পনস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পনস
Brain bulbar region.PNG
ব্রেইনস্টেমে পনস
Gray679.png
বিস্তারিত
যার অংশব্রেইনস্টেম
ধমনীপন্টাইন ধমনি
শিরাট্রান্সভার্স ও ল্যাটেরাল পন্টাইন শিরা
শনাক্তকারী
টিএA14.1.03.010
এফএমএFMA:67943
স্নায়ুতন্ত্রের শারীরস্থান পরিভাষা

পনস (ইংরেজি: Pons) (লাতিন ভাষায় যার অর্থ "সেতু") হচ্ছে মস্তিষ্কের ব্রেইনস্টেমের একটি অংশ যা মানুষ ও অন্যান্য দ্বিপদী প্রাণিতে দেখা যায়। মস্তিষ্কের এটির অবস্থান মধ্যমস্তিষ্কের নিচে, মেডুলা অবলংগাটার ঠিক ওপরে এবং লঘুমস্তিষ্কের সামনে মস্তিষ্কের ভেতরের দিকে।

ইতালীয় শারীস্থানবিদ ও শল্যচিকিৎসক কোস্তানযো ভেরোলিওর (১৫৪৩–১৫৭৫) নাম অনুসারে পনসকে পনস ভেরোলি নামেও অভিহিত করা হয়।[১] ব্রেইনস্টেমের এই অংশে স্নায়ু পথ এবং স্নায়ু নালী রয়েছে যারা গুরুমস্তিষ্ক থেকে লঘুমস্তিষ্ক ও মেডুলায় তথ্য প্রদান করে। এছাড়াও স্নায়ু নালীর মাধ্যমে পনস থ্যালামাসে সংজ্ঞাবহ বা সেনসরি তথ্য প্রদান করে।[২]

গঠন[সম্পাদনা]

ব্রেইনস্টেমে থাকা পনসের অবস্থান পশ্চাৎমস্তিষ্ক ও মেডুলা অবলংগাটার মাঝে এবং লঘুমস্তিষ্ক বা সেরিবেলামের সামনে। পনস এবং মেডুলার মধ্যে পার্থক্যকারী খাঁজটি ইনফিরিওর পন্টাইন সাল্কাস হিসেবে পরিচিত।[৩] পনসকে বৃহদার্থে পন্সের বেসিলার অংশ বা ভেন্ট্রাল পনস এবং পন্টাইন টেগমেন্টাম বা ডর্সাল পনস, এই দুই ভাগে ভাগ করা হয়। ভেন্ট্রাল পৃষ্ঠের মধ্যরেখা বরাবর নিচের দিকে অবস্থিত খাঁজটিকে বেসিলার সাল্কাস বলা হয় যেখানে বেসিলার ধমনি অবস্থিত যা মস্তিষ্কের ব্রেইনস্টেমে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত সরবরাহ করে। অবশ্য পনসের বেশিরভাগ অংশে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত সরবরাহ করে পন্টাইন ধমনি যা নিজেও বেসিলারি ধমনি থেকে সৃষ্ট একটি শাখা। পনসের একটি ক্ষুদ্র অংশে অ্যান্টেরিও এবং পোস্টেরিওর ইনফিরিওর সেরিবেলার ধমনির মাধ্যমে রক্ত সরবরাহ করা হয়।

মানব পনসের লম্বায় প্রায় ২.৫ সেন্টিমিটার (০.৯৮ ইঞ্চি)। পাশ থেকে এটিকে মেডুলার ওপর ফুলে ওঠা একটি অংশের মতো দেখতে মনে হলেও মস্তিষ্কের পেছন দিক থেকে এটিকে দুই জোড়া মোট বৃন্তের মতো দেখায় যা সেরিবেলার পেন্ডুকল নামে পরিচিত। এই সেরিবেলার পেন্ডুকলের মাধ্যমেই পনস লঘুমস্তিষ্ক ও পশ্চৎমস্তিষ্কের সাথে যুক্ত যেখানে মধ্য সেরিবেলার পেন্ডুকল পনসকে লঘুমস্তিষ্কের সাথে এবং সুপিরিয়র সেরিবেলার পেন্ডুকল পশ্চাৎমস্তিষ্কের সাথে যুক্ত করেছে।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Henry Gray (১৮৬২)। Anatomy, descriptive and surgical। Blanchard and Lea। পৃষ্ঠা 514–। সংগ্রহের তারিখ ১০ নভেম্বর ২০১০ 
  2. Saladin Kenneth S.(2007) Anatomy & physiology the unity of form and function. Dubuque, IA: McGraw-Hill
  3. "BrainInfo"braininfo.rprc.washington.edu 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]