দীননাথ সেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দীননাথ সেন
Dinanath Sen.jpg
জন্ম১৮৩৯/১৮৪০
মৃত্যু১৮৯৮ (বয়স ৫৭–৫৮)
মাতৃশিক্ষায়তনঢাকা কলেজ
পরিচিতির কারণসমাজ সংস্কারক এবং সাংবাদিক
আন্দোলনব্রাহ্ম সমাজ
পিতা-মাতা
  • গোলকনাথ (পিতা)
  • দয়াময়ী (মাতা)

দীননাথ সেন (১৮৩৯/১৮৪০–১৮৯৮) ছিলেন একজন বাঙালি সমাজ সংস্কারক এবং সাংবাদিক। তিনি ঊনবিংশ শতকে ঢাকার শিক্ষা-সংস্কৃতিক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।[১] বাংলাদেশের ঢাকা শহরের প্রথম বাংলা সংবাদপত্র ঢাকাপ্রকাশের দ্বিতীয় সম্পাদক ছিলেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

দীননাথ সেন ১৮৩৯ অথবা ১৮৪০ সালে মানিকগঞ্জের দশরা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।[২][৩] তার পিতার নাম গোলকনাথ এবং মাতার নাম দয়াময়ী। পিতার কর্মস্থল কুমিল্লায় হওয়ায় প্রথমজীবনে কুমিল্লা জিলা স্কুলে লেখাপড়া করেন। পরবর্তীতে ঢাকা কলেজে শিক্ষালাভ করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

দীননাথ ১৮৬১ সাল থেকে ১৮৬৪ সাল পর্যন্ত পোগোজ স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। তিনি এ বিদ্যালয়ের প্রথম বাঙালি প্রধান শিক্ষক। ১৮৬৬ সালে ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলে শিক্ষকতা করেন। পূর্ববঙ্গের স্কুলগুলোর ডেপুটি ইন্সপেক্টর হিসেবেও কিছুকাল দায়িত্ব পালন করেন। তিনিসহ আরো কয়েকজনের প্রচেষ্টায় ঢাকার প্রথম বাংলা সংবাদপত্র ঢাকাপ্রকাশ প্রতিষ্ঠিত হয়। এর প্রথম সম্পাদক ছিলেন কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার। পরবর্তীতে দীননাথ পত্রিকাটির সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।[৪] ১৮৫৮ সালে ঢাকার তৎকালীন ব্রাহ্ম স্কুল (বর্তমান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়), স্ত্রী শিক্ষা সভা ও ইডেন স্কুল প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে তিনি অন্যতম।[৫]

দীননাথ ১৮৬৬ সালে ঢাকায় ব্রাহ্মদের নিজস্ব উপাসনালয় নির্মাণের প্রস্তাব করেন। এই প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে ২৫ আগস্ট ১৮৬৬ সালে ৯ সদস্যের নির্মাণ কমিটি গঠন করা হয় যার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি। তারপর নির্মিত হয় ঢাকার ব্রাহ্ম সমাজ মন্দির। তিনি ঢাকার গেন্ডারিয়াতে জমি ক্রয় করে তার বাড়ি নির্মাণ করেন যারফলে গেন্ডারিয়া আবাসিক এলাকা প্রতিষ্ঠিত হয়।[৬] তার নাম অনুসারে গেন্ডারিয়ার একটি সড়কের নামকরণ করা হয়েছে ‘দীননাথ সেন রোড’।[২]

সাহিত্যকর্ম[সম্পাদনা]

দীননাথ বেশ কিছু গ্রন্থ রচনা করেন যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো:

  • শিক্ষাদান প্রণালী
  • মানসিক গণনা
  • বঙ্গদেশ ও আসামের সংক্ষিপ্ত বিবরণ

পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

দীননাথ সেনের পুত্র আদিনাথ সেন। আদিনাথের পুত্র দিবাকর সেন বাংলা অভিনেত্রী সুচিত্রা সেনের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।[৭] দিবাকর-সুচিত্রা দম্পতির কন্যা মুনমুন সেন। মুনমুন সেনের কন্যা রাইমা সেনরিয়া সেন

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. স্বর্গীয় দীননাথ সেনের জীবনী ও তৎকালীন পূরব্বঙ্গ, আদিনাথ সেন। আশুতোষ লাঈব্রেরী। ১৯৪৮। পৃষ্ঠা ৪৪৬ পৃ. খ.২.। 
  2. "সেকালের ঢাকার জাগরণের অগ্রদূত"কালের কণ্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  3. দীননাথ সেন, (১৮৩৯-১৮৯৮) হিতৈষিণী, ঢাকা প্রকাশ, ব্রাহ্মধর্ম প্রচারক
  4. "ঢাকাপ্রকাশ"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  5. খন্দকার মাহমুদুল হাসান, ঢাকা অভিধান, ঐতিহ্য, ঢাকা, ২০১৪, পৃ. ২৫৩
  6. মুনতাসীর মামুন, ঢাকা : স্মৃতি বিস্মৃতির নগরী, অনন্যা, ঢাকা, ২০০০, পৃ. ৬৯, ৭০
  7. "সুচিত্রা সেন এবং আমাদের নায়িকারা"মানবজমিন। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯