দীনেশ গুণবর্ধনে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মাননীয়
দীনেশ গুণবর্ধনে
সংসদ সদস্য
දිනේෂ් ගුණවර්ධන
தினேஷ் குணவர்தன
১৫তম শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
২২ জুলাই ২০২২
রাষ্ট্রপতিরনিল বিক্রমসিংহ
পূর্বসূরীরনিল বিক্রমসিংহ
মন্ত্রীসভার দায়িত্বসমূহ
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, জনপ্রশাসনমন্ত্রী, প্রাদেশিক সভা এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রী
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১৮ এপ্রিল ২০২২
রাষ্ট্রপতিগোঠাভয় রাজাপক্ষ
রনিল বিক্রমসিংহ
প্রধানমন্ত্রীমহিন্দ রাজাপক্ষ
রনিল বিক্রমসিংহ
নিজ
পূর্বসূরীজনক বন্দর তেনাকুন
শিক্ষামন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১৬ আগস্ট ২০২১ – ১৮ এপ্রিল ২০২২
রাষ্ট্রপতিগোঠাভয় রাজাপক্ষ
প্রধানমন্ত্রীমহিন্দ রাজাপক্ষ
পূর্বসূরীজি এল পেইরিস
উত্তরসূরীরমেশ পাথিরানা
পররাষ্ট্র মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
২২ নভেম্বর ২০১৯ – ১৬ আগস্ট ২০২১
রাষ্ট্রপতিগোঠাভয় রাজাপক্ষ
প্রধানমন্ত্রীমহিন্দ রাজাপক্ষ
পূর্বসূরীতিলক মারাপানা
উত্তরসূরীজি এল পেইরিস
পানি সরবরাহ এবং পয়ঃনিষ্কাশন মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
এপ্রিল ২০১০ – ১২ জানুয়ারি ২০১৫
পূর্বসূরীএ এল এম আতাউল্লাহ
উত্তরসূরীরউফ হাকিম
নগর উন্নয়ন এবং পানি সরবরাহ মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
এপ্রিল ২০০৪ – এপ্রিল ২০১০
পূর্বসূরীগামিনি আতুকুরালে
উত্তরসূরীমহিন্দ রাজাপক্ষ
উপ শিক্ষামন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
এপ্রিল ২০০৪ – জানুয়ারি ২০০৭
উত্তরসূরীএম সঞ্চিতানন্দন
যোগাযোগ মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
অক্টোবর ২০০০ – ডিসেম্বর ২০০১
পূর্বসূরীশ্রীমানি আতুলামুদাই
উত্তরসূরীগামিনি আতুকুরালে
সংসদীয় পদসমূহ
হাউসের নেতা
কাজের মেয়াদ
২০ আগস্ট ২০২০ – ২৭ জুলাই ২০২২
রাষ্ট্রপতিগোঠাভয় রাজাপক্ষ
প্রধানমন্ত্রীমহিন্দ রাজাপক্ষ
রনিল বিক্রমাসিংহে
স্বয়ং
পূর্বসূরীলক্ষ্মণ কিরিয়েল্লা
উত্তরসূরীসুসিল প্রেমজয়ন্থ
প্রধান সরকার হুইপ
কাজের মেয়াদ
১৭ জুন ২০০৮ – ২০ জানুয়ারি ২০১৫
পূর্বসূরীজয়রাজ ফার্নান্দোপুল
উত্তরসূরীগয়ন্তা করুণাথিলাকা
মহাজন একসাথ পেরামুনার সভাপতি
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১৯৭২
পূর্বসূরীফিলিপ গুণবর্ধনে
সংসদ সদস্য
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১০ অক্টোবর ২০০০
সংসদীয় এলাকা কলম্বো
কাজের মেয়াদ
১৮ মে ১৯৮৩[১] – ১৬ আগস্ট ১৯৯৪
সংসদীয় এলাকা মহারাগামা (১৯৮৩-১৯৮৯)
কলম্বো (১৯৮৯-১৯৯৪)
পূর্বসূরীপ্রেমরাথনে গুণাসেকেরা
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1949-03-02) ২ মার্চ ১৯৪৯ (বয়স ৭৪)
কলম্বো, সিলন অধিরাজ্য
রাজনৈতিক দলমহাজন একসাথ পেরামুনা
অন্যান্য
রাজনৈতিক দল
শ্রীলঙ্কা জনগণের স্বাধীনতা জোট
প্রাক্তন শিক্ষার্থীরয়েল কলেজ কলম্বো, অরেগন বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাট্রেড ইউনিয়নিস্ট

দীনেশ চন্দ্র রূপসিংহ গুণবর্ধনে (জন্মঃ ১৯৪৯) হচ্ছেন একজন শ্রীলঙ্কীয় রাজনীতিবিদ যিনি ২০২২ সালের ২২শে জুলাই তারিখ থেকে দেশটির প্রধানমন্ত্রী পদে আসীন আছেন।[২] প্রধানমন্ত্রী পদের দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি দীনেশ শ্রীলঙ্কার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং প্রাদেশিক সভা এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

গুণবর্ধনে ১৯৭৩ সাল থেকে বামপন্থী রাজনৈতিক দল 'মহাজন একসাথ পেরামুনা'র সাথে যুক্ত ছিলেন এবং এখনো আছেন। তিনি বিভিন্ন সরকারের অধীনে মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন এবং ২০২০ থেকে ২০২২ পর্যন্ত তিনি ছিলেন ছিলেন লিডার অব দ্য হাউজ।

গুণবর্ধনে একটি খ্যাতিমান রাজনৈতিক পরিবারে জন্মেছিলেন, তার পিতা ফিলিপ গুণবর্ধনে ছিলেন একজন মার্ক্সীয় রাজনীতিবিদ যিনি ১৯৫৬ সাল থেকে ১৯৫৯ সাল পর্যন্ত কৃষি এবং খাদ্য মন্ত্রী ছিলেন, এছাড়াও ছিলেন মৎস্য মন্ত্রী (১৯৬৫ সাল থেকে ১৯৭০ মেয়াদে)। দীনেশের মা কুসুমাশ্রীও একজন রাজনীতিবিদ ছিলেন। দীনেশ কলম্বোর রয়্যাল কলেজে পড়ে যুক্তরাষ্ট্রের অরেগন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যান, তিনি ভিয়েতনাম যুদ্ধের বিরোধিতা করেছিলেন। ১৯৮৩ সালে তাকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত করা হয়।

পূর্ব জীবন এবং পরিবার[সম্পাদনা]

১৯৪৯ সালের ২ মার্চ দীনেশ জন্মগ্রহণ করেন গুণবর্ধনে পরিবারে।[৩][৪] তার পিতা ফিলিপ গুণবর্ধনে ছিলেন শ্রীলঙ্কায় সমাজতন্ত্রবাদী মতবাদের জনক এবং মা কুসুমাশ্রী ছিলেন একজন সংসদ সদস্য। দীনেশের মসী ভিভিয়ানে শ্রীলঙ্কার রাজনীতিতে বামপন্থী ঘরানার একজন উর্ধ্বতন নেত্রী ছিলেন।[৪][৫]

দীনেশ পড়াশোনা করেন কলম্বোর রয়্যাল প্রাইমারি স্কুল এবং রয়্যাল কলেজে এবং এরপর তিনি নেদারল্যান্ডস এবং যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে যান। নেদারল্যান্ডসের স্কুল অব বিজনেস এবং যুক্তরাষ্ট্রের অরেগন বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি পড়াশোনা করেন, যুক্তরাষ্ট্র থেকে তিনি বিবিএ পাশ করেন।[৬][৭][৮][৪][৫]

দীনেশ রমণী বৎসলা কোটেলাওয়ালা নাম্নী এক তরুণীকে বিয়ে করেন।[৯][১০] তাদের এক ছেলে (নামঃ যদামিন) এবং মেয়ে (নামঃ শঙ্খপালি) জন্মগ্রহণ করে।[৫][১০] আশির দশকের মাঝখান দিকে দীনেশের পত্নী রমণী দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।[৯]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৭২-২০০০[সম্পাদনা]

যুক্তরাষ্ট্রের অরেগনের অরেগন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দীনেশ পড়াশোনা শেষ করে নিউ ইয়র্কে স্বল্প সময় কাজ করেন, '৭২ সালে তার পিতার মৃত্যুর সংবাদ শুনে নিজ দেশ শ্রীলঙ্কায় চলে আসেন।[৫] পঞ্চাশের দশকে তার বাবা ফিলিপের তৈরি করা বামপন্থী রাজনৈতিক দল 'মহাজন একসাথ পেরামুন'তে দীনেশ সঙ্গে সঙ্গে যোগ দান করেন; '৭৩ সালের আগস্টে তাকে এই দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য করা হয়। ১৯৭৪ সালে তিনি এই দলটির মহাসচিবের দায়িত্ব পান।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Moonsinghe, Vinod (২২ মে ২০২০)। "The By-Elections of 1983"Daily News। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০২২ 
  2. "শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী দিনেশ গুনাবর্ধনে"দৈনিক ইত্তেফাক। ২২ জুলাই ২০২২। 
  3. "Directory of Members: Dinesh Gunawardena"Parliament of Sri Lanka 
  4. de Silva, W. P. P.; Ferdinando, T. C. L.। 9th Parliament of Sri Lanka (পিডিএফ)Associated Newspapers of Ceylon Limited। পৃষ্ঠা 233। ২৩ জুন ২০১৫ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. Singaravelu, Ananda Nihal (২ মার্চ ২০০৯)। "Dinesh Turns Three-Score"Daily News (Sri Lanka) 
  6. Joseph, Dishan। "Loyal to Royal"। Sunday Observer। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০২১ 
  7. "Royal College honours old Royalists in Parliament"Daily News (Sri Lanka)। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০০২। 
  8. "Ranil's third stint as PM"Sunday Observer (Sri Lanka)। ১১ জানুয়ারি ২০১৫। ৭ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  9. Peiris, Roshan (২ এপ্রিল ২০০০)। "The Boralugoda 'cub'"The Sunday Times (Sri Lanka) 
  10. "Minister Dinesh Gunawardena on 'Celeb Chat'"The Nation (Sri Lanka)। ৩১ জুলাই ২০১১। ১০ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২