ভূমিবল অতুল্যতেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ভূমিবল অতুল্যতেজ
King Bhumibol Adulyadej Portrait-1945.jpg
থাইল্যান্ডের রাজা
রাজত্ব ৯ জুন, ১৯৪৬ - ১৩ অক্টোবর, ২০১৬
(7001710000000000000৭১ বছর, 7002109000000000000১০৯ দিন)
রাজ সিংহাসনারোহণ ৫ মে, ১৯৫০
পূর্বসূরী আনন্দ মহীদল
উত্তরাধিকারসূত্রে মহা ভজিরালঙ্কম
প্রধানমন্ত্রী
জন্ম (১৯২৭-১২-০৫)৫ ডিসেম্বর ১৯২৭
কেমব্রিজ, ম্যাসাচুসেটস,
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
মৃত্যু অক্টোবর ১৩, ২০১৬(২০১৬-১০-১৩) (৮৮ বছর)
সিরিরাজ হাসপাতাল, ব্যাংকক, থাইল্যান্ড
দাম্পত্য সঙ্গী সিরিকিত কিতিয়াকারা
(২৮ এপ্রিল, ১৯৫০ থেকে)
সন্তান প্রিন্সেস যুবলরত্না রাজকন্যা
ক্রাউন প্রিন্স বজ্রলঙ্কম
প্রিন্সেস সিরিন্ধম
প্রিন্সেস চুলাভোম ওয়ালাইলাক
রাজবংশ মহীদল গৃহ
চক্রী রাজবংশ
পিতা মহীদল অতুল্যতেজ, প্রিন্স অব সঙ্কলা
মাতা শ্রীনাগারিন্দ্র, দ্য প্রিন্সেস মাদার
ধর্ম বৌদ্ধ
স্বাক্ষর

রাজা ভূমিবল অতুল্যতেজ (থাই: พระบาทสมเด็จพระปรมินทรมหาภูมิพลอดุลยเดช; উচ্চারিত [pʰuːmípʰōn ʔàdūnjādèːt] ( শুনুন); জন্ম: ৫ ডিসেম্বর, ১৯২৭ - ১৩ অক্টোবর, ২০১৬) থাইল্যান্ডের রাজা ছিলেন। ১৭৮২ সাল থেকে ক্ষমতাসীন ও থাইল্যান্ডের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী চক্রী রাজবংশের তিনি নবম রাজা। থাইল্যান্ডের অধিকাংশ নাগরিকই তাঁকে মহারাজা হিসেবে সম্বোধন করে থাকে। এছাড়াও তিনি নবম রাম হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ৯ জুন, ১৯৪৬ তারিখে তাঁর রাজ্যাভিষেক ঘটে। এর ফলে তিনি বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী বর্তমান রাষ্ট্রপ্রধানসহ থাইল্যান্ডের ইতিহাসে দীর্ঘস্থায়ী রাজা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছিলেন।[১] তিনি ১৩ অক্টোবর ২০১৬ মৃত্যুবরণ করেন।

চক্রী রাজবংশএর রাজারা
Buddha Yodfa Chulaloke portrait.jpg ফ্রা ফুটথায়তফা চুলালক
(প্রথম রামা)
Buddha Loetla Nabhalai portrait.jpg ফ্রা ফুটথালেটলা নাফালাই
(দ্বিতীয় রামা)
Nangklao portrait.jpg নাংকলাও
(তৃতীয় রামা)
Rama4 portrait (cropped).jpg মংকুট
(চতুর্থ রামা)
King Chulalongkorn.jpg চুলালংকরন
(পঞ্চম রামা)
King Vajiravudh.jpg ভজিরাভুধ
(ষষ্ঠ রামা)
Prajadhipok portrait.jpg প্রজাধীপক
(সপ্তম রামা)
King Ananda Mahidol portrait photograph.jpg আনন্দ মহিদল
(অষ্টম রামা)
Portrait painting of King Bhumibol Adulyadej.jpg ভূমিবল অতুল্যতেজ
(নবম রামা)

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

রাজা ভূমিবল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণ করলেও শিক্ষালাভ করেন সুইজারল্যান্ডে। ভূমিবল একজন বিলিওনিয়ার ছিলেন। নিজ অর্থের কিছু অংশ তিন সহস্রাধিক প্রকল্পে ব্যয় করেছেন, যার অধিকাংশই গ্রাম্য এলাকায় অবস্থিত। কৃষি, পরিবেশ, জনস্বাস্থ্য, পানিসম্পদ, যোগাযোগ এবং জনকল্যাণে এ অর্থ ব্যয় করা হয়।[২] থাইল্যান্ডে তাঁর জনকল্যাণমূখী অংশগ্রহণের কথা থাই গণমাধ্যমে শ্রদ্ধার সাথে তুলে ধরা হয়।[৩]

তিনি কখনও কখনও রাজনৈতিক সঙ্কট মীমাংসায় এগিয়ে এসেছেন। অনেক থাই জনগোষ্ঠীর ন্যায় তিনিও অর্ধ-ধর্মপ্রাণব্যক্তি।[৪][৫][৬] ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ভূমিবল একজন চমৎকার সঙ্গীতজ্ঞ, চিত্রকর এবং নাবিক। দূরসম্পর্কীয় আত্মীয়া সিরিকিত কিতিয়াকারাকে ১৯৫০ সালে বিয়ে করেন এবং আনুষ্ঠানিকভাবে রাজমুকুট পড়ানো হয় ৫ মে, ১৯৫০ তারিখে।

রাজ্যাভিষেক[সম্পাদনা]

রাজা চুলালঙ্কমের নাতি এবং প্রিন্স অব সঙ্কলা মহীদল অতুল্যতেজের পুত্র রাজা ভূমিবলের বড় ভাই রাজা আনন্দ মহীদল ১৯৩৫ সালে রাজসিংহাসনে আরোহণ করেছিলেন। কিন্তু ৯ জুন, ১৯৪৬ সালে রাজা আনন্দ মহীদলকে বিছানার পাশে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মৃতদেহ পাওয়া যায়। তাঁর রহস্যজনক মৃত্যু যা পরবর্তীতে অজ্ঞাতই রয়ে গেছে এ প্রেক্ষিতে তড়িঘরি করে ভূমিবলকে রাজসিংহাসনে বসানো হয়।

থাইল্যান্ডে তিনি অসম্ভব জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন[৭][৮] এবং জনগণের উপর তাঁর বিরাট প্রভাব ছিল।[৯]

থাইদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় হলেও লিজ ম্যাজিস্টি আইনের আওতায় তাঁর কর্মকাণ্ডের কোনরূপ সমালোচনা করা হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে তিন থেকে পনের বছর কারাভোগের বিধান রাখা হয়েছে।[১০] সামরিকজান্তা ও প্রধানমন্ত্রী তানিন ক্রেইভিজিয়েনর শাসনামলে এ আইনকে আরও কঠিনতর করা হয়। রাজপরিবার, রাজকীয় উন্নয়ন পরিকল্পনা, রাজকীয় প্রতিষ্ঠান, চক্রী রাজবংশ কিংবা অন্য কোন রাজার সমালোচনা করাও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়।

২০০৫ সালে রাজা ভূমিবলের জন্মদিনের উৎসবে রাজা ভূমিবল সমালোচনা স্বাগতঃ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন।[১১] তিনি বলেন,

এ প্রেক্ষিতে বাঁধনির্মাণে ব্যাপক সমালোচনার কথা জনগণের মাঝে প্রকাশিত হয়। লিজ ম্যাজিস্টি আইনের আওতা অনুসরণ করে তা বন্ধ রাখার চেষ্টা করা হয়। এ আইনের আওতায় ২০১০ সালে ৪৭৮ জনকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়, যা ২০০৫ সালের পূর্বে ছিল বছরপ্রতি পাঁচ থেকে ছয়জন।[১২]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

রাজা ভূমিবল ১৩ অক্টোবর ২০১৬ মৃত্যুবরণ করেন। তিনি সাধারণত থাইল্যান্ডবাসীদের কাছে অত্যন্ত সম্মান পাতেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "A Royal Occasion speeches"Journal। Worldhop। ১৯৯৬। আসল থেকে ১২ মে ২০০৬-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ৫ জুলাই ২০০৬ 
  2. Some information about HM King Bhumibol Adulyadej ওয়েবচাইট এ আর্কাইভকৃত ১০ আগস্ট ২০১১
  3. Channel News Asia, Thais celebrate Queen's birthday as govt investigates monarchy threat, 12 August
  4. Montlake, Simon (২০০৬-০৬-১২)। "Backstory: The king and Thai"। The Christian Science Monitor। সংগৃহীত ২০০৮-০৩-০৪ 
  5. "World in Brief"The Washington Post২০০৭-০৩-৩০। সংগৃহীত ২০০৮-০৩-০৪ 
  6. MacKinnon, Ian (২০০৭-০৪-০৭)। "YouTube ban after videos mock Thai king"The Guardian। সংগৃহীত ২০০৮-০৩-০৪ 
  7. Aphornsuvan, Thanet (২০০৪)। "Bhumibol Adulyadej"Southeast Asia: A Historical Encyclopedia, From Angkor Wat to East Timor (ABC-CLIO): ২৩২। 
  8. Nimanandh, Kongphu; Andrews, Tim G. (২০০৯)। "Socio-cultural context"The Changing Face of Management in Thailand (Taylor & Francis): ৭৩। 
  9. "Why Thailand's king is so revered"News। UK: BBC। ৫ ডিসেম্বর ২০০৭। সংগৃহীত ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  10. Champion, Paul (২৫ সেপ্টেম্বর ২০০৭)। "Professor in lese majeste row"। Reuters। ১৩ অক্টোবর ২০০৭-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০০৭ 
  11. "Royal Birthday Address: 'King Can Do Wrong'"। National Media। ৫ ডিসেম্বর ২০০৫। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৭-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০০৭ 
  12. FT, High time to concede the Thai king can do wrong, 20 July 2011

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

সাহিত্যাঙ্গন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

ভূমিবল অতুল্যতেজ
জন্ম: ৫ ডিসেম্বর ১৯২৭ মৃত্যু: ১৩ অক্টোবর ২০১৬
রাজত্বকাল শিরোনাম
পূর্বসূরী
আনন্দ মহীদল
থাইল্যান্ডের রাজা
১৯৪৬ - ২০১৬
উত্তরসূরী
ভজীরলঙ্কম
মনোনীত