বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(ভাসানী নভো থিয়েটার থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৫′৩৫.৩৩″ উত্তর ৯০°২৩′২৮.৭৪″ পূর্ব / ২৩.৭৫৯৮১৩৯° উত্তর ৯০.৩৯১৩১৬৭° পূর্ব / 23.7598139; 90.3913167

নভোমন্ডল - ঢাকা
Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman Novo Theatre.jpg
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার
স্থাপিত২৫ সেপ্টেম্বর ২০০৩
অবস্থানবাংলাদেশ বিজয় স্বরণী এভিনিউ, তেঁজগাও, ঢাকা-১২১৫, বাংলাদেশ
ওয়েবসাইটNovoTheatre.gov.bd

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার বা ভাসানী নভো থিয়েটার বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের বিজয় সরনিতে অবস্থিত একটি স্থাপনা। এখানে নভোমন্ডল সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য এবং নভো মন্ডলের ধারণা পাওয়ার জন্য কৃত্রিম নভোমন্ডল তৈরি করা আছে। ৫.৪ একর জায়গায় স্থাপিত নভোথিয়েটারটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পরিচালনায় চলছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৯৫ সালে গৃহিত সরকারি পরিকল্পনা অনুযায়ী বাংলাদেশ সরকার এটি স্থাপনের ব্যবস্থা নেন। এর নকশা করেন তৎকালীন গণপূর্ত অধিদপ্তরের উপপ্রধান আলী ইমাম। নকশাটি ১৯৯৭ সালের ১৭ মার্চ অনুষ্ঠিত একনেকের বৈঠকে অনুমোদিত হয় এবং ২০০০ সালের ১৭ জুলাই এর নির্মাণকাজ আরম্ভ হয়। তবে প্রথমে ঢাকার আগারগাঁওয়ে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের পাশে এটি স্থাপিত হবার কথা ছিল। এর যন্ত্রপাতি স্থাপনসহ ভেতরের সব গুরুত্বপূর্ণ কারিগরী কাজ জাপানের একটি অপটিকস্ ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানি করেছে। তবে স্থাপনা নির্মাণ করেছে বাংলাদেশী মাসুদ এন্ড কোম্পানি। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যপক আলমগীর হাবিবের নেতৃত্বে একটি উপদেষ্টা কমিটি নির্মাণকাজ তদারকীতে অংশ নেয়। ২০০০ সালের ১৭ জুলাই থেকে ২০০১ সালের ৭ নভেম্বর পর্যন্ত কাজ করার পর তা বন্ধ হয় এবং পরে ২০০২ সালের মাঝামাঝি পুনরায় চালু হয়ে ২০০৩ সালের মে মাসে এর নির্মাণকাজ শেষ হয় এবং ২৫ সেপ্টেম্বর তারিখে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া তা উদ্বোধন করেন। জায়গার দাম বাদে এটির নির্মাণব্যয় ১২০ কোটি টাকা। কোনও বৈদেশিক সাহায্য ছাড়াই এটি নির্মিত হয়েছে।

স্থাপত্যশৈলী ও নকশা[সম্পাদনা]

স্থপতি আলী ইমাম এই নভো থিয়েটারটির নকশা প্রণয়ন করেন। প্রাচীণ ধ্রুপদী ও আধুনিক নির্মাণরীতির মিশ্রণ অনুসৃত হয়েছে এ নভোথিয়েটারে। সপ্তর্ষীমণ্ডলের সাতটি তারাসহ সাত সংখ্যার বিশেষ গুরুত্ব আছে জ্যোতির্বিজ্ঞানে। এরই প্রতীকী রূপায়ন হিসেবে মূল ভবনের সামনের অংশে দুইপাশে সাতটি করে মোট ১৪টি ফ্রি হাইট রোমান কলাম আছে যার উচ্চতা ৪০ ফুট। ৩২ মিটার ব্যসার্ধ বিশিষ্ট মূল ডোমটির উচ্চতা ৫ তলার সমান। এতে আছে একটি স্পেস থিয়েটার গেম (২৭৫ আসন), একটি রাইড সিমুলেটর (৩০ আসন), চলচ্চিত্র ও স্লাইড প্রদর্শন সুবিধাসহ সম্মেলন কক্ষ প্রভৃতী। নভোথিয়েটারের তিনটি তলা মাটির নিচে এবং দুইটি তলা মাটির উপরে। প্রতিবন্ধীদের জন্য পূর্বদিকে রয়েছে আলাদা সিঁড়ি আর মাটির নিচের দুটি তলায় রয়েছে বিশ্বের সেরা বিজ্ঞানীদের পরিচিতি এবং আলোকচিত্র।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • ঢাকায় নভোথিয়েটার - আশিক উর রহমান শুভ। দৈনিক জনকণ্ঠ। ৮ অক্টোবর, ২০০৪।
  • ঢাকা নভোথিয়েটার স্বপ্নময় বাস্তবের জগৎ - হামিদুল ইসলাম। কিশোর কণ্ঠ। সেপ্টেম্বর - ২০০৪। পৃষ্ঠা - ১৪।