ফাতিমা শাহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ফাতেমা শাহ (১৯১৪–১২ই অক্টোবর ২০০২)[১] একজন চিকিৎসক, সমাজকর্মী এবং পাকিস্তানের অন্ধদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন। তিনি পাকিস্তান অ্যাসোসিয়েশন অব দ্য ব্লাইন্ডের (পিএবি) প্রতিষ্ঠাতা এবং অল পাকিস্তান মহিলা সংস্থার অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। তিনি প্রথম মহিলা যিনি অন্ধদের আন্তর্জাতিক ফেডারেশনের সভাপতি হয়েছেন।[২]

জীবনী[সম্পাদনা]

শাহের ১৯১৪ সালে ভেড়ায় জন্মগ্রহণ করেছেন।[৩] তিনি শিক্ষিত পরিবারের সন্তান। তার বাবা আবদুল মাজিদ কুরেশি ছিলেন আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের প্রাক্তন চেয়ারম্যান। তিনি ১২ ভাই-বোনদের একজন ছিলেন।[৪] তিনি মেধার জন্য ম্যাকডোনাল্ডের বৃত্তিতে দিল্লির লেডি হার্ডিঞ্জ মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন।

তিনি হাউস সার্জন হিসাবে লিকনৌ ডাফরেন হাসপাতালে যোগদান করেছিলেন। ১৯৩৭ সালে তিনি গোরখ পুরের বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব জাওয়াদ আলী শাহকে বিয়ে করেন। বিয়ের পরে তিনি চাকরি চালিয়ে যেতে পারেননি। তার দুই মেয়ে ছিল।[৫] ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পরে তিনি পাকিস্তানে এসেছিলেন, তবে উভয় দেশের রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের কারণে তিনি আর ফিরে যেতে পারেননি।

১৯৪৭ সাল থেকে শাহ ১৯৪৭ সালে স্বাধীনতার পরে ভারত থেকে পাকিস্তানে চলে আসা শরণার্থী মহিলাদের পুনর্বাসনের জন্য কাজ করেছিলেন।[৬] ১৯৪৯ সালে প্রতিষ্ঠিত অল পাকিস্তান মহিলা সমিতির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্যও ছিলেন শাহ। ১৯৫৪ সালে রেটিনাইটিস পিগমেন্টোসার মাধ্যমে অন্ধত্বের সূচনা পর্যন্ত তিনি করাচির সিভিল হাসপাতালের শীর্ষস্থানীয় স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ছিলেন, যার ফলে ১৯৫৭ সালে সম্পূর্ণ অন্ধ হয়ে যান।[৪][৭][৮]

তিনি ১৯৬০ সালে পাকিস্তান অ্যাসোসিয়েশন অফ দ্য ব্লাইন্ড (পিএবি) প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।[৩] যখন তিনি এই পদ থেকে অবসর নেন, তিনি ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত প্যাব-এর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি পড়াশোনা করতে রা'না লিয়াকত আলি খান তাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেরণ করেছিলেন। অন্ধদের জন্য রাষ্ট্রের কর্মসূচিগুলো অধ্যয়নের জন্য তিনি ১৯৬৪ সালে আইওয়া সফর করেছিলেন।[৯] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তিনি নিউইয়র্কের আন্তর্জাতিক ফেডারেশন অফ ব্লাইন্ডের (আইএফবি) অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হয়েছেন।[৩] তিনি আইএফবি-র দ্বিতীয় সহ-সভাপতি হন।[১০]

তিনি যখন পাকিস্তানে ফিরে এসেছিলেন, তিনি পাকিস্তান সরকারকে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত ধারাটি সরিয়ে নিতে তদবির করেছিলেন; কারণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের চাকরি থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে।[৩] তিনি পাকিস্তানে আনুষ্ঠানিকভাবে ব্রেইল চালু করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

ডঃ শাহ পাকিস্তান প্রতিবন্ধী পিপলস ফেডারেশনকে পাকিস্তানের প্রতিবন্ধী পিপলস ইন্টারন্যাশনালের জাতীয় অনুমোদিত হিসাবে কাজ করার জন্য সংগঠিত করেছিলেন, যার মধ্যে তিনি বিশ্ব কাউন্সিলের সদস্য ছিলেন। তিনি ওয়ার্ল্ড ব্লাইন্ড ইউনিয়ন নামে একটি বৈশ্বিক সংস্থা প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন এবং ফেডারাল কাউন্সিল জাতীয় সংসদের সদস্যও হন।[৩]

২০০২ সালের ১২ই অক্টোবর শাহ মারা যান এবং তাকে করাচির প্রতিরক্ষা কবরস্থানে দাফন করা হয়।[৩]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের রাজ্যাভিষেক উপলক্ষে তিনি সামাজিক সেবামূলক কাজের জন্য একটি অর্ডার অব দ্য ব্রিটিশ এম্পায়ার (ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অর্ডার) পেয়েছিলেন।[১১] অন্ধদের জন্য স্বনির্ভর সংস্থাগুলোর সাথে কাজ করার জন্য সুইডেনের গোথেনবার্গে তিনি টেকো ইওয়াহাশি পুরস্কার পেয়েছিলেন।[৩] পাকিস্তান সরকার তাকে তমঘা-ই-ইমতিয়াজ ভূষিত করেছিল

নির্বাচিত প্রকাশনা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Those Who Left Us 2002"Economic Review। ১ জানুয়ারি ২০০৩। ২০১৭-০৮-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ আগস্ট ২০১৭ – HighBeam Research-এর মাধ্যমে। 
  2. "Pakistan: Leading Light"Women's Feature Service। ৭ জুন ২০০৬। ২০১৮-১১-১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ আগস্ট ২০১৭ – HighBeam Research-এর মাধ্যমে। 
  3. "Dr Fatima Shah passes away"Dawn। ১৩ অক্টোবর ২০০২। সংগ্রহের তারিখ ৩ আগস্ট ২০১৭ 
  4. "Dr. Fatima Shah -- 'A Beacon in Darkness'"। মার্চ ১৯৬৫। 
  5. ,https://www.facebook.com/827687200693809/photos/a.893111787484683.1073741837.827687200693809/893112824151246/?type=3&theater ، Dr Fatima Shah ,Page 46,Khaas Log Khaas Kahanian by Gohar Taj
  6. Women with disabilities, ref 1822 ,https://books.google.com/books?id=HIISikCITAgC&pg=PA426&lpg=PA426&dq=Raihana%20A.%20Hasan%20....%20DR%20FATIMA%20SHAH&source=bl&ots=O_-hSTnwm2&sig=OBmj_MmDv7dVFg6kHNVCOodDMfU&hl=en&sa=X&ved=0ahUKEwjfq6fB-IXSAhVEzRQKHXBOBEYQ6AEIHjAB#v=onepage&q=Raihana%20A.%20Hasan%20....%20DR%20FATIMA%20SHAH&f=false
  7. Ansari, Ishrat (১৪ অক্টোবর ২০১৪)। "Learning How to See Again"The Express Tribune 
  8. Aftab, Tahera (২০০৭)। Inscribing South Asian Muslim Women: An Annotated Bibliography & Research Guide (Annotated সংস্করণ)। Brill Academic Publishers। পৃষ্ঠা 426। আইএসবিএন 9789004158498 
  9. Curran, Pat (২৯ জুলাই ১৯৬৪)। "Educator, Pakistan Doctor, Both Blind, Visit Blairsburg Farm"The Muscatine Journal and News-Tribune। সংগ্রহের তারিখ ৩ আগস্ট ২০১৭ – Newspapers.com-এর মাধ্যমে। 
  10. Chandler, Jagdish (২০১৪)। "Self-Advocacy and Blind Activists"। Disability Histories। University of Illinois Press। পৃষ্ঠা 373। আইএসবিএন 9780252096693 
  11. "Founder"Pakistan Association of the Blind Sindh Head Office। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-০৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]