ভিক্তর গ্রিগনার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফ্রানকোইস অগাস্তে ভিক্তর গ্রিগনার
Viktor-grignard.jpg
জন্ম(১৮৭১-০৫-০৬)৬ মে ১৮৭১
চেরবুর্গ, ফ্রান্স
মৃত্যু১৩ ডিসেম্বর ১৯৩৫(১৯৩৫-১২-১৩)
লিওঁ, ফ্রান্স
সমাধিস্থলগিলোটিয়ার সমাধিস্থল, লিওঁ
জাতীয়তাফরাসি
কর্মক্ষেত্রজৈব রসায়ন
প্রতিষ্ঠানন্যান্সি বিশ্ববিদ্যালয়
প্রাক্তন ছাত্রলিওঁ বিশ্ববিদ্যালয়
পিএইচডি উপদেষ্টাফিলিপ বার্বিয়ার[১]
পরিচিতির কারণগ্রিগনার বিক্রিয়া
উল্লেখযোগ্য
পুরস্কার
রসায়নে নোবেল পুরস্কার (১৯১২)
স্ত্রী/স্বামীঅগাস্তিন মেরি বাউলেন্ট
সন্তান(গণ)রজার গ্রিগনার

ফ্রানকোইস অগাস্তে ভিক্তর গ্রিগনার (৬ই মে ১৮৭১ চেরবুর্গ – ১৩ই ডিসেম্বর ১৯৩৫ লিওঁ) ছিলেন একজন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ফরাসি রসায়নবিদ

জীবনী[সম্পাদনা]

১৯১২ সালে ভিক্তর গ্রিগনার। নোবেল পুরস্কার প্রকাশনার জন্য নেওয়া।

গ্রিগনার ছিলেন একজন পাল প্রস্তুতকারকের পুত্র। তিনি একজন বিনীত এবং বন্ধুত্বপূর্ণ মনোভাব সম্পন্ন মানুষ ছিলেন।[১] তিনি গণিতে সাম্মানিক করার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু প্রবেশিকা পরীক্ষায় ব্যর্থ হয়েছিলেন। এরপর ১৮৯২ সালে তিনি সেনাবাহিনীতে তালিকাভুক্ত হন। [২]এক বছর চাকরির পরে, গণিত নিয়ে পড়াশুনা করার জন্য আবার তিনি লিওঁ বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে গিয়েছিলেন এবং অবশেষে ১৮৯৪ সালে তিনি গণিতে ডিগ্রি লাভ করেন।[৩] সেই বছরেরই ডিসেম্বর মাসে, তিনি বিষয় পরিবর্তন করে রসায়নে বিভাগে চলে গিয়েছিলেন এবং অধ্যাপক ফিলিপ বার্বিয়ার (১৮৪৮-১৯২২) ও লুই বুভোল্টের (১৮৬৪-১৯০৯) সঙ্গে কাজ শুরু করেছিলেন। ত্রিমাত্রিক রসায়ন এবং এনাইন নিয়ে কাজ করার পরে, গ্রিগনারের এই বিষয়টি পছন্দ হয়নি। তিনি বার্বিয়ারকে তাঁর ডক্টরাল গবেষণার জন্য নতুন কোন দিক দেখাতে বলেছিলেন।[৪] বার্বিয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন যে ব্যর্থ সাইজেফ বিক্রিয়া ম্যাগনেসিয়াম ব্যবহার করার পরে কিভাবে জিংকের সাহায্যে সফল হয়, গ্রিগনার সেটি গবেষণা করুন। [৫][৪] তাঁরা অ্যালকাইল হ্যালাইড, অ্যালডিহাইডস, কিটোন এবং অ্যালকেন থেকে অ্যালকোহল সংশ্লেষিত করার চেষ্টা করেছিলেন।[৪] গ্রিগনার অনুমান করেছিলেন যে অ্যালডিহাইড / কিটোন ম্যাগনেসিয়ামকে অ্যালকাইল হ্যালাইডের সাথে বিক্রিয়া করতে বাধা দেয়, যেজন্য ফলন কম হয়ে যায়। তিনি প্রথমে অ্যালকাইল হ্যালাইড এবং ম্যাগনেসিয়াম গুঁড়ো নির্জল ইথারের দ্রবণে যুক্ত করে এবং তারপরে অ্যালডিহাইড / কিটোন যুক্ত করে তাঁর অনুমান সঠিক কিনা পরীক্ষা করেছিলেন। এর ফলে বিক্রিয়ার শেষে ফলনে প্রচুর বৃদ্ধি ঘটেছিল[৪]

বছর কয়েক পরে, গ্রিগনার মধ্যবর্তী অংশটি বিচ্ছিন্ন করতে সক্ষম হয়েছিলেন।[৫] তিনি ম্যাগনেসিয়াম গুঁড়ো এবং আইসোবিউটাইল আয়োডাইড গরম করেছিলেন। এরপর তিনি সেই মিশ্রণে শুকনো ইথাইল ইথার যুক্ত করে বিক্রিয়াটি লক্ষ্য করেছিলেন।[১] পণ্যটি গ্রিগনার বিকারক হিসাবে পরিচিত। তাঁর নামে নামকরণ করা এই জৈব-ম্যাগনেসিয়াম যৌগটি (R-MgX) (R = অ্যালকাইল ; X = হ্যালোজেন) সহজেই কিটোন, অ্যালডিহাইড এবং অ্যালকেনের সাথে বিক্রিয়া ঘটিয়ে তাদের নিজ নিজ অ্যালকোহল উৎপাদন করে এবং উৎপাদনের পরিমান যথেষ্ট বেশি। ১৯০০ সালে গ্রিগনার সংশ্লেষিক বিক্রিয়াটি আবিষ্কার করেছিলেন, বর্তমানে এটি তাঁর নাম (গ্রিগনার বিক্রিয়া) দিয়ে পরিচিত। ১৯০১ সালে, গ্রিগনার "থিসস সুর লেস কম্বিনাইজনস অর্গানোম্যাগনেসিয়েনেস মিক্সেট এট লিয়ার অ্যাপ্লিকেশন আ ডেস সিন্থেসেস ডি'অ্যাসাইডস, ডি'অ্যালকুলস এট ডি ডিহাইড্রোকার্বিউরস" শীর্ষক তাঁর ডক্টরাল গবেষণামূলক প্রবন্ধটি প্রকাশ করেছিলেন।[৬] ১৯১০ সালে তিনি ন্যান্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক হিসাবে যোগ দেন। ১৯১২ সালে, তিনি এবং পল সাবাতিয়ে (১৮৫৪-১৯৪১) রসায়নে নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হন।[৭]প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় তিনি রাসায়নিক যুদ্ধের অন্যতম উপাদানগুলি সম্বন্ধে জর্জেস আরবাইনের সঙ্গে সোরবোন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছিলেন। বিশেষত ফসজেন উৎপাদন এবং মাস্টার্ড গ্যাস সনাক্তকরণ নিয়ে তিনি শিক্ষালাভ করেছিলেন।[৫]১৯১৮ সালে, গ্রিগনার আবিষ্কার করেছিলেন যে মাস্টার্ড গ্যাস সনাক্তকরণে যুদ্ধক্ষেত্রে সোডিয়াম আয়োডাইড ব্যবহার করা যেতে পারে। সোডিয়াম আয়োডাইড মাস্টার্ড গ্যাসকে ডাইআয়োডোডাইইথাইল সালফাইডে রূপান্তরিত করে, যা মাস্টার্ড গ্যাসের চেয়ে সহজে স্ফটিকে রূপান্তরিত হতে পারে। এই পরীক্ষাটি দিয়ে এক ঘনমিটার বায়ুতে ০.০১ গ্রাম মাস্টার্ড গ্যাসও সনাক্ত করা যেতে পারে। যুদ্ধক্ষেত্রে তাঁর এই পরীক্ষা সফলভাবে ব্যবহৃত হয়েছিল।[৮] জার্মান পক্ষে তাঁর মত বিজ্ঞানী ছিলেন আরেক নোবেল পুরস্কার বিজয়ী রসায়নবিদ, ফ্রিৎস হেবার

গ্রিগনার বিক্রিয়া[সম্পাদনা]

গ্রিগনার, ম্যাগনেসিয়াম ব্যবহার করে কিটোন এবং অ্যালকাইল হ্যালাইড কে যুক্ত করে কার্বন-কার্বন বন্ধন তৈরির একটি নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার করার জন্য, সবচেয়ে বেশি খ্যাতিলাভ করেছিলেন।[৯] এই বিক্রিয়াটি জৈব সংশ্লেষণের ক্ষেত্রে অত্যন্ত মূল্যবান। এটি দুটি ধাপে ঘটে:

  1. "গ্রিগনার বিকারক" গঠন, এটি একটি অর্গানোম্যাগনেসিয়াম যৌগ যেটি অর্গানোহ্যালাইড R-X (R = অ্যালকাইল বা অ্যারিল এবং X হল একটি হ্যালাইড, সাধারণত ব্রোমাইড বা আয়োডাইড) এবং ম্যাগনেসিয়াম ধাতুর সাথে বিক্রিয়ার ফলে তৈরি হয়। গ্রিগনার বিকারককে সাধারণত R-Mg-X এই সাধারণ রাসায়নিক সূত্র দিয়ে বর্ণনা করা হয়, যদিও এর কাঠামো আরও জটিল।
  2. গ্রিগনার বিকারক সম্বলিত দ্রবণে, যাতে কিটোন বা অ্যালডিহাইড যুক্ত করা হয়েছে, তাতে কার্বনিল যোগ করা। ম্যাগনেসিয়ামের সাথে জড়িত কার্বন পরমাণু কার্বনিলের কার্বন পরমাণুতে স্থানান্তরিত হয়, এবং কার্বনিল কার্বনের অক্সিজেন ম্যাগনেসিয়ামের সাথে সংযুক্ত হয়ে অ্যালক্সাইড তৈরি করে। প্রক্রিয়াটি কার্বনিলের একটি নিউক্লিওফিলিক সংযোজনের উদাহরণ। সংযোজনের পরে, বিক্রিয়াজাত মিশ্রণটিকে জলীয় অ্যাসিডের সাথে মিশ্রিত করলে অ্যালকোহল উৎপন্ন হয়, এবং ম্যাগনেসিয়াম লবণগুলি পরে সরিয়ে দেওয়া হয়।

সমর কৃত্যক[সম্পাদনা]

১৮৯২ সালে বাধ্যতামূলক সামরিক পরিষেবার অংশ হিসাবে গ্রিগনার ফরাসী সামরিক বাহিনীতে যোগদান করেছিলেন। তাঁর প্রথম সময়কালের চাকরীর দুই বছরের মধ্যে তিনি কর্পোরাল পদে উন্নীত হন।[১০]১৮৯৪ সালে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়া হয় এবং পড়াশুনা এগিয়ে নিয়ে যেতে তিনি লিওঁতে ফিরে আসেন।[১০] তিনি লেজিওঁ দনর পদক লাভ করেন এবং ১৯১২ সালে নোবেল পুরস্কার অর্জনের পরে শেভালিয়ার (সম্মানিত সামরিক পদ) হয়েছিলেন।[১০] যখন প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়েছিল, গ্রিগনার কর্পোরাল পদমর্যাদায় আবার সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছিলেন।[১০] তাঁকে সান্ত্রী-দায়িত্বে রাখা হয়েছিল। সেনাধ্যক্ষকে পরিকল্পনা ও প্রশাসনের কাজে সহায়তাকারী কর্মচারীবৃন্দের নজরে না আসা পর্যন্ত তিনি সেখানে বেশ কয়েক মাস কাজ করেছিলেন।[১০] উর্ধতনের কাছ থেকে লেজিওঁ দনর পদক খুলে রাখার আদেশ পাওয়া সত্ত্বেও তিনি তাঁর পদকটি খোলেননি।[১০] গ্রিগনারকে আরও ভালভাবে দেখার পরে, সেনাধ্যক্ষ সিদ্ধান্ত নেন যে সান্ত্রী-দায়িত্বের চেয়ে গ্রিগনার গবেষণার পক্ষে আরও বেশি উপযুক্ত, সুতরাং তারা তাঁকে বিস্ফোরক বিভাগে নিয়োগ দিয়েছিল।[১০] যখন টিএনটি বিষ্ফোরকের উৎপাদন আর বাস্তবোপযোগী ছিলনা, তখন গ্রিগনারকে প্রতিষেধক বিভাগ থেকে রাসায়নিক অস্ত্রের বিভাগে স্থানান্তরিত করা হয়, তাঁর গবেষণার কারণে। শেষ পর্যন্ত গ্রিগনারকে ফরাসী সেনাবাহিনীর জন্য নতুন রাসায়নিক অস্ত্রের গবেষণা করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল।[১০]

সম্মান[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Newbold, Brian T. (অক্টোবর ২০০১)। "Victor Grignard Ancestor of Organic Synthesis"The Free Library। Canadian Chemical News। পৃষ্ঠা 25–28। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জুলাই ২০২০Victor Grignard was a brilliant French chemist who became famous at age 29 for the discovery of the organomagnesium halides and their versatility in chemical synthesis. 
  2. Wisniak, Jaime. “François Auguste Victor Grignard.” Educación Química, vol. 15, no. 4, 2018, p. 425., doi:10.22201/fq.18708404e.2004.4.66168.
  3. “The Nobel Prize in Chemistry 1912.” Nobelprize.org, www.nobelprize.org/prizes/chemistry/1912/grignard/biographical/. Accessed 18 Nov. 2018.
  4. Nye, Mary Jo. (১৯৮৬)। Science in the provinces : scientific communities and provincial leadership in France, 1860-1930। Berkeley: University of California Press। আইএসবিএন 0-520-05561-6ওসিএলসি 12081738 
  5. Hodson, Derek (ফেব্রুয়ারি ১৯৮৭)। "Victor Grignard (1871-1935)"। Chemistry in Britain23: 141–142। 
  6. "Philippe Barbier (1848–1922) and Victor Grignard (1871–1935): Pioneers of Organomagnesium Chemistry" (PDF)Synfacts14 (10): A155–A159। ২০১৮। ডিওআই:10.1055/s-0037-1609791 
  7. "The Nobel Prize in Chemistry 1912"NobelPrize.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-১৮ 
  8. Nye, Mary Jo (১৯৮৬)। Science in the Provinces। Berkeley: University of California। পৃষ্ঠা 189। আইএসবিএন 9780520055612 
  9. V. Grignard (১৯০০)। "Sur quelques nouvelles combinaisons organométalliques du magnèsium et leur application à des synthèses d'alcools et d'hydrocarbures (On some new organometallic compounds of magnesium and their application to syntheses of alcohols and hydrocarbons)"Compt. Rend.130: 1322। 
  10. Dieringer, Rachael; North, Hunter; Lewis, David (সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৮)। "Philippe Barbier (1848–1922) and Victor Grignard (1871–1935): Pioneers of Organomagnesium Chemistry" (PDF)Synform50: 156–158। 
  11. Nobel Prize in Chemistry, 1912, Victor Grignard bio notes

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • G. Bram; E. Peralez; J.-C. Negrel; M. Chanon (১৯৯৭)। "Victor Grignard et la naissance de son réactif"। Comptes Rendus de l'Académie des Sciences, Série IIB325 (4): 235–240। ডিওআই:10.1016/S1251-8069(97)88283-8বিবকোড:1997CRASB.325..235B 
  • Blondel-Megrelis M (২০০৪)। "Victor Grignard Conference and Traité de Chimie organique"। Actualité Chimique275: 35–45। 
  • Hodson, D. (১৯৮৭)। "Victor Grignard (1871-1935)"। Chemistry in Britain23: 141–2। 
  • Philippe Jaussaud (২০০২)। "Grignard et les terpènes"। Actualité Chimique258: 30। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • Symbol question.svg[[Category:Nobel Prize in {{{1}}} winners]]
including the Nobel Lecture, December 11, 1912 The Use of Organomagnesium Compunds in Preparative Organic Chemistry

টেমপ্লেট:Nobel Prize in Chemistry Laureates 1901-1925 টেমপ্লেট:1912 Nobel Prize winners