পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচন, ১৯৮৮

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচন, ১৯৮৮

← ১৯৮৫ ১৬ নভেম্বর ১৯৮৮ ১৯৯০ →

১০৭/২৩৭
সংখ্যাগরিষ্ঠতার পাওয়ার জন্য ১০৪টি আসনের প্রয়োজন
ভোটের হার৪৩.৫% (হ্রাস ৯.৪%)
  প্রথম দল দ্বিতীয় দল
  Benazir bhutto 1989 cropped.jpg Nawaz Sharif detail, 981203-D-9880W-117.jpg
নেতা/নেত্রী বেনজির ভুট্টো নওয়াজ শরীফ
দল পাকিস্তান পিপলস পার্টি ইসলামী জামহুরি ইত্তেহাদ
নেতা হয়েছেন ১০ জানুয়ারি ১৯৮৪ ১৬ সেপ্টেম্বর ১৯৮৮
নেতার আসন লারকানা লাহোর
আসনে জিতেছে ৯৪ ৫৬
জনপ্রিয় ভোট ৭,৫৪৬,৫৬১ ৫,৯০৮,৭৪১
শতকরা ৩৮.৫% ৩০.২%

প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের পূর্বে

মুহাম্মদ খান জুনেজো

নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী

বেনজির ভুট্টো
পাকিস্তান পিপলস পার্টি

১৯৮৮ সালের ১ নভেম্বর পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল, জাতীয় পরিষদের ৩৩৬ জন সদস্য এবং সিনেটের ১০০ জন সদস্য নির্বাচিত হয়েছিল। বেনজির ভুট্টোর নেতৃত্বে পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) জাতীয় পরিষদের ২০৭ আসনের মধ্যে ৯৯টিতে জয়লাভ করে মৃত জেনারেল জিয়া-উল-হকের প্রযুক্তিগত সামরিক সরকারকে পরাজিত করেছিল। এটি পিপিপির পক্ষে টানা চতুর্থ বিজয়ের মধ্যে দ্বিতীয় ছিল এবং বিশ্ববাসী বেনজিরকে পাকিস্তানের এবং মুসলিম বিশ্বের প্রথম সরকার প্রধান হতে দেখেছে। নওয়াজ শরীফ বিরোধী দলের নেতার পদ গ্রহণ করেছিলেন। এই নির্বাচনে ভোটারের ভোটদান ছিল ৪৩.৫%।[১]

পটভূমি[সম্পাদনা]

পিপিপি দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের মাধ্যমে ১৯৭৭ সালের ৭ই মার্চ সংসদীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। যাহোক, সহিংসতা ও নাগরিক অস্থিরতার মধ্যে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল জিয়া-উল-হক অপারেশন ফেয়ার প্লে-এর কোড, ৫ জুন প্রধানমন্ত্রী সামরিক অভ্যুত্থানে প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টোকে পদচ্যুত করেছিলেন। ১৯৮৫ সালে নির্দলীয় ও টেকনোক্র্যাটিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে সামরিক আইন প্রত্যাহার করা হয়, এর ফলস্বরূপ সিন্ধি প্রভু মোহাম্মদ জুনেজোকে প্রধানমন্ত্রী পদে নিযুক্ত করা হয়েছিল।

১৯৮৮ সালের ২৯শে মে, ১৯৮৫ সালে নির্বাচিত হওয়া জাতীয় সংসদকে "প্রশাসন দুর্নীতি ও অকার্যকর" হিসেবে উল্লেখ করে জিয়া ভেঙে দিয়েছিলেন, যিনি পূর্বে জুনেজো এবং তাঁর মন্ত্রিসভার বাকী অংশকেও বরখাস্ত করেছিলেন। নতুন ভোটগ্রহণের তারিখ (পাকিস্তান সংবিধান অনুযায়ী সংসদ বিলোপিত হওয়ার পরবর্তী ৯০ দিনের সীমার মধ্যে) ১৯৮৭ সালের ২০ জুলাই রাষ্ট্রপতি দ্বারা নির্ধারিত হয়েছিল। অধিকন্তু এটিও ঘোষণা করা হয়েছিল যে নির্দলীয় ভিত্তিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।[২] তবে ২ অক্টোবর, ১ আগস্ট জিয়ার দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর পরে সুপ্রিম কোর্ট দলগুলোর উপর থেকে নিষেধাজ্ঞাকে প্রত্যাহার করে এবং দলীয় ভিত্তিতে নির্বাচন অনুষ্ঠানের অনুমতি দেয়।

ক্যাম্পেইন[সম্পাদনা]

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোট ১,৩৭০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।[৩] প্রচারটি এক মাস ব্যাপী শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছিল।[২]

জিয়ার মৃত্যুর পরে গণতান্ত্রিক সমাজতান্ত্রিক এবং ধর্মনিরপেক্ষ দলগুলো পুনরায় ঐক্যবদ্ধ হয়েছিল এবং বেনজির ভুট্টোর নেতৃত্বে পিপিপির প্ল্যাটফর্মের অধীনে প্রচার চালায়; এর পূর্বে জিয়া গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনকে চূর্ণ করেছিলেন, যা তার সামরিক শাসনকে উৎখাত করার চেষ্টা করেছিল এবং এই আন্দোলনকে আরও ভাঙ্গার জন্য অত্যন্ত কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল। পিপিপি প্রচারে পাকিস্তানে উগ্রপন্থা নিয়ন্ত্রণ ও মোকাবেলা করার পাশাপাশি ট্রেড ইউনিয়নগুলোর শক্তি কমানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল অন্যদিকে শরীফের অধীনে রক্ষণশীলরা শিল্পায়ন ও বেসরকারীকরণ কর্মসূচি সম্প্রসারণের লক্ষ্যে প্রচারণা চালিয়েছিল। উদারপন্থী মুত্তাহিদা কওমি আন্দোলন (এমকিউএম) আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনে অংশ নেয়নি, তবে এর বেশিরভাগ প্রার্থী সদস্য স্বতন্ত্র হয়ে নির্বাচনে লড়েছেন।[৪][৫][৬]

ফলাফল[সম্পাদনা]

পিপিপির বিরুদ্ধে ভোট কারচুপির অভিযোগ এবং আইডি কার্ডের বিধি ব্যবহার করে কম সুসংহত ও তুলনামূলকভাবে কম সমর্থকদের ভোটদান থেকে বিরত রেখে ভুট্টো ৮%-এর ব্যবধানে নির্বাচনে জয়ী হয়েছিলেন, এর ফলস্বরূপ তিনি আইজেআইয়ের নয়-দলীয় জোটকে পরাজিত করতে সক্ষম হন।

স্বতন্ত্র হয়ে নির্বাচনে লড়া এমকিউএম সদস্যরা করাচিহায়দ্রাবাদের ১৩টি আসনে ৫.৪% ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছিলেন।[৭][৮][৯][১০][১১]

পার্টি ভোট % আসন
পাকিস্তান পিপলস পার্টি ৭.৫৪৬.৫৬১ ৩৮.৫ ৯৪
ইসলামী জামহুরী ইত্তেহাদ ৫.৯০৮.৭৪১ ৩০.২ ৫৬
পাকিস্তান আওয়ামী ইত্তেহাদ ৮৪৮.১১৯ ৪.২
আওয়ামী জাতীয় পার্টি ৪০৯.৫৫৫ ২.১
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম (ফজল-উর-রেহমান) ৩৬০.৫২৬ ১.৮
পাঞ্জাবি পাখতুন ইত্তেহাদ ১০৫.০৬১ ০.৫
পাকিস্তান ন্যাশনাল পার্টি ১০৪.৪৪২ ০.৫
জাতীয় পিপলস পার্টি (খার) ৯৭.৩৬৩ ০.৫
পাকিস্তান ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ৮০.৭৪৩ ০.৪
বেলুচিস্তান ন্যাশনাল জোট ৫৯.২৪৮ ০.৩
পাকিস্তান মুসলিম লীগ ৫৫.০৫২ ০.৩
পাকিস্তান মিলি আওয়াই ইত্তেহাদ ৪৬.৫৬২ ০.২
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম (দারখস্তি) ৪৪.৯৬৪ ০.২
তেহরিক-ই-জাফরিয়া (আরিফ হুসেনী) ৪২.২৬১ ০.২
১৫ অন্যান্য দল ৫১.৬৫৬ ০.৩
নির্দল ৩.৮২৯.৭০৫ ১৯.৫ ৪০
অবৈধ / ফাঁকা ভোট ৩১৩.৯২৬ - -
মোট ১৯.৯০৪.৪৪০ ১০০ ২০৭
সূত্র: নোহলেন এট আল।

পাঞ্জাব[সম্পাদনা]

পার্টি ভোট % আসন
পাকিস্তান পিপলস পার্টি ৫.১৫০.৮১৬ ৪০ ৫৩
ইসলামী জামহুরী ইত্তেহাদ ৪.৮০৫.০৯৪ ৩৭ ৪৫
স্বতন্ত্র ১.৯১০.৮৩২ ১৫ ১২
পাকিস্তান আওয়ামী ইত্তেহাদ ৭৬২.৩৬১
জাতীয় গণ পার্টি (খার গ্রুপ) ৯৭.৯৯০
পাকিস্তান ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ৮০.৪৭৩
অন্যদের ১৫৮.২০৩
মোট ১২.৯৬৫.৭৬৯ ১০০ ১১৫

সিন্ধু[সম্পাদনা]

পার্টি ভোট % আসন
পাকিস্তান পিপলস পার্টি ১.৯২৩.৮১০ ৪৭ ৩১
স্বাধীন ১.৪৭৪.৮৬৫ ৩৬ ১৫
ইসলামী জামহুরী ইত্তেহাদ ৪৬৮.০৫২ ১১
পাঞ্জাবি পাখুন ইত্তেহাদ সিন্ধু ১০৫.০৬১
অন্যদের ১৬১.৮৬৭
মোট ৪.১৩৩.৬৫৫ ১০০ ৪৬

কেপিকে[সম্পাদনা]

পার্টি ভোট % আসন
ইসলামী জামহুরী ইত্তেহাদ ৫৪১.২২৫ ২৭
পাকিস্তান পিপলস পার্টি ৪৬৭.১৪৯ ২৩
আওয়ামী জাতীয় পার্টি ৩৪৮.৮৩৪ ১৭
স্বাধীন ৩২৭.২৮০ ১৬ ১১
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম (ফজল-উর-রেহমান) ১৯৭.৮৯০ ১০
পাকিস্তান আওয়ামী ইত্তেহাদ ৫৭.৭৫৪
জামিয়াত-উলেমা-ই-পাকিস্তান (দরখস্তি) ৩৬.৪০৫
অন্যরা ২৩.৬৯৩
মোট ২.০০০.২৩০ ১০০ ৩৪

বেলুচিস্তান[সম্পাদনা]

পার্টি ভোট % আসন
ইসলামী জামহুরী ইত্তেহাদ ১২৪.৭১৭ ২১
স্বাধীন ১০৫.৬৬৮ ১৮
জামিয়াত-উলেমা-ই-ইসলাম (ফজল-উর-রেহমান) ১০২.২৮০ ১৭
বেলুচিস্তান ন্যাশনাল জোট ৭১.০৫৮ ১২
পাকিস্তান ন্যাশনাল পার্টি ৬৪.৬৭০ ১১
পাখতুন মিলি আওয়ামী ইত্তেহাদ ৪৪.৫২৯
পাকিস্তান পিপলস পার্টি ৪২.৭২৩
অন্যদের ৩৬.৯৮৭
মোট ৫৯২.৫৩২ ১০০ ১১

ভবিষ্যৎ ফল[সম্পাদনা]

নির্বাচনের ফলাফলের আলোকে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি গোলাম ইসহাক খান পিপিপিকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানান। ছোট দল এবং স্বতন্ত্র দলগুলোর সাথে জোটবদ্ধ করে পিপিপি সরকার গঠন করে। ১৯৮৮ সালের ৪ ডিসেম্বর ভুট্টো মুসলিম দেশের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। পরবর্তী সময়ে ভুট্টোর নেতৃত্বে নতুন মন্ত্রিসভা ঘোষণা করা হয়।[২]

কেন্দ্রীয় সরকার গঠনের ক্ষেত্রে এমকিউএম গুরুত্বপূর্ণ ছিল, কারণ পিপিপি সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন জয়লাভ করে ব্যর্থ হয়েছিল। যাহোক, ১৯৮৯ সালের অক্টোবরে এমকিউএম জোট ছেড়ে যায় যখন সিন্ধি জাতীয়তাবাদীদের দ্বারা এমকিউএমের একটি মঞ্চে কয়েক ডজন মানুষ নিহত হওয়ার পরে মতবিরোধ দেখা দেয় এবং সহিংসতা পরবর্তী পরিস্থিতিতে জোট ভেঙে যায়। পরিবর্তে নওয়াজ শরীফের ইসলামী জামহুরী ইত্তেহাদকে এমকিউএম সমর্থন দেয়।[১২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Dieter Nohlen, Florian Grotz & Christof Hartmann (2001) Elections in Asia: A data handbook, Volume I, p678
  2. Pakistan: Elections held in 1988 Inter-Parliamentary Union
  3. Pakistan Elections 2008 | Pakistan Elections 2013 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে. Elections.com.pk. Retrieved on 3 August 2013.
  4. "The first 10 general elections of Pakistan" (PDF)pildat.org। PILDAT। মে ২০১৩। পৃষ্ঠা 19, 20। ২৮ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ জানু ২০১৭ 
  5. Pike, John। "Muttahida Quami Movement - MQM"www.globalsecurity.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১১ 
  6. "MQM's toughest election"www.thenews.com.pk। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১১ 
  7. "PAKISTAN AT THE POLLS" (PDF)gallup.com.pk। Gallup। ১৯৯০। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানু ২০১৭ 
  8. "Volume 3, PAKISTAN NATIONAL, ELECTION: 1988" (PDF)gallup.com.pk। Gallup। ৩০ এপ্রিল ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানু ২০১৭ 
  9. "The First 10 General Elections of Pakistan" (PDF)pildat.org। Pildat। মে ২০১৩। ২৮ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানু ২০১৭ 
  10. "KARACHI: Parties gear up for general elections"DAWN.COM। ২০০২-০৮-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৩ 
  11. "Hyderabad: no one's land when it comes to election"DAWN.COM। ২০১৩-০৫-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৩ 
  12. "Timeline: A history of MQM"DAWN.COM। ২০১৩-০৫-২৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৩