistula Willd.
  • Cassia bonplandiana DC.
  • Cassia excelsa Kunth
  • Cassia fistuloides Collad.
  • Cassia rhombifolia Roxb.
  • Cathartocarpus excelsus G.Don
  • Cathartocarpus fistula Pers.
  • Cathartocarpus fistuloides (Collad.) G.Don
  • Cathartocarpus rhombifolius G.Don

সোনালু বা বাঁদরলাঠি (বৈজ্ঞানিক নাম: Cassia fistula এবং Albizia inundata) সোনালী রঙের ফুলবিশিষ্ট বৃক্ষ। উদ্ভিদের শ্রেণীবিন্যাসে Fabaceae গোত্রের এ বৃক্ষের ফল লম্বাটে। সোনালী রঙের ফুলের বাহার থেকেই ‘সোনালু’ নামে নামকরণ। ইংরেজি ভাষায়ও একে বলা হয় ‘golden shower tree’ বা স্বর্ণালী ঝর্ণার বৃক্ষ। [২][৩][৪]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

সোনালু বা বাঁদরলাঠি গাছ সাধারণত ১৫ থেকে ২০মিটার উঁচু হয়ে থাকে। উঁচু থেকে মাঝারি উঁচু ভূমি সোনালু গাছ উৎপাদনের জন্য উপযোগী স্থান।পএ ঝরা বৃক্ষ,শীতে গাছের সমস্ত পাতা ঝরে গিয়ে গাছ থাকে পএ শুন্য এবং বসন্তের শেষে ফুল কলি ধরার পূর্বে গাছে নতুন পাতা গজায়।গ্রীষ্মে গাছের শাখা-প্রশাখা জুড়ে ঝুলন্ত মঞ্জুরিতে সোনালী হলুদ রঙের ফুল ফুটে এবং এর ব্যাপ্তি থাকে গ্রীষ্ম কাল পুরু সময় জুড়ে।ফুলের পাঁপড়ি পাঁচটি,মাঝে পরাগ দ- অবস্থিত।পাতা হাল্কা সবুজাব,মধ্য শিরা স্পষ্ট।গাছের শাখা-প্রশাখা কম,কা- সোজা ভাবে উপরের দিকে বাড়তে থাকে, বাকল সবুজাব থেকে ধুসর রঙের,কাঠ মাঝারি শক্ত মানের হয়।ফুল থেকে গাছে ফল হয়,ফলের আকার দেখতে সজিনা সবজির আকৃতির,তবে সজিনার গায়ের চামড়াতে ঢেওতোলা সোনালু ফলে তা নেই চামড়া মসৃণ।ফল লম্বায় প্রায় এক ফুট,রঙ প্রথমে সবুজ ও ফল পরিপক্ক হলে কালচে খয়েরি রঙ ধারণ করে। ফলে বীজ হয়,ফলের বীজ হতে বংশ বিস্তার ঘটে।কোন কোন অঞ্চলে সোনালু এর ফলকে বানর লাঠি হিসেবে চিনে বলে সোনালু গাছকেও তারা বানর লাঠি গাছ বলে ডাকতে শুনা যায়।[৩]

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

এ ফুলের আদিনিবাস হিমালয় অঞ্চল ধরা হলেও বাংলাদেশ, ভারত,পাকিস্তান ও মায়ানমার অঞ্চল জুড়ে রয়েছে এর বিস্তৃতি। অস্ট্রেলিয়ায় নিউ সাউথ ওয়েলস ও কুন্সল্যান্ডের উষ্ণ অঞ্চলে এদের প্রচুর দেখা মেলে।

ব্যবহার[সম্পাদনা]

প্রকৃতিকে নয়নাভিরাম রূপে সাজাতে এবং প্রকৃতি পরিবেশের শোভা বর্ধনে সোনালু গাছ সারিবদ্ধ ভাবে লাগানো হয়। অস্ট্রেলিয়ায় অনেক সড়কের দুই পাশে সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য সারিবদ্ধ ভাবে একই ধরনের গাছ লাগানো হয়। [৫] সোনালু বা বাঁদরলাঠি গাছ এদের অন্যতম। [৬]। গ্রীষ্মকালে যখন সব গাছে একসাথে সোনালী ফুল ফোটে,তখন মনে হয় সোনালী আলোকচ্ছটায় চারপাশ আলোকিত হয়ে গেছে। বাংলাদেশের রাজধানি শহর ঢাকার বিভিন্ন স্থানে এবং দেশের অন্যএ সড়ক-মহাসড়ক বিভিন্ন প্রতিষ্টনে বন জঙ্গলে গ্রামীন রাস্তার ধারে ছোট বড় সোনালু গাছ দেখতে পাওয়া যায়।

ঔষধি গুণাগুণ[সম্পাদনা]

সোনালু গাছের বাকল এবং পাতায় ঔষধি গুণাগুণ রয়েছে। এ গাছের বাকল এবং পাতার antibacterial, antioxidant, hepatoprotective, hypoglycemic, hepatoprotective গুণাগুণ রয়েছে।[৭] এটি ডায়রিয়ায় ও বহুমূত্র ব্যবহ্রত হয়। [৪][৮]

উল্লেখ[সম্পাদনা]

  1. "The Plant List: A Working List of All Plant Species"। সংগৃহীত জুন ১৯, ২০১৪ 
  2. https://en.wikipedia.org/wiki/Cassia_fistula.
  3. ৩.০ ৩.১ Uddin NS. Traditional Uses of Ethnomedicinal Plants of the Chittagong Hill Tracts. Bangladesh National Herbarium, Dhaka;  2006.
  4. ৪.০ ৪.১ Ghani A. Medicinal plants of Bangladesh with chemical constituents and uses. 2003. Asiatic Society of Bangladesh
  5. https://bn.wikipedia.org/wiki/%E0%A6%9C%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A1%E0%A6%BE
  6. Pollock M. Vegetable and fruit gardening in Australia. 2012. Royal Horticulture Society of Australia. Dorling Kindersley Australia Pty Ltd.
  7. Rizv et al. Bioefficacies of Cassia fistula: An Indian labrum. African Journal of Pharmacy and Pharmacology, 2009. Vol.3(6), pp. 287-292.
  8. Alam, M. M.; Siddiqui, M. B.; Husain, W. Treatment of diabetes through herbal drugs in rural India. Fitoterapia. 1990 Vol.61 No.3 pp.240-242