পানীয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চা বিশ্বের দ্বিতীয় পরিবেশিত পানীয়

পানীয় হচ্ছে তরল সমৃদ্ধ মানুষের একটি ভোগপণ্য। সন্তোষজনক তৃষ্ণার মৌলিক চাহিদা ছাড়াও পানীয় মানব সংস্কৃতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সাধারণ পানযোগ্য পানি, দুধ, চা, গরম চকলেট, জুস এবং কোমল পানীয় সাধারণ ধরনের পানীয়ের অন্তর্ভুক্ত। এছাড়াও মদ, বিয়ার এবং লিকুওর (ইথানল মিশ্রিত নেশাগ্রস্থ মাদকদ্রব্য) ৮০০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মানব সংস্কৃতির অংশ হিসেবে দাড়িয়েছে।

অ্যালকোহলমুক্ত পানীয়গুলোকে পানীয় হিসেবে চিহ্নিত এবং যারা সাধারণত অ্যালকোহলযুক্ত, যেমন— বিয়ার এবং মদ, তারা ০.৫ শতাংশের কম পরিমাণ অ্যালকোহল দিয়ে তৈরি। অ্যালকোহল ভিত্তিক প্রক্রিয়ায় পানীয়গুলো শ্রেণিতে অন্তর্ভুক্ত হয়, যেমন— অ্যালকোহলমুক্ত বিয়ার এবং ডি-অ্যালকোহলযুক্ত মদ।

পরিচ্ছেদসমূহ

জীবতত্ত্ব[সম্পাদনা]

যখন মানব দেহে পানিশূন্যতা দেখা দেয়, তখন তৃষ্ণা বা পিপাসা অনুভূত হয়। তরলের এই চাহিদা (তৃষ্ণা) স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে পানীয় পান করতে সাহায্য করে। শরীরের ইলেক্ট্রোলাইট স্তরের সূক্ষ্ম পরিবর্তনের প্রতিক্রিয়া এবং রক্ত ​​সঞ্চালনের পরিমাণ পরিবর্তনের ফলে হাইপোথ্যালামাস দ্বারা তৃষ্ণা নিয়ন্ত্রিত হয়। শরীর থেকে পানীয়, যেমন— পানি সম্পূর্ণরূপে নির্মূলকরণে বা অপসারণে, অন্য কোনো পদার্থ অপসারণের চেয়ে দ্রুত মৃত্যু ঘটবে।[১] ইতিহাস ব্যাপী পানি ও দুধ হচ্ছে অপরিহার্য পানীয়।[১] পানি জীবনের অপরিহার্য অংশ তবে এটি অনেক রোগের বাহক।[২]

সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় প্রাপ্ত উদ্ভিদ থেকে অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় তৈরির কৌশলসমূহ আবিষ্কৃত হয়। মদ উৎপাদনের প্রাচীনতম প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন এখন জর্জিয়া (খৃষ্টপূর্ব—৬,০০০ অব্দ)[৩][৪][৫]ইরান (খৃষ্টপূর্ব—৫,০০০ অব্দ)[৬] এর স্থানে পাওয়া যায়। খৃষ্টপূর্ব ৩,০০০ অব্দ[৭] পূর্বে নিওলিথিক ইউরোপে বিয়ার পরিচিত ছিল এবং ইহা প্রধানত গৃহজাত মানদণ্ডে উৎপাদিত হত।[৮] মানব দক্ষতার প্রযুক্তির বিকাশ ও সভ্যতা বিকাশের জন্য বিয়ার (এবং রুটি) আবিষ্কার হয়েছে বলে দাবি করা হয়।[৯][১০][১১] চা সম্ভবত চীনের ইউনানে শং বংশের সময় (খৃষ্টপূর্ব—১,৫০০ অব্দ - খৃষ্টপূর্ব—১,০৪৬ অব্দ) একটি ঔষধি পানীয় হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল।[১২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

কারাভাজিওর ব্যাচাসের ব্যাখ্যা

পানীয় পান করা শতাব্দী জুড়ে সামাজিকীকরণের একটি বড় অংশ হিসাবে দাঁড়িয়েছে। প্রাচীন গ্রীসে মদ্যপান করার জন্য সিম্পোজিয়াম (সভা) নামক একটি সামাজিক জনসমাবেশ হত, যেখানে মদ্যপান করে মাতাল হত। সরাসরি ইচ্ছাপূরণ করতে উক্ত জনসভায় আলোচনা করা হত। প্রাচীন রোমে একটি কনভিভিয়াম অনুরূপ ধারণা নিয়মিত সংঘটিত হত।

অনেক সমাজ মদকে দেবতার কাছ থেকে পাওয়া একটি উপহার বলে মনে করে,[১৩] যা ডায়োনাইসিস এর মত দেবতারা সৃষ্টি করে থাকে। বিভিন্ন কারণে মাদক জাত পানীয় সমূহকে অন্যান্য ধর্মে নিষিদ্ধ, নিরুৎসাহিত বা সীমিত করা হয়। প্রভাবশালী ধর্মের কিছু অঞ্চলে মাদক জাত পানীয়ের উৎপাদন, বিক্রয় এবং ব্যবহার নির্বিশেষে সকল ধর্মের লোকজনের জনের জন্য নিষিদ্ধ।

একজন ব্যক্তিকে মদ বা পানীয় দেওয়ার মাধ্যমে সম্মান অথবা আপ্যায়ন করা হয়।[১৩] আরেকটি ঐতিহ্যবাহী পদ্ধতি হল লাভিং কাপ (দুই হাতল বিশিষ্ট পানীয় পান করার কাপ) এর মাধ্যমে বিয়ে বা খেলাধুলা বিজয়ী উৎসবের মতো অন্যান্য উৎসবের মধ্য একটি বৃহৎ দল পানীয় ভাগ করে নেবে যতক্ষণ না পর্যন্ত পানীয় শেষ হয়।[১৩]

দক্ষিণ আফ্রিকা ও ইয়েমেনে স্থানীয় ধর্মীয় উৎসবে কফি ব্যবহার করা হত। এই অনুষ্ঠানগুলো খ্রিস্টান চার্চের সাথে দ্বন্দ্বের জন্য সম্রাট দ্বিতীয় মেনেলিক[১৪] এর শাসন পর্যন্ত ইথিওপীয় চার্চ ধর্মনিরপেক্ষতার জন্য কফি পান নিষিদ্ধ করেছিল। ১৭তম শতাব্দীতে রাজনৈতিক কারণে এবং ইউরোপের বিদ্রোহী রাজনৈতিক ক্রিয়াকলাপের জন্য অটোমান তুর্কিতে[১৫] কফি নিষিদ্ধ করা হয়।

উৎপাদন[সম্পাদনা]

পানীয় হচ্ছে একটি তরল আকার যা মানুষের ভোগের জন্য প্রস্তুত করা হয়। প্রস্তুতির মধ্যে বিভিন্ন ধাপের কয়েকটি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে, কিছু পরিবহনের আগে, অন্যরা তাৎক্ষণিক ব্যবহারের আগে।

পানি পরিশোধন[সম্পাদনা]

সকল পানীয়তে পানি প্রধান উপাদান ও বেশিরভাগই প্রাথমিক উপাদান হিসেবে বিদ্যমান। পানি পান করার আগে পরিশোধন করা হয়। পরিশোধন করার পদ্ধতির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে পরিস্রাবণ ও রাসায়নিক উপাদান সংযোজন, যেমন— ক্লোরিনেশন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিশোধিত পানির গুরুত্ব তুলে ধরে উল্লেখ করেছে যে— শতকরা ৯৪ ভাগ লোকজন ডায়রিয়ায় মৃত্যুবরণ করেছেন যা বিশ্ব বিস্তৃত ১.৮ মিলিয়ন লোকজনের সংক্রামক মৃত্যুর তৃতীয় বৃহত্তম কারণ। ক্ষতি রোধ ও পরিবেশের গুনগত মান উন্নত করে বিশেষত নিরাপদ পানি পাওয়া সম্ভব।[১৬]

পাস্তুরায়ন[সম্পাদনা]

পাস্তুরায়ন হল একটি নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় তরলে তাপ প্রদান করার প্রক্রিয়া, তারপর দ্রুত শীতল করা হয়। প্রক্রিয়াটি তরলের অনুজীব হ্রাস করে, যার দরুন খাবার পঁচনের আগের সময় বৃদ্ধি করে দেয়। অর্থাৎ খাবারে দেরিতে পঁচন ধরে। ইহা প্রাথমিকভাবে দুধে ব্যবহৃত হয়, যা পাস্তুরায়নের আগে সাধারণত প্যাথোজেনিক ব্যাক্টেরিয়ায় আক্রান্ত হয় এবং তাই উন্নত বিশ্বে সাধারণ ডায়েটের অন্য যে কোনও অংশের চেয়ে বেশি অসুস্থতা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।[১৭]

জুসিং[সম্পাদনা]

প্রথমত মধ্যযুগ— এ উন্নত করা হয়েছিল, ঝুড়ি প্রেসগুলোতে ওয়াইন তৈরিতে দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে।

জুস বা রস আহরণের পদ্ধতিটি ফল ও শাক-সবজি থেকে বিভিন্নভাবে নিতে পারে। সাধারণ নিষ্পেষণের দ্বারা একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিমাণে তরল সরবরাহ হয়, যদিও তীব্র চাপ প্রয়োগের দ্বারা ফল থেকে সর্বোচ্চ পরিমাণ রস পাওয়া যায়। পেষণ ও চাপন উভয়ই ওয়াইন উৎপাদনে ব্যবহৃত প্রক্রিয়া।

ইনফিউশন বা আধান[সম্পাদনা]

ইনফিউশন বা আধান হল উদ্ভিদজাত উপাদান থেকে পানির অভ্যন্তরে উপাদানসমূহ স্থগিত রাখার মাধ্যমে ফ্লেভার বা স্বাদ আহরণের প্রক্রিয়া। এই প্রক্রিয়াটি চা, ভেষজ চা উৎপাদনে ব্যবহৃত হয় এবং কফি প্রস্তুত করতে ব্যবহৃত হতে পারে (কোনও কফি চাপণ এর সময়)।

অনুস্রবণ বা পারকোলেশন[সম্পাদনা]

অনুস্রবণ বা পারকোলেশন নামটি Percolate (পরিস্রুত করা) শব্দটি থেকে উদ্ভূত হয়েছে যার অর্থ একটি দ্রাবক উপাদান বিশেষত দ্রবণীয় উপাদানসমূহ আহরণের জন্য একটি বায়ুযুক্ত পদার্থের মধ্য দিয়ে যেতে হয়।[১৮] দ্রবীভূত কফির দ্রবণটি হল পানি, বহনযোগ্য পদার্থ হল কফির ভিত্তি এবং দ্রবণীয় উপাদান হল রাসায়নিক যৌগ যা কফিকে তার রঙ, স্বাদ, সুগন্ধ এবং উদ্দীপক বৈশিষ্ট্য দেয়।

কার্বোনেশন[সম্পাদনা]

কার্বোনেশন হল কার্বন ডাই-অক্সাইড কে পানির মতো করে তরলে দ্রবীভূত করার প্রক্রিয়া।

গাঁজন[সম্পাদনা]

গাঁজন একটি বিপাক প্রক্রিয়া যা চিনিকে ইথানলে রূপান্তর করে। নিওলিথিক যুগ থেকেই পানীয় উৎপাদন করার জন্য মানুষ গাঁজন প্রক্রিয়া ব্যবহার করে আসছে। ওয়াইন তৈরিতে আঙুরের রস খামিরের।সাথে মিশ্রিত করা হয় যাতে অ্যানারাবিক পরিবেশে গাঁজন গ্রহণযোগ্য হয়।[১৯] আঙ্গুরের রসে পরিমাণ মতো চিনির পরিমাণ এবং উত্তোলনের জন্য প্রদত্ত সময়ের দৈর্ঘ্য অ্যালকোহলের স্তর এবং ওয়াইনের মাধুরী নির্ধারণ করে।[২০]

বিয়ার তৈরির জন্য চারটি প্রাথমিক উপাদান ব্যবহার করা হয়— পানি, শস্য, খামির ও হপ (লতা বিশেষ)। তাপে ভিজিয়ে শুকনা দানা অঙ্কুরিত করতে সাহায্য করে, এটি প্রক্রিয়াজাতকরণ হিসাবে পরিচিত। এরপরে উত্তেজকের জন্য প্রয়োজনীয় শর্করা তৈরি করতে আবার ভিজানোর আগে এটি মিশ্রিত করা হয়। এই প্রক্রিয়াটি ম্যাশিং হিসাবে পরিচিত। গন্ধের জন্য হপ যোগ করা হয়, তারপরে খামিরটি মিশ্রণে যোগ করা হয় (বর্তমানে ওয়ার্ট নামে পরিচিত) গাঁজন প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য।[২১]

পাতন[সম্পাদনা]

একটি পুরাতন হুইস্কি পাতন

পাতন হল বাষ্পীভবন ও ঘনীভবন প্রক্রিয়ার সমন্বয়ে গঠিত একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে মিশ্রণ থেকে যেকোনো তরলকে পৃথক করা যায়। এটি পানি পরিশোধন ব্যবস্থার মধ্যে একটি অন্যতম পদ্ধতি। এটি হালকা অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় থেকে স্পিরিট উৎপাদন করার একটি পদ্ধতিও।

মিশ্রণ[সম্পাদনা]

একটি অ্যালকোহলিক মিশ্রণ পানীয়কে একটি ককটেল (মদ মিশ্রিত পানীয়) হিসেবে উল্লেখ করা হয় যাতে দুই বা ততোধিক উপাদান থাকে। ককটেলগুলো মূলত স্পিরিট (তেজ, উদ্দীপনাপূর্ণ বস্তু), চিনি, পানি ও বিটারের (তিক্ত বস্তু) মিশ্রণ ছিল।[২২] এই শব্দটি প্রায়ই বেশির ভাগ কোনো মিশ্র পানীয়ের জন্য ব্যবহৃত হয় যার মধ্যে অ্যালকোহল, মিক্সার, মিশ্রিত শট ইত্যাদি রয়েছে।[২৩] একটি ককটেল আজ সাধারণত এক বা একাধিক ধরনের স্পিরিট এবং এক বা একাধিক মিশ্রক, যেমন সোডা বা ফলের রস ধারণ করে। অতিরিক্ত উপাদানগুলো চিনি, মধু, দুধ, ক্রিম এবং বিভিন্ন গুল্ম (উদ্ভিদ বিশেষ) হতে পারে।[২৪]

পানীয়ের প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

অ্যালকোহলমুক্ত পানীয়[সম্পাদনা]

লেবুর সাথে বরফযুক্ত পানি

অ্যালকোহলমুক্ত পানীয় হচ্ছে এমন এক ধরনের পানীয় যাতে অ্যালকোহল খুব কম থাকে বা একদমই থাকে না। এই শ্রেণিতে কম অ্যালকোহলযুক্ত বিয়ার ও ওয়াইন এবং আপেল সিডার অন্তর্ভুক্ত থাকে যদি পরিমাপ অনুযায়ী ০.৫ শতাংশের কম অ্যালকোহল ধারণ করে। কোমল পানীয় বা সফট ড্রিংক শব্দটি হার্ড ড্রিংক (অ্যালকোহলযুক্ত পানীয়) এবং পানীয় এর বিপরীতে অ্যালকোহলের অনুপস্থিতি নির্দিষ্ট করে। পানীয় শব্দটি তাত্ত্বিকভাবে নিরপেক্ষ, তবে প্রায়ই এমনভাবে ব্যবহৃত হয় যা অ্যালকোহলযুক্ত সামগ্রীর উপর ইঙ্গিত দেয়। সোডা পপ, চা, কফি, মিল্কশেক, গরম চকলেট, ঠান্ডা চা ইত্যাদি কোমল পানীয়।

পানি[সম্পাদনা]

পানি হল বিশ্বের সর্বাধিক ভোগকৃত পানীয়[২৫], তবে পৃথিবীর ৯৭ শতাংশ অপানযোগ্য লবণাক্ত পানি।[২৬] নদী, হ্রদ, জলাভূমি, ভূগর্ভস্থ জলাভূমি ও হিমশীতল হিমবাহগুলোতে মিঠা পানি পাওয়া যায়।[২৭] পৃথিবীর মিঠা পানির ১ শতাংশেরও কম অংশ ভূপৃষ্ঠের পানি এবং ভূগর্ভস্থ উৎসগুলোর মাধ্যমে পানি সরবরাহ সহজবোধ্য যা পুনরুদ্ধার করতে ব্যয়বহুল।[২৮]

পশ্চিমা সংস্কৃতিতে, পানি প্রায়ই ঠান্ডা পানযোগ্য থাকে। চীনা সংস্কৃতিতে এটি সাধারণত গরম পানযোগ্য।[২৯]

দুধ[সম্পাদনা]

মূল পানীয়গুলোর মধ্যে দুধ একটি[৩০], দুধ শিশুদের পুষ্টির প্রাথমিক উৎস। বিশ্বের বহু সংস্কৃতিতে, বিশেষত পশ্চিমা বিশ্বের মানুষ অন্যান্য প্রানীর (বিশেষত গবাদিপশু, ভেড়া, ছাগল ইত্যাদি) দুধ ব্যবহার করে শিশুর শৈশব ছাড়িয়ে দুগ্ধজাত দুধ খাওয়া অব্যাহত রাখছে। উদ্ভিদ উৎস থেকে উদ্ভূত যে কোনো দুগ্ধ পণ্যকে সাধারণত উদ্ভিজ্জ দুধ বলে, বিভিন্ন দেশ এবং সংস্কৃতিতে এই দুধ ভোগ করার দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। আন্তর্জাতিকভাবে সর্বাধিক জনপ্রিয় জাতগুলো হল সয়া দুধ, বাদামের দুধ, চালের দুধ এবং নারকেল দুধ।

কোমল পানীয়[সম্পাদনা]

কার্বোনেটেড পানীয় ঐ পানীয়দের বোঝায় যেসকল পানীয়তে কার্বন ডাই অক্সাইড দ্রবীভূত থাকে। এটি প্রাকৃতিকভাবে গাঁজানের মাধ্যমে এবং প্রাকৃতিক খনিজ পানির উৎস বা কৃত্রিমভাবে কার্বন ডাই অক্সাইডকে চাপের দ্বারা দ্রবীভূত করার মাধ্যমে ঘটতে পারে। প্রথম বাণিজ্যিক ভাবে উপলব্ধ ১৭৭০ দশকের শেষ দিকে থমাস হেনরি দ্বারা কার্বোনেটেড পানীয় উৎপাদিত হয়েছিল বলে বিশ্বাস করা হয়।[৩১] কোলা, কমলা, বিভিন্ন শিকড়, আদা এবং লেবু/ চুন সাধারণত অ্যালকোহলমুক্ত কার্বোনেটেড পানীয় তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়; চিনি এবং প্রিজারভেটিভসমূহ পরে যুক্ত করা যেতে পারে।[৩২]

সর্বাধিক সেবনে ব্যবহৃত কার্বনেটেড সফট ড্রিঙ্কস তিনটি প্রধান আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড হল— কোকা-কোলা, পেপসিকো এবং ডা. পিপার স্নাপল গ্রুপ।[৩৩]

রস ও রস পানীয়[সম্পাদনা]

কমলার রস সাধারণত ঠান্ডা পরিবেশন করা হয়।

ফলের রস একটি প্রাকৃতিক পণ্য যাতে কম বা কোনও সংযোজিত উপাদান থাকে। লেবু জাতীয় খাবার যেমন কমলার রস এবং ট্যানজারিন (ছোট কমলালেবু) জুস পরিচিত প্রাতরাশ (সকালের নাস্তা) পানীয়, অন্যদিকে আঙ্গুরের রস, আনারস, আপেল, আঙ্গুর, চুন এবং লেবুর রসও সাধারণ। নারকেলের পানি একটি অত্যন্ত পুষ্টিকর এবং সতেজকর রস। বিভিন্ন ধরনের বেরি চূর্ণ করা হয়; তাদের রস পানিতে মিশ্রিত হয় এবং কখনও কখনও মিষ্টি হয়। রাস্পবেরি (ফলবিশেষ), কালোজাম এবং কারেন্টস জনপ্রিয় জুস পানীয় হয় তবে পানির শতাংশ তাদের পুষ্টিকর মানও নির্ধারণ করে। আঙ্গুরের রস দ্রবণের অনুমতি দেয় মদ উৎপাদন করে।

ফলগুলো অত্যন্ত বিনষ্টযোগ্য, তাই রস আহরণ এবং সেগুলো সংরক্ষণের দক্ষতা ছিল উল্লেখযোগ্য মূল্য। কিছু ফল অত্যধিক আম্লিক এবং এগুলো জল এবং চিনি বা মধুর সাথে মেশানো প্রায়ই তাদের মনোরম করে তোলে। ফলের রসগুলির প্রাথমিক সংরক্ষণাগার ছিল শ্রম-নিবিড়, বোতলজাত করার আগে শর্করার সাথে ফলগুলো নিষ্পত্তি করা এবং ফলস্বরূপ খাঁটি রস মিশ্রণের প্রয়োজন।

সবজির রস সাধারণত গরম বা ঠান্ডা পরিবেশন করা হয়। বিভিন্ন ধরনের শাকসবজির রস তৈরিতে ব্যবহার করা যেতে পারে যেমন গাজর, টমেটো, শসা, সেলারি এবং আরও অনেক কিছু। কিছু সবজির রস কিছু ফলের রসের সাথে মিশিয়ে সবজির রসের স্বাদ আরও ভাল হয়। অনেক জনপ্রিয় উদ্ভিজ্জ জুস, বিশেষত উচ্চ টমেটোযুক্ত উপাদানগুলির মধ্যে সোডিয়াম বেশি থাকে এবং তাই স্বাস্থ্যের জন্য সেগুলি গ্রহণের বিষয়টি যত্ন সহকারে বিবেচনা করা উচিত। কিছু উদ্ভিজ্জ রস হৃদরোগ এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করার ক্ষেত্রে পুরো শাকসবজির মতো স্বাস্থ্য উপকারিতা সরবরাহ করে।

ফলের পানীয়ের ধরন পানীয়তে শতকরা ফলের প্রয়োজন বর্ণনা
ফলের রস[৩৪] ১০০%[৩৫] বিশ্বজুড়ে ব্যাপকভাবে নিয়ন্ত্রিত; 'রস' প্রায়শই কেবল ১০০% ফল ব্যবহারের জন্য সুরক্ষিত থাকে।[৩৫]
ফলের পানীয়[৩৪] ১০%[৩২][৩৪] ফলকে তরলীকরণ ও পানি যোগ করা হয়।[৩৪]
ফলের স্কোয়াশ[৩৪] ২৫%[৩৪] স্ট্রেনড ফলের রস, ৪৫% চিনি এবং প্রিজারভেটিভ ব্যবহার করে উৎপাদিত হয়।[৩৪]
ফলের কর্ডিয়াল[৩৪] ০%[৩৬] সমস্ত 'স্থগিত পদার্থ' পরিস্রাবণ বা ছাঁকনির মাধ্যমে মুছে ফেলা হয়।[৩৪] এবং তাই পরিষ্কার দেখা যায়[৩২] এই জাতীয় পানীয় 'স্বাদযুক্ত' হিসাবে বর্ণনা করা হলে কোনো পরিমাণে ফল নাও থাকতে পারে।[৩৬]
ফলের পাঞ্চ[৩৪] ২৫%[৩৪] ফলের রসের মিশ্রণ। প্রায় ৬৫% চিনি থাকে।[৩৪]
ফলের সিরাপ[৩৪] - ১টি ফল পিঠে গুঁড়ো করে গাঁজনের ​​জন্য রেখে দেওয়া হয়। তখন সিরাপ তৈরির জন্য চিনি দিয়ে উত্তপ্ত করা হয়।[৩২][৩৪]
ঘন ফলের রস[৩৪] ১০০%[৩৪] গরম বা হিমশীতল দ্বারা ফলের রস থেকে পানি সরানো হয়।[৩২]
কার্বোনেটেড ফলের পানীয়[৩৪] - কার্বন ডাই-অক্সাইড ফলের পানীয়তে যুক্ত করা হয়।[৩৪]
ফল অমৃত[৩৭] ৩০%[৩৭] ফলের সজ্জা, চিনি এবং পানির মিশ্রণ যা 'ওয়ান শট' হিসাবে গ্রহণ করা হয়।[৩৭]
ফলের শরবেট[৩৮] - মিষ্টি মিশ্রিত ফলের রস শীতল পানীয়।[৩৮]

ঘুমের পানীয়[সম্পাদনা]

একটি ঘুম পানীয়, নাইটক্যাপ বা শিথিলকরণ পানীয় ঘুম প্ররোচিত করার জন্য শোবার আগে সামান্য গ্রহণ করা খাওয়া তরল হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এগুলি প্রায়শই অবসাদ হ্রাস, উদ্বেগ দূরীকরণ, ফোকাস উন্নত করতে এবং আরও ভাল সামগ্রিক ঘুম প্রচারে সহায়তা করার জন্য তৈরি করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, একটি ছোট অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় বা এক কাপ উষ্ণ দুধ অনুমান করে একটি ভাল রাতের ঘুমকে উত্সাহিত করতে পারে। এই উপভোগযোগ্য ঘুমের পরিপূরকগুলি এনার্জি ড্রিংকের অসাধারণ বা বিরোধী এবং পানীয় শিল্পে একটি কুলুঙ্গি খুঁজে পেয়েছে। মূলত, একটি নাইটক্যাপটি মদ্যপানকারীকে গরম করা এবং তাদের ঘুমাতে সহায়তা করার উদ্দেশ্যে একটি অ্যালকোহলযুক্ত তরল হিসাবে বোঝা হত। ১৯৩০ সালে, অ্যালকোহলযুক্ত পানীয়, ওভালটাইন শব্দ, প্রাকৃতিক ঘুম নিশ্চিত করার জন্য বিশ্বের সেরা 'নাইট-ক্যাপ' হিসাবে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছিল, তখন এটি পরিবর্তিত হয়েছিল। ওভালটাইনের একটি উপাদান হল ম্যাগনেসিয়াম যা শিথিলতা প্ররোচিত করতে সহায়তা করে। তেমনি, উষ্ণ দুধ প্রায়শই ঘুম প্ররোচিত করার জন্য একটি নাইটক্যাপ হিসাবে সুপারিশ করা হয়, কারণ এতে ট্রাইপ্টোফান এবং ক্যালসিয়াম উভয়ই থাকে। তারপরে, গরম দুধের স্বাদ অল্প পরিমাণে লিকার যুক্ত করে উন্নত করা হয়েছিল যা ঘুমকেও বাড়িয়ে তুলতে পারে। বিকল্পভাবে, মধু বা ভ্যানিলা স্বাদেও উন্নতি করতে পারে। ঘুম প্ররোচিত করার জন্য উষ্ণ দুধের কার্যকারিতা বিতর্কিত। ঘুমের প্রবণতা এবং কার্যকর ঘুমের সহায়ক হওয়ার জন্য ব্যবহৃত অন্যান্য পানীয় হল চা, চেরির জুস (মেলাটোনিনযুক্ত), নারকেলের পানি (ম্যাগনেসিয়ামযুক্ত), লেবু বালাম চা, ডিক্যাফিনেটেড গ্রিন টি (থায়ানাইন থাকে), ভ্যালেরিয়ান চা এবং ক্যামোমিল চা। তবে বর্তমানে, বেশিরভাগ ঘুমের পানীয়, নাইটক্যাপস এবং শিথিলকরণ পানীয়গুলি সাধারণত অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় যা শান্ত করার উপাদানগুলি সাধারণত প্রকৃতির মধ্যে পাওয়া যায়। এগুলিকে কার্যকরী পানীয় হিসাবে বিবেচনা করা হয় যা কোনও ব্যক্তিকে শিথিল করে। চা, গরম দুধ বা মধুযুক্ত দুধের মতো অন্যান্য শান্ত পানীয়গুলির মতো নয়; ঘুম পানীয় প্রায় সর্বজনীন একাধিক সক্রিয় উপাদান রয়েছে। মেলাটোনিন একটি সাধারণ উপাদান যা শিথিলকরণের পানীয়গুলিতে পাওয়া যায় যা দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহারের কারণে বিতর্কিত প্রভাবের কারণে কিছু নেতিবাচক ধারণাও বহন করে। ঘুমের পানীয়, নাইটক্যাপস এবং শিথিলকরণ পানীয়গুলি অন্যান্য প্রাকৃতিক উপাদানগুলি ধারণ করে এবং সাধারণত ক্যাফিন এবং অ্যালকোহল মুক্ত থাকে তবে কেউ কেউ গাঁজা থাকার দাবি করেছেন। ঘুমের পানীয়, নাইটক্যাপ এবং শিথিলকরণ পানীয় একবিংশ শতাব্দীর শুরুতে জাপানে আবার প্রদর্শিত হতে শুরু করে এবং তারপরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাত্রা শুরু করে। একটি বড় ব্র্যান্ডকে ড্রেঙ্ক বলা হত, এটি ঠাণ্ডা ঔষধ দিয়ে তৈরি একটি অবৈধ সমঝোতার উল্লেখ। অন্যের মধ্যে বেগুনি স্টাফ এবং লিনের মতো নাম ছিল যা অস্পষ্টভাবে মাদকদ্রব্য প্রভাবগুলি সম্পর্কে ইঙ্গিত দেয়। এই ব্র্যান্ডগুলি পার্টিং ভিড়ের দিকে বাজারজাত করা হয়েছিল, তবুও কখনও মূলধারায় প্রবেশ করতে পারেনি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনও মিথ্যা স্বাস্থ্যের দাবির জন্য ব্র্যান্ডগুলি বন্ধ করে দিয়েছিল।

অ্যালকোহলযুক্ত পানীয়[সম্পাদনা]

একটি পানীয়কে 'অ্যালকোহলিক' হিসাবে বিবেচনা করা হয় যদি তাতে ইথানল থাকে যা সাধারণত অ্যালকোহল হিসাবে পরিচিত (যদিও রসায়নে অ্যালকোহল এর সংজ্ঞা রয়েছে আরও অনেকগুলো মিশ্রণ)। বিয়ার ৮,০০০ বছর ধরে মানব সংস্কৃতির একটি অঙ্গ।[৩৯]

অনেক দেশেই, একটি স্থানীয় বার বা Pub (মদের দোকান বা মদখানা) অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় গ্রহণ করা একটি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য।[৪০]

বিয়ার[সম্পাদনা]

জার্মান বিয়ারের গ্লাস ও ট্যানকার্ড

বিয়ার একটি অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় যা ফলস্বরূপ চিনির স্টার্চ এবং গাঁজনকে উৎসাহিত করে উৎপাদিত স্টার্চ এবং স্যাচারিফিকেশন এনজাইমগুলি প্রায়শই ম্যাল্টেড সিরিয়াল শস্য থেকে প্রাপ্ত হয়[৪১], সাধারণভাবে বার্লি এবং মাল্টেড গম হয়। বেশিরভাগ বিয়ার হুপসের সাথেও স্বাদযুক্ত, যা তিক্ততা যুক্ত করে এবং প্রাকৃতিক সংরক্ষণকারী হিসাবে কাজ করে, যদিও মাঝে মাঝে গুল্ম বা ফলের মতো স্বাদও অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। বিয়ার তৈরিকে বলা হয় মদ তৈরি করা। বিয়ার হল বিশ্বের সর্বাধিক ব্যয়িত অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় এবং জল এবং চায়ের পরে এটি তৃতীয়-সর্বাধিক জনপ্রিয় পানীয়।[৪২] কথিত আছে যে, তিনি খ্রিস্টপূর্ব ৫৩০০ খ্রিষ্টাব্দের দেবতা নিনকাসিয়ারাউন্ড দ্বারা আবিষ্কার করেছিলেন, যখন তিনি দুর্ঘটনাক্রমে শস্যের জারগুলিতে ফেলে রেখে খামিরটি আবিষ্কার করেছিলেন যা পরে বৃষ্টি হয়েছিল এবং বেশ কয়েক দিন রেখে যায়। পারিবারিকতার সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার কারণে মহিলারা ইতিহাসের সর্বত্র বিয়ারের প্রধান স্রষ্টা হয়েছিলেন এবং এটি ইতিহাসের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পারিবারিক ব্যবহারের জন্য বাড়িতে তৈরি হয়। কেবল সাম্প্রতিক ইতিহাসে পুরুষরা মাঠে ছলছল করতে শুরু করেছে।[৪৩][৪৪] এটি কেউ কেউ মনে করেন যে এটি প্রাচীনতম গাঁজনকৃত পানীয়।[৪৫][৪৬][৪৭][৪৮]

মানবতার প্রাচীনতম লেখাগুলির মধ্যে কিছু বিয়ার উৎপাদন এবং বিতরণকে বোঝায়: হামমুরবির কোডে বিয়ার[৪৯] এবং বিয়ার পার্লারগুলিকে নিয়ন্ত্রিত আইন এবং বিয়ারের মেসোপটেমিয়ান দেবীকে প্রার্থনা এবং 'দ্য হিমন টু নিনকাসি' উভয়ই প্রার্থনা হিসাবে কাজ করেছিল এবং কিছু শিক্ষিত লোকের সাথে সংস্কৃতিতে বিয়ারের রেসিপিটি স্মরণ করার একটি পদ্ধতি হিসাবে।[৫০][৫১] বর্তমানে, ব্রিউং শিল্পটি একটি বৈশ্বিক ব্যবসা, যেখানে বেশ কয়েকটি প্রভাবশালী বহুজাতিক সংস্থাগুলি এবং ব্রিউপাব থেকে শুরু করে আঞ্চলিক ব্রুয়ারিজ পর্যন্ত হাজার হাজার ছোট ছোট উৎপাদক রয়েছে।

সিডার[সম্পাদনা]

সিডার হল গাঁজনকৃত জুস থেকে তৈরি সাধারণভাবে এবং ঐতিহ্যবাহীভাবে আপেলের রস, তবে পীচ, নাশপাতি ('পেরি' সিডার) বা অন্যান্য ফলের রসও তৈরি হয় গাঁজনকৃত সিডার যেকোন ধরনের আপেল থেকে তৈরি করা যেতে পারে তবে সিডার ব্যবহারের জন্য একমাত্র জন্মে কিছু নির্দিষ্ট জাত সিডার আপেল হিসাবে পরিচিত যুক্তরাজ্যে সিডারের সর্বোচ্চ মাথাপিছু ব্যবহার রয়েছে[৫২], পাশাপাশি বিশ্বের বৃহত্তম সিডার উৎপাদনকারী সংস্থাগুলি রয়েছে[৫৩], ২০০৬ সালের হিসাবে, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র প্রতি বছর ৬০০ মিলিয়ন লিটার সিডার উৎপাদন করে (১৩০ মিলিয়ন ইম্পেরিয়াল গ্যালন)।[৫৪]

ওয়াইন[সম্পাদনা]

width=110 width=110
সাদা ওয়াইন
লাল ওয়াইন

ওয়াইন হল অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় যা গাঁজনকৃত আঙ্গুর বা অন্যান্য ফল থেকে তৈরি। আঙ্গুরের প্রাকৃতিক রাসায়নিক ভারসাম্য শর্করা, অ্যাসিড, এনজাইম, জল বা অন্যান্য পুষ্টি যুক্ত না করে তাদের উত্তেজিত করতে দেয়।[৫৫] খামির সুগারসিন আঙ্গুর গ্রহণ করে এবং তাদের অ্যালকোহল এবং কার্বন ডাই অক্সাইডে রূপান্তর করে। বিভিন্ন ধরনের আঙ্গুর এবং খামিরগুলির স্টেইন বিভিন্ন ধরনের ওয়াইন তৈরি করে। সুপরিচিত প্রকরণগুলি ফলের জৈব-রাসায়নিক বিকাশের মধ্যে খুব জটিল মিথস্ক্রিয়া, গাঁজন, টেরোয়ার এবং পরবর্তী আপিলের সাথে জড়িত প্রতিক্রিয়াগুলির পাশাপাশি সামগ্রিক প্রক্রিয়াতে মানুষের হস্তক্ষেপের ফলস্বরূপ। চূড়ান্ত পণ্যটিতে কয়েক হাজার রাসায়নিক যৌগ থাকতে পারে পরিমাণে কয়েক শতাংশ থেকে কয়েক বিলিয়ন পর্যন্ত বিভিন্ন পরিমাণে মিশ্রিত হতে পারে।

আঙ্গুর ছাড়াও উৎপাদিত ওয়াইনগুলি সাধারণত যে পণ্য থেকে উৎপাদিত হয় তার নাম দেওয়া হয় (উদাহরণস্বরূপ, ভাত ওয়াইন, ডালিম, আপেল ওয়াইন এবং গ্রেডবেরি ওয়াইন) এবং সাধারণভাবে তাকে ফলের ওয়াইন বলা হয়। 'ওয়াইন' শব্দটি বার্লি ওয়াইন, হুয়াংজিউ বা খাওয়ার মতো উচ্চতর অ্যালকোহলের পরিমাণযুক্ত স্টার্চ-গাঁজন বা দুর্গযুক্ত পানীয়গুলিকেও বোঝাতে পারে।

ওয়াইনের একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে যা কয়েক হাজার বছর আগের, প্রথম দিকের উৎপাদনের সাথে এ পর্যন্ত আবিষ্কার হয়েছিল জর্জিয়ায় খ্রিস্টপূর্ব ৬০০০ অব্দে।[৪][৫][৫৬] এটি সি দ্বারা বালকানস পৌঁছেছিল। ৪৫০০ খ্রিস্টপূর্ব এবং গ্রীক এবং রোমে গ্রাস ও উদযাপিত হয়েছিল।

লিখিত রেকর্ডগুলির প্রথম দিক থেকেই, মদ ধর্মেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। প্রাচীন মিশরীয়রা রেড ওয়াইন রক্তের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত ছিল, যারা প্লুটার্কের মতে খ্রিস্টপূর্ব সপ্তম শতাব্দীর সায়াইট রাজবংশের অবধি এর নিখরচায় ব্যবহার এড়িয়ে গিয়েছিল, "এটি ভেবেছিল যারা একবার দেবতাদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন তাদের রক্ত ​​হিসাবে।"[৫৭] রোমানিস তাদের বাচালানালিয়া দ্বারা পরিচালিত গ্রীক ধর্ম এবং রহস্যের ডায়োনিসাস ছিল পশ্চিমের থিয়েটারের উত্স। ইহুদী ধর্ম এটিকে কিউদুশ এবং খ্রিস্টান ধর্মে এর ইউচারিস্টে অন্তর্ভুক্ত করেছে, যখন ইসলামে অ্যালকোহল গ্রহণ নিষিদ্ধ ছিল।

স্পিরিট[সম্পাদনা]

স্পিরিট হল পাতিত পানীয় যাতে কোনো চিনি যুক্ত থাকে না এবং কমপক্ষে ২০% পরিমাণ অ্যালকোহল থাকে। জনপ্রিয় স্পিরিটগুলির মধ্যে রয়েছে বোরোভিকা, ব্র্যান্ডি, জিন, রম, স্লিভোভিটস, টকিলা, ভদকা এবং হুইস্কি। ব্র্যান্ডি হল পাতিত ওয়াইন দ্বারা তৈরি একটি স্পিরিট, যদিও কোনো স্টার্চ- বা চিনির সমৃদ্ধ উদ্ভিদ পদার্থ থেকে ভোডকা নিঃসৃত করা যেতে পারে; বর্তমানে বেশিরভাগ ভোডকা শিং থেকে শুরু করা হয় যেমন জোর, কর্ন, রাই বা গম।

গরম পানীয়[সম্পাদনা]

কফি[সম্পাদনা]

এক কাপ কালো কফি

কফি হল তৈরিকৃত পানীয় যা বিভিন্ন প্রজাতি Coffea হতে চিরহরিৎ গুল্ম উদ্ভিদের ভাজা বীজ থেকে প্রস্তুত হয়। কফি দানার দুটি অতি সাধারণ উৎস হল অত্যন্ত সম্মানিত Coffea arabica এবং কঠোর Coffea canephora 'রোবস্টা' রূপ। ৭০ টিরও বেশি দেশে কফি গাছের চাষ হয়। একবার পাকা হয়ে গেলে, কফি 'বেরি' বাছাই করা হয়, প্রক্রিয়াজাত করা হয় এবং ভিতরে বীজ ফলন করতে শুকানো হয়। এরপরে বীজগুলি মাটি হওয়ার আগে এবং কফি তৈরির জন্য তৈরি করার আগে কাঙ্ক্ষিত গন্ধের উপর নির্ভর করে বিভিন্ন ডিগ্রিতে ভাজা হয়।

কফি কিছুটা অম্লীয় (pH 5.0–5.1[৫৮]) এবং এর ক্যাফেইন সামগ্রীর কারণে মানুষের উপর উদ্দীপক প্রভাব ফেলতে পারে। এটি বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় পানীয়।[৫৯] এটি বিভিন্ন উপায়ে প্রস্তুত এবং উপস্থাপন করা যেতে পারে। মানব স্বাস্থ্যের উপর কফির প্রভাব অনেক গবেষণার বিষয়; তবে, কফির আপেক্ষিক সুবিধার ক্ষেত্রে ফলাফলগুলি পৃথক হয়েছে।[৬০]

কফির চাষ প্রথম দক্ষিণ আরবে হয়েছিল[৬১]; ১৫ শতাব্দীর মাঝামাঝি ইয়েমেনের সুফি মাজারগুলিতে কফি পান করার প্রথম প্রমাণ পাওয়া যায়।[৬১]

হট চকলেট[সম্পাদনা]

হট চকলেট, যা চকলেট বা কোকো পানীয় হিসাবে পরিচিত, শেভড চকলেট, গলিত চকলেট বা কোকো পাউডার, গরম দুধ বা পানি এবং সাধারণত একটি মিষ্টি সমন্বিত একটি গরম পানীয়। হট চকলেট হুইপড ক্রিমের সাথে শীর্ষে থাকতে পারে। গলে যাওয়া চকলেট দিয়ে তৈরি গরম চকলেটকে কখনো কখনো পানীয় চকলেট বলা হয়, এটি কম মিষ্টি এবং আরও ঘন ধারাবাহিকতা দ্বারা চিহ্নিত করা হয়।[৬২]

প্রথম চকোলেট পানীয়টি মায়ান সারাউন্ড ২,৫০০-৩,০০০ বছর আগে তৈরি করেছিলেন বলে বিশ্বাস করা হয়, এবং একটি কোকো পানীয়টি ১৪০০ খ্রিষ্টাব্দে অ্যাজটেক সংস্কৃতির অপরিহার্য অঙ্গ ছিল, যার দ্বারা তারা xocōlātl নামে অভিহিত হয়েছিল।[৬৩][৬৪] নিউ ওয়ার্ল্ডে মেক্সিকো থেকে প্রবর্তনের পরে এই পানীয়টি ইউরোপে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং তার পর থেকে একাধিক পরিবর্তন হয়েছে। উনবিংশ শতাব্দী অবধি, গরম চকলেট এমনকি লিভার এবং পেটের রোগের মতো অসুস্থতার চিকিৎসার জন্য ঔষধিভাবে ব্যবহৃত হত।

হট চকলেট বিশ্বজুড়ে পান করা হয় এবং লাতিন আমেরিকার মশলাদার চকোলেট প্যারা মেলা, স্পেনে পরিবেশন করা খুব ঘন চকলেট পোড়া এবং চকলেট একটি লা তাজা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাতলা গরম কোকো সহ একাধিক প্রকরণে আসে । প্রস্তুত গরম চকলেট ক্যাফেটেরিয়াস, ফাস্টফুড রেস্তোঁরা, কফিহাউস এবং চা হাউস সহ বিভিন্ন স্থাপনা থেকে কেনা যায়। গুঁড়ো গরম চকলেট মিশ্রণ, যা ঘরে ঘরে পানীয় তৈরি করতে ফুটন্ত জল বা গরম দুধের সাথে যুক্ত করা যায়, মুদি দোকানে এবং অনলাইনে বিক্রি হয়।

চা[সম্পাদনা]

ওলং চা

চা বিশ্বের দ্বিতীয় সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত পানীয়, ফুটন্ত পানিতে Camellia sinensis প্রজাতির গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদের শুকনো পাতাগুলি থেকে উৎপাদিত হয়।[৬৫] চা পান করার জন্য প্রস্তুতকৃত বেশ কয়েকটি উপায় রয়েছে: বিশ্বজুড়ে লেবু বা দুধ এবং চিনি সবচেয়ে সাধারণ সংযোজনকারীদের মধ্যে রয়েছে। অন্যান্য সংযোজনগুলির মধ্যে ভুটান, নেপাল এবং তিব্বতের মাখন এবং লবণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে; তাইওয়ানের বুদবুদ চা; ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুরে তাজা আদা; উত্তর আফ্রিকা এবং সেনেগালে পুদিনা; মধ্য এশিয়ায় এলাচ; মধ্য ইউরোপে জাগার্টি তৈরির জন্য রাম; এবং কফি হংকংয়ে ইউয়ানিয়াং তৈরি করতে। চা ভিন্ন দেশে ভিন্নভাবে পরিবেশন করা হয়: চীন এবং জাপানে ক্ষুদ্র কাপে চা পরিবেশনের জন্য ব্যবহৃত হয়; থাইল্যান্ড এবং আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের চা প্রায়ই ঠান্ডা পরিবেশন করা হয় ('ঠান্ডা চা' হিসাবে) বা প্রচুর মিষ্টিজাতীয় দ্রব্যের সাথে; ভারতীয়রা দুধের সাথে চা এবং মশলা মিশ্রণ হিসাবে একটি মিশ্রণ চা মিশ্রিত করে; ইরান, কাশ্মীর, রাশিয়া এবং তুরস্কে সামোভার দিয়ে চা তৈরি করা হয়; এবং অস্ট্রেলিয়ান আউটব্যাকে এটি ঐতিহ্যগতভাবে একটি বিলিচেনে তৈরি করা হয়।[৬৬] চা পাতাগুলি বিভিন্ন উপায়ে প্রক্রিয়াজাত করা যায় যার ফলে একটি পানীয় দেখা দেয় যা ভিন্ন স্বাদের। চাইনিজ হলুদ এবং সবুজ চা স্টিম, ভাজা এবং শুকনো হয়; ওলং চা আধা-জারণযুক্ত এবং সবুজ-কালো এবং কালো চা টি পুরোপুরি জারণযুক্ত হয়।[৬৭]

বিশ্বজুড়ে, লোকেরা অন্যান্য ভেষজ ইনফিউশনগুলিকে 'চা' হিসাবে উল্লেখ করে; এটিও যুক্তিযুক্ত যে, Camellia sinensis গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদের চা তৈরির জন্য ব্যবহৃত হওয়ায় তা অনেক আগে থেকেই জনপ্রিয় ছিল।[৬৮] পাতা, ফুল, শিকড় বা বাকল ভেষজ সংক্রমণ তৈরি করতে ব্যবহার করা যেতে পারে এবং তাজা, শুকনো বা গুঁড়ো কেনা যায়।[৬৯]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

পান করার জায়গা[সম্পাদনা]

ক্যাফে ট্যারেস এট নাইট, সেপ্টেম্বর ১৮৮৮, ভিনসেন্ট ভ্যান গঘ

ইতিহাস জুড়ে, লোকেরা মদ্যপান করার সময় বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানে একত্রিত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ক্যাফে এবং কফিহাউস, গরম পানীয় সরবরাহের পাশাপাশি হালকা নাস্তা অন্তর্ভুক্ত। মধ্য প্রাচ্যে এবং পশ্চিম বিশ্বের পশ্চিম এশীয় অভিবাসী বিভাগগুলোতেও প্রচুর কফি হাউস শিখা দেয় (তুর্কি এবং গ্রীক ভাষায় কৃপণ), স্বাদযুক্ত তামাক হুকার মাধ্যমে ধূমপান করে। এসপ্রেসো মদের দোকানগুলো এক ধরনের কফিহাউস যা এস্প্রেসো এবং এস্প্রেসো-ভিত্তিক পানীয়গুলি পরিবেশন করতে বিশেষজ্ঞ।

চীন এবং জাপানে প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থা একটি চা ঘর হবে, যদিও লোকেরা চা পান করার সময় সামাজিকতা তৈরি করত। চীনা পণ্ডিতরা ধারণাটি ভাগ করার জায়গাগুলো জন্য চা ঘরটি ব্যবহার করেছেন।

অ্যালকোহলযুক্ত পানীয়, পানীয় সংস্থাগুলিতে পরিবেশিত হয়, যাদের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ধারণা রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, মদের দোকানগুলো ব্রিটেন,[৭০][৭১] আয়ারল্যান্ড,[৭২] অস্ট্রেলিয়া,[৭৩] কানাডা, নিউ ইংল্যান্ড, মেট্রো ডেট্রয়েট, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং নিউজিল্যান্ডের সংস্কৃতির মূল। অনেক জায়গায়, বিশেষত গ্রামে, একটি মদের দোকান বা চায়ের দোকান সম্প্রদায়ের কেন্দ্রবিন্দু হতে পারে। স্যামুয়েল পেপিসের লেখায় মদ বা চায়ের দোকান (পাব্) কে ইংল্যান্ডের হৃদয় হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। অনেকগুলো পাব ব্রুয়ারিজ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়, তাই ক্যাস্ক অ্যালোর ক্যাগ বিয়ার ওয়াইন এবং স্পিরিটেত চেয়ে ভাল মান হতে পারে।

বিপরীতে, বিভিন্ন ধরনের পাব্ গুলো বীজযুক্ত পাব্ বা নাইটক্লাব থেকে শুরু করে কখনও কখনও অভিজাতদের বিনোদনমূলক জায়গাগুলি পর্যন্ত 'ডাইভ বার' নামে অভিহিত করা হয়।[৭৪] বার বা পাব্ গুলো স্টুল বা চেয়ার সরবরাহ করে যা তাদের পৃষ্ঠপোষকদের জন্য টেবিল বা কাউন্টারে স্থাপন করা হয়। 'বার' শব্দটি সেই বিশেষায়িত কাউন্টার থেকে উদ্ভূত যার উপর পানীয় পরিবেশন করা হয়। কিছু বারের মঞ্চে বিনোদন থাকে, যেমন একটি লাইভ ব্যান্ড, কৌতুক অভিনেতা, নৃত্যশিল্পী বা স্ট্রিপার্স। পৃষ্ঠপোষকরা বারে বসে বা দাঁড়ান এবং বারটেন্ডার দ্বারা পরিবেশন করা হতে পারে, বা তারা টেবিলে বসে ককটেল (মদ্য পানীয়) সার্ভার দ্বারা পরিবেশন করা হতে পারে।

খাবারের সাথে মিলকরণ[সম্পাদনা]

শ্যাম্পেন ফ্লিউট এবং বোতল।

খাবার এবং পানীয় প্রায়ই একসাথে মেশানো হয় স্বাদের পরিমাণ বাড়ানোর জন্য। এটি মূলত ওয়াইন দিয়ে ঘটে এবং প্রক্রিয়াটির চারপাশে একটি সংস্কৃতি বেড়ে ওঠে। ওজন, স্বাদ এবং টেক্সচারগুলি বিপরীতে বা পরিপূরক হতে পারে।[৭৫] সাম্প্রতিক বছরগুলোতে, খাদ্য ম্যাগাজিনগুলি রেসিপি এবং রেস্তোঁরাগুলোর সাথে নির্দিষ্ট ওয়াইনগুলোর পরামর্শ দিতে শুরু করেছিল যে প্রতিটি কোর্সের জন্য একটি নির্দিষ্ট ওয়াইনের সাথে মিলিত মাল্টি-কোর্স রাতের খাবার সরবরাহ করবে।[৭৬]

উপস্থাপনা[সম্পাদনা]

বিভিন্ন পানীয় সেবনের জন্য অনন্য অভ্যর্থনা রয়েছে। এটি কখনো কখনো বিশুদ্ধভাবে উপস্থাপনের উদ্দেশ্যে যেমন— ককটেলগুলোর জন্য হয়। অন্যান্য পরিস্থিতিতে পানীয়ের ব্যবহারিক প্রয়োগ রয়েছে যেমন— কফি কাপগুলি যা ইনসুলেশন বা ব্র্যান্ডি স্নিফটারগুলোর জন্য নকশা করা হয়েছে যা বাষ্পীভবনকে উৎসাহিত করার জন্য তৈরি করা হয়েছে, কাঁচের মধ্যে সুগন্ধে আটকে রয়েছে।

অনেক গ্লাসে একটি হাতল অন্তর্ভুক্ত থাকে, যা পানীয়টি পানীয়ের তাপমাত্রাকে প্রভাবিত না করে কাঁচটি ধরে রাখতে দেয়। শ্যাম্পেন চশমাগুলিতে, বাটিটি খোলার সময় পৃষ্ঠের ক্ষেত্রফল হ্রাস করে চ্যাম্পেইনের স্বাক্ষর কার্বোনেশন ধরে রাখতে নকশা করা হয় । ঐতিহাসিকভাবে, শ্যাম্পেন একটি কুপে পরিবেশন করা হয়েছে, যার আকারটি একটি আদর্শ ওয়াইন গ্লাসের চেয়ে কার্বনকে আরও দ্রুত ছড়িয়ে দিতে দেয় ।

বাণিজ্যিক লেনদেন[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক রপ্তানি ও আমদানি[সম্পাদনা]

একটি গুরুত্বপূর্ণ রপ্তানি পণ্য, কফি ২০০৪ সালে বারোটি দেশের শীর্ষে রপ্তানি ছিল,[৭৭] এবং এটি ২০০৫ সালের মূল্য অনুসারে বিশ্বের সপ্তম বৃহত্তম আইনী কৃষি রপ্তানি ছিল।[৭৮] সবুজ (নিরস্তিত) কফি সর্বাধিক কেনাবেচা করা হয় বিশ্বের কৃষি পণ্য।[৭৯]

শিল্পের আকার[সম্পাদনা]

২০১৬ সালের বর্ষপঞ্জি অনুসারে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পানীয় শিল্পের মূল্য ছিল ২৪.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, একক পরিবেশন বোতলজাত পানির জন্য মোট ৯০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। কার্বোনেটেড পানীয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বার্ষিক বিক্রয়ের জন্য ৮১.৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।[৮০]

বিনিয়োগ[সম্পাদনা]

কিছু পানীয়, যেমন ওয়াইন, বিকল্প বিনিয়োগ হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।[৮১] স্বতন্ত্র বোতল বা নির্দিষ্ট ওয়াইনগুলোর কেস কিনে এবং পুনরায় বিক্রয় বা বিনিয়োগ করে বিনিয়োগকারীদের পুঁজি সরবরাহ করতে পারে, বিনিয়োগ ওয়াইন ফান্ডে শেয়ার কিনে এটি অর্জন করা যেতে পারে।[৮২]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Cheney, Ralph (জুলাই ১৯৪৭)। "The Biology and Economics of the Beverage Industry"। Economic Botany1 (3): 243–275। doi:10.1007/bf02858570জেস্টোর 4251857 
  2. Burnett, John (২০১২)। Liquid Pleasures: A Social History of Drinks in Modern Britain। Routledge। পৃষ্ঠা 1–20। আইএসবিএন 978-1-134-78879-8 
  3. Keys, David (২০০৩-১২-২৮)। "Now that's what you call a real vintage: professor unearths 8,000-year-old wine"The Independent। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৩-২০ 
  4. Berkowitz, Mark (১৯৯৬)। "World's Earliest Wine"Archaeology। Archaeological Institute of America। 49 (5)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০০৮ 
  5. Spilling, Michael; Wong, Winnie (২০০৮)। Cultures of The World Georgia। পৃষ্ঠা 128। আইএসবিএন 978-0-7614-3033-9 
  6. Ellsworth, Amy (১৮ জুলাই ২০১২)। "7,000 Year-old Wine Jar" 
  7. [১] Prehistoric brewing: the true story, 22 October 2001, Archaeo News. Retrieved 13 September 2008
  8. "Dreher Breweries, Beer-history"। ২০০৯-০৭-০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৯-২১ 
  9. Mirsky, Steve (মে ২০০৭)। "Ale's Well with the World"Scientific American296 (5): 102। doi:10.1038/scientificamerican0507-102বিবকোড:2007SciAm.296e.102M। ১৬ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০০৭ 
  10. Dornbusch, Horst (২৭ আগস্ট ২০০৬)। "Beer: The Midwife of Civilization"। Assyrian International News Agency। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০০৭ 
  11. Protz, Roger (২০০৪)। "The Complete Guide to World Beer"When people of the ancient world realised they could make bread and beer from grain, they stopped roaming and settled down to cultivate cereals in recognisable communities. 
  12. Mary Lou Heiss; Robert J. Heiss। The Story of Tea: A Cultural History and Drinking Guide 
  13. Katsigris, Costas; Thomas, Chris (২০০৬)। The Bar and Beverage Book। John Wiley and Sons। পৃষ্ঠা 5–10। আইএসবিএন 978-0-470-07344-5 
  14. Pankhurst, Richard (১৯৬৮)। Economic History of Ethiopia। Addis Ababa: Haile Selassie I University। পৃষ্ঠা 198। 
  15. Hopkins, Kate (মার্চ ২৪, ২০০৬)। "Food Stories: The Sultan's Coffee Prohibition"Accidental Hedonist। নভেম্বর ২০, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৩, ২০১০ 
  16. Combating Waterborne Diseases at the Household Level (PDF)World Health Organization। ২০০৭। পৃষ্ঠা ১১। আইএসবিএন 978-92-4-159522-3 
  17. Wilson, G. S. (১৯৪৩), "The Pasteurization of Milk", British Medical Journal, 1 (4286): 261–262, doi:10.1136/bmj.1.4286.261, PMID 20784713, পিএমসি 2282302অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  18. percolateMerriam Webster। ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০১-০৯ 
  19. Jeff Cox "From Vines to Wines: The Complete Guide to Growing Grapes and Making Your Own Wine" pgs 133–136 Storey Publishing 1999 আইএসবিএন ১-৫৮০১৭-১০৫-২
  20. D. Bird "Understanding Wine Technology" pg 67–73 DBQA Publishing 2005 আইএসবিএন ১-৮৯১২৬৭-৯১-৪
  21. Matthew Schaefer (১৫ ফেব্রু ২০১২)। The Illustrated Guide to Brewing Beer। Skyhorse Publishing Inc.। পৃষ্ঠা 197। আইএসবিএন 978-1-61608-463-9। সংগ্রহের তারিখ ১৩ নভেম্বর ২০১২ 
  22. Thomas, Jerry (১৮৬২)। How To Mix Drinks 
  23. Regan, Gary (২০০৩)। The Joy of Mixology। Potter। 
  24. DeGroff, Dale (২০০২)। The Craft of the Cocktail। Potter। 
  25. Griffiths, John (২০০৭)। Tea: The Drink That Changed the World। Andre Deutsch। আইএসবিএন 978-0-233-00212-5 
  26. "Earth's water distribution"। United States Geological Survey। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৫-১৩ 
  27. Where is Earth's water? ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৪ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে, United States Geological Survey.
  28. Van Ginkel, J. A. (২০০২)। Human Development and the Environment: Challenges for the United Nations in the New Millennium। United Nations University Press। পৃষ্ঠা 198–199। আইএসবিএন 978-9280810691 
  29. Liu, Nicole (১২ মার্চ ২০১৬)। "China's go-to beverage? Hot water. Really."Los Angeles Times। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৬ 
  30. Richards, Edgar (৫ সেপ্টেম্বর ১৮৯০)। "Beverages"Science। American Association for the Advancement of Science। 16 (396): 127–131। doi:10.1126/science.ns-16.396.127PMID 17782638জেস্টোর 1766104বিবকোড:1890Sci....16..127R 
  31. Steen, Dr. David; Ashhurst, Philip. (২০০৮)। Carbonated Soft Drinks: Formulation and Manufacture। John Wiley & Sons। পৃষ্ঠা 1–2। আইএসবিএন 978-1-4051-7170-0 
  32. Sivasankar, B. (২০০২)। "24"FOOD PROCESSING AND PRESERVATION। PHI Learning Pvt. Ltd.। পৃষ্ঠা 314। আইএসবিএন 978-8120320864 
  33. "Soft Drink Industry: Market Research Reports, Statistics and Analysis"। Report Linker। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১৩ 
  34. Srilakshmi, B. (২০০৩)। Food Science (3rd সংস্করণ)। New Age International। পৃষ্ঠা 269। আইএসবিএন 978-8122414813 
  35. Ashurst, Philip R. (১৯৯৪)। Production and Packaging of Non-Carbonated Fruit Juices and Fruit Beverages (2nd সংস্করণ)। Springer। পৃষ্ঠা 360–362। আইএসবিএন 978-0-8342-1289-3 
  36. Cooper, Derek (১৯৭০)। The Beverage Report। London: Routledge & Kegan Paul Ltd.। পৃষ্ঠা 55। 
  37. Chandrasekaran, M. (২০১২)। Valorization of Food Processing By-Products। Fermented foods and drinks series। CRC Press। পৃষ্ঠা 595। আইএসবিএন 978-1-4398-4885-2 
  38. Desai (২০০০)। Handbook of Nutrition and Diet। Food Science and Technology। CRC Press। পৃষ্ঠা 231। আইএসবিএন 978-1-4200-0161-7 
  39. Arnold, John P (২০০৫)। Origin and History of Beer and Brewing: From Prehistoric Times to the Beginning of Brewing Science and Technology (Reprint সংস্করণ)। BeerBooks.com। 
  40. Hamill, Pete (১৯৯৪)। A Drinking Life: A Memoir। New York: Little, Brown and Company। আইএসবিএন 978-0-316-34102-8 
  41. Barth, Roger. The Chemistry of Beer: The Science in the Suds, Wiley 2013: আইএসবিএন ৯৭৮-১-১১৮-৬৭৪৯৭-০.
  42. "Volume of World Beer Production"European Beer Guide। ২৮ অক্টোবর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০০৬ 
  43. Shoemaker, Camille (মে ২০১৭), Women & the Beverage that Changed the World., National Women's History Museum 
  44. Nelson, Max (২০০৫)। The Barbarian's Beverage: A History of Beer in Ancient Europe। Abingdon, Oxon: Routledge। পৃষ্ঠা 1। আইএসবিএন 978-0-415-31121-2। সংগ্রহের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  45. Rudgley, Richard (১৯৯৩)। The Alchemy of Culture: Intoxicants in Society। London: British Museum Press। পৃষ্ঠা 411। আইএসবিএন 978-0-7141-1736-2। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১২ 
  46. Arnold, John P (২০০৫)। Origin and History of Beer and Brewing: From Prehistoric Times to the Beginning of Brewing Science and Technology। Cleveland, Ohio: Reprint Edition by BeerBooks। পৃষ্ঠা 411। আইএসবিএন 978-0-9662084-1-2। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১২ 
  47. Joshua J. Mark (2011). Beer. Ancient History Encyclopedia.
  48. World's Best Beers: One ThousandCraft Brews from Cask to Glass। Sterling Publishing Company, Inc.। ৬ অক্টোবর ২০০৯। আইএসবিএন 978-1-4027-6694-7। সংগ্রহের তারিখ ৭ আগস্ট ২০১০ 
  49. "Beer Before Bread"Alaska Science Forum #1039, Carla Helfferich। ৯ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মে ২০০৮ 
  50. "Nin-kasi: Mesopotamian Goddess of Beer"Matrifocus 2006, Johanna Stuckey। ২৪ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মে ২০০৮ 
  51. Black, Jeremy A.; Cunningham, Graham; Robson, Eleanor (২০০৪)। The literature of ancient Sumer। Oxford: Oxford University Press। আইএসবিএন 978-0-19-926311-0 
  52. Lea, Andrew। "The Science of Cidermaking Part 1 – Introduction"। সংগ্রহের তারিখ ২ নভেম্বর ২০১১ 
  53. "National Association of Cider Makers"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-২১ 
  54. "Interesting Facts"। National Association of Cider Makers। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ 
  55. Johnson, H. (১৯৮৯)। Vintage: The Story of Wine। Simon & Schuster। পৃষ্ঠা 11–6। আইএসবিএন 978-0-671-79182-7 
  56. Keys, David (২৮ ডিসেম্বর ২০০৩)। "Now that's what you call a real vintage: professor unearths 8,000-year-old wine"The Independent। অক্টোবর ৫, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ মার্চ ২০১১ 
  57. "Isis & Osiris"Nature। University of Chicago। 146 (3695): 262–263। ১৯৪০। doi:10.1038/146262e0বিবকোড:1940Natur.146U.262. 
  58. Coffee and Health. Thecoffeefaq.com (2005-02-16). Retrieved on 2013-01-22.
  59. Villanueva, Cristina M.; Cantor, Kenneth P.; King, Will D.; Jaakkola, Jouni J.K.; Cordier, Sylvaine; Lynch, Charles F.; Porru, Stefano; Kogevinas, Manolis (২০০৬)। "Total and specific fluid consumption as determinants of bladder cancer risk"। International Journal of Cancer118 (8): 2040–7। doi:10.1002/ijc.21587PMID 16284957 
  60. Kummer 2003, পৃ. 160–5
  61. Weinberg, Bennett Alan; Bealer, Bonnie K. (২০০১)। The World of Caffeine: The Science and Culture of the World's Most Popular Drug। New York: Routledge। পৃষ্ঠা 3–4। আইএসবিএন 978-0-415-92722-2। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১৮, ২০১৫ 
  62. Grivetti, Louis E.; Shapiro, Howard-Yana (২০০৯)। Chocolate: history, culture, and heritage। John Wiley and Sons। পৃষ্ঠা 345। আইএসবিএন 978-0-470-12165-8 
  63. Bee Wilson (১৫ সেপ্টে ২০০৯)। "Aztecs and cacao: the bittersweet past of chocolate"Telegraph 
  64. Trivedi, Bijal (জুলাই ১৭, ২০১২)। "Ancient Chocolate Found in Maya "Teapot""National Geographic। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৫, ২০১৭ 
  65. Martin, Laura C. (২০০৭)। Tea: The Drink that Changed the World। Tuttle Publishing। পৃষ্ঠা 7–8। আইএসবিএন 978-0-8048-3724-8 
  66. Saberi, Helen (২০১০)। Tea: A Global History। Reaktion Books। পৃষ্ঠা 7। আইএসবিএন 978-1-86189-892-0 
  67. Gibson, E.L.; Rycroft, J.A. (২০১১)। "41"। Victor R. Preedy। Psychological and Physiological Consequences of Drinking Tea in Handbook of Behavior, Food and Nutrition। Watson, R.; Martin, C.। Springer। পৃষ্ঠা 621–623। আইএসবিএন 978-0-387-92271-3 
  68. Mars, Brigitte (২০০৯)। Healing Herbal Teas: A Complete Guide to Making Delicious, Healthful Beverages। ReadHowYouWant.com। পৃষ্ঠা vi। আইএসবিএন 978-1-4429-6955-1 
  69. Safi, Tammy (২০০১)। Healthy Teas: Green, Black, Herbal, Fruit (Illustrated সংস্করণ)। Tuttle Publishing। পৃষ্ঠা 16। আইএসবিএন 978-0-7946-5004-9 
  70. Public House Britannica.com; Subscription Required. Retrieved 3 July 2008.
  71. "Scottish pubs"। Insiders-scotland-guide.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১২ 
  72. Cronin, Michael; O'Connor, Barbara (২০০৩)। Barbara O'Connor, সম্পাদক। Irish Tourism: image, culture, and identity। Tourism and Cultural Change। 1। Channel View Publications। পৃষ্ঠা 83। আইএসবিএন 978-1-873150-53-5। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০১১ 
  73. Australian Drinking Culture Convict Creations. Retrieved 24 April 2011.
  74. Todd Dayton, San Francisco's Best Dive Bars, page 4। Ig Publishing। ২০০৯। আইএসবিএন 978-0-9703125-8-7। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৭-২২ 
  75. M. Oldman "Oldman's Guide to Outsmarting Wine" pg 219-235 Penguin Books 2004 আইএসবিএন ০-১৪-২০০৪৯২-৮
  76. K. MacNeil The Wine Bible pg 83-88 Workman Publishing 2001 আইএসবিএন ১-৫৬৩০৫-৪৩৪-৫
  77. "FAO Statistical Yearbook 2004 Vol. 1/1 Table C.10: Most important imports and exports of agricultural products (in value terms) (2004)" (PDF)। FAO Statistics Division। ২০০৬। ২০০৮-০৬-২৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৩, ২০০৭ 
  78. "FAOSTAT Core Trade Data (commodities/years)"। FAO Statistics Division। ২০০৭। অক্টোবর ১৪, ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ২৪, ২০০৭  To retrieve export values: Select the "commodities/years" tab. Under "subject", select "Export value of primary commodity." Under "country," select "World." Under "commodity," hold down the shift key while selecting all commodities under the "single commodity" category. Select the desired year and click "show data." A list of all commodities and their export values will be displayed.
  79. Mussatto, Solange I.; Machado, Ercília M. S.; Martins, Silvia; Teixeira, José A. (২০১১)। "Production, Composition, and Application of Coffee and Its Industrial Residues" (PDF)Food and Bioprocess Technology4 (5): 661–72। doi:10.1007/s11947-011-0565-zhdl:1822/22361 
  80. Caronello, Sophie (২০১৮-০৫-০৮)। "Bottled Water, Soda Provide the Pop in U.S."Bloomberg News। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-০৯ 
  81. Greenwood, By John (২০০৮-১০-০৬)। "First class returns for alternative investments" 
  82. "Buying wine for investment"। IFWIC.org। ১৬ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জানুয়ারি ২০১২ 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]