ভূগোলের রূপরেখা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন


আরও দেখুন: ভূগোল সম্পর্কিত নিবন্ধসমূহের তালিকা

নিচের রূপরেখাটি ভূগোল বিষয়টির একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ এবং সাময়িক দিকনির্দেশক হিসাবে উপস্থাপন করা হয়েছে:

ভূগোল – পৃথিবী এবং এর অধিবাসীদের বিবরণ।[১]

পৃথিবীর একটি মানচিত্র।

ভূগোলের প্রকৃতি[সম্পাদনা]

ভূগোল হলো[সম্পাদনা]

  • পঠনের বিষয় - জ্ঞানের একটি শাখা যা দেয়া হয় − বা গ্রহণ করা হয় − অধ্যায়নরত (শিক্ষার্থী) কর্তৃক; জ্ঞানের একটি শাখা বা একটি মন্ডল, বা পাঠের ক্ষেত্র, যাকে একজন স্বতন্ত্র ব্যক্তি বিশেষজ্ঞ হওয়ার জন্য বেছে নিয়েছে। ভূগোলকে 'পৃথিবীর পাঠের বিভাগ' বলে অভিহিত করা হয়।[২]
  • বিজ্ঞানের ক্ষেত্র - বৃহত্‌ পরিসরে বিধৃত হয় হয় বিশেষজ্ঞদের দ্বারা। প্রচুর জার্নালে বিজ্ঞানের ক্ষেত্র হিসাবে আলোচনা করা হয়। ভূগোল সম্পর্কিত প্রচুর বৈজ্ঞানিক জার্নাল রয়েছে।
    • প্রাকৃতিক বিজ্ঞান - প্রাকৃতিক পরিবেশের নিয়মতান্ত্রিক অধ্যয়নের বিষয় (প্রাকৃতিক ভূগোল)।
    • সামাজিক বিজ্ঞান - মানব সমাজ সম্পর্কিত নিয়মতান্ত্রিক অধ্যয়নের বিষয় (মানবীয় ভূগোল)।
  • আন্তঃবিভাগীয় ক্ষেত্র - বিশেষজ্ঞদের বা সময়ের প্রয়োজনে প্রচলিত সীমারেখা অতিক্রম করে অধ্যয়ন বা ভাবনার ক্ষত্র সমন্বয় ও সংযোজন করে। প্রাকৃতিক ভূগোলের অসংখ্য বিষয় ভূবিজ্ঞানেরও অধ্যয়নের বিষয়।

ভূগোলের শাখা[সম্পাদনা]

"মানব ও প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের মধ্যে সেতু" হিসাবে ভূগোল দুটি প্রধান শাখায় বিভক্ত:

  • মানবীয় ভূগোল
  • প্রাকৃতিক ভূগোল[৩][৪]

ভূগোলের অন্যান্য শাখাগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • সমন্বিত ভূগোল
  • ভূমিতিকী
  • আঞ্চলিক ভূগোল

এসমস্ত শাখা সম্পর্কে নিচে বর্ণিত হলো...

প্রাকৃতিক ভূগোল[সম্পাদনা]

  • প্রাকৃতিক ভূগোল - প্রাকৃতিক পরিবেশ এবং কীভাবে জলবায়ু, গাছপালা এবং জীবন, মাটি, জল এবং ভূমিগঠন উত্‌পাদিত হয় এবং পারস্পরিক মিথস্ক্রিয়া করে তা পরীক্ষা করে।[৫]

প্রাকৃতিক ভূগোলের ক্ষেত্রসমূহ[সম্পাদনা]

  • ভূমিরূপবিদ্যা - ভূমিগঠন এবং তার প্রক্রিয়া সম্পর্কিত অধ্যয়ন, আরও বিশদভাবে বললে, কোনও গ্রহের ভূতত্ব নিয়ন্ত্রণকারী প্রক্রিয়াগুলির অধ্যয়ন। কেন ভূমিগুলো দেখতে তাদের মতো, গঠনের ইতিহাস এবং গতিবিদ্যা বোঝার জন্য এবং ক্ষেত্র পর্যবেক্ষণ, সরাসরি পরীক্ষণ এবং সংখ্যাসূচক মডেলিংয়ের সংমিশ্রনের মাধ্যমে ভবিষ্যতের পরিবর্তনের পূর্বাভাস দেওয়ার চেষ্টা করে।
  • জলবিদ্যা - পানি চক্র, জল সম্পদ এবং পরিবেশগত জলাবদ্ধতা স্থায়িত্ব সহ পৃথিবী জুড়ে জলের গতিবিধি, বিতরণ এবং গুণমান সম্পর্কে অধ্যয়ন।
  • হিমবাহবিদ্যা - হিমবাহ সম্পর্কিত গবেষণা, বা আরও সাধারণভাবে, বরফ এবং বরফের সাথে জড়িত প্রাকৃতিক ঘটনা সম্পর্কিত।
  • সমুদ্রবিদ্যা - সামুদ্রিক জীব এবং বাস্তুতন্ত্রের গতিবিদ্যা সহ সমুদ্রের সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়াবলীর বিস্তৃত অধ্যয়ন; সমুদ্র স্রোত, তরঙ্গ এবং ভূপদার্থিক তরল গতিবিদ্যা; প্লেট সঞ্চারণ এবং সমুদ্র তলের ভূতত্ত্ব; এবং সমুদ্রের মধ্যে এবং এর সীমানা জুড়ে বিভিন্ন রাসায়নিক পদার্থ এবং প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যের প্রভাব।
  • জৈবভূগোল - স্থানিক ও সাময়িকভাবে প্রজাতির বণ্টন নিয়ে অধ্যয়ন। আঞ্চলিক পরিবেশগত পরিবর্তনের মাধ্যমে এটি প্রজাতির ধারণা এবং তাদের অতীত বা বর্তমানের জীবিত 'রিফিউজিয়াম', তাদের বেঁচে থাকার স্থানীয় বা তাদের অন্তর্বর্তীকালীন স্থানগুলির সাথেও আবদ্ধ এবং কোথায় জীব রয়েছে এবং কোন প্রাচুর্যে তা প্রকাশ করে সেটি লক্ষ্য করে।[৬]
  • জলবায়ুবিদ্যা - জলবায়ুর অধ্যয়ন, বৈজ্ঞানিকভাবে সময়ের সাথে আবহাওয়ার গড় হিসাবকে সংজ্ঞায়িত করে।[৭]
  • আবহাওয়াবিদ্যা হলো বায়ুমণ্ডলের আন্তঃবিষয়ক বৈজ্ঞানিক গবেষণা যা আবহাওয়া প্রক্রিয়া এবং স্বল্পমেয়াদী পূর্বাভাসের (জলবায়ুবিদ্যার বিপরীতে) উপর আলোকপাত করে।
  • মৃত্তিকাবিদ্যা - তাদের স্বাভাবিক পরিবেশে মৃত্তিকা সম্পর্কিত অধ্যয়ন[৮] যা মাটিরপ্রকরণ, মাটির আকারবিজ্ঞান এবং মাটির শ্রেণিবিন্যাস সম্পর্কিত।
  • পুরভূগোল - ভূগোল অতীতে কী ছিল তা নিয়ে অধ্যয়ন, প্রায়শই প্রাকৃতিক ভূমিরূপ নিয়ে, তবে মানব বা সাংস্কৃতিক পরিবেশ সম্পর্কিতও।
  • উপকূলীয় ভূগোল - সমুদ্র এবং ভূমির মধ্যে গতিশীল আন্তসম্পর্কের অধ্যয়ন, প্রাকৃতিক ভূগোল (অর্থাৎ উপকূলীয় ভূগোল, ভূতত্ত্ব এবং সমুদ্রবিদ্যা) এবং উপকূলের মানবীয় ভূগোল (সমাজবিজ্ঞান এবং ইতিহাস) উভয়কে একত্রিত করে। এটি উপকূলীয় আবহাওয়া প্রক্রিয়াগুলি, বিশেষত তরঙ্গ ক্রিয়া, পলিক চলন এবং আবহাওয়া এবং উপকূলের সাথে মানুষ কীভাবে যোগাযোগ করে সেগুলি বোঝার সাথে জড়িত।
  • কোয়াটারনারি বিজ্ঞান - কোয়ার্টারনারি কালকে কেন্দ্র করে, যা গত বরফ যুগ এবং হোলসিন সময়কাল সহ গত ২.৬ মিলিয়ন বছরকে অন্তর্ভুক্ত করে।
  • ভূস্থবাস্তুশাস্ত্র - নগর বিকাশের স্থানিক নিদর্শন এবং একাধিক ভূতাত্ত্বিক মাপনী এবং সাংগঠনিক স্তরের পরিবেশগত প্রক্রিয়াগুলির মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা।[৯][১০][১১]

প্রাকৃতিক ভূগোলের প্রক্রিয়াসমূহ[সম্পাদনা]

মানবীয় ভূগোল[সম্পাদনা]

  • মানব ভূগোল - ভূগোলের প্রধান দুটি প্রধান ক্ষেত্রের মধ্যে একটি, এটি মানুষ কিভাবে ব্যবহার করছে এবং উপলব্ধি করছে বিশ্বকে এবং এর প্রক্রিয়াকে যেগুলি প্রভাবিত হচ্ছে তার অধ্যয়ন। মানব ভূগোল প্রাকৃতিক ভূগোল থেকে বিস্তৃতভাবে পৃথক কারণ এটি অন্তর্নির্মিত পরিবেশ এবং মানুষ কীভাবে স্থান তৈরি করে, দেখে এবং পরিচালনা করে এবং পাশাপাশি তারা যে স্থান দখল করে তার উপর মানুষের প্রভাবকে কেন্দ্র করে এর প্রতি দৃষ্টিপাত করে।[৫]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Geography"The American Heritage Dictionary/ of the English Language, Fourth Edition। Houghton Mifflin Company। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৯, ২০০৬ 
  2. Bonnett, Alastair (২০০৮)। What is Geography?। London: Sage। আইএসবিএন 9781412918688 
  3. "Geography: The Mother of Sciences" (PDF)। ১ সেপ্টেম্বর ২০০৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. Pidwirny, M. (২০০৬)। "Elements of Geography"Fundamentals of Physical Geography (2nd সংস্করণ)। Physicalgeography.net। 
  5. "What is geography?"AAG Career Guide: Jobs in Geography and related Geographical Sciences। Association of American Geographers। অক্টোবর ৬, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৯, ২০০৬ 
  6. Martiny JBH et al. Microbial biogeography: putting microorganisms on the map ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ জুন ২০১০ তারিখে Nature: FEBRUARY 2006 | VOLUME 4
  7. Climate Prediction Center. Climate Glossary. ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৬ অক্টোবর ২০০৬ তারিখে Retrieved on 2006-11-23.
  8. Ronald Amundsen। "Soil Preservation and the Future of Pedology" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-০৬-০৮ 
  9. Wu, J. 2006. Cross-disciplinarity, landscape ecology, and sustainability science. Landscape Ecology 21:1-4.
  10. Wu, J. and R. Hobbs (Eds). 2007. Key Topics in Landscape Ecology. Cambridge University Press, Cambridge.
  11. Wu, J. 2008. Landscape ecology. In: S. E. Jorgensen (ed), Encyclopedia of Ecology. Elsevier, Oxford.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]