শ্যাম সুন্দর সিকদার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শ্যাম সুন্দর সিকদার
বিটিআরসির চেয়ারম্যান
কাজের মেয়াদ
১৪ ডিসেম্বর ২০২০ – চলমান
পূর্বসূরীজহুরুল হক
ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব
কাজের মেয়াদ
২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ – ৯ জানুয়ারি ২০১৯
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব
কাজের মেয়াদ
১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৪ – ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৯৬০
লোনসিং গ্রাম, নড়িয়া, শরীয়তপুর
দাম্পত্য সঙ্গীসুপ্রেমা সিকদার
সন্তানএক পুত্র ও এক কন্যা
প্রাক্তন শিক্ষার্থীচট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ
পেশাসরকারি কর্মকর্তা, সিনিয়র সচিব ও লেখক

শ্যাম সুন্দর সিকদার একজন বাংলাদেশি সরকারি কর্মকর্তা যিনি ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের সচিব ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান।[১][২]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

শ্যাম সুন্দর সিকদার ১৯৬০ সালে তৎকালীন ফরিদপুর জেলার পূর্ব মাদারীপুরের (বর্তমান শরীয়তপুর জেলা) নড়িয়ার লোনসিং গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮১ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। ২০০৮ সালে তিনি নর্দান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন।[১]

তার স্ত্রী সুপ্রেমা সিকদার। তাদের পুত্র অরিজিৎ সিকদার, কন্যা অন্নেষা সিকদার।[৩]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

শ্যাম সুন্দর সিকদার ১৯৮৪ ব্যাচের বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের প্রশাসন ক্যাডারের সদস্য হিসেবে চাকুরিতে যোগদান করেন। চাকুরিজীবনে তিনি প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে সহকারী কমিশনার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটসহ উপজেলা ও জেলায় বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেন।[১][৩]

২০০৫ সালে তিনি উপসচিব পদে পদোন্নতি পেয়ে বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব ও সাভারের বিপিএটিসিতে পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২০০৯ সালে সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব, ২০১০ সালে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালন কালে ২০১২ সালে অতিরিক্ত সচিব হিসেবে পদোন্নতি পান।[৪] ২০১৩ সালে তিনি বিসিকের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[৩]

১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৪ সালে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগে প্রথমে ভারপ্রাপ্ত সচিব ও পরে ২ মার্চ ২০১৫ সালে সচিব পদে পদোন্নতি পান। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ সালে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন কালে তিনি ১ জানুয়ারি ২০১৯ সালে সিনিয়র সচিব পদোন্নতি পেয়ে ৯ জানুয়ারি ২০১৯ সালের অবসরে যান। ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ সালে তিনি চার বছরের জন্য বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।[৫]

বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের পরিচালক ও বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থার চেয়ারম্যানের দায়িত্বেও ছিলেন তিনি। তার লেখা একাধিক বইও রয়েছে।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. নিজস্ব প্রতিবেদক (১৪ ডিসেম্বর ২০২০)। "বিটিআরসির নতুন চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার"দৈনিক প্রথম আলো। ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০২০ 
  2. "বিটিআরসির নতুন চেয়ারম্যান হলেন শ্যাম সুন্দর সিকদার"দৈনিক যুগান্তর। ১৪ ডিসেম্বর ২০২০। ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০২০ 
  3. স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট (১৪ ডিসেম্বর ২০২০)। "বিটিআরসির নতুন চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ 
  4. নিজস্ব প্রতিবেদক (১৪ ডিসেম্বর ২০২০)। "বিটিআরসির নতুন চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার"জাগো নিউজ। ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ 
  5. জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক (১৪ ডিসেম্বর ২০২০)। "বিটিআরসির নতুন চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০২০