শহীদুর রহমান খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অধ্যাপক ড.

শহীদুর রহমান খান
প্রথম উপাচার্য
খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1965-05-13) ১৩ মে ১৯৬৫ (বয়স ৫৭)
রামগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর, বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
দাম্পত্য সঙ্গীফেরদৌসী বেগম
সন্তান
মাতাহালিমা বেগম
পিতাসিরাজুল ইসলাম খান
প্রাক্তন শিক্ষার্থীবাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
ইউনিভার্সিটি অব লিপজেক, জার্মানি
পেশাকৃষিবিদ, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসক

শহীদুর রহমান খান (জন্ম: ১৩ মে ১৯৬৫) একজন বাংলাদেশী কৃষিবিদ। তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ভেটেরিনারি অনুষদের মাইক্রোবায়োলজি এন্ড হাইজিন বিভাগের অধ্যাপক এবং খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুকৃবি) প্রথম উপাচার্য।[১]

প্রাথমিক জীবন ও শিক্ষা[সম্পাদনা]

শহীদুর রহমান খান লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলায় ১৯৬৫ সালের ১৩ মে জন্ম গ্রহণ করেন। তার বাবা সিরাজুল ইসলাম খান ও মা হালিমা বেগম।

তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি অনুষদ থেকে ১৯৮৬ সালে ডক্টর অব ভেটেরিনারি মেডিসিন (ডিভিএম) এবং ১৯৮৭ সালে এমএস ইন মাইক্রোবায়োলজি ডিগ্রি লাভ করেন। পরবর্তীকালে জার্মানির ইউনিভার্সিটি অব লিপজেক থেকে ১৯৯৯ সালে পিএইচডি অর্জন করেন। ২০০১ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত তিনি জাপানে পোস্ট ডক্টরাল গবেষণা সম্পন্ন করেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

শহীদুর রহমান ১৯৯৩ সালে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি এন্ড হাইজিন বিভাগে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষকতা জীবন শুরু করেন। তিনি ১৯৯৬ সালে সহকারী অধ্যাপক, ২০০০ সালে সহযোগী অধ্যাপক এবং ২০০৫ সালে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি লাভ করেন।

দীর্ঘ কর্মময় জীবনে শিক্ষকতা ও গবেষণার পাশাপাশি তিনি বাকৃবির প্রোক্টর, সহকারী প্রোক্টর, মাইক্রোবায়োলজি এন্ড হাইজিন বিভাগের প্রধান, হল প্রভোস্ট, সহকারী প্রভোস্টসহ বিভিন্ন কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারডিসিপ্লিনারি সেন্টার ফর ফুড সিকিউরিটির (আইসিএফ) পরিচালক ছিলেন।

শহীদুর রহমান মাইক্রোবায়োলজি এন্ড হাইজিন বিশেষজ্ঞ হিসেবে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) এর পরামর্শক হিসেবে কাজ করেছেন। এছাড়াও সরকারের সিনিয়র রিজিওনাল ভ্যাক্সিন কনসালটেন্ট হিসাবেও দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা রয়েছে তার।[৩]

শহীদুর রহমান খান ২০১৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর পরবর্তী চার বছরের জন্য খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন এবং ১৬ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে উপাচার্যের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।[৪]

গবেষণাকর্ম ও প্রকাশনা[সম্পাদনা]

খান জাতীয় ও আন্তর্জাতিক জার্নালে ৯০টির বেশি গবেষণামূলক নিবন্ধ প্রকাশ করেছেন। তিনি বহু জনপ্রিয় বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ ও প্রতিবেদনের রচয়িতা। তিনি স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি পর্যায়ের শতাধিক শিক্ষার্থীর গবেষণা তত্ত্বাবধান করেছেন।

তিনি উল্লেখযোগ্য সংখ্যক দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, ওয়ার্কশপ ও কনফারেন্সে যোগদান করে গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন এবং বিভিন্ন টেকনিক্যাল সেশনে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। গবেষণা ও শিক্ষা সংক্রান্ত কাজে পৃথিবীর বহু দেশ ভ্রমণের অভিজ্ঞতা রয়েছে তার।[৫]

সদস্যপদ[সম্পাদনা]

শহীদুর রহমান বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পেশাগত সংগঠনের সক্রিয় সদস্য। তিনি বাংলাদেশ সোসাইটি ফর ভেটেরিনারি এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সংগঠন গণতান্ত্রিক শিক্ষক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ও ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাকৃবি লোকাল চ্যাপ্টারের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "খুকৃবির প্রথম ভিসি বাকৃবির অধ্যাপক ড. শহীদুর রহমান"দৈনিক যুগান্তর। ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০২১ 
  2. "খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ভিসি হলেন শহীদুর রহমান"জাগোনিউজ২৪.কম। ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০২১ 
  3. "খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য ড. শহীদুর রহমান"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০২১ 
  4. "খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য লক্ষ্মীপুরের ড. শহীদুর রহমান"লক্ষ্মীপুরটোয়েন্টিফোর। ১০ জানুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০২১ 
  5. "খুকৃবির প্রথম উপাচার্য হলেন বাকৃবির অধ্যাপক শহীদুর"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০২১ 
  6. "খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ভিসি লক্ষ্মীপুরের ড. শহীদুর রহমান"আলোকিত লক্ষ্মীপুর। ১৩ জানুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০২১