সৈয়দ মকবুল হোসেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সাবেক সংসদ সদস্য

ড. সৈয়দ মকবুল হোসেন
(লেচু মিয়া)
সংসদ সদস্য
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মসিলেট
নাগরিকত্ব পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
 বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
রাজনৈতিক দল
পেশাব্যবসা ও রাজনীতি
জীবিকাব্যবসা ও রাজনীতি
ধর্মমুসলিম

সৈয়দ মকবুল হোসেন (লেচু মিয়া নামে বেশি পরিচিত) একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী। সিলেট-৬ (বিয়ানীবাজার-গোলাপগঞ্জ) আসনের ১৯৮৬ ও ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনে মোট দুইবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।[১][২]

জন্ম ও প্রথমিক জীবন[সম্পাদনা]

ড. সৈয়দ মকবুল হোসেন সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম আমুড়া ইউনিয়নের সুন্দিসাইল গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ড. মকবুল টাঙ্গাইল জেলার জেলা প্রশাসক হিসেবে বিগত দিনে দায়িত্ব পালন করেন। [৩] এর পর শুরু করেন ব্যবসা ও রাজনীতি। তার জন্ম স্থান সুন্দিসাইল গ্রামে প্রতিষ্ঠাতা করেন ড. সৈয়দ মকবুল হোসেন উচ্চ বিদ্যালয় ও ডিগ্রি কলেজ। এছাড়া বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা তিনি।

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

ড. সৈয়দ মকবুল হোসেন (লেচু মিয়া) সিলেট-৬ (বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ) আসনে মোট ৩ বার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেন। দুইবার সংসদ সদস্য ছিলেন। ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তখন আওয়ামী লীগের রাজনীতি করতেন। ১৯৮৬ সালে এরশাদ সরকারের বিরোধীতা করে সংসদ সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করেন। ১৯৯১ সালের পর যোগ দেন বিএনপিতে। ২০০১ সালের নির্বাচনে তিনি বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদকে হারিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে পরাজিত হন। এক-এগারোর পর রাজনীতি থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন তিনি। [৪] সাম্প্রতিক সময়ে রাজনীতি থেকে দুরত্ব বজায় রেখে ব্যবসায় মনোনিবেশ করেন লেচু মিয়া।[১][৩]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

নানা কারণে আলোচিত সমালোচিত মকবুল হোসেন সিলেট অঞ্চলে লেচু মিয়া নামেই সমাধিক পরিচিত। নির্বাচনে ঢালাও অর্থব্যয়ের কারণে বিভিন্ন সময় আলোচনায় ওঠে এসেছে এই ধনকুবেরের নাম।[৫] গাজীপুরের টঙ্গীতে ড. মকবুল হোসেনের টাম্পাকো ফয়েলস কারখানায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে ৩৪ জনের মৃত্যু, ৩৫ জন আহত হওয়া এবং ১০ জন নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় ও দেশ ব্যাপী সমালোচিত হন। রাজধানীর অভিজাত এলাকা বনানীর কবরস্থানে ‘সি’ ব্লকে ২৬টি কবর কিনেও সারা দেশে আলোচিত হন তিনি।[৬][৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "৩য় জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "৮ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. "দুর্ঘটনাকবলিত কারখানার মালিক সিলেটের সাবেক সাংসদ সৈয়দ মকবুল হোসেন"web.archive.org। ২০১৯-০৬-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২৪ 
  4. "রাজনীতি থেকে অবসর নিলেন ড. সৈয়দ মকবুল হোসেন"archive.is। ২০১৯-০৬-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২৪ 
  5. BanglaNews24.com। "খালেদার পাশে বসতে 'দো-দিল বান্দা'র খরচ ২০ লাখ টাকা"banglanews24.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২৪ 
  6. "বনানীতে কেন ২৬ টি কবর কিনেছিলেন টাম্পাকো মালিক? | কালের কণ্ঠ"Kalerkantho। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২৪ 
  7. "বনানীতে কেন ২৬ টি কবর কিনেছিলেন টাম্পাকো মালিক?...-406779 | কালের কণ্ঠ | kalerkantho"web.archive.org। ২০১৯-০২-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২৪