ভক্তি রক্ষক শ্রীধর দেব গোস্বামী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভক্তি রক্ষক শ্রীধর দেব গোস্বামী
Sridhara-deva-goswami.jpg
উপাধিশ্রী চৈতন্য সারস্বত মঠ এর প্রতিষ্ঠাতা
ব্যক্তিগত
জন্ম
রমেন্দ্র চন্দ্র দেব শর্মা ভট্টাচার্য

(১৮৯৫-১০-১০)১০ অক্টোবর ১৮৯৫
মৃত্যু৮ ডিসেম্বর ১৯৮৮(১৯৮৮-১২-০৮)
সমাধিনবদ্বীপ
ধর্মগৌড়ীয় বৈষ্ণব, হিন্দু
জাতীয়তাভারতীয়
অন্য নামভক্তি রক্ষক শ্রীধর দেব গোস্বামী,রমেন্দ্র চন্দ্র দেব শর্মা ভট্টাচার্য
ঊর্ধ্বতন পদ
কাজের মেয়াদ১৮৯৫-১৯৮৮
পূর্বসূরীভক্তিসিদ্ধান্ত সরস্বতী ঠাকুর
দীক্ষাদীক্ষা–১৯২৬, সন্ন্যাস–১৯৩০
পদগুরু, সন্ন্যাসী, আচার্য
ওয়েবসাইট[১]

ভক্তি রক্ষক শ্রীধর দেব গোস্বামী ১৮৯৫ সালের ১০ অক্টোবর ব্রিটিশ ভারত এর বাংলার বর্ধমান জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।১৯৮৮ সালের ১২ আগস্ট পশ্চিমবঙ্গের নবদ্বীপের মায়াপুরে তার মৃত্যু হয়।তিনি গৌড়ীয় বৈষ্ণবধর্ম ধর্মীয় নেতা, গুরু ,ধর্মতত্ত্ববিদ এবং লেখক। [১] ভক্তিসিদ্ধান্ত সরস্বতী তার গুরু ও ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদ তার বড় আধ্যাত্মিক ভ্রাতা্র।তিনি শ্রী চৈতন্য সারস্বত মঠ এর প্রতিষ্ঠাতা।

বংশ[সম্পাদনা]

পিতা উপেন্দ্র চন্দ্র দেব শর্মা ভট্ট‌াচার্য‌ বিদ্যারত্ন ও মাতা গৌরী দেবী বালা। পিতা ছিলেন ব্রাহ্মণ পরিবারে রাজর্ষি গোত্রের। মায়ের পরিবারও কঠোর ব্রাহ্মণ ছিল।শ্রীধর গোস্বামী ছাড়াও, তার পরিবারে আরও দুটি ছেলে ছিল, তাদের নাম শ্রী মনি বাবু এবং শ্রী অমর বাবু।জউব

শিক্ষা ও যৌবন[সম্পাদনা]

পূর্বপুরুষদের প্রতিনিধি হিসাবে প্রাথমিকভাবে প্রতিনিধি হিসাবে প্রাথমিকভাবে ধর্মীয় পূজা ও উৎসর্গের এবং অন্যান্য বিষয়ে তারা জড়িত ছিলেন। তাদে মধ্যে করত।তাদের সংস্কৃত চর্চা ছিল।শৈশব থেকেই তার শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর উপর  আধ্যাত্মিক আস্থা ছিল। তিনি স্বাভাবিক ভাবে নাম-সংকীর্ত‌নের প্রতি আকৃষ্ট ছিলেন।

রমেন্দ্র ভট্টাচার্য ব্রিটিশ রাজ্যের ঔপনিবেশিক শিক্ষা ব্যবস্থার অধীনে অধ্যয়ন করেন। ১৫ বছর বয়সে তিনি সংস্কৃত ভাষায় শ্লোক লিখতে শিখেছিলেন। হাপানিয়ার প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে স্নাতক করার পর,তিনি অকার্সের হাই স্কুলে তার শিক্ষা অব্যাহত রাখেন।

তার বাবার মৃত্যুর পরে তিনি বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দেন (যদিও পরে তিনি বলেছিলেন যে অভ্যন্তরীণভাবে তিনি তা করতে আগ্রহী ছিলেন না)।চরম দারিদ্র্যের মাঝে বেশ কয়েক বছর ধরে তিনি ক্ষেতে কাজ এবং গরু দেখাশোনা সহ পরিবারের বাকিদের খেয়াল রেখেছিলেন।১৯২০ সালে (২৪ বছর বয়সে) তিনি বিয়ে করেন।তিনি তার গ্রাম ও তার পরিবারকে ছেড়ে যান ও কলকাতায় বসবাস করেন (বাংলার রাজধানী)। যেখানে তিনি সরকারি অফিসে চাকরি পান। ছয় বছর ধরে তিনি কৃষ্ণনাথ কলেজ, বহরমপুর (মুর্শি‌দাবাদ জেলা)(বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয়ের সমতুল্য)তে আইন অধ্যয়ন করেন। সেখানে তিনি ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে একটি আন্দোলন করেন।স্বাধীনতা সংগ্রামে তিনি খুব আগ্রহী ছিলেন। তিনি দর্শনে স্নাতক ডিগ্রী (দর্শনশাস্ত্রে স্নাতক ডিগ্রি স্নাতক) সহ একটি আইন ডিগ্রী পান।

আধ্যাত্মিক জীবন[সম্পাদনা]

সমস্ত বছর তিনি ভারতের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ, ভগবত পুরাণে, রামায়ণ, মহাভারত, উপনিষদ, ইত্যাদির গভীর অধ্যয়ন করেন । ১৯২৬ সালে, যখন কলকাতায় বাস করতেন তখন গুরু ভক্তিসিদ্ধান্ত সরস্বতীর সাথে তার দেখা হয়। সেই বছরেই তার স্ত্রী হঠাৎ মারা যান। শ্রী গৌড়ীয় মঠের সাথে তার প্রথম যোগাযোগ হয়েছিল ১৯২৩ সালে।১৯২৭ সালে তিনি গৌড়ীয় মঠের পূর্ণ সদস্য নির্বাচিত হন।

তিনি ১৯২৬ সালে তার গুরু, শ্রী ভক্তি সিদ্ধান্ত সরস্বতী গোস্বামী প্রভুপাদের কাছে নিজেকে সম্পূর্ণরূপে সমর্পণ করেছিলেন। ১৯৩০ সালে তার গুরু তাকে তার সন্ন্যাস দেন ।তিনি তাকে ভক্তি রক্ষক (ভক্তের অভিভাবক) নাম ও ত্রিদন্ডি-সন্ন্যাস নাম "শ্রীধর" দেন । তিনি সমগ্র ভারতে শ্রী গৌড়ীয় মঠের প্রতিষ্ঠা, সংগঠন ও প্রচারে বিশিষ্ট ভূমিকা রাখেন।তিনি বিশ্ববিদ্যালয়, পাবলিক সেমিনার এবং সংকীর্ত‌ন উৎসবগুলিতে বহু স্তরে শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভুর শিক্ষাকে ছড়িয়ে দেন বাঙালি, হিন্দি, সংস্কৃত এবং ইংরেজিতে ।কলকাতায় (বাংলার রাজধানী) প্রচার করার সময় তিনি এক গুরু ভাইয়ের ঘরের ছাদে থাকতেন, যেখানে তিনি ছোট প্রচার কেন্দ্র স্থাপন করেছিলেন। সেই গুরু ভাই অভয়চরণ দে ছিলেন, যিনি ত্রিশ বছর পরে কৃষ্ণবাদের ইতিহাসে সর্বাধিক সফল প্রতিষ্ঠান ইসকন প্রতিষ্ঠা করেন।

শ্রীল শ্রীধর মহারাজ সংস্কৃত ও বাংলাতে বহু অনন্য আধ্যাত্মিক প্রার্থনা ও ভাষ্য রচনা করেছিলেন, যা বৃন্দাবনের বিখ্যাত গোস্বামীদের মত এক ভক্তিমূলক স্তর প্রকাশ করেছিল।শ্রী ভক্তি সিদ্ধান্ত সরস্বতী প্রভুপাদ শ্রীল শ্রীধর মহারাজের সংস্কৃত রচনা, শ্রী ভক্তবিনোদ বিরহ দশকমের উচ্চ প্রশংসা প্রকাশ করেছেন, এটি বিবেচনা করে যে এতে গৌড়ীয় সম্প্রদায়ের আদর্শ ও মর্যাদা পুরোপুরি সঠিক এবং সংবেদনশীল হিসাবে প্রচারিত হবে ।

এই সত্যের সাক্ষ্য হিসাবে, শ্রী ভক্তি সিদ্ধান্ত সরস্বতী ঠাকুর এই প্রাণবন্ত জগৎ থেকে প্রস্থান করার পূর্বে নিজে উপস্থিত থেকে শ্রীল শ্রীধর মহারাজ দিয়ে গান করাতেন । সমগ্র পবিত্র প্রার্থনা শ্রী রূপ মঞ্জরী পদ ,গৌড়ীয় বৈষ্ণব সম্প্রদায়ের শ্রদ্ধা পেয়েছিল।আশ্চর্যজনক ছিল যে তিনি আন্তর্জাতিক ভাষাগুলিতে তার চিন্তাধারা উপস্থাপন করার বিশেষ দক্ষতা অর্জন করেছিলেন। তার পবিত্র শিক্ষা অনেক বই আকারে প্রকাশিত হয়েছে।তার কাজ বিশ্বব্যাপী পণ্ডিত, দার্শনিক, এবং ভক্তদের দ্বারা বিশুদ্ধ বৈষ্ণববাদের রত্ন হিসাবে অভিহিত করা হয়। তিনি ঐশ্বরিক আত্মসমর্পণ বিষয়ক একটি সংস্কৃত ভক্তিমূলক গ্রন্থ শ্রী শ্রীপ্রপন্ন জীবনমানরম রচনা করেছিলেন। যা সর্বত্র ভক্তদের জন্য আদর্শ পাঠ্যপুস্তক হয়ে উঠেছে।

শ্রী ভক্তি সিদ্ধান্ত সরস্বতী ঠাকুরের মৃত্যু[সম্পাদনা]

শ্রী ভক্তি সিদ্ধান্ত সরস্বতী ঠাকুরের মৃত্যুর পর তিনি গুরুভ্রাতা, সহযোগী ও জনসাধারণের কাছ থেকে শ্রী গৌড়ীয় সম্প্রদায়ের বয়জ্যেষ্ঠ প্রতিনিধিত্বকারী হিসেবে স্বাভাবিকভাবে শ্রদ্ধা পান। যদিও শ্রীধর মহারাজ নিজেই নিজেকে নামবিহীন নম্র বৈষ্ণব বলে অভিহিত করেছিলেন।কিন্তু পরে অনেক মতবিরোধ ও বিতর্ক দেখা দেয়।তিনি গৌড়ীয় মঠ ছাড়েন। [২]

শ্রী চৈতন্য সারস্বত মঠ[সম্পাদনা]

ঐশ্বরিক কর্তব্য ও ঐশ্বরিক অনুপ্রেরণার আহ্বান দ্বারা তিনি শ্রীনবদ্বীপ ধামে শ্রী চৈতন্য সারস্বত মঠ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। একটি সংক্ষিপ্ত সংস্কৃত শ্লোকের মধ্যে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে, মঠ - একটি পবিত্র স্থান। যেখানে তার গুরুদেব, শ্রী রূপ ,শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর পবিত্র বার্তা প্রচারিত হয়েছিল ।যা আনুষ্ঠানিক সত্য,দেবত্বের নিখুঁত ও পবিত্র অনুসন্ধানকারীদের মধ্যে বিশ্বব্যাপী বিখ্যাত হয়ে উঠবে।

তার আশি বছর বয়সে কেবলমাত্র ভারতীয় নয়, আমেরিকা, ইউরোপ ও বিশ্বব্যাপী ব্যক্তিরা শ্রীল শ্রীধর মহারাজের শিক্ষা ও ব্যক্তিত্বের দ্বারা আকৃষ্ট হন। তিনি সাধারণ এক বিশুদ্ধ সন্ত হিসাবে পরিচিত ছিল। তিনি সম্মানিত এবং তার সন্তষ্টতা, সরলতা, তার স্নেহপূর্ণ প্রকৃতির জন্য তাকে পছন্দ করা হয়।তার প্রথমের দিকে প্রকাশিত গ্রন্থগুলিতে সিদ্ধান্তের প্রতীক হয়ে ওঠেন।

শ্রীরাম শ্রীধর মহারাজের টেপ ভাষণের একটি বিশাল অংশ তার শিষ্যদের দ্বারা সংকলিত করা হয়েছে।রেকর্ডিংগুলি থেকে ইংরেজি বই - শ্রী কৃষ্ণের অনুসন্ধান, শ্রী গুরু ও তার অনুগ্রহ,ঐশ্বরিক প্রেমের স্বর্ণ আগ্নেয়গিরি, হারিয়ে যাওয়া দাসের জন্য প্রেমের সন্ধান ও শ্রীল শ্রীধর মহারাজের "শ্রীমদ ভগবত গীতা:দি হিডেন ট্রেজার অব সুইট এবসলিউট" এর ব্যাখ্যা এবং ব্যাখ্যা - এবং অন্যান্য অনেক বই প্রকাশিত হয়েছে। আরো অনেক প্রকাশনা এছাড়াও প্রত্যাশিত হয়।

১৯৮৮ সালের ১২আগস্ট শ্রীল ভক্তি রক্ষক শ্রীধর দেব গোস্বামী মহারশ্নের নবদ্বীপে পরলোক গমন করেন।পরে সেখানে শ্রী চৈতন্য সারস্বত মঠ সমাধি মন্দির নির্মাণ করে।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. নতুন ধর্মীয় আন্দোলনের ভবিষ্যৎমার্সার ইউনিভার্সিটি জি ব্রোমলি, ফিলিপ ই হ্যামন্ড। ১৯৮৭। 
  2. "paramakaruna.org.ve"www.paramakaruna.org.ve। ২০১৮-০৬-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-১৪ 
  3. "Srila Sridhar Dev-Goswami Maharaj"www.scsmath.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-১৪