মং সার্কেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

মং সার্কেল (বর্মী: ဖလံထောင်) বর্তমান বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামের তিনটি বংশগত চিফডোমগুলির মধ্যে একটি (বা "চেনাশোনা")। মং সার্কেলের এখতিয়ার খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন অঞ্চলকে ঘিরে রয়েছে। চিফডমের সদস্যরা মারমা বংশোদ্ভূত এবং ফালানস (ဖလံ သား) নামে পরিচিত। মং সার্কেলের বেশিরভাগ বাসিন্দা ষোড়শ শতাব্দী থেকে অষ্টাদশ শতাব্দীর মধ্যে ম্রাক ইউ ( মায়ানমারের আধুনিক আরাকান রাজ্য ) থেকে অভিবাসনের সময় উত্তর-পশ্চিমে বসতি স্থাপন করেছিলেন, অন্য মারমা চিফডোমের বাসিন্দা দক্ষিণ এর বোমাং সার্কেল বসতি স্থাপন করেছিল তারা রাগ্রাইসা হিসাবে পরিচিত। [১]

নেতৃত্ব[সম্পাদনা]

মং সার্কেলের নেতৃত্বে থাকেন একজন বংশগত প্রধান যাঁকে "রাজা" বলা হয়। মং সর্দাররা প্রধানদের তদারকি করেন ও তদারকি এর জন্য মৌজা নিয়োগ করেন এবং প্রধানদের কার্বারি বলে অভিহিত করে। বর্তমান সার্কেল প্রধান(রাজা) চৌধুরী বাড়ির সাচিং প্রু চৌধুরী (သာ စိန် ဖြူ) (১৯৮৮); তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে ১৭ জানুয়ারী ২০০৯ এ পদ লাভ করেন। তার পূর্বসূরি পাইহ্লা প্রু চৌধুরী ২০০৮ সালের ২২ অক্টোবর একটি সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৭৮২ সাল থেকে মং সার্কেলের প্রথম সর্দার মরাচাইয়ের সঙ্গে রয়েছে। [২] ব্রিটিশ শাসনামলে, ফেনী উপত্যকায় একটি জাতিগতভাবে মিশ্র জনগোষ্ঠী ঘেরাও করার জন্য ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ ১৮৭১ সালে মং সার্কেলকে মনোনীত করে। [৩] ১৮৮১ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামকে প্রশাসনিকভাবে চাকমা সার্কেল, বোমাং সার্কেল এবং মং সার্কেল নামে তিনটি বৃত্তে বিভক্ত করা হয়েছিল, যার প্রত্যেকটির সভাপতিত্ব চাকমামারমা জনগণের বংশগত প্রধানের নেতৃত্বে ছিল। [৪][৫][৬] এই সার্কেলগুলিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিধিমালা, ১৯০০ এর মাধ্যমে আইন সংগ্রহ করা হয়েছিল, ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের উপর কর আদায়, ভূমি প্রশাসন ব্যবস্থাপনার এবং সামাজিক সালিশের দায়িত্ব সর্দারদের অর্পণ করে রাজস্ব আদায় ও প্রশাসনিক ভারসামি সহজতর করা হয়েছিল। [৭] ১৯০১ সালে মং সার্কেল ৬৫৩ বর্গমাইল (১,৬৯০ কিমি) পর্যন্ত প্রসারিত হয়েছিল। [৮] এই প্রশাসনিক কাঠামো ১৯৬৪ সাল পর্যন্ত স্থায়ী ছিল, যখন স্থানীয় স্ব-সরকার চালু করার ফলে এই চক্রগুলির বিশেষ মর্যাদা বাতিল হয়ে যায় এবং স্থানীয় প্রশাসনকে কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

মং সার্কেল রাজা বীর মুক্তিযোদ্ধা মংপ্রু সাইন বাহাদুর ১৯৮৪ সালে পরলোক গ্রহণ করার পর তাঁহার সহ-ধর্মিনী রানী নীহার দেবী রাজ্যভার গ্রহণ করে । পরবর্তীতে র্বাধক্য জনিত রোগের কারণে তিনিও ১৯৯১ সালে পরলোক গমন করেন। তখন থেকে মানিকছড়ি রাজ্য উত্তরাধীকারী নিয়ে শুন্যতা সৃষ্টি হয়। (১৯৯১-১৯৯৮) সাল পর্যন্ত মং রাজ্যের সিংহাসন শূন্য ছিল।পরে মং রাজার মংপ্রু সাইনের ভ্রাতুষপুত্র জেলা তথ্য কর্মকর্তা অবসর প্রাপ্ত পাইহ্লাপ্রু চৌধুরী ১৯৯৮ সালে রাজ্য পরিচালনায় দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি তৎকালীণ খাগড়াছড়ি জেলার তথ্য অফিসার ছিলেন। ইউএনডিপি’র আমন্ত্রনে বিদেশ সফর শেষে ২০০৮ সালের ঢাকা থেকে সৌদিয়া বাস যোগে খাগড়াছড়ি’র উদ্দেশ্যে আসার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় রাজা পাইহ্লাপ্রু চৌধুরী মারা যান । এর পরবর্তী তাঁহার একমাত্র কম বয়সী পুত্র সাচিংপ্রু চৌধুরী রাজ সিংহাসন আরোহণ করেন। বর্তমানে তিনিই স্থায়ী মং রাজা হিসেবে অদ্যাবধি দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।[৯]

সদর দপ্তর[সম্পাদনা]

মং সার্কেলের ঐতিহাসিক সদর দপ্তর বা রাজবাড়ি খাগড়াছড়ি জেলা এর মানিকছড়ি উপজেলায় অবস্থিত। তবে বর্তমান রাজা জেলা শহরে বসবাস করেন। মং রাজবাড়ি ঐতিহাসিক ও দর্শনীয় স্থান।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. I, Fonkem Achankeng (২০১৫-০৯-২৮)। Nationalism and Intra-State Conflicts in the Postcolonial World। Lexington Books। আইএসবিএন 978-1-4985-0026-5 
  2. "History & Culture"Rangamati Hill District Council। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৯ 
  3. Barua, B.P. (১৯৭১)। "Extension of British Administration to Chittagong Hill Tracts": 514–519। জেস্টোর 44145391 
  4. Zaman, M. Q. (১৯৮২)। "Crisis in Chittagong Hill Tracts: Ethnicity and Integration": 75–80। জেস্টোর 4370578 
  5. Hutchinson, Robert Henry Sneyd (১৯০৬)। An Account of the Chittagong Hill Tracts। Bengal Secretariat Book Depot। 
  6. Kundu, Debasish; Samadder, Mrinmoy (২০১১-০১-০৪)। State of Justice in Chittagong Hill Tracts: Exploring the Formal and Informal Justice Institutions of Indigenous Communities। Research and Evaluation Division, BRAC। 
  7. "Bandarban wears festive look as Rajpunyah starts"The Daily Star। ২০১০-০১-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৯ 
  8. Hutchinson, Robert Henry Sneyd (১৯০৬)। An Account of the Chittagong Hill Tracts। Bengal Secretariat Book Depot। 
  9. http://manikchari.khagrachhari.gov.bd/site/tourist_spot/56cd14b2-2147-11e7-8f57-286ed488c766/%E0%A6%90%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%B9%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B9%E0%A7%80%20%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%9B%E0%A7%9C%E0%A6%BF%20%E0%A6%AE%E0%A6%82%20%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A7%80