পিটার হিগস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পিটার হিগস

Nobel Prize 24 2013.jpg
পিটার হিগস একটি প্রেস কনফারেন্সে, স্টকহোম, ডিসেম্বর ২০১৩
জন্মপিটার ওয়্যার হিগস
(1929-05-29) ২৯ মে ১৯২৯ (বয়স ৯২)
[নিউক্যাসল আপন টাইনে]], ইংল্যান্ড
জাতীয়তাব্রিটিশ[১]
কর্মক্ষেত্রতাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যা
প্রতিষ্ঠানইউনিভার্সিটি অব এডিনবার্গ
ইম্পেরিয়েল কলেজ লন্ডন
ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন
কিংস কলেজ লন্ডন
প্রাক্তন ছাত্রকিংস কলেজ লন্ডন, ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন (বিএসসি,এমএসসি,পিএইচডি)
সন্দর্ভসমূহআণবিক কম্পনের তত্ত্বে কিছু সমস্যা (১৯৫৫)
পিএইচডি উপদেষ্টাচার্লস কুলসন[২][৩]
ক্রিস্টোফার হিগন্স[২][৪]
পিএইচডি ছাত্ররা
পরিচিতির কারণহিগস বোসন
হিগস ফিলড
হিগস মেকানিজম
উল্লেখযোগ্য
পুরস্কার
  • সাকুরায় পুরুষ্কার(২০১০) নোবেল পুরুষ্কার (পদার্থবিদ্যা ২০১৩) উলফ পুরুস্কার (২০০৪) হিউজ মেডেল (১৯৮১)
কুপলে মেডেল (২০১৫)
স্ত্রী/স্বামীটেমপ্লেট:বিবাহ জোডি উইলিয়ামসন ১৯৬৩
সন্তান(গণ)
স্বাক্ষর
ওয়েবসাইট
www.ph.ed.ac.uk/higgs উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

পিটার ওয়্যার হিগস (সি এইচ, এফ, এফ আর এস ই) (জন্ম ২৯ মে ১৯২৯) একজন ব্রিটিশ তাত্ত্বিক পদার্থবিদ, এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক,[৬][৭]এবং সাবঅ্যাটমিক কণার ভরের উপর তার কাজের জন্য তিনি নোবেল পুরস্কার লাভ করেন।[৮]

১৯৬০এর দশকে, হিগস প্রস্তাব করেছিলেন যে ইলেক্ট্রোওয়েক তত্ত্বে ভাঙা প্রতিসাম্য সাধারণভাবে প্রাথমিক কণার ভর এবং বিশেষ করে ডব্লিউ ও জেড বোসনগুলির উৎস ব্যাখ্যা করতে পারে। হিগসের সমসাময়িক আরও কয়েকজন পদার্থবিদ একই রকম প্রস্তাবনা রাখলেও এ প্রক্রিয়াটি হিগস কার্যপ্রণালী নামে পরিচিতি পায়।একই সাথে এই কার্যপ্রণালীটি হিগস বোসন নামে একটি নতুন কণার অস্তিত্ব সম্পর্কে ধারণা দেয় (যেটা "আধুনিক পদার্থবিদ্যায় সর্বাধিক অনুসন্ধানকৃত কণা" নামে পরিচিত।[৯][১০] ৪ জুলাই ২০১২ সালে সি ই আর এন লার্জ হ্যাড্রন কোলাইডারে বোসন আবিষ্কারের ঘোষণা দেয়।[১১] হিগস কার্যপ্রণালীকে সাধারণত কণা পদার্থবিদ্যার স্ট্যান্ডার্ড মডেলে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে গ্রহণ করা হয়, যা ছাড়া নির্দিষ্ট কণার ভর থাকবে না।[১২]

হিগস তার কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ রয়েল সোসাইটি থেকে ১৯৮১ সালের হিউজ মেডেল সহ বেশ কয়েকটি পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। এছাড়াও হিগস পদার্থবিদ্যা ইনস্টিটিউট থেকে ১৯৮৪ সালে রাদারফোর্ড পদক তাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যায় ইরোপিয়ান ফিজিক্যাল সোসাইটি থেকে ১৯৯৭ এ উচ্চ শক্তি এবং কণা পদার্থবিদ্যা পুরস্কার। পদার্থবিদ্যায় উলফ পুরস্কার (২০০৪), রয়্যাল সুইডিশ একাডেমি অফ সায়েন্সেস থেকে ২০০৯ এ অস্কার ক্লেইন মেমোরিয়াল লেকচার মেডেল। তাত্ত্বিক কণা পদার্থবিদ্যার জন্য(২০১০) আমেরিকান ফিজিক্যাল সোসাইটি থেকে জে. জে. সাকুরাই পুরস্কার(২০১০); এবং ২০১২ সালে রয়্যাল সোসাইটি অফ এডিনবার্গ থেকে একটি অনন্য হিগস পদক লাভ করেন।[১৩]পদার্থবিদ্যায় অসামান্য অবদানের জন্য হিগস ডিরাক পদক(১৯৯৭)এবং পুরস্কার লাভ করেন,। হিগস বোসনের আবিষ্কার সহকর্মী পদার্থবিদ স্টিফেন হকিংকে উল্লেখ করতে প্ররোচিত করেছিল যে তিনি ভেবেছিলেন যে হিগসকে তার কাজের জন্য পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার দেওয়া উচিত।[১৪] হকিংকের সেই আশার প্রতিফলন ঘটে ২০১৩ সালে ।২০১৩ সালে ফ্রাঙ্কোইস এঙ্গলার্টের সাথে  যৌথ ভাবে হিগস পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন।[১৫]হিগসকে ২০১৩ সালের নববর্ষের সম্মাননা অর্ডার অফ দ্য কম্প্যানিয়ন্স অফ অনারে নিযুক্ত করা হয়েছিল এবং ২০১৫ সালে রয়্যাল সোসাইটি তাকে বিশ্বের প্রাচীনতম বৈজ্ঞানিক পুরস্কার কোপলি মেডেল প্রদান করে।[১৬][১৭][১৮]

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

হিগস ইংল্যান্ডের নিউক্যাসল আপন টাইনের এলসউইক জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম থমাস ওয়্যার হিগস (১৮৯৮-১৯৬২) এবং মাতা গার্ট্রুড মাউড নে কোগিল (১৮৯৫-১৯৬৯)হিগসের বাবা বিবিসির একজন সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করতেন।[১৯] [২০] [২১] [২২] হিগস শৈশবে তার হাঁপানি অসুখ, তার বাবার চাকরি এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে পরিবারের সাথে একসাথে ঘুরে বেড়ানোর ফলে, হিগস প্রাথমিক বিদ্যালয়ের লেখাপড়ায় নিয়মিত হতে পারেননি তাই প্রাথমিক শিক্ষাটা তিনি বাড়িতেই চর্চা করেন। যখন তার বাবা বেডফোর্ডে স্থানান্তরিত হন, হিগস তখন তার মায়ের সাথে ব্রিস্টলই থেকে যান এবং সেখানেই বড় হন। তিনি (১৯৪১-১৯৪৬) ব্রিস্টলের কোথাম গ্রামার স্কুলে পড়াশোনা শুরু করেন।[২৩] যেখানে তিনি স্কুলের প্রাক্তন ছাত্রদের একজন, কোয়ান্টাম মেকানিক্সের প্রতিষ্ঠাতা পল ডিরাকের কাজের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন।

১৯৪৬ সালে, ১৭ বছর বয়সে, হিগস সিটি অফ লন্ডন স্কুলে ভর্তি হন। যেখানে তিনি গণিতে পারদর্শি হন, তারপর ১৯৪৭ সালে কিংস কলেজ লন্ডনে যান যেখানে তিনি ১৯৫০ সালে পদার্থবিজ্ঞানে প্রথম শ্রেণীর অনার্স ডিগ্রি নিয়ে স্নাতক হন এবং ১৯৫২ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি (১৮৫১ সালের প্রদর্শনীর জন্য রয়্যাল কমিশন থেকে ১৮৫১ রিসার্চ ফেলোশিপ লাভ করেন),[২৪]এবং চার্লস কুলসন এবং ক্রিস্টোফার লংগুয়েট-হিগিন্সের তত্ত্বাবধানে আণবিক পদার্থবিদ্যায় তিনি তার ডক্টরেট গবেষণা শুরু করেন।[২৫] তিনি ১৯৫৪ সালে কিংস কলেজ লন্ডন থেকে আণবিক কম্পনের তত্ত্বে কিছু সমস্যা শীর্ষক একটি থিসিস সহ পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।[২][২৬]

কর্মজীবন এবং গবেষণা[সম্পাদনা]

হিগস ডক্টরেট শেষ করার পর এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে (১৯৫৪-৫৬) একজন সিনিয়র রিসার্চ ফেলো নিযুক্ত হন। এরপর তিনি ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডন এবং ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনে বিভিন্ন পদে অধিষ্ঠিত হন (যেখানে তিনি গণিতের অস্থায়ী প্রভাষকও হয়েছিলেন)। তিনি ১৯৬০ সালে এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে এসে টেইট ইনস্টিটিউট অফ ম্যাথমেটিকাল ফিজিক্স-এ লেকচারার পদে যোগদান করেন, ১৯৪৯ সালে একজন ছাত্র হিসাবে ওয়েস্টার্ন হাইল্যান্ডে হিচহাইক করার সময় যে শহরটি তিনি খুব উপভোগ করেছিলেন সেখানেই তিনি বসতি স্থাপন করার সিদ্ধান্ত নেন।[২৭][২৮] সেখানে তিনি রিডার পদে উন্নীত হন, ১৯৭৪ সালে রয়্যাল সোসাইটি অফ এডিনবার্গ ( এফ আর এস ই) এর ফেলো হন এবং ১৯৮০ সালে তাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যার ব্যক্তিগত চেয়ারএ উন্নীত হন। তিনি ১৯৯৬ সালে অবসর গ্রহণ করেন এবং এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের এমেরিটাস অধ্যাপক হন।

হিগস ১৯৮৩ সালে রয়্যাল সোসাইটির (এফ আর এস) ফেলো নির্বাচিত হন এবং ১৯৯১ সালে ইনস্টিটিউট অফ ফিজিক্স (এফ আই এন এস টি পি) এর ফেলো নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৮৪ সালে রাদারফোর্ড মেডেল এবং পুরস্কারে ভূষিত হন। তিনি ১৯৯৭ সালে ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডিগ্রি লাভ করেন। ২০০৮ সালে তিনি কণা পদার্থবিদ্যায় কাজের জন্য সোয়ানসি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একটি সম্মানসূচক ফেলোশিপ পেয়েছিলেন।[২৯]

এডিনবার্গে হিগস প্রথমে ভরের প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠেন, এই ধারণাটি গড়ে তোলেন যে কণা - ভরবিহীন অবস্থায় যখন মহাবিশ্ব শুরু হয়েছিল - তখন একটি তাত্ত্বিক ক্ষেত্রের সাথে মিথস্ক্রিয়া করার ফলে এক সেকেন্ডের একটি ভগ্নাংশ ভর অর্জন করেছিল (যা হিগস ক্ষেত্র নামে পরিচিত হয়েছিল)। হিগস অনুমান করেছিলেন যে এই ক্ষেত্রটি স্থানকে প্রবাহিত করে, সমস্ত প্রাথমিক উপপারমাণবিক কণাকে ভর দেয় যা এটির সাথে যোগাযোগ করে।[৩০]

হিগস মেকানিজম হিগস ক্ষেত্রের অস্তিত্বকে অনুমান করে যা কোয়ার্ক এবং লেপটনের উপর ভর প্রদান করে।[৩১] যাইহোক, এটি প্রোটন এবং নিউট্রনের মতো অন্যান্য উপপারমাণবিক কণার ভরের একটি ক্ষুদ্র অংশের কারণ হয়। এগুলির মধ্যে, কোয়ার্কগুলিকে একত্রে আবদ্ধ গ্লুয়নগুলি বেশিরভাগ কণার ভর প্রদান করে।

হিগসের কাজের মূল ভিত্তি এসেছে জাপানি বংশোদ্ভূত তাত্ত্বিক এবং শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ইয়োচিরো নাম্বুর কাছ থেকে। প্রফেসর নাম্বু ঘনীভূত পদার্থে অতিপরিবাহীতায় যা ঘটতে পারে তার উপর ভিত্তি করে স্বতঃস্ফূর্ত প্রতিসাম্য ভাঙা নামে পরিচিত একটি তত্ত্ব প্রস্তাব করেছিলেন; যাইহোক, তত্ত্বটি ভরবিহীন কণার ভবিষ্যদ্বাণী করেছিল ( গোল্ডস্টোনের উপপাদ্য ), যা একটি স্পষ্টভাবে ভুল ভবিষ্যদ্বাণী।[৬]

হিগস তার এডিনবার্গ নিউ টাউন অ্যাপার্টমেন্টে ফিরে আসার পর তার তত্ত্বের মৌলিক বিষয়গুলো গড়ে তুলেছিলেন বলে জানা গেছে।[৩২][৩৩][৩৪] তিনি বলেছিলেন যে তত্ত্বের বিকাশে কোন "ইউরেকা মুহূর্ত" ছিল না।[৩৫] তিনি গোল্ডস্টোনের উপপাদ্যের একটি ত্রুটিকে কাজে লাগিয়ে সংক্ষিপ্ত গবেষনা পত্র লেখেন (স্থানীয় প্রতিসাম্য যখন আপেক্ষিক তত্ত্বে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভেঙে যায় তখন ভরবিহীন গোল্ডস্টোন কণার সৃষ্টি হয় না[৩৬] এবং এটি ১৯৬৪ সালে সুইজারল্যান্ডের সি ই আর এন-এ সম্পাদিত একটি ইউরোপীয় পদার্থবিদ্যা জার্নাল, ফিজিক্স জার্নালে-এ প্রকাশিত হয়।[৩৭]

হিগস একটি তাত্ত্বিক মডেল (এখন হিগস মেকানিজম নামে পরিচিত) বর্ণনা করে আরও একটি দ্বিতীয় গবেষণাপত্র লিখেছিলেন, কিন্তু সেটি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল (ফিজিক্স লেটার্সের সম্পাদকরা এটিকে "পদার্থবিদ্যার সাথে কোন সুস্পষ্ট প্রাসঙ্গিকতা নেই" বলে বিচার করেছিলেন)।[৩৮] হিগস পরে আরও একটি অতিরিক্ত অনুচ্ছেদ লেখেন এবং তার গবেষণাপত্র ফিজিক্যাল রিভিউ লেটার্সে পাঠিয়ে দেন, আরেকটি নেতৃস্থানীয় পদার্থবিদ্যা জার্নালে, যা পরে ১৯৬৪ সালে এটি প্রকাশ করেছিল। এই গবেষণাপত্রটি একটি নতুন স্পিন-জিরো বোসন (বর্তমানে হিগস বোসন নামে পরিচিত) ভবিষ্যদ্বাণী করেছিল।অন্যান্য পদার্থবিদ, রবার্ট ব্রাউট এবং ফ্রাঙ্কোইস এঙ্গলার্ট[৩৯] এবং জেরাল্ড গুরালনিক, সি.আর. হেগেন এবং টম কিবল[৪০] একই সময়ে একই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিলেন। প্রকাশিত সংস্করণে হিগস ব্রাউট এবং এনগেলার্টের উদ্ধৃতি এবং তৃতীয় পেপারটি আগেরগুলি উদ্ধৃত করেছে। হিগস, গুরালনিক, হেগেন, কিবল, ব্রাউট এবং এনগেলার্টের এই বোসন আবিষ্কারের উপর লেখা তিনটি গবেষণাপত্র প্রতিটি ফিজিক্যাল রিভিউ লেটারস ৫০তম বার্ষিকী উদযাপনের মাইলফলক পেপার হিসাবে স্বীকৃত।[৪১]যদিও এই বিখ্যাত পেপারগুলির প্রত্যেকটি একই ধরনের পন্থা নিয়েছিল, ১৯৬৪ সালের পিআরএল সিমেট্রি ব্রেকিং পেপারগুলির মধ্যে অবদান এবং পার্থক্যগুলি উল্লেখযোগ্য। প্রক্রিয়াটি ১৯৬২ সালে ফিলিপ অ্যান্ডারসন প্রস্তাব করেছিল যদিও তিনি একটি গুরুত্বপূর্ণ আপেক্ষিক মডেল অন্তর্ভুক্ত করেননি।[৪২]

২০১২ সালের ৪ জুলাই সি ই আর এন ঘোষণা করে আ্যটলাস এবং কমপ্যাক্ট মু্য়্যন সলেনয়েড (সি এম এস) পরীক্ষায় ১২৬ গিগা ইলেকট্রন ভল্টস(জি ই ভি)[৪৩] এর আশেপাশে ভর অঞ্চলে একটি নতুন কণার উপস্থিতির জন্য শক্তিশালী ইঙ্গিত পাওয়া গেছে, যা হিগস বোসন হতে পারে। জেনেভায় সেমিনারে বক্তৃতাকালে হিগস মন্তব্য করেছিলেন "এটি সত্যিই একটি অবিশ্বাস্য বিষয় যে এটি আমার জীবদ্দশায় ঘটেছে।"

পুরস্কার এবং সম্মান[সম্পাদনা]

হিগস অসংখ্য সম্মাননা পেয়েছে যার মধ্যে রয়েছে:

নাগরিক পুরস্কার[সম্পাদনা]

এডিনবার্গ পুরস্কারের হাতের ছাপ

হিগস ২০১১ সালের জন্য এডিনবার্গ পুরস্কার প্রাপ্ত হন। তিনি এই পুরস্কার প্রাপ্ত পঞ্চম ব্যক্তি, যে পুরস্কারটি  ২০০৭ সালে সিটি অফ এডিনবার্গ কাউন্সিল দ্বারা প্রবর্তিত হয়েছিল। যে পুরস্কারটি এমন একজন অসামান্য ব্যক্তিকে সম্মান করার জন্য দেওয়া হয় যিনি শহরের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছেন এবং জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করেছেন। পুরস্কারটি এডিনবার্গের জন্য আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি।[৪৪]

২০১২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারী রোজ শুক্রবার এ সিটি চেম্বার্সে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে এডিনবার্গের লর্ড প্রভোস্ট আরটি হোন জর্জ গ্রুব থেকে হিগসকে একটি খোদাই করা প্রেমময় কাপ উপহার দেওয়া হয়েছিল। এই ইভেন্টটি সিটি চেম্বার চতুর্ভুজে তার হাতের ছাপের উন্মোচনকেও চিহ্নিত করেছিল, যেখানে তারা পূর্ববর্তী এডিনবার্গ পুরস্কার প্রাপ্তদের পাশাপাশি ক্যাথনেস পাথরে খোদাই করা হয়েছিল।[৪৫][৪৬][৪৭]

হিগসকে ২০১৩ সালের জুলাই মাসে ব্রিস্টল শহরের ফ্রিডম পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।২০১৪ সালের এপ্রিলে তিনি টাইনের শহরের ফ্রিডম অফ নিউক্যাসল উপাধিতে ভূষিত হন। নিউক্যাসল গেটসহেড ইনিশিয়েটিভ লোকাল হিরোস ওয়াক অফ ফেমের অংশ হিসাবে নিউক্যাসল কোয়েসাইডে তৈরি করা একটি পিতলের ফলক দিয়েও তাকে সম্মানিত করা হয়েছিল।

হিগস সেন্টার ফর থিওরিটিক্যাল ফিজিক্স[সম্পাদনা]

২০১২ সালের ৬ জুলাই এ, এডিনবার্গ ইউনিভার্সিটি তাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যায় ভবিষ্যত গবেষণাকে সমর্থন করার জন্য অধ্যাপক হিগসের নামে একটি নতুন কেন্দ্র ঘোষণা করেছে।যার নাম হিগস সেন্টার ফর থিওরিটিক্যাল ফিজিক্স। যেটি সারা বিশ্ব থেকে বিজ্ঞানীদের একত্রিত করে "কীভাবে মহাবিশ্ব কাজ করে তার একটি গভীর উপলব্ধি" খোঁজার জন্য।[৪৮] কেন্দ্রটি বর্তমানে জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েল বিল্ডিং-এর মধ্যে অবস্থিত, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অফ ফিজিক্স অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোনমি এবং(আ জি ই এম) টিম ২০১৫। বিশ্ববিদ্যালয়টি পিটার হিগসের নামে তাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যার একটি চেয়ারও স্থাপন করেছে।[৪৯][৫০]

পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার[সম্পাদনা]

৮ অক্টোবর ২০১৩-সালে নোবেল কমিটি ঘোষণা করে যে পিটার হিগস এবং ফ্রাঁসোয়া এনগেলার্ট পদার্থবিজ্ঞানে ২০১৩ সালের নোবেল পুরস্কার ভাগ করে নেবেন "একটি প্রক্রিয়ার তাত্ত্বিক আবিষ্কারের জন্য যা আমাদের বোঝার জন্য উপ-পরমাণু কণার ভরের উত্স সম্পর্কে অবদান রাখে" এবং যা সম্প্রতি নিশ্চিত করা হয়েছিল।[৫১] সি ই আর এন-এর লার্জ হ্যাড্রন কোলাইডারেএ্যটলাস এবং সি এম এস পরীক্ষার মাধ্যমে ভবিষ্যদ্বাণীকৃত মৌলিক কণার আবিষ্কারের মাধ্যমে"।হিগস স্বীকার করেছেন যে তিনি মিডিয়ার মনোযোগ এড়াতে বাইরে গিয়েছিলেন[৫২]এবং তার কাছে মোবাইল ফোন না থাকায় পুরুস্কারের বিষয়টি তার বাড়িতে যাওয়ার পথে একজন প্রাক্তন প্রতিবেশীর কাছ থেকে তিনি জানতে পারেন।[৫৩][৫৪]

সম্মানের সঙ্গী[সম্পাদনা]

হিগস ১৯৯৯ সালে নাইটহুড প্রত্যাখ্যান করেছিলেন, কিন্তু ২০১২ সালে তিনি দ্য অর্ডার অফ দ্য কম্প্যানিয়ন অফ অনারের সদস্যপদ গ্রহণ করেছিলেন।[৫৫][৫৬] যদিও তিনি পরে বলেছিলেন যে তিনি শুধুমাত্র আদেশটি গ্রহণ করেছিলেন কারণ তাকে ভুলভাবে বোঝানো হয়েছিল যে পুরস্কারটি একা রানীর উপহার। তিনি অনার্স সিস্টেম এবং যেভাবে "ক্ষমতায় থাকা সরকার রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে এটি ব্যবহার করে" তার প্রতি নিন্দাবাদও প্রকাশ করেন। আদেশটি কোন শিরোনাম বা অগ্রাধিকার প্রদান করে না, তবে অর্ডারের প্রাপকরা নামমাত্র অক্ষর  সি এইচ ব্যবহার করার অধিকারী। একই সাক্ষাত্কারে তিনি আরও বলেছিলেন যে লোকেরা যখন জিজ্ঞাসা করে যে তার নামের পরে CH কী বোঝায়, তিনি উত্তর দেন "এর মানে আমি একজন সম্মানিত সুইস।"[৫৭] ১ জুলাই ২০১৪[৫৮]

সম্মানসূচক ডিগ্রী[সম্পাদনা]

জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েল ফাউন্ডেশনে ঝুলন্ত লুসিন্ডা ম্যাকের পিটার হিগসের প্রতিকৃতি

হিগসকে নিম্নলিখিত প্রতিষ্ঠানগুলি থেকে সম্মানসূচক ডিগ্রি প্রদান করা হয়েছে:

  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি অফ ব্রিস্টল ১৯৯৭
  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি অফ এডিনবার্গ১৯৯৮
  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি অফ গ্লাসগো ২০০২
  • ডিএসসি সোয়ানসি ইউনিভার্সিটি ২০০৮
  • ডিএসসি কিংস কলেজ লন্ডন ২০০৯
  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন২০১০
  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি অফ কেমব্রিজ ২০১২
  • ডিএসসি হেরিওট ওয়াট বিশ্ববিদ্যালয়২০১২
  • পিএইচডি এস আই এস এস এ,ট্রিসট ২০১৩
  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি অফ ডারহাম ২০১৩
  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি অফ ম্যানচেস্টার ২০১৩
  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি অফ সেন্ট অ্যান্ড্রুজ ২০১৪
  • ডিএসসি ফ্রি ইউনিভার্সিটি অফ ব্রাসেলস (ইউএলবি)২০১৪
  • ডিএসসি ইউনিভার্সিটি অফ নর্থ ক্যারোলিনা চ্যাপেল হিল ২০১৫
  • ডিএসসি কুইন্স ইউনিভার্সিটি বেলফাস্ট২০১৫
  • হিগস এর একটি প্রতিকৃতি২০০৮ সালে চিত্রশিল্পী কেন কুরি এঁকেছিলেন।[৫৯]

হিগস এর একটি প্রতিকৃতি২০০৮ সালে চিত্রশিল্পী কেন কুরি এঁকেছিলেন।এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিশন কর্তৃক এটি ৩ এপ্রিল ২০০৯-এ উন্মোচিত হয় এবং স্কুল অফ ফিজিক্স অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোনমি এবং স্কুল অফ ম্যাথমেটিক্সের জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েল ভবনের প্রবেশদ্বারে ঝুলানো হয়েছিল।[৬০][৬১] লুসিন্ডা ম্যাকের তৈরি হিগসের একটি বড় প্রতিকৃতি এডিনবার্গের স্কটিশ ন্যাশনাল পোর্ট্রেট গ্যালারির সংগ্রহে রয়েছে। একই শিল্পীর দ্বারা হিগসের আরেকটি প্রতিকৃতি জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েলের জন্মস্থান এডিনবার্গে ঝুলানো হয়েছে, হিগস হলেন জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েল ফাউন্ডেশনের অনারারি পৃষ্ঠপোষক। চিত্রশিল্পী ভিক্টোরিয়া ক্রোয়ের তৈরি হিগসের একটি প্রতিকৃতি রয়্যাল সোসাইটি অফ এডিনবার্গ কমিশন কর্তৃক করা হয়েছিল এবং২০১৩ সালে সেটি উন্মোচন করা হয়েছিল।[৬২][৬৩]

ব্যক্তিগত জীবন এবং রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি[সম্পাদনা]

হিগস ১৯৬৩ সালে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ অভিযান (সি এন ডি) এর সহকর্মী জোডি উইলিয়ামসনকে বিয়ে করেন। তাদের প্রথম ছেলের জন্ম ১৯৬৫ সালের আগস্টে হয়।[৬৪] হিগসের পরিবারে দুই পুত্র রয়েছে: ক্রিস, একজন কম্পিউটার বিজ্ঞানী এবং জনি, একজন জ্যাজ সঙ্গীতজ্ঞ।তার দুই নাতি-নাতনি আছে। পুরো পরিবার এডিনবার্গে বসবাস করে।[৬৫]

হিগস লন্ডনে এবং পরে এডিনবার্গে থাকাকালীন সিএনডি-এর একজন কর্মী ছিলেন, কিন্তু যখন গোষ্ঠীটি পারমাণবিক অস্ত্রের বিরুদ্ধে প্রচারণা থেকে পারমাণবিক শক্তির বিরুদ্ধে প্রচারণা চালানোর জন্য ছাড় দেওয়া বাড়িয়ে দেয় তখন তিনি তার সদস্যপদ থেকে পদত্যাগ করেন। গ্রুপটি জেনেটিকালি পরিবর্তিত জীবের বিরোধিতা না করা পর্যন্ত তিনি গ্রিনপিসের সদস্য ছিলেন।

হিগসকে ২০০৪ সালে পদার্থবিদ্যায় উলফ পুরস্কার দেওয়া হয়েছিল (রবার্ট ব্রাউট এবং ফ্রাঙ্কোইস এনগেলার্টের সাথে এটি যৌথ ভাবে দেওয়া হয়েছিল), কিন্তু তিনি পুরস্কার গ্রহণের জন্য জেরুজালেমে যেতে অস্বীকার করেছিলেন কারণ এটি একটি রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান ছিল যেখানে ইসরায়েলের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি মোশে কাটসাভ এবং হিগস উপস্থিত থাকার কথা। হিগস ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের কর্মকাণ্ডের বিরোধী ছিল।

হিগস অ্যাসোসিয়েশন অফ ইউনিভার্সিটি টিচার্সের এডিনবার্গ ইউনিভার্সিটি শাখায় সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন, যার মাধ্যমে তিনি পদার্থবিদ্যা বিভাগের ব্যবস্থাপনায় বৃহত্তর কর্মীদের জড়িত থাকার জন্য আন্দোলন করেছিলেন।[৬৬]

হিগস একজন নাস্তিক।[৬৭] তিনি রিচার্ড ডকিন্সকে অনাস্তিকদের একটি "মৌলবাদী" দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণ করেছেন বলে বর্ণনা করেছেন।[৬৮] হিগস পরে প্রকাশ করেছিলেন যে তিনি অসন্তুষ্ট ছিলেন যে হিগস কণাকে "ঈশ্বর কণা" ডাকনাম দেওয়ার কারনে, কারণ তিনি বিশ্বাস করেন যে এই শব্দটি "ধর্মীয় লোকেদের বিরক্ত করতে পারে"।[৬৯] সাধারণত হিগস বোসনের এই ডাকনামটি দ্য গড পার্টিকেল: ইফ দ্য ইউনিভার্স ইজ দ্য অ্যানসার, হোয়াট ইজ দ্য কোশ্চেনস? বইটির লেখক লিওন লেডারম্যানকে দায়ী করা হয়, তবে নামটি লেডারম্যানের প্রকাশকের পরামর্শে দেওয়া হয়: লেডারম্যান মূলত এটিকে "গডডাম পার্টিকেল" হিসাবে উল্লেখ করতে চেয়েছিল।[৭০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Peter Higgs: a truly British scientist"। ১০ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১৬ 
  2. Higgs, Peter Ware (১৯৫৪)। Some problems in the theory of molecular vibrationsethos.bl.uk (গবেষণাপত্র)। King's College London (University of London)। ওসিএলসি 731205676টেমপ্লেট:EThOS। ১৪ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ নভেম্বর ২০১৭ 
  3. গণিত উদ্ভববিজ্ঞান প্রকল্পে পিটার হিগস
  4. "Peter Ware Higgs"ph.ed.ac.uk। ১৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। initially under the supervision of Charles Coulson and subsequently Christopher Longuet-Higgins 
  5. "Professor Christopher Bishop elected Fellow of the Royal Society of Edinburgh"। [[]]। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  6. Griggs, Jessica (Summer 2008) The Missing Piece ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে Edit the University of Edinburgh Alumni Magazine, p. 17
  7. Overbye, Dennis (১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪)। "A Discoverer as Elusive as His Particle"New York Times। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  8. Overbye, Dennis.
  9. Griffiths, Martin (১ মে ২০০৭)। "The tale of the blogs' boson"Physics World। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  10. Fermilab Today (16 June 2005) Fermilab Results of the Week.
  11. "Higgs boson-like particle discovery claimed at LHC"BBC। ৪ জুলাই ২০১২। ৩১ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুন ২০১৮ 
  12. Rincon, Paul (10 March 2004) Fermilab 'God Particle' may have been seen ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৯ জুলাই ২০০৮ তারিখে Retrieved on 27 May 2008
  13. Staff (29 November 2012) Peter Higgs: Curriculum Vitae ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৪ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে The University of Edinburgh, School of Physics and Astronomy, Retrieved 9 January 2012
  14. "Higgs boson breakthrough should earn physicist behind search Nobel Prize: Stephen Hawking"National Press। ৪ জুলাই ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০১২ 
  15. Amos, Jonathan (8 October 2013) Higgs: Five decades of noble endeavour ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১১ জুন ২০১৬ তারিখে BBC News Science and Environment; retrieved 8 October 2013
  16. "নং. 60367"দ্যা লন্ডন গেজেট (সম্পূরক) (ইংরেজি ভাষায়)। ২৯ ডিসেম্বর ২০১২। 
  17. Rincon, Paul (২৮ ডিসেম্বর ২০১২)। "Peter Higgs: honour for physicist who proposed particle"BBC News website। ২৯ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১২ 
  18. "Prof Peter Higgs wins the Royal Society's Copley Medal"BBC News। ২০ জুলাই ২০১৫। ২৩ জুলাই ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুলাই ২০১৫ 
  19. GRO Register of Marriages: Thomas W Higgs = Gertrude M Coghill, Sep 1924 6a 197 Bristol
  20. GRO Register of Births: Peter W Higgs, Jun 1929 10b 72 Newcastle T., mmn = Coghill
  21. Sample, Ian.
  22. Macdonald, Kenneth (10 April 2013) Peter Higgs: Behind the scenes at the Universe ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৫ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে.
  23. The Cotham Grammar School, a High-Performing Specialist Co-operative Academy The Dirac-Higgs Science Centre ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৩ মে ২০১৩ তারিখে Retrieved 10 January 2013
  24. 1851 Royal Commission Archives
  25. Higgs, Peter Ware (১৯৫৪)। Some problems in the theory of molecular vibrationsethos.bl.uk (গবেষণাপত্র)। King's College London (University of London)। ওসিএলসি 731205676টেমপ্লেট:EThOS। ১৪ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ নভেম্বর ২০১৭ 
  26. King's College London। "Professor Peter Higgs"। ১১ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৩ 
  27. Mackenzie, Kate (2012) "It Was Worth The Wait" The Interview, The University of Edinburgh Alumni Magazine, Winter 2012/13
  28. Professor Peter Higgs broadcast footage। University of Edinburgh। ২০১২। event occurs at 2:00। ২১ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১২ 
  29. "Swansea University Honorary Fellowship"Swansea University। ১২ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ ডিসেম্বর ২০১১ 
  30. "Higgs particle" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ নভেম্বর ২০০৭ তারিখে, Encyclopædia Britannica, 2007.
  31. Rajasekaran, G. (২০১২)। "Standard model, Higgs Boson and what next?": 956–973। ডিওআই:10.1007/s12045-012-0110-z 
  32. Martin, Victoria (14 December 2011) Soon we’ll be able to pinpoint that particle ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৪ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে The Scotsman, Retrieved 10 January 2013
  33. Collins, Nick (4 July 2012) Higgs boson: Prof Stephen Hawking loses $100 bet ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৬ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে The Telegraph.
  34. Staff (4 July 2012) Scientists discover 'God' particle ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩ জুন ২০১৩ তারিখে The Herald.
  35. "Meeting the Boson Man: Professor Peter Higgs"BBC News। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২। ২০ জুন ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুন ২০১৮ 
  36. Staff (5 January 2012) Brief History of the Higgs Mechanism ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১২ নভেম্বর ২০১২ তারিখে The Edinburgh University School of Physics and Astronomy, Retrieved 10 January 2013
  37. Higgs, P. W. (১৯৬৪)। "Broken symmetries, massless particles and gauge fields"। Physics Letters12 (2): 132–201। ডিওআই:10.1016/0031-9163(64)91136-9বিবকোড:1964PhL....12..132H 
  38. Higgs, P. (১৯৬৪)। "Broken Symmetries and the Masses of Gauge Bosons"। Physical Review Letters13 (16): 508–509। ডিওআই:10.1103/PhysRevLett.13.508অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:1964PhRvL..13..508H 
  39. Englert, F.; Brout, R. (১৯৬৪)। "Broken Symmetry and the Mass of Gauge Vector Mesons"। Physical Review Letters13 (9): 321। ডিওআই:10.1103/PhysRevLett.13.321অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:1964PhRvL..13..321E 
  40. Guralnik, G.; Hagen, C.; Kibble, T. (১৯৬৪)। "Global Conservation Laws and Massless Particles"। Physical Review Letters13 (20): 585। ডিওআই:10.1103/PhysRevLett.13.585অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:1964PhRvL..13..585G 
  41. "Physical Review Letters – 50th Anniversary Milestone Papers"। Prl.aps.org। ১০ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০১২ 
  42. Anderson, P. (১৯৬৩)। "Plasmons, Gauge Invariance, and Mass"। Physical Review130 (1): 439–442। ডিওআই:10.1103/PhysRev.130.439বিবকোড:1963PhRv..130..439A 
  43. "Higgs within reach"। CERN। ৪ জুলাই ২০১২। ১৩ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১২ 
  44. "The Edinburgh Award"। The City of Edinburgh Council। ২৯ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১২ 
  45. "Acclaimed physicist presented with Edinburgh Award"। The City of Edinburgh Council। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১২। ৩১ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১২ 
  46. "'They'll find the God particle by summer.' And Peter Higgs should know"The Scotsman। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১২। ৬ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১২ 
  47. "Higgs: Edinburgh Award is a great surprise"। BBC। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২। ৪ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১২ 
  48. "Higgs Centre for Theoretical Physics"। The University of Edinburgh। ১৬ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৮ 
  49. "Prof Higgs: nice to be right about boson"The Guardian। London। ৬ জুলাই ২০১২। ১২ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১২ 
  50. "University to support new physics research"। The University of Edinburgh। ৬ জুলাই ২০১২। ৯ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১২ 
  51. "Press release from Royal Swedish Academy of Sciences" (PDF)। ৮ অক্টোবর ২০১৩। ৮ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৩ 
  52. Boucle, Anna (১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "The Life Scientific"। BBC RADIO4। ২৩ মে ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০১৫ 
  53. "Peter Higgs was told about Nobel Prize by passing motorist"। ১৫ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০১৮ 
  54. "Prof Peter Higgs did not know he had won Nobel Prize"BBC News। ১১ অক্টোবর ২০১৩। ২৮ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুন ২০১৮ 
  55. "Peter Higgs turned down knighthood from Tony Blair"The Scotsman। ১৬ অক্টোবর ২০১৩। ১২ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০১৪ 
  56. Rincon, Paul (২৯ ডিসেম্বর ২০১২)। "Peter Higgs: honour for physicist who proposed particle"BBC News। ৮ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০১৪ 
  57. Aitkenhead, Decca (৬ ডিসেম্বর ২০১৩)। "Peter Higgs interview: 'I have this kind of underlying incompetence'"The Guardian। ২০ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০১৪ 
  58. Press Association (১ জুলাই ২০১৪)। "Physicist Higgs honoured by Queen"The Courier। ১৪ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  59. "Portrait of Peter Higgs by Ken Currie, 2010"The Tait Institute। ২৩ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ এপ্রিল ২০১১ 
  60. "Great minds meet at portrait unveiling"The University of Edinburgh। ৬ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ এপ্রিল ২০১১ 
  61. Wade, Mike। "Portrait of a man at beginning of time"The Times। London। সংগ্রহের তারিখ ২৮ এপ্রিল ২০১১ (সদস্যতা প্রয়োজনীয়)
  62. "Prof Peter Higgs: New portrait of boson particle physicist"BBC। ২৩ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  63. Baggot, Jim (২০১২)। Higgs The invention and discovery of the 'God Particle' (First সংস্করণ)। Fountaindale Public Library: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 90–91। আইএসবিএন 978-0-19-960349-7 
  64. Baggot, Jim (২০১২)। Higgs The invention and discovery of the 'God Particle' (First সংস্করণ)। Fountaindale Public Library: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 90–91। আইএসবিএন 978-0-19-960349-7 
  65. "Interview: the man behind the 'God particle'", New Scientist 13 September 2008, pp. 44–45 (সদস্যতা প্রয়োজনীয়) ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৩ সেপ্টেম্বর ২০০৮ তারিখে
  66. Aitkenhead, Decca (৬ ডিসেম্বর ২০১৩)। "Peter Higgs interview: 'I have this kind of underlying incompetence'"The Guardian। ২০ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০১৪ 
  67. Sample, Ian (১৭ নভেম্বর ২০০৭)। "The god of small things"The Guardian। London। ১ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৩The name has stuck, but makes Higgs wince and raises the hackles of other theorists. "I wish he hadn't done it," he says. "I have to explain to people it was a joke. I'm an atheist, but I have an uneasy feeling that playing around with names like that could be unnecessarily offensive to people who are religious." 
  68. Farndale, Nigel (২৯ ডিসেম্বর ২০১২)। "Has Richard Dawkins found a worthy opponent at last?"The Daily Telegraph। London। ১০ মে ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৯ 
  69. Key scientist sure "God particle" will be found soon Reuters news story. 7 April 2008.
  70. Randerson, James (৩০ জুন ২০০৮)। "Father of the 'God Particle'"The Guardian। London। ১ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০১৬