মহারথী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মহারথী
মহারথী উপন্যাসের প্রচ্ছদ.gif
লেখকচন্দ্রপ্রসাদ শইকীয়া
দেশআসাম, ভারত
ভাষাঅসমীয়া
বিষয়উপন্যাস
প্রকাশকবনলতা প্রকাশন
মিডিয়া ধরনমুদ্রণ
পৃষ্ঠাসংখ্যা৪৩২
আইএসবিএন৮১-৭৩৩৯-০২২-৩

মহারথী হল অসমীয়া সাহিত্যিক চন্দ্রপ্রসাদ শইকীয়াদেবরদ্বারা রচিত একটি উপন্যাস। মহারথীকে চন্দ্রপ্রসাদ শইকীয়ার জীবনের শ্রেষ্ঠ সাহিত্য-কৃতি বলে গণ্য করা হয়।[১] ‘মহারথী’ শব্দের অর্থ হচ্ছে মহান যোদ্ধা

চরিত্রসমূহ[সম্পাদনা]

কাহিনীর সারাংশ[সম্পাদনা]

মহারথীর কাহিনী ভারতীয় মহাকাব্য মহাভারতের উপর আধারিত। এর মুখ্য চরিত্র হচ্ছে মহাবীর কর্ণকর্ণ ছিলেন সূর্য্য এবং কুন্তীর সন্তান। একজন নিপুণ যোদ্ধা হওয়া ছাড়াও দয়ালু এবং দানশীল স্বভাবের জন্যও কর্ণ পরিচিত ছিলেন। প্রকৃত পিতা-মাতার পরিচয় গোপন থাকার জন্য ‘সূত-পুত্র’ বলে জীবনকালে কর্ণ পদে পদে লাঞ্চনার সম্মুখীন হয়েছিল। মহাভারতের যুদ্ধে কৌরবদের হয়ে যুদ্ধ করা কর্ণের নিজেরই ভ্রাতা অর্জুনের হাতে শোকাবহ মৃত্যু ঘটেছিল।

গ্রন্থ পর্যালোচনা[সম্পাদনা]

কর্ণের মানবিকতা এবং মর্মন্তুদ জীবনের কাহিনী চন্দ্রপ্রসাদ শইকীয়াদেব ‘মহারথী’তে কুশলী ভাষায় হৃদয়স্পর্শীভাবে প্রকাশ করেছেন [২]। এক নতুন আঙ্গিকের উপন্যাস হিসাবে এটি অসমীয়া সাহিত্য জগতে ব্যবসায়িক দিকে সফল ছিলেন।[৩]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

১৯৯৫ সালে এই উপন্যাসের জন্য চন্দ্রপ্রসাদ শইকীয়া সাহিত্য অকাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

অভিযোজন[সম্পাদনা]

ইতিমধ্যে এই উপন্যাসটি বিভিন্ন ভারতীয় ভাষায় অনূদিত হয়েছে এবং এর নাট্যরূপও দেওয়া হয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. অনলাইন শিবসাগরত থাকা তথ্য
  2. "বিপুলজ্যোতি শইকীয়ার ব্লগ পৃষ্ঠায় থাকা তথ্য"। ২৭ অক্টোবর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০২০ 
  3. "বনলতা ওয়েবসাইটে থাকা তথ্য"। ২ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০২০