থাইল্যান্ডে শিশু পতিতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(থাইল্যান্ডে শিশু পতিতাবৃত্তি থেকে পুনর্নির্দেশিত)

শিশু যৌন পর্যটনশিশু পতিতাবৃত্তির কেন্দ্র হিসেবে থাইল্যান্ডের খারাপ ও লজ্জাজনক খ্যাতি রয়েছে।[১] শিশু যৌন পর্যটন বলতে বোঝায়, কোনো ব্যক্তি বা একদল মানুষের দ্বারা নাবালকদের সাথে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করা। শিশুদের যৌন শোষণে ব্যবসার ক্ষেত্রে, এই শব্দটি যৌন উদ্দেশ্যে শিশুদের লোভনীয় শোষণের সমস্ত ঘটনাকে অন্তর্ভুক্ত করে, যেমন অপ্রাপ্ত বয়স্ক পতিতাবৃত্তি, শিশু যৌন নির্যাতন, যৌন শোষণের জন্য শিশু পাচার এবং পর্যটনে যৌন শোষণ ইত্যাদি। যৌন পর্যটন ও শিশুদের যৌন শোষণের ব্যবসা বৈশ্বিক ঘটনা। ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম) অনুমান করে যে, আন্তর্জাতিক ভ্রমণের ক্ষেত্রে বার্ষিক ৬০০ মিলিয়নের মধ্যে ২০% যৌন পর্যটনের সাথে যুক্ত। তাদের মধ্যে ৩% অপ্রাপ্তবয়স্ক।[২] থাইল্যান্ডে যদিও পরিবার ও আন্তর্জাতিক কর্তৃপক্ষ শিশুদের যৌন নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য কাজ করে, তবুও থাইল্যান্ড এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্যান্য অনেক দেশে সমস্যাটি এখনও বহাল রয়েছে।[৩] শিশু পতিতাবৃত্তি অন্যান্য শিশু যৌন নির্যাতনের ধরনের মতো, লক্ষ লক্ষ শিশুর মৃত্যু ও উচ্চ রোগের হারই ঘটায় না বরং তাদের অধিকার ও মর্যাদা লঙ্ঘন করে।[৪] থাইল্যান্ডে শিশু ও মহিলাদের যৌন শোষণ বহু শতাব্দী আগের। ১৩৫১ থেকে ১৭৬৭ পর্যন্ত আয়ুথায়া সময়কালে মহিলাদের পুরুষদের মধ্যে উপপত্নী হিসেবে প্রচার করা হতো অথবা যুদ্ধের মাল হিসাবে গণ্য করে সৈন্যদের পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হত। যৌন দাস হিসেবে ব্যবহৃত শিশু ও মহিলাদের তাদের প্রভুর আনুগত্য করতে হত অথবা শাস্তির মুখোমুখি হতে হত।[৫] থাইল্যান্ডে বিংশ শতাব্দী পর্যন্ত শত শত বছর ধরে যৌন দাসত্ব অব্যাহত ছিল। যখন রাজা পঞ্চম রাম তার নীতিতে আরো পশ্চিমা দৃষ্টিভঙ্গি চেয়েছিলেন এবং দাসত্ব বিলুপ্ত করেছিলেন।[৫] অনেককে জীবিকার কোন উপায় ছাড়াই দাসত্বের অবসানকে ছেড়ে দেয়, তাদের পতিতাবৃত্তির দিকে বাধ্য করতে বাধ্য করে।[৫] যুদ্ধের সময় পতিতাবৃত্তি বেশি সক্রিয় ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপানের দখলে থাকার সময়, জাপানি বাহিনী থাই মহিলাদের পতিতা হিসেবে ব্যবহার করত। ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় থাইল্যান্ড আমেরিকান সৈন্যদের তাদের “আর এন্ড আর লিভে” বা আর এন্ড আর ছুটিতে একটি জনপ্রিয় গন্তব্য ছিল।[৬] যদিও সৈন্যরা অল্প বয়সী মেয়েদের চেয়ে মহিলাদের পছন্দ করে। থাইল্যান্ডে যৌন শিল্প আগের চেয়ে দ্রুত বিকশিত হয়েছে।[৬] থাইল্যান্ডে পাঁচটি মার্কিন ঘাঁটি ছিল, প্রতিটিতে ৫০,০০০ সৈন্য ছিল।[৭] ক্যাথরিন ফার স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, ভিয়েতনামে সৈন্য সংখ্যা ও থাইল্যান্ডে পতিতাদের সংখ্যার মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক তাৎপর্যপূর্ণ। "১৯৫৭ সালে আনুমানিক ২০,০০০ পতিতা থাইল্যান্ডে কাজ করছিল। ১৯৬৪ সালের মধ্যে এই সংখ্যা ৪,০০,০০০ এ উন্নীত হয়। ১৯৭২ সালের মধ্যে যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিয়েতনাম থেকে তার সব সৈন্য প্রত্যাহার করেছিল, তখন দেশে কমপক্ষে ৫,০০,০০০ পতিতা কর্মরত ছিল। তারপর থেকে “থাই পতিতালয়” শুধু বিস্ফোরিত হতে থাকে"।[৭] ১৯৭০ এর দশক থেকে থাইল্যান্ডে যৌন পর্যটন বাড়ছে। ১৯৭৩ সালে আনুমানিক ১ মিলিয়ন যৌন পর্যটক থাইল্যান্ডে ছিল, যা ১৯৮১ সালে ২ মিলিয়নে উন্নীত হয়েছিল।[৮] থাইল্যান্ড সরকার ১৯৮০-এর দশকে থাইল্যান্ডে পর্যটনের উন্নয়নে লক্ষ লক্ষ বাথ বা যৌন কেন্দ্র তৈরী করেছে[৯] এবং ১৯৮৮ সালে যৌন পর্যটকদের সংখ্যা ৪ মিলিয়নে উন্নীত হয়েছে। ১৯৯০ এর দশকে যৌন পর্যটকরা আগের চেয়ে বেশি সময় থাইল্যান্ডে অবস্থান করছিল, যা যৌন পর্যটনকে থাইল্যান্ডে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের সর্বোচ্চ উৎস করে তুলেছিল। ১৯৯৮ সালের মধ্যে ৭.৫ মিলিয়নেরও বেশি যৌন পর্যটক থাইল্যান্ড ভ্রমণ করেছিল। [৮]

শিশু পতিতাবৃত্তির কারণ[সম্পাদনা]

অর্থনৈতিক বৈষম্য[সম্পাদনা]

১৯৯০-এর দশকের গোড়ার দিকে থাইল্যান্ড এনআইসি, বা "নতুন শিল্পায়নকারী দেশ"-এর পদে যোগদানের জন্য দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশের মধ্যে একটি হয়ে ওঠে।[১০] দেশটি ধান ভিত্তিক কৃষি সমাজ থেকে দ্রুত শিল্পায়নের দিকে ধাবিত হয় এবং পরবর্তী দশকে থাইল্যান্ডের জিডিপি দ্বিগুণ হয়।[১০] কিছু প্রদেশ (যেমন ইসান প্রদেশ) প্রতিবেশী প্রদেশের শিল্পায়নের সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য সংগ্রাম করে। অর্থনীতি বৃদ্ধির সাথে সাথে খাদ্য, জমি ও উৎপাদন সরঞ্জামাদির খরচ বেড়েছে, কিন্তু ধান উৎপাদন ও অন্যান্য কৃষি পদ্ধতিতে আয় স্থবির আছে।[১১] দেশটি বর্তমানে বিশাল সম্পদের বৈষম্যের সম্মুখীন হয়েছে, যার নাম দিয়েছে তারা গিনি সহগ। দেশটি ধনী এলাকায় দ্রুত প্রবৃদ্ধি করেছে কিন্তু অন্য এলাকায় কোন প্রবৃদ্ধি বা পতন দেখছে না।[১২] থাইল্যান্ড শিল্পের সাথে সামঞ্জস্য বজায় রাখার জন্য ক্রমবর্ধমান সামাজিক চাপ ছাড়াও অনেক পরিবার কৃষিজমির অভাবের কারণে আয়ের জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি খুঁজতে বাধ্য হয়। যেমন বেলস লিখেছেন যে, "বর্তমানে বাবা-মা ভোগ্যপণ্য কেনার জন্য বড় চাপ অনুভব করেন, যা বিশ বছর আগেও অজানা ছিল।"[১১] পাচারকারীরা এই দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে এই পরিবারগুলিকে অর্থের বিনিময়ে তাদের মেয়েদের বিক্রি করতে প্ররোচিত করে। যেমন তারা পরিবারগুলোকে, মেয়েদের জন্য শহরে স্থায়ী কর্মসংস্থানের প্রতিশ্রুতি দেয়, যা পরিবারের আর্থিক অসুবিধা দূর করতে পারে। এ চুক্তিগুলি প্রায়শই আপাতদৃষ্টিতে আকর্ষণীয় হয় কিন্তু তা মিথ্যা হয়। তদুপরি থাইল্যান্ডের কিছু অংশে বাবা-মা তাদের সন্তানদের উপর নির্ভর করে ও পরিবারের জন্য অর্থ জোগান দেয় কারণ তারা দারিদ্র্যের শিকার, অন্যথায় তারা পর্যাপ্ত অর্থ উপার্জন করতে পারে না। থাইল্যান্ডের একটি জনপ্রিয় বিশ্বাস হল যে, “বাবা-মা তাদেরকে বসবাসের জায়গা দেওয়ার জন্য ঋণ পরিশোধের উপায় হিসেবে পরিবারের ভরণপোষণের দায়িত্ব শিশুদের উপর রয়েছে।”[১৩] এছাড়াও কাছাকাছি আত্মনির্ভরশীল চাকরির অভাবের কারণে কখনও কখনও শিশুরা অর্থের জন্য যৌন দাস হিসাবে শোষণে বাধ্য হয় বা পতিতাবৃত্তিতে পরিণত হয়, যা অত্যন্ত লাভজনক ব্যবসা। অন্যান্য লোকেরা এ যৌনতায় সুবিধা নেয়, বিশেষ করে যারা পশ্চিমা দেশ থেকে আসে।[১৩] শিশুদের শুধু পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করা হয় না, বরং তাদের পরিবার থেকে পালানোর জন্য ন্যূনতম প্রণোদনা থাকে। যে কোন উপায়ে পরিবারের জন্য অর্থ উপার্জন করা একটি ভাল কাজ হিসাবে দেশে ব্যাপকভাবে বিবেচিত হয়। এই শিক্ষা তাদের ধর্ম বা থেরবাদা বৌদ্ধধর্মের মধ্যে অন্তর্নিহিত। তাই কিছু শিশুদের পক্ষে যৌন ব্যবসা ছেড়ে দেওয়া কঠিন, কারণ দেশের অনেক অংশই তা গ্রহণ করে। এমনকি এই অঞ্চলের পুরুষরা প্রায়ই উল্লেখ করে যে, তাদের পত্নী একজন প্রাক্তন যৌনদাসী হওয়ার কারণে তারা বিরক্ত হয় না, কারণ এটি তাদের সম্পদশালী করেছে। এই শিশুদের বিয়ের সম্ভাবনা হ্রাস পায় না, যা অনভিপ্রায় অসাধারণ।[১৪]

শিশু অপহরণ[সম্পাদনা]

কিছু পরিস্থিতিতে থাইল্যান্ডে বসবাসকারী শিশুরা পালিয়ে যায় বা তাদের বাড়ি থেকে অপহরণ করা হয়। দুর্বল শিশুদের প্রায়ই যৌন পাচারের সাথে জড়িত দালালদের দ্বারা নিয়ে যাওয়া হয়, তারপর থাইল্যান্ডের কোন ব্যক্তি বা পতিতালয়ে বিক্রি করা হয়।[১৫] থাইল্যান্ড ভ্রমণকারী ব্যক্তিদের কাছে পাচারকারীরা শিশুকে পতিতাবৃত্তির জন্য বিক্রি করে। এ ভ্রমণকারীরা মেয়ে শিশুদের ক্রয় করার পর তাদেরকে সাথে করে নিজের দেশে নিয়ে যায়।[১৫] জাতিসংঘের মতে মিয়ানমার, কম্বোডিয়া, ভিয়েতনাম ও লাওস থেকে শিশুদের অপহরণ করে থাইল্যান্ডে পাচার করা হয়, সেখানে তারা একজন ভালো মজবুত খদ্দের খুঁজে পায়।[১৬]

ব্যক্তিগত ঝুঁকি[সম্পাদনা]

থাইল্যান্ড জুড়ে দশ বছর বয়সী মেয়ে ও ছেলে উভয়ই পতিতাবৃত্তি করে। এই শিশুদের অধিকাংশই তাদের সম্প্রদায়ের স্থানীয় পুরুষদের দ্বারা শোষিত হয়। আর বাকিরা পেডোফিলে বা বিদেশী যৌন পর্যটকদের সাথে পতিতাবৃত্তি করে। এই শিশুদের কারো কারো কাছে প্রতিদিন পাঁচ থেকে দশজন ক্লায়েন্ট থাকতে পারে। যেসব শিশুরা গৃহহীন, পলাতক, বা পরিত্যক্ত তাদের পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করা হয় এবং দালাল ও পাচারকারীদের দ্বারা তাদের সক্রিয়ভাবে নিয়োগ করা হয়।[১৭] বেশ্যা শিশুরা অনেক সংক্রামক রোগ ও সিকুয়েলাই ধরা পড়ার উচ্চ ঝুঁকিতে থাকে, বিশেষ করে তাদের এইচআইভি সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি থাকে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, থাইল্যান্ডের ১৭% পতিতালয়ে এইচআইভি সংক্রমিত ব্যক্তি ও শিশু পতিতা রয়েছে। এছাড়াও বেশ্যাবৃত্তিতে নিয়োজিত শিশুদের যাদের এসটিডি আছে তাদের সিফিলিস বা চ্যানক্রয়েডের মতো রোগ হয়, যা যৌনাঙ্গে আলসার সৃষ্টি করে এবং তাদের এইচআইভি সংক্রমণের সম্ভাবনা চারগুণ বেশি থাকে। এসটিডি আক্রান্ত শিশুদের জন্য চিকিৎসা সেবার অভাব এই ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে। কারণ তারা চিকিৎসা গ্রহণ করে না বা নিজে নিজে ঔষধ গ্রহণ করে। পতিতাবৃত্তিতে শিশুরা যারা এইচআইভি সংক্রামিত তাদের সক্রিয় যক্ষ্মা হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেশি। এই রোগগুলি তাদের বাচ্চাদের পাশাপাশি তাদের ক্লায়েন্টদের কাছেও যেতে পারে। ইএসসিএপির গবেষণায় দেখা গেছে যে, এসটিডি হার কম্বোডিয়ায় (৩৬%), চীনে (৭৮%) ও থাইল্যাণ্ডে (৩৮%) সবচেয়ে বেশি। বেশ্যা মেয়েদেরও জরায়ুর ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। জরায়ু ক্যান্সার বিকাশের অন্যতম কারণ হচ্ছে, একাধিক যৌন সঙ্গী ব্যবহার বা অল্প বয়সে যৌন মিলন করা। যাদের রোগ ধরা পড়ে তারা প্রায়ই দীর্ঘদিন ধরে রোগ সম্পর্কে অজ্ঞ থাকে, যার ফলে সফল চিকিৎসার সম্ভাবনা থাকে না।[১৭] যৌন-সক্রিয় কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে যারা গর্ভনিরোধক ব্যবহার করে না তাদের প্রতি বছর ৯০% গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এটা এই কারণে হয় যে, থাইল্যান্ডে অনেক মেয়ের গর্ভনিরোধকে ঔষধ ব্যবহারের সুযোগ নেই, তাই তারা গর্ভবতী হয়। এই মেয়েদের মৃত্যুসহ গর্ভাবস্থা সংক্রান্ত জটিলতার উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে। অধিকন্তু অনেক গর্ভবতী পতিতা শিশুরা গর্ভপাত চায়, কেননা অনিরাপদ গর্ভপাতে তারা মানসিক আঘাতপ্রাপ্ত হয় বা তারা মৃত্যুর উচ্চ ঝুঁকিতে থাকে।[১৭] থাইল্যান্ডে পতিতাবৃত্তি করা শিশুদের মানসিক রোগ বা দীর্ঘমেয়াদী মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা হয়। তাদের উদ্বেগ, বিষণ্নতা ও আচরণগত ব্যাধি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অনেক পতিতা শিশু প্রায়ই অসহায়, ক্ষতিগ্রস্ত, অবমানিত, বিশ্বাসঘাতকতার শিকার ও নিজেকে লজ্জাজনক বোধ করে। তারা আত্মহত্যাপোস্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডারের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকে।[১৭] পতিতাপল্লীর সরদারনী, খদ্দের, পুলিশ ও অন্তরঙ্গ অংশীদারদের সহিংসতার ফলে শিশুরা ধর্ষণসহ আহত হয় ও পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য হয়। যেসব মেয়েরা পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য হয় তাদের শারীরিক ও মানসিকভাবে নিপীড়নের শিকার হতে হয়। তাদেরকে গর্ভপাতের জন্য প্ররোচিত করা হয়। এ অবৈধ প্রক্রিয়াটি খোলাখুলিভাবে তাদের মাঝে চলতে থাকে।[১৭]

আইন[সম্পাদনা]

থাইল্যান্ডে শিশু পতিতাবৃত্তি একটি বিতর্কিত বিষয়। যেসব শিশুরা এই বাণিজ্যের অংশ তাদের বিভিন্ন আইন দ্বারা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়। ১৯৯৬ সালে পাস করা একটি আইনে বলা হয়েছে যে, 'পতিতাবৃত্তি প্রতিষ্ঠানে' ১৮ বছরের কম বয়সী ব্যক্তির সাথে যৌন সঙ্গম বা যৌন ক্রিয়ায় লিপ্ত হওয়া নিষিদ্ধ"।[১৮] পাবলিক অনুরোধ, বিজ্ঞাপন বা পতিতাবৃত্তির সাথে জড়িত অন্য ব্যক্তির সাথে মেলামেশার মাধ্যমে শিশু পতিতাবৃত্তির সামান্যতম ধারণা বা উল্লেখ অবৈধ বলে বিবেচিত হয়। শিশুদের বাণিজ্যিক যৌন শোষণের বিরুদ্ধে ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস স্টকহোমে তার সভায় এই আইনে অবদান রেখেছিল। যেখানে তারা "শিশুদের সব ধরনের বাণিজ্যিক যৌন শোষণ মোকাবেলায় কাজ করবে বলে কথা দেয।"[৭] সাধারণভাবে পতিতাবৃত্তি একটি চলমান সমস্যা, কিন্তু থাই সরকার এই সমস্যা মোকাবেলায় আইন প্রণয়ন করেছে। থাইল্যান্ড পতিতাবৃত্তি প্রতিরোধ ও দমন আইন পাস করেছে, যা "১৮ বছরের কম বয়সী উভয় লিঙ্গের শিশুদের বাণিজ্যিক যৌন ব্যবসায় প্রবেশের সম্পূর্ণ নির্মূলকরণ" এর উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।[১৯][২০] এই আইনে পতিতাবৃত্তি থেকে লাভবান ব্যক্তিদের দেখা যায়, যেমন পিম্পস ও পতিতালয়ের মালিকরা পতিতাদের চেয়ে বেশি অপরাধী হয়। এছাড়াও যে কোন সরকার বা আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তা যে কোনভাবে পতিতাবৃত্তির সাথে জড়িত ব্যক্তিকে "১৫-২০ বছরের কারাদণ্ড এবং ৩,০০,০০০-৪,০০,০০০ বাথ জরিমানা করতে পারে"।[২০]

সরকারি সহযোগিতা[সম্পাদনা]

এই আইনগুলি কার্যকর করতে সাহায্য করার জন্য পারস্পারিক সংগঠন রয়েছে। দ্য স্টকহোম ঘোষণাপত্র ঘোষণা করে যে, "স্টকহোম ঘোষণাপত্র অনুসারে সিএসইসি মোকাবেলায় কার্যকরভাবে পরিকল্পনা, বাস্তবায়ন ও মূল্যায়নের জন্য সরকারি ও বেসরকারি খাতের মধ্যে ঘনিষ্ঠ মিথস্ক্রিয়া ও সহযোগিতা আবশ্যক।"[১৮] সরকারী কর্মকর্তারা যথাস্থানে আইন প্রণয়ন করেন এবং শিশু পতিতাবৃত্তি সংক্রান্ত প্রতিটি আইন লঙ্ঘনে শাস্তির জন্য সরকারের অনুসরণ করার ইচ্ছা পোষণ করেন। স্টকহোমের সম্মেলন "এজেন্ডা ফর অ্যাকশন" একীভূত করেছে, যা বিশ্বব্যাপী শিশু পতিতাবৃত্তিকে নিরোসন করার জন্য ব্যবহৃত কৌশলগুলির একটি সেট। সাহায্য করার জন্য আরেকটি সংগঠন হল ইসিপিএটি বা শিশু নির্যাতন, পর্নোগ্রাফি ও যৌন শোষণের জন্য শিশুদের পাচার নিরোধের সংগঠন। বিশ্বব্যাপী শিশু পতিতাবৃত্তির বিরুদ্ধে লড়াই করা নেতৃস্থানীয় এনজিওগুলির মধ্যে এটি একটি সংগঠন।[৭] এ সংগঠনের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে যে, "ইসিপ্যাট ফাউন্ডেশন শিশু অধিকার কনভেনশন (সিআরসি) ও এর প্রোটোকল বাস্তবায়ন ও পর্যবেক্ষণের পক্ষে এবং জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে মানবাধিকার ও শিশু সুরক্ষা সংস্থার নেটওয়ার্কগুলির সাথে জড়িত থাকার পক্ষে সমর্থন করে। ফাউন্ডেশন শিশু ও তরুণদের মধ্যে যারা শোষণ থেকে বেঁচে আছে বা এখনও ঝুঁকিতে আছে তাদের সহায়তা করে। তাদের একই ধরনের পরিস্থিতিতে নিজেদের ও অন্যান্য শিশুদের সুরক্ষার জন্য মূল পরিচালক হিসেবে অংশ গ্রহণের জন্য উৎসাহিত করে।"[১৮]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Singh, J.P.; Hart, Shilpa (২৩ মার্চ ২০০৭)। "Sex Workers and Cultural Policy: Mapping the Issues and Actors in Thailand": 155–173। ডিওআই:10.1111/j.1541-1338.2007.00274.x 
  2. "Underage prostitution in Thailand: the consequence of a mass sex tourism"Institut du genre en géopolitique (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-১০-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-১৫ 
  3. "Strengthening Thai laws to fight travellers who sexually abuse children"UN Office on Drugs and Crime (UNODC)। ১৪ মার্চ ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৫ 
  4. Willis, B. M.; Levy, B. S. (২০০২-০৪-২০)। "Child prostitution: Global health burden, research needs, and interventions": 1417–1422। ডিওআই:10.1016/S0140-6736(02)08355-1পিএমআইডি 11978356 
  5. Hulme, Kyle। "The History of Prostitution in Thailand"Culture Trip। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-০৪ 
  6. Sorajjakool, Siroj. (২০০৩)। Child prostitution in Thailand : listening to Rahab। Haworth Press। আইএসবিএন 9781315865027ওসিএলসি 657971859 
  7. Farr, Kathryn (২০০৫)। Sex trafficking: The global market in women and children (Paper সংস্করণ)। Worth Publishing। আইএসবিএন 978-0-7167-5548-7  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Farr-2005" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Farr-2005" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  8. Harrison, David (২০০১-০১-০১)। Tourism and the Less Developed World: Issues and Case Studies। CABI। আইএসবিএন 9780851994338 
  9. "History of Prostitution and Sex Trafficking in Thailand - End Slavery Now"endslaverynow.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৪-০৪ 
  10. Genders & Sexuality in Modern Thailand। Silkworm Books। ১৯৯৯। আইএসবিএন 978-9747551075 
  11. Bales, Kevin (২০০৪)। Disposable People: New Slavery in the Global Economy (2nd সংস্করণ)। University of California Press। আইএসবিএন 978-0520243842  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Bales-2004" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  12. Mikkelson GM, Gonzalez A, Peterson GD (2007) Economic Inequality Predicts Biodiversity Loss. PLoS ONE 2(5): e444. https://doi.org/10.1371/journal.pone.0000444
  13. Montgomery, Heather (২০০৯-০৪-২৪)। "Are child prostitutes child workers? A case study": 130–140। আইএসএসএন 0144-333Xডিওআই:10.1108/01443330910947507 
  14. Lisa Rende Taylor, "Dangerous Trade‐offs: The Behavioural Ecology of Child Labor and Prostitution in Rural Northern Thailand," Current Anthropology 46, no. 3 (June 2005): 411-431. https://doi.org/10.1086/430079
  15. Ahan, Farnoosh Rezaee; Rezaee Ahan, Farnoosh। "Child Prostitution in Thailand" (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 1556-5068 
  16. "Thailand Quick Facts"UN-ACT 
  17. Willis, Brian M; Levy, Barry S (এপ্রিল ২০০২)। "Child prostitution: global health burden, research needs, and interventions": 1417–1422। আইএসএসএন 0140-6736ডিওআই:10.1016/s0140-6736(02)08355-1পিএমআইডি 11978356  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে ":0" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে ":0" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে ":0" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে ":0" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  18. "www.ecpat.org" (PDF)  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে ":1" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে ":1" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  19. "PREVENTION AND SUPPRESSION OF PROSTITUTION ACT B.E. 2539 (1996)" (Translation)International Labour Organisation (ILO)। NATLEX। ১৯৯৬-১০-১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৬ অক্টোবর ২০১৬ 
  20. The Sex Sector: The Economic and Social Bases of Prostitution in Southeast Asia (PDF) (English ভাষায়)। International Labour Office (ILO)। ১৯৯৮। আইএসবিএন 978-92-2-109522-4। ১৬ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ অক্টোবর ২০১৬