মিমি মন্ডল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মিমি মন্ডল
জন্ম
মনিদীপা মন্ডল

নাগরিকত্বভারতীয়
শিক্ষা
ওয়েবসাইটmimimondal.com

মনিদীপা "মিমি" মন্ডল হলেন একজন নিউইয়র্কভিত্তিক ভারতীয় কল্প কথাসাহিত্যিক[২] তিনি বিজ্ঞান কল্পকাহিনীসহ বেশ কয়েকটি প্রকারে লিখে থাকেন। মন্ডল লুমিনসেন্ট থ্রেডস: কানেকশন্স টু অক্টাভিয়া. বাটলার নামক প্রবন্ধের একজন সহ-সম্পাদক ছিলেন; যা ২০১৮ সালে লোকাস পুরস্কার লাভ করেছিল।[৩] এছাড়াও এটি ২০১৮ সালে হুগো পুরস্কার[৪][৫] এবং উইলিয়াম অ্যাথেলিং জুনিয়র পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিল।[৬] মন্ডল ভারত থেকে হুগো পুরস্কারের জন্য মনোনীত প্রথম লেখিকা ছিলেন।

মন্ডল ২০১২ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে পেঙ্গুইন ইন্ডিয়াতে সম্পাদক হিসাবে কাজ করেছিলেন এবং ২০১৭ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত আনক্যানি ম্যাগাজিনের কবিতা ও পুনর্মুদ্রণ বিভাগে সম্পাদক হিসাবে কাজ করেছেন।[৭] তাঁর কাজ টর ডট কম, আনক্যানি ম্যাগাজিন, ফায়ারসাইড ম্যাগাজিন, দ্য বুক স্মাগলারস, ডেইলি সায়েন্স ফিকশন, কিন্ডল ম্যাগাজিন, মিউজিক ইন্ডিয়া, পডক্যাসল এবং স্ক্রোলের মতো পত্রিকায় স্থান পেয়েছে।[৮] মন্ডল দক্ষিণ এশীয়ার অন্যতম কল্প কথাসাহিত্যিকদের মধ্যে একজন, যিনি ইতিহাস এবং প্রকাশনা পাণ্ডিত্যের প্রতি বিশেষ আগ্রহী ছিলেন এবং ২০১৮ সালে টর ডট কমের জন্য দক্ষিণ এশীয় অনুমানমূলক কথাসাহিত্যের একটি দুই খণ্ডের ইতিহাস লিখেছিলেন।[৯][১০]

জীবনী[সম্পাদনা]

মন্ডল ভারতের কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেছেন এবং সেখানেই তাঁর শৈশব অতিবাহিত করেছেন। তাঁর বাবা পশ্চিমবঙ্গ সিভিল সার্ভিসের (ডব্লিউবিসিএস) অফিসার ছিলেন এবং তাঁর মা ভারতীয় স্টেট ব্যাংকের একজন কর্মচারী ছিলেন। এক গোলটেবিল সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, "আমার জন্মের সময় আমাকে অন্য সাধারণ বাঙ্গালী বাচ্চাদের মতো "মিমি" ডাকনামটি দেওয়া হয়েছিল"।[১] ২০১৫ সাল থেকে তিনি প্রাথমিকভাবে "মনিদীপা মন্ডল" হিসেবে না লিখে "মিমি মণ্ডল" হিসাবে তাঁর লেখা প্রকাশ করতে শুরু করেছিলেন।[১১]

মন্ডল একটি অনলাইন প্রবন্ধে লিখেছেন যে তাঁর প্রথম শেখা দুটি ভাষা ছিল বাংলা এবং ইংরেজি। পরবর্তীকালে তিনি হিন্দি, প্রাচীন ইংরেজি এবং অল্প পরিমানে অন্যান্য কয়েকটি ভাষা শিখেছিলেন।[১২]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

মন্ডল নব নলান্দা উচ্চ বিদ্যালয়, কলকাতা আন্তর্জাতিক বিদ্যালয় এবং যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছেন।[১৩] ২০১০ সালে ইংরেজি বিভাগে বিএ এবং ২০১২ সালে একই বিভাগে এমএ সম্পন্ন করেছেন।[১৪] তিনি প্রকাশনা বিষয়ে ২০১৩ সালে কমনওয়েলথ শেয়ার্ড স্কলারশিপ পেয়েছিলেন। এছাড়া তিনি স্কটল্যান্ডের স্টার্লিং বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়াশোনা করেছেন,[২][১২][১৫] যেখান থেকে তিনি ২০১৫ সালে প্রকাশনা বিষয়ে মাস্টার অব লেটারস (এমলিট) ডিগ্রি পেয়েছিলেন।[৮]

২০১৫ সালে মন্ডল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটলে ক্লারিয়ন ওয়েস্ট রাইটার্স ওয়ার্কশপে অংশ নিয়েছিলেন, যেখানে তিনি অক্টাভিয়া ই বাটলার মেমোরিয়াল স্কলার ছিলেন।[২] ২০১৭ সালে, তিনি রুটজার্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সৃজনমূলক লেখায় তাঁর এমএফএ শেষ করেছেন।[১৬]

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

সংহিতা[সম্পাদনা]

  • লুমিনেসেন্ট থ্রেডস: কানেকশন্স টু অক্টাভিয়া ই বাটলার (আলেকজান্দ্রা পিয়ার্সের সাথে, ২০১৭)[৪][১৭][১৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Karki, Isha (১১ এপ্রিল ২০১৮)। "Women of Color in Speculative Fiction: A Round Table Discussion"Mithila Review। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৮ 
  2. Varma, Pallavi (৯ মে ২০১৮)। "Meet Mimi Mondal: India's First SFF Writer Nominated For A Hugo"Feminism India। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৮ 
  3. "2018 Locus Awards Winners"Locus Online (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-০৮ 
  4. Xalxo, Jessica (৮ এপ্রিল ২০১৮)। "To the stars and beyond: A conversation with Hugo Award nominee Mimi Mondal"She the People TV। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৮ 
  5. Sharma, Swati (২২ এপ্রিল ২০১৮)। "Hugo Nomination for Indian Writer"Deccan Chronicle। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৮ 
  6. "2018 Ditmar Award Winners"Locus। ২ এপ্রিল ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৮ 
  7. "Uncanny Staff Changes"Locus। ২৭ জুন ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৮ 
  8. "Mimi Mondal"Uncanny। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০১৮ 
  9. Mondal, Mimi (৩০ জানুয়ারি ২০১৮)। "A Short History of South Asian Speculative Fiction: Part I"Tor.com। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৮ 
  10. Mondal, Mimi (২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮)। "A Short History of South Asian Speculative Fiction: Part II"Tor.com। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৮ 
  11. "Summary Bibliography: Mimi Mondal"Internet Science Fiction Database। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৮ 
  12. Mondal, Mimi (২৮ অক্টোবর ২০১৭)। "On Translating the Stories Yet Unwritten: A Dalit Perspective from India"Words Without Borders 
  13. "Kolkata girl nominated for global sci-fi award"The Times of India। ৬ এপ্রিল ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৮ 
  14. Mondal, Monidipa। "Curriculum Vitae"। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৮ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  15. "MLitt in Publishing Studies"University of Stirling। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৮ 
  16. "Alumna Mimi Mondal is a Finalist for the Hugo Award"Rutgers University। ৮ মে ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৮ 
  17. Wolfe, Gary K. (১৪ জানুয়ারি ২০১৮)। "Gary K. Wolfe Reviews Luminescent Threads: Connections to Octavia E. Butler edited by Alexandra Pierce & Mimi Mondal"Locus। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০১৮ 
  18. "Mimi Mondal to be Published in Tor.com!"Brooklyn Speculative Fiction Writers। ১ মার্চ ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]