প্রথম ফুয়াদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
প্রথম ফুয়াদ
Fuad I of Egypt.jpg
মিশরের ও সুদানের বাদশাহ[১]
রাজত্ব ১৫ মার্চ ১৯২২ – ২৮ এপ্রিল ১৯৩৬
পূর্বসূরী মিশরের সুলতান হিসেবে নিজে
উত্তরসূরী প্রথম ফারুক
প্রধানমন্ত্রী
মিশরের সুলতান
রাজত্ব ৯ অক্টোবর ১৯১৭ – ১৫ মার্চ ১৯২২
পূর্বসূরী হুসাইন কামেল
উত্তরসূরী মিশরের বাদশাহ হিসেবে নিজে
প্রধানমন্ত্রী
জন্ম (১৮৬৮-০৩-২৬)২৬ মার্চ ১৮৬৮
গিজা প্রাসাদ, কায়র, মিশর খেদিভাত
মৃত্যু ২৮ এপ্রিল ১৯৩৬(১৯৩৬-০৪-২৮) (৬৮ বছর)
কুব্বেহ প্রাসাদ, কায়রো, মিশর রাজতন্ত্র
সমাধি আল-রিফাই মসজিদ, কায়রো, মিশর
স্ত্রীগণ শিভাকিয়ার খানুম এফেন্দি
(দাম্পত্যকাল ১৮৯৫ - ১৮৯৮)
নাজলি সাবরি
(দাম্পত্যকাল ১৯১৯ - ১৯৩৬)
সন্তান প্রিন্স ইসমাইল
প্রিন্সেস ফাওকিয়া
প্রথম ফারুক
প্রিন্সেস ফাওজিয়া
প্রিন্সেস ফাইজা
প্রিন্সেস ফাইকা
প্রিন্সেস ফাতহিয়া
পূর্ণ নাম
আহমাদ ফুয়াদ
আরবি: أحمد فؤاد‎‎
রাজবংশ মুহাম্মদ আলি রাজবংশ
পিতা ইসমাইল পাশা
মাতা ফেরিয়াল হানিম
ধর্ম ইসলাম (সুন্নি)

প্রথম ফুয়াদ (আরবি: فؤاد الأول‎‎ Fu’ād al-Awwal; ২৬ মার্চ ১৮৬৮ - ২৮ এপ্রিল ১৯৩৬) ছিলেন মিশর ও সুদানের সুলতান ও পরবর্তীকালে বাদশাহ। তিনি মিশর ও সুদানের মুহাম্মদ আলি রাজবংশীয় শাসকদের মধ্যে নবম। তার বড় ভাই সুলতান হুসাইন কামেলের উত্তরসুরি হিসেবে ১৯১৭ সালে তিনি মিশরের সুলতান হন। ১৯২২ সালে যুক্তরাজ্য মিশরের স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দেয়ার পর তিনি সুলতানের বদলে বাদশাহ উপাধি গ্রহণ করেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ফুয়াদ কায়রোর গিজা প্রাসাদে জন্মগ্রহণ করেছেন। তিনি ছিলেন ইসমাইল পাশার সপ্তম পুত্র।[২] তার মা ছিলেন ফেরিয়াল কাদিন.[৩]

সুলতান হওয়ার পূর্বে ফুয়াদ কায়রো বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। ১৯০৮ সালে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম রেক্টর হন। ১৯১৩ সালে পদত্যাগের আগ পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্বপালন করেছেন। তৎকালীন বিচারমন্ত্রী হুসাইন রুশদি পাশা এসময় তার স্থলাভিষিক্ত হন। ১৯১৩ সালে ফুয়াদ তার নিজের জন্য আলবেনিয়ার সিংহাসন অধিকারের ব্যর্থ চেষ্টা চালান। এর এক বছর পূর্বে আলবেনিয়া উসমানীয় সাম্রাজ্যের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করেছিল। সেসময় আর ভাইপো দ্বিতীয় আব্বাস হিলমি পাশা মিশর শাসন করছিলেন এবং নিজ দেশে ফুয়াদের শাসক হওয়ার সম্ভাবনা কম ছিল। এসকল কারণে এবং মুহাম্মদ আলি রাজবংশ আলবেনীয় বংশোদ্ভূত হওয়ার কারণে ফুয়াদ আলবেনিয়ার সিংহাসন লাভের প্রচেষ্টা চালান।[৪] ১৯১৫ থেকে ১৯১৮ সাল নাগাদ ফুয়াদ ইজিপশিয়ান জিওগ্রাফিক সোসাইটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন।[৫]

শাসনকাল[সম্পাদনা]

১৯১৭ সালে ভাই হুসাইন কামেল মারা যাওয়ার পর ফুয়াদ মিশরের সুলতান হন। ১৯১৯ সালে মিশরের বিপ্লবের পর যুক্তরাজ্য মিশরের উপর থেকে তাদের কর্তৃত্ব তুলে নেয় এবং ১৯২২ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি স্বাধীনতার স্বীকৃতি দেয়। ১৯২২ সালের ১৫ মার্চ ফুয়াদ সুলতান উপাধির পরিবর্তে বাদশাহ উপাধি ধারণের আদেশ জারি করেন। ১৯৩০ সালে তিনি ১৯২৩ সালের সংবিধান বাতিল করে নতুন সংবিধান প্রণয়ন করেছিলেন। এই নতুন সংবিধানে সংসদের ক্ষমতা উপদেষ্টা মূলক ক্ষেত্রে সীমিত করা হয়। তবে ব্যাপক অসন্তোষের ফলে তিনি ১৯৩৫ সালে পূর্বের সংবিধান পুনর্বহাল করতে বাধ্য হন।

১৯২৩ সালের সংবিধানে ফুয়াদকে অনেক ক্ষমতা দেয়া হয়েছিল। তাকে প্রদত্ত সংসদ বিলুপ্ত করার ক্ষমতা তিনি কয়েকবার ব্যবহার করেছিলেন। তার শাসনামলে রাজকীয় ইচ্ছার কারণে মন্ত্রীসভা বিলুপ্ত হয় এবং কোনো সংসদই চার বছরের মেয়াদ পূর্ণ করতে পারেনি।[৬]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ফুয়াদ তার প্রথম স্ত্রী শিভাকিয়ার খানুম এফেন্দিকে ১৮৯৫ সালের ৩০ মে কায়রোর আব্বাসিয়া প্রাসাদে বিয়ে করেন। তাদের দুই সন্তান ছিল। তন্মধ্যে ইসমাইল ফুয়াদ শৈশবে মারা যান। অন্যজন ছিলেন কন্যা ফাওকিয়া। ১৮৯৮ সালে তাদের তালাক হয়।

১৯১৯ সালের ২৪ মে ফুয়াদ তার দ্বিতীয় স্ত্রী নাজলি সাবরিএ কায়রোর বুস্তান প্রাসাদে বিয়ে করেন। এই দম্পতির পাঁচ সন্তান ছিল। পরবর্তী বাদশাহ প্রথম ফারুক তাদের অন্যতম।

চীন[সম্পাদনা]

চীনে ফুয়াদ মুসলিম লাইব্রেরি চীনা মুসলিম মা সংতিং কর্তৃক তার নামে নামকরণ করা হয়েছে।[৭][৮]

বিয়ে[সম্পাদনা]

১. শিভাকিয়ার খানুম এফেন্দি (১৮৭৬-১৯৪৭)

সন্তান

  • ইসমাইল ফুয়াদ (১৮৯৬-১৮৯৬)
  • ফাওকিয়া (১৮৯৭-১৯৭৪)

২. নাজলি সাবরি (১৮৯৪-১৯৭৮)

সন্তান

  • প্রথম ফারুক (১৯২০–১৯৬৫)
  • ফাওজিয়া (১৯২১-২০১৩) (ইরানের রাণী)
  • ফাইজা (১৯২৩–১৯৯৪)
  • ফাইকা (১৯২৬-১৯৮৩)
  • ফাতহিয়া (১৯৩০–১৯৭৬)

উপাধি[সম্পাদনা]

  • ১৮৬৮ - ১৯১৭: মহামান্য আহমেদ ফুয়াদ পাশা
  • ১৯১৭ - ১৯২২: মহামান্য মিশর ও সুদানের সুলতান, নুবিয়া, কুরদুফান ও দারফুরের সার্বভৌম
  • ১৯২২ - ১৯৩৬: মহামান্য মিশর ও সুদানের বাদশাহ, নুবিয়া, কুরদুফান ও দারফুরের সার্বভৌম

সম্মাননা[সম্পাদনা]

বেলজিয়ামে বাদশাহ প্রথম ফুয়াদ
  • উসমানীয় সাম্রাজ্য অর্ডার অফ নোবেলিটি, প্রথম শ্রেণী, ১৮৯৩
  • ইতালির রাজত্ব (১৮৬১–১৯৪৬) গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ সেইন্টস মরিস এন্ড লাজারাস, ১৯১১
  • গ্রিস রাজ্য গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য রিডিমার, ১৯১২
  • যুক্তরাজ্য নাইট গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য বাথ (জিসিবি), ১৯১৭
  • ইরান ইম্পেরিয়াল অর্ডার অফ পার্সিয়া, ১৯১৯
  • সুইডেন কমান্ডার গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ ভাসা, ১৯২১
  • রোমানীয় রাজ্য গ্র্যান্ড ক্রস ডব্লিউ/কলার অফ দ্য অর্ডার অফ ক্যারল ১, ১৯২১
  • জাপান কলার অফ দ্য অর্ডার অফ ক্রিসান্থেয়াম, ১৯২১
  • ইতালির রাজত্ব (১৮৬১–১৯৪৬) নাইট অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য মোস্ট হলি এনানসিয়েশন, ১৯২২
  • টেমপ্লেট:দেশের উপাত্ত Kingdom of Hejaz গ্র্যান্ড কর্ড‌ন অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য রেনেসা অফ দ্য হেজাজ, ১৯২২
  • পর্তুগাল গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ আভিজ (জিসিএ), ১৯২৩
  • নেদারল্যান্ডস নাইট গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য নেদারল্যান্ডস লায়ন, ১৯২৫
  • টেমপ্লেট:দেশের উপাত্ত Kingdom of Afghanistan গ্র্যান্ড কলার অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য সুপ্রিম সান, ১৯২৭
  • টেমপ্লেট:দেশের উপাত্ত Albanian Kingdom গ্র্যান্ড কলার অফ দ্য কিংডম অফ আলবেনিয়া, ১৯২৭
  • যুক্তরাজ্য রয়েল ভিক্টোরিয়ান চেইন (আরভিসি), ১৯২৭
  • ফ্রান্স গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য লিজিওন অফ অনার, ১৯২৭
  • বেলজিয়াম গ্র্যান্ড কর্ড‌ন অফ দ্য অর্ডার অফ লিওপল্ড, ১৯২৭
  • সিরিয়া গ্র্যান্ড কর্ড‌ন অফ দ্য অর্ডার অফ উমাইয়াদ অফ সিরিয়া, ১৯২৭
  • পোল্যান্ড গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য হোয়াইট ঈগল, ১৯৩২
  • সুইডেন নাইট অফ দ্য রয়েল অর্ডার অফ দ্য সেরাফিম, ১৯৩৩
  • থাইল্যান্ড নাইট অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য রয়েল হাউস অফ চাকরি, ১৯৩৪
  • ডেনমার্ক নাইট অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য এলিফেন্ট, ১৯৩৫
  • ফিনল্যান্ড গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার দ্য হোয়াইট রোজ অফ ফিনল্যান্ড, ১৯৩৫
  • টেমপ্লেট:দেশের উপাত্ত Pahlavi dynasty গ্র্যান্ড কলার অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য ক্রাউন, ১৯৩৫

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

General
Specific
  1. Montgomery-Massingberd, Hugh, সম্পাদক (১৯৮০)। "The Royal House of Egypt"Burke's Royal Families of the World। Volume II: Africa & the Middle East। London: Burke's Peerage। পৃ: ৩৬। আইএসবিএন 978-0-85011-029-6ওসিএলসি 18496936। সংগৃহীত ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  2. Royal Ark
  3. Hassan Hassan (২০০০)। In the House of Muhammad Ali: A Family Album, 1805-1952। American Univ in Cairo Press। পৃ: 9–। আইএসবিএন 978-977-424-554-1। সংগৃহীত ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  4. Reid, Donald Malcolm (২০০২)। Cairo University and the Making of Modern Egypt। Volume 23 of Cambridge Middle East Library। Cambridge University Press। পৃ: 61–62। আইএসবিএন 978-0-521-89433-3ওসিএলসি 49549849। সংগৃহীত ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  5. "The Presidents of the Society"Egyptian Geographic Society। সংগৃহীত ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  6. Abdalla, Ahmed (২০০৮)। The Student Movement and National Politics in Egypt, 1923–1973। American University in Cairo Press। পৃ: 4–5। আইএসবিএন 978-977-416-199-5। সংগৃহীত ২২ জুলাই ২০১০ 
  7. Stéphane A. Dudoignon, Hisao Komatsu, Yasushi Kosugi (২০০৬)। Stéphane A. Dudoignon, Hisao Komatsu, Yasushi Kosugi, সম্পাদক। Intellectuals in the Modern Islamic World: Transmission, Transformation, Communication। Taylor & Francis। পৃ: ২৫১। আইএসবিএন 978-0-415-36835-3। সংগৃহীত ২৮ জুন ২০১০ 
  8. Kees Versteegh; Mushira Eid (২০০৫)। Encyclopedia of Arabic Language and Linguistics: A-Ed। Brill। পৃ: 382–। আইএসবিএন 978-90-04-14473-6 
প্রথম ফুয়াদ
জন্ম: ২৬ মার্চ ১৮৬৮ মৃত্যু: ২৮ এপ্রিল ১৯৩৬
রাজত্বকাল শিরোনাম
পূর্বসূরী
হুসাইন কামেল
মিশরের সুলতান
১৯১৭–১৯২২
স্বাধীনতাপ্রাপ্তি
নতুন পদবী
মিশর রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত
মিশরের বাদশাহ
১৯২২–১৯৩৬
উত্তরসূরী
প্রথম ফারুক
অ্যাকাডেমিক অফিস
নতুন সংস্থা কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর
১৯০৮–১৯১৩
উত্তরসূরী
হুসাইন রুশদি পাশা
পেশাগত ও একাডেমিক অ্যাসোসিয়েশন
পূর্বসূরী
অনোফ্রিও আবাটে পাশা
ইজিপশিয়ান জিওগ্রাফিক সোসাইটির প্রেসিডেন্ট
১৯১৫–১৯১৮
উত্তরসূরী
ইসমাইল সিদকি পাশা