দ্য দেওবন্দ স্কুল এন্ড দ্য ডিমান্ড ফর পাকিস্তান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দ্য দেওবন্দ স্কুল এন্ড দ্য ডিমান্ড ফর পাকিস্তান
দ্য দেওবন্দ স্কুল এন্ড দ্য ডিমান্ড ফর পাকিস্তান.jpg
লেখকজিয়াউল হাসান ফারুকী
মূল শিরোনামThe Deoband School And The Demand For Pakistan
দেশভারত
ভাষাইংরেজি
বিষয়দেওবন্দ আন্দোলন
প্রকাশিত১৯৬৩
প্রকাশকএশিয়া পাবলিশিং হাউস
মিডিয়া ধরন
পৃষ্ঠাসংখ্যা১৪৮
আইএসবিএন৯৭৮০২১০৩৩৮৩৫৩
ওসিএলসি১০৭৯৩৬৮২৩২
ওয়েবসাইটescholarship.mcgill.ca

দ্য দেওবন্দ স্কুল এন্ড দ্য ডিমান্ড ফর পাকিস্তান (ইংরেজি: The Deoband School And The Demand For Pakistan) ভারতের জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার অধ্যাপক জিয়াউল হাসান ফারুকীর রচিত একটি গবেষণা গ্রন্থ। ১৯৬৩ সালে নতুন দিল্লির এশিয়া পাবলিশিং হাউস থেকে বইটি প্রকাশিত হয়। এটি মূলত ১৯৬২ সালে কানাডার ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্পন্ন লেখকের একটি স্নাতকোত্তর অভিসন্দর্ভ। বইটি ইংল্যান্ডে প্রচলিত ভারতের সাম্প্রতিক মুসলিম ইতিহাসের একটি ভুল পাঠকে সংশোধন করে। প্রকাশের অল্প সময়ের মধ্যেই বইটি পাঠকপ্রিয়তা পায়, যা তৎকালীন ভারতের নীতি নির্ধারণে উল্লেখযোগ্য প্রভাব সৃষ্টি করেছিল।

বিষয়বস্তু[সম্পাদনা]

বইটিতে মোট ৪টি অধ্যায় রয়েছে। যার শুরু হয় ১৮০০ থেকে ১৮৫৭ সালের মহাবিদ্রোহ পর্যন্ত ভারতের মুসলিম ইতিহাস ও তাতে আলেমদের ভূমিকার আলোচনা দিয়ে। মহাবিদ্রোহ পরবর্তী দারুল উলুম দেওবন্দ প্রতিষ্ঠা বইটির দ্বিতীয় আলোচ্য বিষয়। দারুল উলুম দেওবন্দ প্রতিষ্ঠার ষষ্ঠ দশকে প্রতিষ্ঠিত হয় জমিয়ত উলামায়ে হিন্দ, যা বইটির তৃতীয় আলোচ্য বিষয়। সর্বশেষ অধ্যায়ে লেখক পাকিস্তান আন্দোলনের সৃষ্টি ও তাতে জমিয়তের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেছেন। বইটিতে লেখক মুসলিম লীগের উত্থানের আগে মুসলিম জাতীয়তাবাদের দীর্ঘ ইতিহাসকে উপেক্ষা করে এবং এই জাতীয়তাবাদ কংগ্রেসের জাতীয়তাবাদের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত ছিল। তিনি দেখিয়েছেন কীভাবে মুসলিম লীগের বিপরীতে দারুল উলুম দেওবন্দ সম্মিলিত জাতীয়তাবাদের প্রশিক্ষণের কেন্দ্র হয়ে উঠেছিল।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]