যোগিনী তন্ত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কামাখ্যা মন্দিরের গোড়ায় যোগিনীর ভাস্কর্য

যোগিনী তন্ত্র ষোড়শ বা সপ্তদশ শতাব্দীতে অসম বা পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার এ রচিত তান্ত্রিক অনুশীলনের একটি পাঠ। এই বইটির মূল লেখক অজানা । ধর্মীয় ও দার্শনিক নীতি ছাড়াও, এই ঐক্যবদ্ধ তন্ত্রগুলিতে কিছু ঐতিহাসিক ঘটনা রয়েছে। তন্ত্র সাধনার বামচারী স্কুলের জন্য এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বই। উত্তর-পূর্বে যোগিনী তন্ত্র তিব্বতি বৌদ্ধধর্মের বজ্রযান তন্ত্র যোগিনী তন্ত্র থেকে আলাদা। মাতৃতন্ত্রের একটি উপশ্রেণী, বজ্রযান তন্ত্রের অনুত্তরাযোগের একটি উপ-শাখা, যাকে যোগিনী তন্ত্রও বলা হয়।

সময় এবং স্থান[সম্পাদনা]

যোগিনী তন্ত্র ষোড়শ শতাব্দী খ্রিস্টীয়ে রচিত হয়েছিল । এটি কোচ রাজবংশের সময়কালের যা ১৬ শতকে ছিল । [১] কিছু ইতিহাসবিদরা এটিকে ১৭ শতকে উল্লেখ করেছেন। [২] ডাক্তার হরিনাথ শর্মা আসামের শক্তি সাধনা ও শাক্ত সাহিত্যের উপর তাঁর গবেষণায় চতুর্দশ শতাব্দীর কোনো এক সময়ে তন্ত্রশাস্ত্রের উল্লেখ করেছেন।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

যোগিনী তন্ত্র দুটি প্রধান অংশে বিভক্ত: পূর্ব বিভাগ এবং উত্তরা বিভাগ। পূর্ব বিভাগ ১৯টি অধ্যায় রয়েছে এবং উত্তর বিভাগ ৯টি অধ্যায় রয়েছে। দুটি মিলিয়ে মোট ২৮টি অধ্যায় এই তন্ত্রে রয়েছে।

পূর্ব বিভাগ[সম্পাদনা]

যোগিনী তন্ত্রের পূর্বব বিভাগের প্রথম অধ্যায়ে, শিব পার্বতীকে গুরুর গুরুত্ব এবং ধর্মচর্চায় একজন গুরুর প্রয়োজন ব্যাখ্যা করে তন্ত্র শুরু করেন। দ্বিতীয় অধ্যায়ে কালী রহস্য ও মালা জপ করার পদ্ধতি বর্ণনা করা হয়েছে এবং তৃতীয় অধ্যায়ে আরও বেশ কিছু জপ ও বর্মের বর্ণনা রয়েছে। চতুর্থ এবং পঞ্চম অধ্যায়ে শতকর্ম, পুরষ্কার এবং মন্ত্রসাধনার মতো কিছু বিশেষ অনুশীলন নিয়ে আলোচনা করে। ষষ্ঠ অধ্যায়ে ঐশ্বরিক ও বীর যোগ, পঞ্চম-কারের প্রাপ্তি এবং বন্ধন থেকে মুক্তির ব্যাখ্যা করা হয়েছে। সপ্তম অধ্যায়ে তিনটি বিজ্ঞান-স্বপ্নবতী, মৃতা-সঞ্জীবনী এবং মধুমতি বর্ণনা করা হয়েছে। অষ্টম, নবম এবং দশম পাপড়ি যোগিনীর উৎপত্তি, চিৎ ও ব্রহ্মবিগ্রহ হিসাবে কালীর কাছে ব্রহ্মত্ব প্রাপ্তি এবং মহাবিশ্বের সৃষ্টির মতো বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করে। একাদশ অধ্যায়ে কামরূপ রাজ্যের সীমানা ও মহিমা এবং নরকাসুর ও বশিষ্ঠের কাহিনী বর্ণনা করা হয়েছে। দ্বাদশ ও ত্রয়োদশ অধ্যায়ে ব্রাহ্মণের মাহাত্ম্য, সেইসাথে জপ ও দুই ধরনের কর্মের ফলদায়ক শক্তির কথা বলা হয়েছে। চতুর্দশ অধ্যায়ে সৌমরপীঠে রাজত্বকারী ইন্দ্রবংশীদের উৎপত্তি এবং পঞ্চদশ অধ্যায়ে দৈত্য কেশীর আখ্যান ও যোনি-মাহাত্ম্য বর্ণনা করা হয়েছে। ষোড়শ অধ্যায়ে তিনটি মূর্তির মধ্যে মহাদেবকে শ্রেষ্ঠ এবং কালীকে পরম সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে কাশীধামের মহিমা বর্ণনা করা হয়েছে। অধ্যায় ১৭, ১৮ এবং ১৯ কুমারীর চরিত্র, কুমারী পূজার আচার ও ফল, কালো চরিত্র, গঙ্গার মাহাত্ম্য এবং দেবী কালীর মাহাত্ম্য বর্ণনা করে। [৩]

উত্তর বিভাগ[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় অধ্যায়ের প্রথম অধ্যায়ে কামরূপের বিভিন্ন স্থান ও মন্দিরের বর্ণনা দেওয়া হয়েছে এবং দ্বিতীয় অধ্যায়ে নির্দিষ্ট তিথি, নক্ষত্র ও বার সংক্রান্ত কর্তব্য ও নিষেধাজ্ঞার কথা বলা হয়েছে। তৃতীয় অধ্যায়ে কামরূপের উপাসনালয়ের বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়া হয়েছে। চতুর্থ অধ্যায়ে ৭৮০টি মন্দিরের উল্লেখ রয়েছে এবং অশ্বক্রান্ত মন্দিরের মতো তীর্থস্থানের বর্ণনা দেওয়া হয়েছে। পঞ্চম ও ষষ্ঠ অধ্যায়ে মূল তীর্থস্থানের বর্ণনা ছাড়াও তীর্থযাত্রার ফল, নির্দিষ্ট তিথি ও নক্ষত্রে কী কী আচার-অনুষ্ঠান করতে হয়, দীক্ষা কী ইত্যাদির উল্লেখ রয়েছে। সপ্তম অধ্যায়ে আলোচনা করা হয়েছে। শাস্ত্রীয় রচনা এবং দেবী পূজার কিছু পদ্ধতি । নবম অধ্যায়ে বিভিন্ন বিষয় রয়েছে এবং এই মটরের শেষের দিকে রয়েছে হয়গ্রীব মাধব মন্দিরের উৎপত্তি এবং হয়গ্রীবের কৃতিত্বের বিস্তারিত বিবরণ। [৪]

বিঃদ্রঃ[সম্পাদনা]

  1. "The Yogini Trantra, which was composed in Assam itself in about the 16th century, refers to the Koches as kuvachas and says they were born of a Mech woman." (Ch XII v3) (Nath 1989)
  2. "(A)ccording to the Yogina Tantra—a product of seventeenth-century Assam—the entire religion of Kamarupa is itself described as kirata dharma. (Urban 2011)
  3. 3. বিকাশ শৰ্মা, যোগিনীতন্ত্ৰ: এক চমু অৱলোকন https://nilacharai.com/yogini-tantra-ek-samu-avalokan/
  4. বিকাশ শৰ্মাই তেওঁৰ যোগিনীতন্ত্ৰ: এক চমু অৱলোকন শীৰ্ষক প্ৰবন্ধত অধ্যায় অনুসৰি কৰা বিষয়বস্তু বিভাজনক সামান্য সম্পাদনা কৰি আগবঢ়োৱা হৈছে।