লাল খইলশা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search

লাল খইলশা
Trichogaster lalius
Colisa lalia-Male and Female.jpg
লাল খইলশা, ছেলে (বামে) ও মেয়ে (ডানে)
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Animalia
পর্ব: Chordata
শ্রেণী: Actinopterygii
বর্গ: Perciformes
পরিবার: Osphronemidae
গণ: Trichogaster
প্রজাতি: T. lalius
দ্বিপদী নাম
Trichogaster lalius
(F. Hamilton, 1822)
প্রতিশব্দ
  • Trichopodus lalius F. Hamilton, 1822
  • Colisa lalia (F. Hamilton, 1822)
  • Polyacanthus lalius (F. Hamilton, 1822)
  • Colisa unicolor G. Cuvier, 1831

লাল খইলশা (বৈজ্ঞানিক নাম: Trichogaster lalius) (ইংরেজি: Dwarf gourami) হচ্ছে Osphronemidae পরিবারের Trichogaster গণের একটি স্বাদুপানির মাছ

বর্ণনা[সম্পাদনা]

লাল খইলশার দেহ আয়তাকার এবং দৃঢ়ভাবে চাপা। মুখ ছোট অধিক প্রক্ষেপণযোগ্য, ঊর্ধ্বাভিমুখী। এদের ঠোঁট স্বাভাবিক। ঘাড়ের উপরের অংশ সামান্য অবতল। প্রাক-অক্ষিকোটরের নিচের কিনারা এবং প্রাক-কানকোর নিচের অংশ ধারালো। ছেলে মাছের পৃষ্ঠপাখনা সুচালো কিন্তু মেয়েমাছের পৃষ্ঠপাখনা গোলাকার। পুচ্ছপাখনা গোলাকার থেকে পিরামিডাকার। আঁইশ বৃহৎ লম্বালম্বি সারিতে ২৭ থেকে ২৮টি থাকে, উলম্বপাখনাগুলো আঁইশযুক্ত। এদের কশেরুকা ২৭টি।[২]

স্বভাব ও আবাসস্থল[সম্পাদনা]

লাল খইলশা প্রজাতির মাছ জলাশয়ের উপরিস্তরে বাস করে এবং সরাসরি বায়ু থেকে শ্বাস নেয়। ডিম ছাড়ার সময় ছেলে মাছ মেয়েমাছের সংগে মিলে জলজ উদ্ভিদের মধ্যে বুদবুদ সহযোগে বাসা তৈরি করে। ছেলে মাছ বাসা এবং তার চারপাশে রক্ষার দায়িত্ব নেয়। ডিমগুলো ১২ থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ফুটতে শুরু করে এবং ৩ দিনের মধ্যে পোনা সাঁতরাতে শুরু করে। একটি মেয়ে মাছ ৬০০টি পর্যন্ত ডিম পাড়ে। প্রাকৃতিক পরিবেশে এরা ছোটখাট পোকামাকড় এবং শৈবাল খায়।[২]

বিস্তৃতি[সম্পাদনা]

এর আদি নিবাস দক্ষিণ এশিয়া (বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং ভারত) হলেও এখন দুনিয়ার নানা জায়গায় এটি বিস্তার লাভ করেছে।[২][৩] এই মাছ অল্প স্রোত বিশিষ্ট পানিতে, যেমন- বিল, পুকুর, খাল, ডোবা এবং বদ্ধ জলাশয়ে পওয়া যায়।

অর্থনৈতিক গুরুত্ব[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে এটি সম্পূর্ণরূপে স্বাদু পানির মাছ। বিল এবং হাওড় অঞ্চলে বেড় জাল বা ফাঁদে অন্যান্য খলিসা মাছের সাথে এটি সহজেই ধরা পড়ে। বাণিজ্যিকভাবে এই মাছ বাংলাদেশে কম গুরুত্বপূর্ণ।[২]

বাংলাদেশে বর্তমান অবস্থা এবং সংরক্ষণ[সম্পাদনা]

আইইউসিএন বাংলাদেশ (২০০০) এর লাল তালিকা অনুযায়ী এই প্রজাতিটি বাংলাদেশে এখনও হুমকির সম্মুখীন নয়।[২]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

চিত্রমালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Vishwanath, W. 2010. Trichogaster lalius. In: IUCN 2013. IUCN Red List of Threatened Species. Version 2013.2. <www.iucnredlist.org Archived জুন ২৭, ২০১৪, at the Wayback Machine.>. Downloaded on 29 March 2014.
  2. ওহাব, মোঃ আব্দুল (অক্টোবর ২০০৯)। "স্বাদুপানির মাছ"। আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; আবু তৈয়ব, আবু আহমদ; হুমায়ুন কবির, সৈয়দ মোহাম্মদ; আহমাদ, মোনাওয়ার। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ২৩ (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা ২৮১–২৮২। আইএসবিএন 984-30000-0286-0 |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid prefix (সাহায্য) 
  3. টেমপ্লেট:FishBase genus

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]