সাম্রাজ্যিক বিধান পরিষদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সাম্রাজিক বিধান পরিষদ
Star of the Order of the Star of India (gold).svg
ধরন
ধরন
হাউসরাজ্য পরিষদ (উচ্চ)
কেন্দ্রীয় বিধানসভা (নিম্ন)
মেয়াদসীমারাজ্যপরিষদ: ৫ বছর
কেন্দ্রীয় বিধানসভা: ৩ বছর
ইতিহাস
শুরু১৮৬১ (1861)
বিলুপ্তি১৪ আগস্ট ১৯৪৭ (14 August 1947)
পূর্বসূরীগভর্নর-জেনারেল পরিষদ
উত্তরসূরীভারতের গণপরিষদ
পাকিস্তানের গণপরিষদ
আসন১৪৫ (১৯১৯ থেকে)
রাজ্য পরিষদের ৬০ জন সদস্য
১৪৫ (৪১ জন মনোনীত এবং ১০৪ জন নির্বাচিত, ৫২ জেনারেল, ৩০ মুসলিম, ২ শিখ, ২০ বিশেষ) বিধানসভার সদস্যগণ
সভাস্থল
সংসদ, নতুন দিল্লি, ব্রিটিশ ভারত (১৯২৭ থেকে)

সাম্রাজ্যিক বিধান পরিষদ ছিলো ১৮৬১ থেকে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত ব্রিটিশ ভারতের একটি আইনসভা। এটি ভারতের গভর্নর-জেনারেলের পরিষদের স্থলাভিষিক্ত হয়, এবং ভারতের গণপরিষদ দ্বারা এবং ১৯৫০ সালের পর ভারতীয় সংসদ দ্বারা স্থলাভিষিক্ত হয়।

ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসনামলে ভারতের গভর্নর-জেনারেলের পরিষদের কার্যনির্বাহী এবং আইন প্রণয়ন উভয় দায়িত্বই ছিল। পরিষদে কোর্ট অব ডিরেক্টরস কর্তৃক নির্বাচিত পরিষদের চারজন সদস্য ছিল। প্রথম তিন সদস্যকে সমস্ত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু চতুর্থ সদস্যকে শুধুমাত্র বসতে ও ভোট দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল যখন আইন নিয়ে বিতর্ক হচ্ছিল। ১৮৫৮ সালে ব্রিটিশ রাজবংশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছ থেকে প্রশাসনের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরিষদটি সাম্রাজ্যিক বিধান পরিষদে রূপান্তরিত হয় ও কোম্পানির কোর্ট অফ ডিরেক্টরসদের ক্ষমতা রহিত হয়ে যায় যার কাছে গভর্নর-জেনারেল পরিষদের সদস্যদের নির্বাচন করার ক্ষমতা ছিল। পরিবর্তে যে একজন সদস্য শুধুমাত্র আইন প্রণয়নের প্রশ্নে ভোট দিয়েছিলেন তাকে সার্বভৌম দ্বারা নিযুক্ত করা হয়েছিল এবং বাকি তিন সদস্যকে ভারতের রাজ্য সচিব দ্বারা নিযুক্ত করা হয়েছিল।

পূর্বসূরীগণ[সম্পাদনা]

১৭৭৩-এর রেগুলেটিং অ্যাক্ট ভারতের গভর্নর-জেনারেলের প্রভাবকে সীমিত করে ও ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কোর্ট অফ ডিরেক্টরস দ্বারা নির্বাচিত কাউন্সিল অফ ফোর প্রতিষ্ঠা করে। ১৭৮৪ সালের পিটের ইন্ডিয়া অ্যাক্ট সদস্য সংখ্যা কমিয়ে তিনটি করে এবং ইন্ডিয়া বোর্ডও প্রতিষ্ঠা করে।

১৮৬১ থেকে ১৮৯২[সম্পাদনা]

ভারতীয় পরিষদ আইন ১৮৬১ পরিষদে গঠনে বেশ কিছু পরিবর্তন করে। পরিষদকে তখন থেকে গভর্নর-জেনারেল বিধান পরিষদ বা সাম্রাজ্যিক বিধান পরিষদ বলা হত। তিনজন সদস্য ভারতের রাজ্য সচিব দ্বারা এবং দুইজন সার্বভৌম দ্বারা নিযুক্ত করা হয়েছিল (পাঁচজন সদস্য নিয়োগের ক্ষমতা ১৮৬৯ সালে ক্রাউনে পাস হয়েছিল)। ভাইসরয়কে অতিরিক্ত ছয় থেকে বারো জন সদস্য নিয়োগের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ভারতীয় সচিব বা সার্বভৌম কর্তৃক নিযুক্ত পাঁচজন ব্যক্তি নির্বাহী বিভাগের প্রধান ছিলেন, যখন গভর্নর-জেনারেল কর্তৃক নিযুক্ত ব্যক্তিরা আইন প্রণয়নে বিতর্ক ও ভোট দেন।

পরিষদে ভারতীয়গণ[সম্পাদনা]

১৮৬২ থেকে ১৮৯২ সাল পর্যন্ত ৪৫ জন ভারতীয় অতিরিক্ত বেসরকারী সদস্য হিসাবে মনোনীত হয়েছিল। এর মধ্যে ২৫ জন জমিদার এবং সাত জন রাজ্যের শাসক ছিলেন। অন্যরা ছিলেন আইনজীবী, ম্যাজিস্ট্রেট, সাংবাদিক ও ব্যবসায়ী।[১][২][৩] পরিষদে বৈঠকে ভারতীয় সদস্যদের অংশগ্রহণ ছিল নগণ্য।[৪][৫]

  • বেনারসের রাজা স্যার দেও নারায়ণ সিং (জানুয়ারি ১৮৬২-১৮৬৬)
  • নরেন্দ্র সিং, পাতিয়ালার মহারাজা (জানুয়ারি ১৮৬২-১৮৬৪)
  • দিনকর রাও (জানুয়ারি ১৮৬২-১৮৬৪)
  • ইউসেফ আলী খান, রামপুরের নবাব (সেপ্টেম্বর ১৮৬৩-১৮৬৪)
  • মহারাজা স্যার মির্জা গজপতি ভিজিয়ারাম, ভিজিয়ানাগ্রামের রাজ বাহাদুর (জানুয়ারি ১৮৬৪-১৮৬৬) (এপ্রিল ১৮৭২-১৮৭৬)
  • কিষেন কোটের রাজা স্যার সাহেব দয়াল (জানুয়ারি ১৮৬৪-১৮৬৬)
  • মাহতাবচাঁদ বাহাদুর, বর্ধমানের রাজা (নভেম্বর ১৮৬৪-১৮৬৬)
  • খাজা আবদুল গনি, ঢাকার নবাব (ডিসেম্বর ১৮৬৭-১৮৬৯)
  • প্রসন্ন কুমার ঠাকুর (ডিসেম্বর ১৮৬৭-১৮৭৩)
  • কাশীপুরের ধেওরাজ সিং (জানুয়ারি ১৮৬৮-১৮৭০)
  • দ্বিতীয় সওয়াই রাম সিং, জয়পুরের মহারাজা (আগস্ট ১৮৬৮-১৮৭০) এবং (আগস্ট ১৮৭১-১৮৭৫)
  • দিগ্বিজয় সিং, বলরামপুরের রাজা (অক্টোবর ১৮৬৮-১৮৭০)
  • রমানাথ ঠাকুর (ফেব্রুয়ারি ১৮৭৩-১৮৭৫)
  • সিরমুরের রাজা শমসের প্রকাশ
  • স্যার ঈশ্বরী প্রসাদ নারায়ণ সিং, বেনারসের মহারাজা (১৮৭৬)
  • স্যার নরেন্দ্র কৃষ্ণ দেব (১৮৭৬)
  • নবাব ফয়েজ আলী খান, পাহাড়সুর নবাব বাহাদুর (১৮৭৭)
  • কাল আলি খান, রামপুরের নবাব (১৮৭৮-১৮৮৭)
  • সৈয়দ আহমদ খান (১৮৭৮-১৮৮২)
  • যতীন্দ্রমোহন ঠাকুর (বাংলার জমিদার) (১৮৮০-১৮৮১)
  • জিন্দের রঘুবীর সিং (১৮৮০)
  • বেনারসের রাজা শিব প্রসাদ
  • দুর্গা চরণ লাহা, শ্যামপুকুরের মহারাজা (১৮৮২) (কলকাতা বণিক)
  • কৃষ্ট দাস পাল (১৮৮৩)
  • সৈয়দ আমীর আলী (১৮৮৩-)
  • বিশ্বনাথ নারায়ণ মন্ডলিক (১৮৮৪-১৮৮৭)[৬]
  • স্যার শংকর বখশ সিং (১৮৮৬)
  • পেয়ারী মোহন মুখার্জি
  • দিনশ মানেকজি পেটিট (১৮৮৬)
  • খাজা আহসানুল্লাহ
  • স্যার রমেশ চন্দ্র মিত্র, বাংলা
  • কৃষ্ণজি লক্ষ্মণ নুলকার, বোম্বে (১৮৯০-১৮৯১)
  • রাসবিহারী ঘোষ (১৮৯২)

১৮৯২ থেকে ১৯০৯[সম্পাদনা]

ভারতীয় পরিষদ আইন ১৮৯২ সর্বনিম্ন দশ এবং সর্বোচ্চ ষোল সদস্য সহ আইনসভা সদস্যের সংখ্যা বৃদ্ধি করে। কাউন্সিলে এখন ৬ জন কর্মকর্তা, ৫ মনোনীত অ-কর্মকর্তা, ৪ জন বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, বোম্বে প্রেসিডেন্সি, মাদ্রাজ প্রেসিডেন্সি ও উত্তর-পশ্চিম প্রদেশের প্রাদেশিক আইন পরিষদ দ্বারা মনোনীত এবং ১ জন কলকাতার চেম্বার অফ কমার্স দ্বারা মনোনীত। সদস্যদের পরিষদে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল কিন্তু পরিপূরক জিজ্ঞাসা করতে বা উত্তর নিয়ে আলোচনা করার অনুমতি দেওয়া হয়নি। যদিও তাদের কিছু বিধিনিষেধের অধীনে বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি নিয়ে আলোচনা করার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল কিন্তু তারা এতে ভোট দিতে পারেনি।

পরিষদে ভারতীয়গণ[সম্পাদনা]

  • ফেরোজশাহ মেহতা, বোম্বে (১৮৯৩-১৮৯৬) (১৮৯৮-১৯০১)
  • লক্ষ্মেশ্বর সিং, বাংলা (১৮৯৩-১৮৯৮)
  • বাবা খেম সিং বেদি, পাঞ্জাব মনোনীত (১৮৯৩-১৮৯৭), পাঞ্জাব (১৮৯৭-১৯০৫)
  • ফজুলভাই বিশ্রাম, বোম্বে মনোনীত (১৮৯৩–)
  • গঙ্গাধর রাও চিটনাভিস, কেন্দ্রীয় প্রদেশ মনোনীত (১৮৯৩-১৯০৯)
  • মীর হুমায়ুন জাহ বাহাদুর (১৮৯৩-)
  • রাশবিহারী ঘোষ (১৮৯৪-১৯০৮)
  • বাবু মোহিনী মোহন রায় (১৮৯৪)
  • পি. আনন্দ চার্লু, মাদ্রাজ (১৮৯৫-১৯০৩)
  • রহিমতুল্লা এম. সায়ানি, বোম্বে (১৮৯৬-১৮৯৮)
  • লোহারুর নবাব আমিরুদ্দিন আহমদ খান (১৮৯৭)
  • বলবন্ত রাও ভুসকুটে, মধ্য প্রদেশ (১৮৯৬-১৮৯৭)
  • পণ্ডিত বিশম্বর নাথ (১৮৯৭)
  • জয় গোবিন্দ লাহা (১৮৯৭)
  • নবাব ফাইয়াজ আলী খান, পাহাসুর নবাব বাহাদুর, উত্তর-পশ্চিম প্রদেশ (১৮৯৮-১৯০০)
  • রামেশ্বর সিং বাহাদুর, বাংলা মনোনীত (১৮৯৯-১৯০৪), বাংলা (১৯০৪-)
  • অ্যাপকার আলেকজান্ডার অ্যাপকার, বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্স (১৯০০-১৯০৩)
  • সৈয়দ হোসেন বিলগ্রামী (১৯০২-১৯০৮) [৭]
  • সিরমুরের রাজা সুরিন্দর বিক্রম প্রকাশ বাহাদুর (১৯০২-১৯০৭)
  • আগা খান তৃতীয়, মনোনীত (১৯০৩)
  • গোপাল কৃষ্ণ গোখলে, বোম্বে (১৯০৩-১৯০৯)
  • আর্নেস্ট কেবল, বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্স (১৯০৩-)
  • রাই শ্রী রাম বাহাদুর, যুক্ত প্রদেশ (১৯০৩-)
  • বিপিন কৃষ্ণ বোস, মধ্য প্রদেশ (১৯০৩-)
  • ওয়াদেরো গোলাম কাদির এমবিই মনোনীত রাতোদেরো লারকানাও (১৯১৩)
  • নবাব সৈয়দ মুহাম্মদ বাহাদুর, মাদ্রাজ (১৯০৩-১৯০৯)
  • নবাব ফতেহ আলী খান কাজিলবাশ, পাঞ্জাব (১৯০৪)
  • আরজি ভান্ডারকর (১৯০৪)
  • রিপুদমন সিং (১৯০৬-১৯০৮)
  • নবাব খাজা সলিমুল্লাহ (১৯০৮)
  • আসুতোষ মুখার্জি (১৯০৮)
  • মুন্সি মাধো লাল, যুক্ত প্রদেশ (১৯০৭-১৯০৯)
  • থিওডোর মরিসন (১৯০৮)
  • মাং বা তো (১৯০৮)

১৯০৯ থেকে ১৯২০[সম্পাদনা]

ভারতীয় পরিষদ আইন ১৯০৯ বিধান পরিষদের সদস্য সংখ্যা ৬০ জনে উন্নীত করে, যাদের মধ্যে ২৭ জন নির্বাচিত হওয়ার কথা ছিল। প্রথমবারের মতো ভারতীয়দের সদস্যপদে ভর্তি করা হয়েছিল, এবং সেখানে ছয়জন মুসলিম প্রতিনিধি ছিলেন, প্রথমবারের মতো একটি ধর্মীয় গোষ্ঠীকে এই ধরনের প্রতিনিধিত্ব দেওয়া হয়েছিল।

  • ভাইসরয়ের কার্যনির্বাহী পরিষদের প্রাক্তন সদস্য (৯)
  • মনোনীত কর্মকর্তা (২৮)
  • মনোনীত অ-কর্মকর্তা (৫): ভারতীয় বাণিজ্যিক সম্প্রদায় (১), পাঞ্জাব মুসলমান (১), পাঞ্জাব জমির মালিক (১), অন্যান্য (২)
  • প্রাদেশিক আইনসভা থেকে নির্বাচিত (২৭)
    • জেনারেল (১৩): বোম্বে (২), মাদ্রাজ (২), বেঙ্গল (২), ইউনাইটেড প্রদেশ (২), কেন্দ্রীয় প্রদেশ, আসাম, বিহার ও উড়িষ্যা, পাঞ্জাব, বার্মা
    • জমিদার (৬): বোম্বে, মাদ্রাজ, বাংলা, যুক্ত প্রদেশ, কেন্দ্রীয় প্রদেশ, বিহার ও উড়িষ্যা
    • মুসলিম (৬): বাংলা (৩), মাদ্রাজ, বোম্বে, যুক্ত প্রদেশ, বিহার ও উড়িষ্যা
    • কমার্স (২): বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্স (১), বম্বে চেম্বার অফ কমার্স

পরিষদে ভারতীয়গণ (১৯০৯-২০)[সম্পাদনা]

মনোনীত কর্মকর্তাগণ[সম্পাদনা]

  • কিরণ চন্দ্র দে মহেশ

মনোনীত অ-কর্মকর্তাগণ[সম্পাদনা]

বঙ্গ[সম্পাদনা]

বিহার ও ওড়িশা[সম্পাদনা]

  • জেনারেল: সচ্চিদানন্দ সিনহা (১৯১২-২০), মধুসূদন দাস (১৯১৩), রায় বাহাদুর কৃষ্ণ সহায় (১৯১৬-১৯১৯)
  • মুসলিম: মুলানা মাজহারুল হক (১৯১০-১১), সৈয়দ আলী ইমাম (১৯১২)[১০] কামরুল হুদা (১৯১৫),[১১] মোহাম্মদ ইউনুস (১৯১৬)
  • জমিদার: কণিকার রাজেন্দ্র নারায়ণ ভঞ্জ দেও রাজা (১৯১৬-১৯২০)[৯]

বোম্বে[সম্পাদনা]

  • জেনারেল: গোপাল কৃষ্ণ গোখলে (১৯০৯-১৯১৫), বিঠলভাই প্যাটেল (১৯১২), দিনশ এডুলজি ওয়াচা (১৯১৬-১৯২০), লাল্লুভাই সামলদাস মেহতা, ফেরোজ সেথনা, স্যার বিথলদাস ঠাকার্সি
  • মুসলিম: মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ (১৯১০-১৯১১) এবং (১৯১৬-১৯১৯), গোলাম মুহাম্মদ ভূর্গরি (১৯১১-১৯১২), ইব্রাহিম রহিমতুলা (১৯১৩-১৯১৯), স্যার শাহ নওয়াজ ভুট্টো
  • জমিদার: স্যার সাসুন ডেভিড, প্রথম ব্যারোনেট (১৯১০), ওয়াদেরো গোলাম কাদির দায়ো (১৯১৩-১৯১৪), খান বাহাদুর সাইয়েদ আল্লাহওন্দ শাহ (১৯১৬-১৯১৯)

বার্মা[সম্পাদনা]

  • সাধারণ: মং মাই (১৯১৫), মাং বা তু (১৯১১-১৯২০)

কেন্দ্রীয় প্রদেশগুলো[সম্পাদনা]

  • জেনারেল: স্যার মানেকজি বাইরামজি দাদাভয় (১৯১১-১৯১৭), রঘুনাথ নরসিংহ মুধোলকর (১৯১১-১৯১২), ভিআর পণ্ডিত, জেনারেল (১৯১৫),[১২] গণেশ শ্রীকৃষ্ণ খাপর্দে (১৯১৮-১৯২০), রায় সাহেব শেঠ নাথ মাল[৯]
  • জমিরদার: স্যার গঙ্গাধর রাও চিটনাভিস (১৮৯৩-১৯১৬), পণ্ডিত বিষাণ দত্ত শুকুল (১৯১৬-১৯১৯)[১৩]

পূর্ববঙ্গ ও আসাম[সম্পাদনা]

  • জেনারেল: কামিনী কুমার চন্দ (১৯২০)[১৪]
  • জমিদার: প্রমথনাথ রায়, দিঘাপতিয়ার রাজা (১৯১১-১৯১৫)

মাদ্রাজ[সম্পাদনা]

  • জেনারেল: এন. সুব্বা রাও পান্তুলু (১৯১০-১৯১৩), সি. বিজয়রাঘভাচারিয়ার (১৯১৩-১৯১৬), ভিএস শ্রীনিবাস শাস্ত্রী (১৯১৬-১৯১৯), বিএন সরমা (১৯১৭-১৯১৯), কুরমা ভেঙ্কটা রেড্ডি নাইড়ু (১৯২০),[৯] টি. রাঙ্গাছড়ি, এম. সিটি. মুথিয়া চেত্তিয়ার
  • মুসলিম: গোলাম মুহাম্মদ আলী খান (১৯১০-১৯১৩), নবাব সৈয়দ মুহাম্মদ বাহাদুর (১৯০৯-১৯১৯), খান বাহাদুর মীর আসাদ আলী (১৯১৬-১৯১৯)[৯]
  • জমিদার: বীরভদ্র রাজু বাহাদুর (১৯১২), পানাগলের রাজা (১৯১২-১৯১৫), কেভি রঙ্গস্বামী আয়েঙ্গার (১৯১৬-১৯১৯)

পাঞ্জাব[সম্পাদনা]

  • জেনারেল: রাজা স্যার দলজিৎ সিং (১৯১৩-১৯১৫),[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] স্যার রনবীর সিং (১৯১৫),[১২] দেওয়ান টেক চাঁদ (১৯১৫-১৯১৭), সুন্দর সিং মাজিথিয়া (১৯১৭-১৯২০)
  • মুসলমান: স্যার জুলফিকার আলী খান (১৯১০-১৯২০),[৯] মুহাম্মদ শফি (১৯১৭)
  • জমিদার: কাপুরথালার প্রতাপ সিং (১৯১০-১৯১১), কর্নেল। রাজা জয় চাঁদ, স্যার মালিক উমর হায়াত খান (১৯১১-১৯২০)
  • প্রধানগণ : ফারওয়ালার সুলতান করম দাদ খান (১৯১৮)

যুক্ত প্রদেশ[সম্পাদনা]

১৯২০ থেকে ১৯৪৭[সম্পাদনা]

ভারত সরকারের আইন ১৯১৯-এর অধীনে সাম্রাজ্যিক বিধান পরিষদকে একটি দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট আইনসভায় রূপান্তরিত করা হয়েছিল সাম্রাজ্যিক বিধানসভা (এছাড়াও কেন্দ্রীয় বিধানসভা নামেও পরিচিত) একটি দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট আইনসভার নিম্নকক্ষ এবং উচ্চকক্ষ হিসাবে রাজ্য পরিষদকে বিধানসভা দ্বারা পাস আইন পর্যালোচনা করে। গভর্নর-জেনারেল তথাপি আইন প্রণয়নের উপর উল্লেখযোগ্য ক্ষমতা ধরে রেখেছেন। তিনি আইনসভার সম্মতি ব্যতীত অর্থ ব্যয়ের অনুমোদন দিতে পারতেন "সাধারণ, রাজনৈতিক [এবং] প্রতিরক্ষা" উদ্দেশ্যে এবং "জরুরী অবস্থার" সময়ে যে কোনও উদ্দেশ্যে। তাকে ভেটো করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, বা এমনকি যে কোনও বিলের উপর বিতর্ক বন্ধ করতে হয়েছিল। যদি তিনি একটি বিল পাসের সুপারিশ করেন, কিন্তু শুধুমাত্র একটি চেম্বার সহযোগিতা করে, তবে তিনি অন্য চেম্বারের আপত্তির ভিত্তিতে বিলটি পাস করার ঘোষণা দিতে পারেন। বৈদেশিক বিষয় এবং প্রতিরক্ষার উপর আইনসভার কোন কর্তৃত্ব ছিল না। রাজ্য পরিষদের সভাপতি গভর্নর-জেনারেল কর্তৃক নিযুক্ত হন; কেন্দ্রীয় বিধানসভা প্রথমটি বাদ দিয়ে তার নিজস্ব রাষ্ট্রপতি নির্বাচন করে, কিন্তু নির্বাচনের জন্য গভর্নর-জেনারেলের অনুমোদনের প্রয়োজন ছিল।

ভারতীয় স্বাধীনতা অধিনিয়ম ১৯৪৭-এর অধীনে, সাম্রাজ্যিক বিধান পরিষদ ও এর কক্ষগুলো ১৪ আগস্ট ১৯৪৭-এ ভেঙে দেওয়া হয়েছিল এবং ভারতের এবং পাকিস্তানের গণপরিষদ দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছিল।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Banerjee, Anil Chandra (১৯৮৪)। English Law in India। পৃষ্ঠা 143। আইএসবিএন 9788170171836 
  2. Chandra, Bipan (৯ আগস্ট ২০১৬)। India's Struggle for Independenceআইএসবিএন 9788184751833 
  3. Buckland, Charles (১৯৯৯)। Dictionary of Indian Biographyআইএসবিএন 9788170208976 
  4. Bhattacharya, Sabyasachi (২০০৫)। The Financial Foundations of the British Raj। পৃষ্ঠা 57। আইএসবিএন 9788125029038 
  5. Kashyap, Subhash (১৯৯৪)। History of the Parliament of Indiaআইএসবিএন 9788185402345 
  6. http://cultural.maharashtra.gov.in/english/gazetteer/greater_bombay/publiclife.html
  7. Abdul, Latif Sayyid (৩০ নভেম্বর ১৯২৪)। Addresses Poems and Other Writings। The Government Central Press। 
  8. "Surendranath Banerji, freedom fighter, India" 
  9. "Login" 
  10. Wikisource:Page:The Indian Biographical Dictionary.djvu/239
  11. Wikisource:Page:The Indian Biographical Dictionary.djvu/375
  12. Rao, C. Hayavando (১৯১৫)। The Indian Biographical Dictionary। Madras : Pillar। পৃষ্ঠা 606। 
  13. Brown, Judith M. (২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭৪)। Gandhi's Rise to Power: Indian Politics 1915–1922। পৃষ্ঠা 162। আইএসবিএন 9780521098731 
  14. Bakshi, S. R.। Punjab Through the Ages। পৃষ্ঠা 22। 
  15. "Login" 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]