বিশেষ আবহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
ভিয়েনাতে একটি নির্দিষ্ট সময়ের নাটকের পটভূমি হিসেবে একটি সবুজ পর্দা ব্যবহার করে, পোস্ট-প্রোডাকশনের সময় পটভূমিতে অন্যকিছু যোগ করা জন্য এটি করা হয়।
সাদারণত ক্রোমা কি বিশেষ আবহে নীল পর্দা ব্যবহৃত হয়

বিশেষ আবহ (ইংরেজি: Special effects) (সংক্ষেপে এসএফএক্স, এসপিএফএক্স বা সহজভাবে এফএক্স) হচ্ছে সিনেমা, টেলিভিশন, নাটক, ভিডিও গেম এবং সিমুলেটর শিল্পে ছদ্মবেশ ধারণ করে একটি গল্পের ঘটনা বা ভার্চুয়াল দুনিয়া সৃষ্টিতে যে বিভ্রম বা চাক্ষুষ কৌশল ব্যাবহার করা হয়।

বিশেষ আবহগুলো অপটিক্যাল প্রভাব এবং যান্ত্রিক প্রভাব এই দুই ভাগে বিভক্ত। ডিজিটাল সিনেমার উত্থানের সাথে সাথে বিশেষ আবহ এবং প্রকৃত আবহের মাঝে প্রভেদ বেড়েছে, এরই সাথে আধুনিক ডিজিটাল পোস্ট প্রোডাকশনে "বিশেষ আবহ" অপটিক্যাল প্রভাব এবং যান্ত্রিক প্রভাব সাথে সম্পর্কযুক্ত হয়েছে।

যান্ত্রিক প্রভাব (ব্যাবহারিক বা ভৌত প্রভাব বলেও ডাকা হয়) সাধারণত লাইভ-অ্যাকশন শুটিংয়ের সময় সম্পন্ন হয়। এর মধ্যে রয়েছে যান্ত্রিক প্রপোজ, সিনারি, স্কেল মডেল, অ্যানিমেট্রনিকস, পাইরোটেকনিক্স এবং বায়ুমণ্ডলীয় প্রভাব: বাস্তব বাতাস, বৃষ্টি, কুয়াশা, তুষার, মেঘ ইত্যাদি তৈরি করা। একটি গাড়ী নিজেকে নিজে চালিত করছে এমন রূপ দেয়া এবং একটি বিল্ডিংকে উড়িয়ে দেয়া এসব হচ্ছে যান্ত্রিক প্রভাবের উদাহরণ। যান্ত্রিক প্রভাব প্রায়ই সেট ডিজাইন এবং মেকআপ মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, একটি দৃশ্যে যুদ্ধক্ষেত্র প্রবলতর করার জন্য দরজা বা দেয়াল বিচ্ছিন্ন করা হয়ে থাকে, অথবা একজন অভিনেতাকে একটি অ-মানব জীবের মতো তৈরি করতে প্রস্থেটিক মেকাপ ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

অপটিক্যাল প্রভাব (ফোটোগ্রাফিক প্রভাব নামেও ডাকা হয়) এমন এক কৌশল, যেখানে চিত্র বা ফ্লিম ফ্রেমগুলো ফটোগ্রাফিকভাবে তৈরি করা হয়, ক্যামেরায় একাধিক এক্সপোজার, ম্যাটেস ব্যাবহার করা হয় অথবা স্কুফ্টন প্রসেস বা পোস্ট-প্রোডাকশনে অপটিক্যাল প্রিন্টার ব্যবহার করে। অপটিক্যাল প্রভাব ব্যাবহার করে একটি ভিন্ন ব্যাকগ্রাউন্ডে অভিনেতাকে উপস্থাপন বা সেট স্থাপন করা যায়।

১৯৯০ এর দশক থেকে কম্পিউতার-উদ্ভূত চিত্রাবলী (কম্পিউটার জেনারেটেড ইমেজারি - জিসিআই) সম্পুর্ণভাবে বিশেষ আবহ প্রযুক্তির অধীনে চলে এসেছে। প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে এটি চলচ্চিত্র নির্মাতাদেরকে স্বল্প খরচে আরও নিয়ন্ত্রণ এবং বিভিন্ন প্রভাবকে আরো নিরাপদে এবং দৃঢ়ভাবে সম্পন্ন করতে সক্ষম করেছে। ফলস্বরূপ, অনেক অপটিক্যাল এবং যান্ত্রিক প্রভাব কৌশল জিসিআই দ্বারা স্থানান্তরিত হয়েছে। মেরি, স্কটিশ রানী, শিরোনাম একটি reenactment ফিল্ম যখন, ক্লার্ক মেরি এর পোশাকে ব্লক পর্যন্ত পদক্ষেপ একটি অভিনেতা নির্দেশ।

উন্নয়নের ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৫৭ সালে অস্কার রেজেন্ডার ৩০ টি নেগেটিভের বিভিন্ন অংশ একটি একক ইমেজ মধ্যে সংযুক্ত করে বিশ্বের প্রথম "বিশেষ প্রভাব" চলচ্চিত্র তৈরি করেন। এটি একটি কোলাজ সমন্বয় মুদ্রণ ছিল। ১৮৯৫ সালে অ্যালফ্রেড ক্লার্ক প্রথমবারের মতো বিশেষ আবহ দিয়ে গ্রহণযোগ্য গতিশীল ছবি তৈরী করেছিলেন। একটি চলচ্চিত্রে স্কটিশ রানী মেরির শিরঃচ্ছেদের দৃশ্য পুনরাবৃত্তি করতে, ক্লার্ক একজন অভিনেতাকে মেরির পোশাকে ব্লকটিতে বারবার যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছিলেন। জল্লাদ যখন মাথায় করে কুড়াল নিয়ে আসছিলো তখন ক্লার্ক ক্যামেরা বন্ধ করে দিয়েছিল এবং সব অভিনেতা স্থির হয়ে গিয়েছিল। আর যিনি মেরির অভিনয় করছিলেন, তাকে সেট থেকে সরিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি অভিনেতার জায়গায় মেরির অনুরূপ একটি পুতুল স্থাপন করে নতুনভাবে চিত্রগ্রহণ শুরু করেন এবং পুতুলের মাথা কাটার জন্য জল্লাদকে তখন কুড়াল আনতে বলেন। এই ধরণের কৌশল এক শতাব্দী ধরে বিশেষ আবহ সৃজন শাসন করেছিল।[১]

সিনেমায় এই চাতুরতা ব্যবহারে এটিই শুধু প্রথমই ছিল না, এটি চলমান ছবির প্রথম ফোটোগ্রাফিক চাতুরি ছিল, যেমন "স্টপ ট্রিক"। জর্জ মেলিয়েস ঘটনাক্রমে একই "স্টপ ট্রিক" আবিষ্কার করেছিলেন। মেলিয়েস অনুযায়ী, প্যারিসে রাস্তার দৃশ্য চিত্রগ্রহণের সময় তার ক্যামেরা কাজ করছিল না। যখন তিনি চলচ্চিত্রটি দেখেন, তিনি "স্টপ ট্রিকটি" আবিস্কার করেন, যেখানে একটি পথচারীদের দিক পরিবর্তন করতে এবং পুরুষদের মহিলাদের মাঝে নিয়ে যেতে একটি ট্রাক শবযানে রুপান্তরিত হয়েছিল। থিয়েটার রবার্ট-হাউডিনের মঞ্চ ব্যবস্থাপক মেলিয়েস ১৯১৪-এর মধ্যে ৫০০ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ধারাবাহিক গড়তে অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন, এই পদ্ধতিতে একাধিক এক্সপোজার, টাইম-ল্যাপ আলোকচিত্ৰবিদ্যা, দ্রবীভূত এবং হাতে আঁকা রং এর কৌশল উদ্ভাবন বা উন্নয়ন করেছিলেন। চলচ্চিত্রক্ষেপক ব্যাবহার করে নিপূণভাবে তার এই রূপান্তর করার দক্ষতার কারণে উর্বর মেলিয়েসকে অনেক সময় "সিনেম্যাজিশন" হিসেবে উল্লেখ হয়। তার সবচেয়ে বিখ্যাত চলচ্চিত্র এ ট্রিপ টু দ্যা মুন (১৯০২), জুলস ভার্নিসের ফ্রম দ্যা আর্থ টু মুন এর অদ্ভুত প্যারোডি ছিল। যাতে জীবন্ত দৃশ্য এবং এনিমেশনের সমন্বয় ঘটেছিল এবং ব্যাপকভাবে ক্ষুদ্রকায় এবং ঔজ্বল্যহীন অঙ্কন কাজের সংঘবদ্ধ করেছিল।

১৯১০ থেকে ১৯২০ পর্যন্ত বিশেষ আবহের প্রধান উদ্ভাবন ছিল নরটন ডন কর্তৃক ম্যাট শটের উন্নতি। মূল ম্যাট শট সঙ্গে, কার্ডবোর্ড টুকরা ফিল্ম রাখা হয়েছিল এক্সপোজারকে বাধা দেয়ার জন্য, যা পরে প্রকাশিত হত। ডন "গ্লাস শট" এর সাথে এর সমন্বয় করেছিলেন। ফিল্ম এক্সপোজার নির্দিষ্ট জায়গায় বাধাগ্রস্থ করার জন্য কার্ডবোর্ড ব্যবহার করার পরিবর্তে, ফিল্ম থেকে প্রকাশিত আলো প্রতিরোধ করার জন্য ডন কেবল কিছু অংশে কালো প্রলেপ দিয়েছিলেন। আংশিকভাবে উন্মুক্ত ফিল্ম থেকে একটি ফ্রেম চিত্রফলকের উপরে তখন অভিক্ষিপ্ত হয়, সেখানে তখন ম্যাট টানা হয়। ফিল্ম থেকে সরাসরি একটি ছবি নিয়ে ম্যাট তৈরির মাধ্যমে সঠিক মাপ ও দৃশ্যানুযায়ী একটি আঁকা অবিশ্বাস্যভাবে সহজ হয়ে যায়। সহজাত ছবি নির্মিত হওয়ার কারনে, ডন এর কৌশল ম্যাট শট জন্য পাঠ্যপুস্তকের মত হয়ে উঠে।

১৯২০ এর দশক থেকে ১৯৩০ এর দশকের মাঝের এই সময়টাতে বিশেষ আবহ কৌশলগুলো চলচ্চিত্র শিল্প দ্বারা উন্নত এবং পরিশীলিত হয়েছিল। সাফটান পদ্ধতির মত অনেক পদ্ধতি রঙ্গশালায় এবং স্থির ছবিতে (যেমন ডবল এক্সপোজার এবং ম্যাট কম্পোজিটিং) অক্ষিবিভ্রমে ভিন্ন মাত্রা যোগ করেছিল। রঙ্গশালায় অংকিত পটভুমির পরিমার্জিত ছিল পশ্চাৎ অভিক্ষেপ, চলন্ত ছবি বদলের মাধ্যমে পরিবর্তনশীল পটভূমি তৈরি হত। মুখের অবয়বের ছাঁচ প্রচলিত মুখোশের আদলে করা হয়েছিল। মেকাপের উন্নতির সাথে সাথে চৎকার অনেক মুখোশ নির্মিত হয়েছিল, যা অভিনেতাদের সাথে সুন্দরভাবে মানিয়ে যেত। বস্তুগত বিজ্ঞানের উন্নতির সাথে সাথে ভৌতিক সিনেমার মুখোশও সেভাবে উন্নতি লাভ করেছে।

খুব দ্রুতই "স্টপ ট্রিক" এর মত কিছু কৌশল উন্নতি লাভ করে, যা গতিসম্পন্ন ছবিতেও বাস্তবের মতই ছিল। অ্যানিমেশনে অঙ্কন (এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল উইসর ম্যাক এর গার্টি দ্যা ডাইনোসর) এবং ত্রিমাতৃক ছাঁচ (এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল উইলিস ও'ব্রায়েন এর চলচ্চিত্র দ্যা লস্ট ওয়ার্ল্ড ও কিং কং) এর সমন্বয় ঘটিয়ে চলমান বিভ্রম সৃস্টি করা হত। অনেক স্টুডিও নিজেদের "বিশেষ আবহ" বিভাগ খুলেছিল, যেগুলো গতময় ছবির সম্ভাব্য সকল কৌশল পরিপ্রেক্ষিত নির্নয়ের জন্য দায়বদ্ধ ছিল।

এছাড়া দৃশ্য নকল করা বা ছদ্মবেশ ধারণ করার এই প্রতিযোগিতা ক্ষুদ্র প্রতিরূপ ব্যাবহারকে আরও উন্নত করে উৎসাহিত করেছিল। নৌবাহিনীর যুদ্ধ স্টুডিওতে মডেলের মাধ্যমে চিত্রিত করা যেত। জীবন ও অঙ্গের ঝুঁকি ছাড়াই ট্যাংক এবং উড়োজাহাজ উড়ানো (এবং ধ্বংস) করা যেত। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে ক্ষুদ্র প্রতিরূপ এবং চিত্র দিয়ে পৃথীবিতে অস্তিত্ব নেই এমন কিছুও দৃশ্যায়ন করা সম্ভব হত। ফ্রিটস ল্যাং এর মেট্রোপুলিশ, ক্ষুদ্র প্রতিরূপ, ম্যাট পেইন্টিং, স্কুফ্টান প্রক্রিয়া এবং জটিল মিশ্রণের উদ্ভাবনী ব্যবহারে তৈরি গোড়ার দিকের দর্শনীয় বিশেষ আবহ এর চলচ্চিত্র ছিল।

অপটিক্যাল প্রিন্টার বিশেষ আবহ ফোটোগ্রাফির জন্য ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্ভাবন। মূলত, অপটিক্যাল প্রিন্টার হচ্ছে এক ধরণের প্রজেক্টর, যা ক্যামেরার লেন্সের দিকে তাক করানো থাকে এবং ফিল্মের প্রতিলিপি তৈরীর জন্য এটিকে বিকশিত করা হয়েছিল।

লিনউইড জি ডান অপটিক্যাল প্রিন্টারের ডিজাইন এবং ব্যবহারকে পরিশীলিত করার আগ পর্যন্ত আবহ শটগুলি ক্যামেরার আবহ হিসাবে সম্পাদিত হয়েছে। ডান দেখান যে এটি উপন্যাসের মত করে চিত্রগুলিকে একত্রিত করতে এবং নতুন বিভ্রম তৈরিতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

রঙিন যুগ[সম্পাদনা]

রঙিন ফটোগ্রাফির উন্নয়ন, আবহ কৌশলগুলির অধিকতর উন্নয়নের জন্য অবশ্যক ছিল। এটি নীল পর্দার হিসেবে ভ্রাম্যমান ম্যাট এবং সোডিয়াম বাষ্প প্রক্রিয়ার উন্নতির দ্বার উন্মোচন করেছিল। অনেক চলচ্চিত্র বিশেষ আবহ ব্যবহারের ক্ষেত্রে ল্যান্ডমার্ক হয়ে ওঠে। ফরবিডেন প্ল্যানেট সিনেমায় দর্শনীয় এলিয়েন পরিবেশ তৈরি করতে ম্যাট পেইন্টিং, অ্যানিমেশন এবং ক্ষুদ্র প্রতিরূপের ব্যবহার করা হয়েছিল। দ্যা টেন কমান্ডমেন্টস এ প্যারামাউন্টের জন পি ফুলটন, এএসসি যত্নশীল কম্পোজিটিং এর মাধ্যমে জনাকীর্ণ দৃশ্যে ভীড়কে কয়েক গুণ দেখানো, রামসেস এর মডেল ব্যবহার করে সেটির বৃহদায়তন এবং স্থির-চিত্তাকর্ষক ভ্রাম্যমান ম্যাট এবং জল ট্যাংক এর সমন্বয় ঘটিয়ে লোহিত সাগর বিভক্ত করেছিলেন। রে হ্যারিহাওসেন জ্যাসন এন্ড আর্গোনাটস এ দর্শনীয় কাল্পনিক অভিযান দৃশ্যায়নে বিশেষ কৌশল ব্যবহার করে স্টপ-মোসন এর ব্যাপ্তি বৃদ্ধি করেছিলেন (যার ক্লাইম্যাক্সে ছিল সাতটি অ্যানিমেটেড কঙ্কালের একটি তলোয়ার যুদ্ধ, যা বিশেষ আবহের জন্য একটি মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হয়)।

বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর বিকাশ[সম্পাদনা]

১৯৫০ ও ১৯৬০ এর দশকে অনেকগুলি নতুন বিশেষ আবহ তৈরি হয়েছিল, যা বৈজ্ঞানিক কল্পসাহিত্য চলচ্চিত্রগুলিকে বাস্তবসম্মতভাবে উপস্থাপন করার হার নাটকীয়ভাবে বৃদ্ধি করে।

যদি একটি সিনেমার কথা বলা হয় যেটি বিশেষ আবহ এর জন্য নতুন উচ্চাশা উচ্চাশা তৈরী করেছিল, সেটি হবে ১৯৬৮ সালের ২০০১: আ স্পেস অডিসি (চলচ্চিত্র)। যেটি পরিচালনায় ছিলেন স্ট্যানলি কুবরিক, যিনি প্রতিষ্ঠানের আভ্যন্তরীণ আবহ ইউনিট ব্যবহার করার পরিবর্তে নিজের আবহ টিম (ডগলাস ট্রাম্বল, টম হাওয়ার্ড, কন পেডারসন এবং ওয়ালি ভিভার্স) কে কাজের জন্য একত্রিত করেছিলেন। এই সিনেমায় মহাকাশযানের ক্ষুদ্র আবয়বগুলি অত্যন্ত বিশদভাবে ছিল এবং বাস্তবীয় গভীরতা আনয়নের জন্য অনেক যত্নসহকারে চিত্রগ্রহণ করা হয়েছিল। সঠিকভাবে ক্যামেরাতে উপাদানগুলি নিশ্চিতভাবে যুক্ত করার জন্য মহাকাশযানের শটগুলিতে হাতে-টানা রোটস্কোপিং এবং যত্নশীল গতি-নিয়ন্ত্রণ কাজের সমন্বয় ঘটানো হয়েছিল। যা ছিল দৃস্টিনন্দন ফলাফলের সাথে নীরব যুগে একটি বিস্ময়কর প্রত্যাবর্তন। "ডন অব ম্যান" এর পটভূমিতে আফ্রিকান ভিসটাসের দৃশ্যগুলো নতুন সম্মুখ প্রজেশন কৌশলের মাধ্যমে সাউন্ডস্টেজ ফোটোগ্রাফির সাহায্যে সমন্বয় ঘটানো হয়েছিল। ওজনহীনতা দৃশ্য তগ্রহণের জন্য মঞ্চের সাথে লুক্কায়িত তার, মিরর শট এবং বড় স্কেলে ঘূর্ণমান সেট তৈরি করা হয়েছিল। পরিশেষে হেলুসিনোজেনিক মঞ্চসজ্জার মাধ্যমে সমুদ্রযাত্রার দৃশ্য ডাল্লাস ট্রাম্বল কর্তৃক একটি নতুন কৌশল স্লিট-স্ক্যান ব্যবহারের মাধ্যমে দৃশ্যায়িত হয়েছিল।

১৯৭০ এর দশকে বিশেষ প্রভাব বাণিজ্য দুটি বনিগূঢ় পরিবর্তন আসে। প্রথমটি ছিল অর্থনৈতিকঃ ১৯৬০ এর দশকের শেষের দিকে এবং ১৯৭০ এর দশকের গোড়ার দিকে শিল্পের মন্দার সময়, অনেক স্টুডিও তাদের প্রতিষ্ঠানের আভ্যন্তরীণ আবহ ঘর বন্ধ করে দেয়। অনেক যন্ত্রবিৎ ফ্রিল্যান্সার হয়েছিলেন বা তাদের নিজস্ব প্রভাব কোম্পানিগুলি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, কখনও কখনও বিশেষ কৌশল (আলোকিক, অ্যানিমেশন ইত্যাদি) এর উপর বিশেষজ্ঞ হয়েছিলেন।

দ্বিতীয়টি ১৯৭৭ সালের দুটি বৈজ্ঞানিক কল্পসাহিত্য এবং কাল্পনিক ছায়াছবির ব্লকবাস্টার সাফল্যের ফলে উদ্ভূত হয়েছিল। জর্জ লুকাস এর স্টার ওয়ার্স বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী চলচ্চিত্রে ব্যয়বহুল এবং চিত্তাকর্ষক বিশেষ আবহে নতুন যুগের সূচনা করেছিল। আবহ অধীক্ষক জন ডাইক্স্ট্রা, এএসসি এবং কর্মীবৃন্দ বিদ্যমান আবহ প্রযুক্তির অনেক উন্নতি এনেছিলেন। তারা একটি কম্পিউটার-নিয়ন্ত্রিত "ডিকস্টফ্লেক্স" নামক একটি ক্যামেরা রিগ তৈরি করেছিলেন, যা ক্যামেরা মোডের সুনির্দিষ্ট পুনরাবৃত্তি করতে পারতো, ভ্রমণ-ম্যাট সংমিশ্রণকে ব্যাপক সুবিধা আনতে পেরেছিল। ফিল্ম ইমেজ সংমিশ্রণের অবনতির হার অন্য উদ্ভাবক কর্তৃক প্রশমিত হয়েছিলঃ ডিকস্টফ্লেক্স ভিস্তাভিশন ক্যামেরা ব্যবহার করেছিল, যেটি ফ্রেম প্রতি ফিল্ম অনেক বেশি ব্যবহার করে অনুভূমিকভাবে স্টক সহ প্রশস্ত পর্দার ছবি তুলতে পেরেছিল এবং এতে কম্পোজিটিং প্রক্রিয়াতে পাতলা-ইমালসন ফিল্মস্টক্স ব্যবহার করা হয়েছিল। লুকাস এবং ডডাইক্স্ট্রা এর নেতৃত্বে আবহ যন্ত্রবিদদের একটি দল শিল্পজাত জ্যোতি এবং ইন্দ্রজালের জন্য প্রসিদ্ধ ছিল এবং ১৯৭৭ সাল থেকে বেশিরভাগ আবহ উদ্ভাবনে আগ্রগামী ভূমিকা পালন করেছিল।

একই বছর, স্টিভেন স্পিলবার্গের তৃতীয় চলচ্চিত্র ক্লোজ এনকাউন্টারস অফ দ্য থার্ড কাইন্ড চলচ্চিত্র চূড়ান্ত বিজয় অর্জন, যাতে ছিল ২০০১ এর অভিজ্ঞ ডগলাস ট্রাম্বলের চিত্তাকর্ষক বিশেষ আবহের কাজ। চলচ্চিত্রে অবাস্তব আকারের উড়ন্ত পিরিচাকার বস্তুর আকার প্রদান করতে ট্রাম্বল নিজস্ব গতি-নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির উন্নয়নের সাথে সাথে আন্তর্জাতিক "লেন্সের বিস্তারণ" (ক্যামেরা লেন্সের প্রতিফলিত আলো দ্বারা তৈরিকৃত আকার) উদ্ভাবণ করেন।

এই ছবিগুলোর এবং পরে অন্যদের সফলতা, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর ছবির জন্য স্টুডিওতে ব্যাপক বিনিয়োগকে প্রোত্সাহিত করে। এটি অনেক স্বতন্ত্র আবহ ঘর, বিদ্যমান কৌশল সংশোধন এবং নতুন কৌশলকে (যেমন সিজিআই) অন্য মাত্রায় নিয়ে যেতে ইন্ধন যুগিয়েছিল। এটি শিল্পটিতে বিশেষ আবহ এবং চাক্ষুষ আবহের মধ্যে একটি বড় পার্থক্য তৈরিতে উৎসাহিত করে। পরবর্তিতে এর মাধ্যমে পোস্ট প্রোডাকশন এবং আলোকিক কাজে প্রভেদ সৃস্টিতে ব্যবহৃত হয়।

কম্পিউটার জেনারেটেড ইমেজারি (সিজিআই) পরিচিতি[সম্পাদনা]

বিশেষ আবহে সাম্প্রতিক এবং অসামান্য উদ্ভাবণ হচ্ছে উদ্ভাবন হচ্ছে কম্পিউটার জেনারেটেড ইমেজারি বা জিসিআই, যা গতিশীল ছবির বিশেষ আবহের প্রায় প্রতি ক্ষেত্রে বৈচিত্র্য এনেছে। ডিজিটাল কম্পোজিটিং আলোকিক কম্পোজিটিংয়ের চেয়ে অনেক বেশি নিয়ন্ত্রণ এবং সৃজনশীল হওয়ার স্বাধীনতা দেয় এবং এনালগ (আলোকিক) পদ্ধতির মতো চিত্রের মানের অবনতি ঘটায় না। ডিজিটাল ইমেজারিতে যন্ত্রবিদরা বিশদ মডেল, ম্যাট "পেইন্টিংস," এবং কম্পিউটার সফটওয়্যারের মাধ্যমে সম্পূর্ণ উপলব্ধ চরিত্র তৈরি করতে সক্ষম।

নঃসন্দেহে সিজিআই এর সবচেয়ে বড় এবং "দর্শনীয়" ব্যবহার হচ্ছে বৈজ্ঞানিক কল্প সাহিত্য এবং কাল্পনিক চরিত্র, বিন্যাস, এবং লক্ষ্যবস্তুর বাস্তবসম্মভাবে চিত্রায়ন। কম্পিউটারে অ্যানিমেটেড কার্টুন এবং মডেল অ্যানিমেশন কৌশল ব্যবহার করে তা চিত্রিত করা যায়। দ্যা লাস্ট স্টারফাইটার (১৯৮৪) ভৌত স্কেল মডেলের পরিবর্তে কম্পিউটার জেনারেটেড মহাকাশযান ব্যবহার করেছিল। ১৯৯৩ সালে স্টিভেন স্পিলবার্গ তার জুরাসিক পার্ক সিনেমায় বাস্তবধর্মী ডাইনোসরে স্টপ-মোশন অ্যানিমেটর প্রয়োগ করে সেগুলোকে কম্পিউটারের বিভিন্ন ইনপুট যন্ত্রের মাধ্যমে প্রশিক্ষিত করেছিলেন। ১৯৯৫ সাল নাগাদ টয় স্টোরির মতো চলচ্চিত্রগুলি লাইভ-অ্যাকশন চলচ্চিত্র এবং অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্রের মধ্যে পার্থক্য দূরীভূত করে এটিকে অন্য এক পর্যায়ে নিয়ে গেয়েছিল। অন্যান্য উল্লেখযোগ্য উদাহরণগুলির মধ্যে আছে ইয়াং শার্লক হোমস এর জানালার রঙিন কাচ দিয়ে তৈরীকৃত চরিত্র, উইলোতে আকৃতি পরিবর্তনশীল চরিত্র, টার্মিনেটর ২:জাজমেন্টাল ডে-এর টি-১০০০ টার্মিনেটর, স্টার ওয়ার্স প্রিকুয়েল ট্রিলোজিদ্য লর্ড অব দ্য রিংস চলচ্চিত্র ত্রয়ী রোবটের বিশাল বাহিনী চমত্কার দৃশ্যায়ন এবং অ্যাভাটার-এ গ্রহের দৃশ্যায়ন।

পরিকল্পনা এবং ব্যবহার[সম্পাদনা]

যদিও বেশিরভাগ বিশেষ আবহের কাজ পোস্ট প্রোডাকশনের সম্পন্ন হয়, তবে প্রি-প্রোডাকশন এবং প্রোডাকশনে সাবধানে পরিকল্পনা এবং কোরিওগ্রাফ করা আবশ্যক। একজন দৃশ্যমান আবহ অধীক্ষক সাধারণত প্রারম্ভিক পর্যায় থেকে প্রোডাকশনের কাজের সাথে জড়িত থাকে, যাতে করে প্রত্যাশিত আবহ পাওয়া যায়। এজন্য তিনি শুরু থেকেই পরিচালক এবং সংশ্লিস্ট সকলের সাথে নিবিড়ভাবে যুক্ত থাকেন।

জীবন্ত বিশেষ আবহ[সম্পাদনা]

রাতে ঘূর্ণায়মান জ্বলন্ত স্টিল উল

জীবন্ত বিশেষ আবহগুলো এক ধরণের আবহ, যা অধিকাংশ ক্ষেত্রে ক্রীড়া ইভেন্ট, কনসার্ট ও কর্পোরেট শোতে দর্শকদের সামনের সরাসরি উপস্থাপন করা হয়। যে আবহগুলো সাধারণত ব্যবহৃত হয়ঃ উড়ন্ত আবহ, লেজার আলো, থিয়েটারের ধোঁয়া এবং কুয়াশা, CO2 আবহ, পাইরোটেকনিক, কনফেটটি এবং অন্যান্য বায়ুমণ্ডলীয় প্রভাব যেমন বুদবুদ ও তুষার।

উল্লেখযোগ্য বিশেষ আবহ কোম্পানি[সম্পাদনা]

টিকা[সম্পাদনা]

  1. Rickitt, 10.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]