প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ভারতীয় সেনা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভারতীয় সেনাবাহিনী
British Raj Red Ensign.svg Indian bicycle troops Somme 1916 IWM Q 3983.jpg
সোমের যুদ্ধে ভারতীয় সাইকেল সৈন্যরা।
সক্রিয়১৮৫৭–১৯৪৭
দেশ ভারত
আনুগত্য ব্রিটিশ সাম্রাজ্য
ধরনসেনাবাহিনী
আকার১৭,৮০,০০০
যুদ্ধসমূহদ্বিতীয় বোয়ার যুদ্ধ
ব্রিটিশদের তিব্বত অভিযান
প্রথম বিশ্বযুদ্ধ
ওয়াজিরিস্তান অভিযান (১৯১৯-২০)
ওয়াজিরিস্তান অভিযান (১৯৩৬-১৯৩৯)
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ
কমান্ডার
উল্লেখযোগ্য
কমান্ডার
হারবার্ট কিচেনার, প্রথম আর্ল কিচেনার

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় ভারতীয় সেনাবাহিনী প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ইউরোপীয়, ভূমধ্যসাগর এবং মধ্য প্রাচ্যের রণভূমিতে বিপুল সংখ্যক ডিভিশন ও স্বাধীন ব্রিগেড হিসাবে অবদান রাখে। এক মিলিয়নেরও বেশি ভারতীয় সেনা বিদেশে কর্মরত ছিল, যার মধ্যে ৬২,০০০ জন মারা যায় এবং আরও ৬২,০০০ জন আহত হয়। যুদ্ধকালীন সময়ে কমপক্ষে ৭৪,১৮৭ জন ভারতীয় সেনা মারা যায়।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনী জার্মান পূর্ব আফ্রিকাপশ্চিম ফ্রন্টে জার্মান সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে লড়াই করে। ইয়েপ্রেসের প্রথম যুদ্ধে, খুদাদাদ খান প্রথম ভারতীয় হিসাবে ভিক্টোরিয়া ক্রস প্রাপ্ত হন। ভারতীয় বিভাগগুলি মিশর, গ্যালিপোলিতেও পাঠানো হয় এবং প্রায় ৭,০০,০০০ জন অটোমান সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে মেসোপটেমিয়ায় কাজ করে।[১] কিছু বিভাগ বিদেশে প্রেরণ করা হয়, অন্যদের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত রক্ষা করতে এবং অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা ও প্রশিক্ষণের দায়িত্বে ভারতে থাকতে হয়।

১৯৪২ সাল থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সর্বাধিনায়ক - ফিল্ড-মার্শাল স্যার ক্লোড অচিনলেক দৃঢ় ভাবে জানায় যে ব্রিটিশরা "উভয় যুদ্ধের মধ্য দিয়ে অগ্রসর হতে পারত না, [প্রথম এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ] যদি তাদের ভারতীয় সেনা না থাকত।"[২][৩]

সংগঠন[সম্পাদনা]

বাজেনটিন রিজের যুদ্ধের সময়ে ডেকান হর্স থেকে ভারতীয় অশ্বারোহী।

১৯১৪ সালে, ভারতীয় সেনাবাহিনী বিশ্বের দুটি বৃহত্তম স্বেচ্ছাসেবক সেনাবাহিনীর মধ্যে একটি ছিল;[৪] এর মোট সৈন্য ছিল ২৪০,০০০ জন[৫] এবং যুদ্ধের সূত্রপাতের সময় ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর সৈন্যর সংখ্যা ছিল ২৪৭,৪৩২ জন নিয়মিত স্বেচ্ছাসেবী। ১৯১৮ সালের নভেম্বরের মধ্যে, ভারতীয় সেনাবাহিনীতে ৫,৪৮,৩১১ জন লোক ছিল, যাদেরকে ইম্পেরিয়াল স্ট্র্যাটেজিক রিজার্ভ হিসাবে বিবেচনা করা হয়।[৬] তাদের উত্তর পশ্চিম সীমান্তে আক্রমণ ও অভিযান মোকাবেলা এবং মিশর, সিঙ্গাপুর ও চীনে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের জন্য গ্যারিসন বাহিনী সরবরাহ করার জন্য নিয়মিতভাবে আহ্বান জানানো হত।[৭]

এই ক্ষেত্রবাহিনীকে দুটি বাহিনীতে বিভক্ত করা হয়: উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত থেকে বাংলা পর্যন্ত পাঁচটি ডিভিশন ও তিনটি ব্রিগেড নিয়ে গঠিত কমান্ডের অধীনে উত্তর সেনাবাহিনী এবং চারটি ডিভিশন নিয়ে গঠিত কমান্ডের অধীনে ছিল দক্ষিণ বাহিনী, যেটি বালুচিস্তান থেকে দক্ষিণ ভারত পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল এবং উপমহাদেশের বাইরে দুটি সংগঠন ছিল।[৮] দুটি বাহিনীতে ৩৯ টি অশ্বারোহী রেজিমেন্ট, ১৩৮ টি পদাতিক ব্যাটালিয়ন (২০ টি গোর্খা সহ),[৫] একটি যৌথ অশ্বারোহী-পদাতিক ইউনিট, গাইডস কর্পস, তিনটি স্যাপার রেজিমেন্ট এবং ১২ টি পর্বত আর্টিলারি ব্যাটারি ছিল।[৪]

এই সংস্কার দ্বারা গঠিত নয়টি ডিভিশনের প্রত্যেকটিতে একটি করে অশ্বারোহী এবং তিনটি পদাতিক ব্রিগেড ছিল। অশ্বারোহী ব্রিগেডে একটি ব্রিটিশ এবং দুটি ভারতীয় রেজিমেন্ট ছিল এবং পদাতিক ব্রিগেডে একটি ব্রিটিশ এবং তিনটি ভারতীয় ব্যাটালিয়ন ছিল।[৯] ব্রিটিশ ব্যাটালিয়নগুলির তুলনায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর ব্যাটালিয়নগুলি ছোট ছিল, ব্রিটিশ ব্যাটালিয়নে ২৯ অফিসার ও ৯৭৭ টি অন্যান্য র‌্যাঙ্কের তুলনায় ভারতীয় ব্যাটালিয়ন ৩০ জন অফিসার ও ৭২৩ টি অন্যান্য র‌্যাঙ্ক নিয়ে গঠিত ছিল।[৫] বিভিন্ন উপজাতি, বর্ণ বা ধর্মের দ্বারা ভারতীয় ব্যাটালিয়নগুলি প্রায়শই আলাদা করা হত।[১০] প্রতিটি ডিভিশনের সদর দফতরের সাথে সংযুক্ত অতিরিক্ত বাহিনীর মধ্যে একটি অশ্বারোহী রেজিমেন্ট, ব্রিটিশ রয়েল ফিল্ড আর্টিলারি দ্বারা সরবরাহ করা একটি অগ্রগামী ব্যাটালিয়ন ও আর্টিলারি অন্তর্ভুক্ত ছিল। প্রতিটি ডিভিশনে প্রায় ১৩,০০০ জন লোক ছিল, ছোট পদাতিক ব্যাটালিয়ন ও ছোট আর্টিলারি বাহিনীর কারণে এগুলি ব্রিটিশ ডিভিশনের চেয়ে কিছুটা দুর্বল ছিল।[১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Participants from the Indian subcontinent in the First World War"। Memorial Gates Trust। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  2. "The Indian Army in the Second World War"Commonwealth War Graves Commission। এপ্রিল ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. "Archived copy"। ২৪ মে ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০১৫ 
  4. Sumner, p.3
  5. Perry, p.85
  6. Willmott, p.94
  7. Jeffery, p.3
  8. "The Indian Army: 1914"। ৯ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০০৯ 
  9. Barua, p.130
  10. "Indian Army History"। Global Security.org। সংগ্রহের তারিখ ৯ অক্টোবর ২০০৯ 
  11. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; p86 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]