প্রাণাগ্নিহোত্র উপনিষদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
প্রাণাগ্নিহোত্র উপনিষদ
(A) Hindu puja, yajna, yagna, Havanam in progress.jpg
অগ্নিহোত্র বহিরাগত দেবতাদের জন্য অগ্নি যজ্ঞ, প্রাণাগ্নিহোত্র মানবদেহে দেবতাদের সমতুল্য।[১]
দেবনাগরীप्राणाग्निहोत्र उपनिषत्
নামের অর্থপ্রাণের উদ্দেশ্যে অগ্নি নিবেদন
যে বেদের সঙ্গে সংযুক্তঅথর্ববেদ
শ্লোকসংখ্যা২৩
মূল দর্শনবেদান্ত

প্রাণাগ্নিহোত্র উপনিষদ (সংস্কৃত: प्राणाग्निहोत्र उपनिषत्, আইএএসটি: Pranagnihotra Upaniṣadad) বা প্রাণাগ্নিহোত্রোপনিষদ হিন্দুধর্মের একটি ক্ষুদ্র উপনিষদরাম কর্তৃক হনুমানকে বর্ণিত মুক্তিকা ক্রমের ১০৮টি উপনিষদের সংকলনে, এটি ৯৪ নম্বরে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।[২] সংস্কৃত পাঠটি সামন্য উপনিষদের শ্রেণীবদ্ধ,[৩] হিন্দু দর্শনবেদান্ত  দর্শনের অংশ এবং অথর্ববেদের সাথে সংযুক্ত।[৪] পাঠ্যটিতে ২৩টি শ্লোক রয়েছে।[৫]

প্রাণাগ্নিহোত্র উপনিষদের শিরোনামের আক্ষরিক অর্থ হল প্রাণের (শ্বাস, জীবনশক্তি) অগ্নিকে দেওয়া হোত্র (যজ্ঞ)।"[৬][৭] পাঠ্য দাবি করে যে সার্বজনীন আত্মা (ঈশ্বর) এবং স্বতন্ত্র আত্মা (আত্মা) এক, সমস্ত বৈদিক দেবতা মানবদেহে মূর্ত হয়ে বিভিন্ন ক্ষমতা প্রদান করে, ভক্ষক পাচকের আগুনে যজ্ঞ, এবং জীবন ঈশ্বরের মধ্যে অনুষ্ঠান।[৮]

উপনিষদ পরামর্শ দেয় যে যদি কেউ বৈদিক অগ্নিহোত্রের মতো বাহ্যিক আচার-অনুষ্ঠান না করেও এবং সাংখ্য বা যোগ দর্শনের জ্ঞানের অভাব না থাকে, তবুও কেউ নিজের দেহের মধ্যে যে ঈশ্বর আছেন তা উপলব্ধি করে মোক্ষ অর্জন করা যায়, এবং স্বতন্ত্র আত্মার মধ্যে সার্বজনীন আত্মা সমস্ত ব্যাপ্ত ব্রহ্মকে প্রতিনিধিত্ব করে।[৮] এই উপলব্ধি একজন ব্যক্তিকে জীবনের সমস্ত দুঃখকষ্ট ও অস্থিরতার মধ্য দিয়ে যাত্রা করে।[৯] উপনিষদ তার চূড়ান্ত অনুচ্ছেদে বলে যে অহিংসা, সহানুভূতি, ধৈর্য এবং অন্যদের প্রতি স্মৃতির পুণ্য কর্তব্য হল ঈশ্বরের উপাসনা।[১০] এটি পুনরায় জোর দিয়ে শেষ করে যে "সকল দেবতা এখানে এই দেহে আবদ্ধ"।[১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Henk Bodewitz (1997), Jaiminīya Brāhmaṇa I, 1–65: Translation and Commentary, Brill Academic, আইএসবিএন ৯৭৮-৯০০৪০৩৬০৪৮, pp. 23, 230–233 with footnote 6
  2. Deussen, Bedekar এবং Palsule 1997, পৃ. 556–57।
  3. Nair 2008, পৃ. 580।
  4. Deussen, Bedekar এবং Palsule 1997, পৃ. 553।
  5. Warrier, Dr. A. G. Krishna। "Minor Upanishad"। Vedanta Spiritual Library। সংগ্রহের তারিখ ২ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  6. Deussen, Bedekar এবং Palsule 1997, পৃ. 645।
  7. Henk Bodewitz (1997), Jaiminīya Brāhmaṇa I, 1–65: Translation and Commentary, Brill Academic, আইএসবিএন ৯৭৮-৯০০৪০৩৬০৪৮, page 220, also 221–227
  8. Deussen, Bedekar এবং Palsule 1997, পৃ. 645–646।
  9. Nair 2008, পৃ. 387।
  10. Deussen, Bedekar এবং Palsule 1997, পৃ. 650।
  11. Deussen, Bedekar এবং Palsule 1997, পৃ. 651।

উৎস[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]