বিষয়বস্তুতে চলুন

তৃপ্তি দেশাই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
তৃপ্তি দেশাই
জন্ম (1985-12-12) ১২ ডিসেম্বর ১৯৮৫ (বয়স ৩৮)
পেশাসমাজকর্মী
পরিচিতির কারণভুমাতা ব্রিগেড এবং ভূমাতা ফাউণ্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা
দাম্পত্য সঙ্গীপ্রশান্ত দেশাই (বি. ২০০৬)
সন্তান

তৃপ্তি দেশাই (জন্ম ১৯৮৫) একজন ভারতীয় সামাজিক কর্মী এবং ভূমাতা ব্রিগেড ও ভূমাতা ফাউণ্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা। এই দুটি পুনে-ভিত্তিক দুটি সংস্থা। তৃপ্তি দেশাই মহারাষ্ট্রেশনি শিঙ্গণাপুর মন্দির, হাজি আলি দরগাহ, মহালক্ষ্মী মন্দির, এবং ত্রিম্বকেশ্বর শিব মন্দিরের মতো ধর্মীয় স্থানগুলিতে মহিলাদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার জন্য প্রচারণা চালিয়েছেন এবং সম্প্রতি তিনি কেরালার শবরীমালা মন্দির নিয়ে প্রচারণা চালিয়েছেন। ২০১২ সালে, তিনি পুনে পৌর কর্পোরেশন নির্বাচনে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রার্থী ছিলেন। ২০২১ সালে, তিনি বিগ বস মারাঠি ৩ -এ প্রতিযোগী হিসাবে অংশগ্রহণ করেছিলেন এবং ৪৯তম দিনে বহিষ্কৃত হন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

তৃপ্তি দেশাই ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের নিপ্পাণি তালুকে ১৯৮৫ সালের ১২ই ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন।[১][২] তাঁর বাবা পরিবার ছেড়ে একটি আশ্রমে চলে গিয়েছিলেন এবং তাঁকে তার মা তাঁর দুই ভাইবোনের সাথে বড় করেছিলেন।[৩] তিনি শ্রীমতি নাথিবাই দামোদর থ্যাকারসি (এসএনডিটি) মহিলা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুনে ক্যাম্পাসে গার্হস্থ্য বিজ্ঞান অধ্যয়ন করেছিলেন। কিন্তু পারিবারিক সমস্যার কারণে প্রথম বছরের পর তাঁর পড়া বন্ধ হয়ে যায়।[৪]

তৃপ্তি দেশাই ২০০৬ সালে প্রশান্ত দেশাইকে বিবাহ করেন এবং তাঁদের একটি ছেলে আছে। তাঁর স্বামী প্রশান্ত দাবি করেছেন যে তৃপ্তি "অত্যন্ত আধ্যাত্মিক" এবং কোলাপুরের গগনগিরি মহারাজের অনুসারী।[৫]

কার্যক্রম[সম্পাদনা]

২০০৩ সালে, বস্তিবাসীদের পুনর্বাসনে সাহায্য করার জন্য তৃপ্তি দেশাই ক্রান্তিবীর ঝোপড়ি বিকাশ সংঘের একজন সমাজকর্মী ছিলেন।[১] ২০০৭ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত, তিনি অজিত কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্কে  ৫০ কোটি (US$ ৬.১১ মিলিয়ন) -র প্রতারণার সাথে জড়িত আর্থিক অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন। ২০০৯ সালের জানুয়ারিতে, তিনি মহারাষ্ট্রের তৎকালীন উপ-মুখ্যমন্ত্রী অজিত পাওয়ারের বিরুদ্ধে একটি দলের নেতৃত্ব দেন। ২০১৩ সালে তাঁর বিরুদ্ধে একটি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছিল। তিনি সেই গোষ্ঠীর প্রধান হিসেবে "পাওয়ারের কুশপুত্তলিকায় চড় মেরেছিলেন, গালিগালাজ করেছিলেন এবং নিষেধাজ্ঞামূলক আদেশ সত্ত্বেও একটি অবৈধ আন্দোলন করেছিলেন"।[৬] তৃপ্তি দেশাই অবিলম্বে জামিনে মুক্তি পেয়েছিলেন, দাবি করেছিলেন যে গ্রেপ্তারটি আন্দোলনকারীদের বাধা দেওয়ার একটি কৌশল মাত্র।[৬] তিনি ২০১০ সালের ২৭শে সেপ্টেম্বর তারিখে ভূমাতা ব্রিগেড প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে, জানুয়ারি ২০১৬-এর হিসাব অনুযায়ী, ব্রিগেডে নিবন্ধিত সদস্য সংখ্যা ৪০০ থেকে বেড়ে ৫০০০-এ উন্নীত হয়েছে।[১] ২০১১ সালে, তিনি দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনেও অংশ নেন।[৭] তিনি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সদস্য হিসাবে বালাজি নগর ওয়ার্ড থেকে পুনে পৌর কর্পোরেশনের ২০১২ সালের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন; কিন্তু তিনি পরাজিত হন।[৭]

ধর্মীয় স্থান[সম্পাদনা]

২০১৫ সালের নভেম্বরে, একজন মহিলা শনি শিঙ্গণাপুর মন্দিরের হিন্দু মন্দিরে প্রবেশ করেছিলেন, যেখানে মহিলাদের প্রবেশের অনুমতি ছিল না। মন্দিরের পুরোহিতরা ওই সময় কর্তব্যরত নিরাপত্তারক্ষীকে সাময়িক বরখাস্ত করে প্রতিমা শুদ্ধিকরণ অনুষ্ঠান করেন। এই ঘটনায় তৃপ্তি দেশাই ক্ষুব্ধ হন, তিনি তার ব্রিগেডের অন্যান্য সদস্যদের সাথে মন্দিরে বিভিন্নবার জোরপূর্বক প্রবেশ করেছিলেন। রাজ্য সরকার এবং পুনের জেলা স্তরের আদালত মহিলাদের সাংবিধানিক অধিকারের ভিত্তিতে মন্দিরে তাঁদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার জন্য মন্দিরের আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়েছে। ২০১৬ সালের ৮ই এপ্রিল তারিখে, যে দিনটি মহারাষ্ট্রীয় ক্যালেণ্ডারের নতুন বছরের প্রথম দিন এবং গুড়ি পাডবা হিসাবে পালিত হয়, সেই দিন তৃপ্তি দেশাই ব্রিগেডের অন্যান্য মহিলা সদস্যদের সাথে শনি শিঙ্গণাপুর মন্দিরে প্রবেশ করেছিলেন।[৩]

শিঙ্গণাপুর প্রবেশের পরে, তৃপ্তি দেশাই কোলাপুরের মহালক্ষ্মী মন্দিরে পৌঁছেছিলেন, যেখানে মন্দির পরিচালনা কমিটি তাঁকে প্রবেশের অনুমতি দেয় কিন্তু পুরোহিতরা তাঁর বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।[৩] তৃপ্তি দেশাই ও বিক্ষোভকারীদের ওপর হামলার অভিযোগে পাঁচ পুরোহিতকে গ্রেপ্তার করা হয়।[৮] তিনি নাসিকের কাছে ত্রিম্বকেশ্বর শিব মন্দিরের অভ্যন্তরীণ গর্ভগৃহেও প্রবেশ করেছিলেন, যেখানে তাঁকে পুলিশ শান্তিপূর্ণভাবে নিয়ে গিয়েছিল। তবে মন্দিরে পুরুষদের মতোই ভেজা পোশাক পরে যেতে হয়েছিল।[৩]

২০১৬ সালের এপ্রিলে, তিনি মুম্বাইয়ের হাজি আলী দরগায় প্রবেশের চেষ্টা করেছিলেন; তবে, বিক্ষুব্ধ জনতা তাঁর চেষ্টাকে ব্যর্থ করে দেয়। দেশাই দাবি করেছিলেন যে তিনি আবার দরগায় প্রবেশ করার চেষ্টা করলে তাঁকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছিল, দরগা হলো এক ধরনের ইসলামী মন্দির।[৯] ২০১৬ সালের ১২ই মে তারিখে, তিনি দ্বিতীয়বার চেষ্টা করেন এবং কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে মসজিদে প্রবেশ করেন কিন্তু তিনি অভ্যন্তরীণ গর্ভগৃহে, যেখানে মহিলাদের অনুমতি নেই, সেখানে যেতে পারেন নি।[১০]

২০১৮ সালের নভেম্বরে, তিনি মণ্ডলম-মাকারভিলাক তীর্থযাত্রী মরসুমে কেরালার শবরীমালা মন্দিরে যাওয়ার একটি ব্যর্থ চেষ্টা করেছিলেন। মন্দিরটিতে আইনগত পাশাপাশি ধর্মীয় বিধিনিষেধ ছিল, যা ১৯৯১ সাল থেকে ঋতুমতী বয়সের (আনুমানিক ১০ - ৫০ বছর) মহিলাদের প্রবেশে বাধা দেয়। ২০১৮ সালের অক্টোবরে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের একটি রায়ের মাধ্যমে এই বিধিনিষেধ বাতিল করা হয়েছিল। যদিও রায় আসার পর ঋতুমতী বয়সের এক ডজন মহিলা মন্দিরে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু প্রতিরোধের কারণে তাঁদের সকলেই মূলত ব্যর্থ প্রমাণিত হয়েছিলেন।[১১] ২০১৮ সালের ১৬ই নভেম্বর তারিখে, শবরীমালা যাওয়ার সময় কোচিন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তৃপ্তি দেশাইকে বিক্ষোভকারীরা অবরুদ্ধ করে রেখেছিল। তিনি ১৪ ঘন্টারও বেশি সময় ধরে বিমানবন্দরের ভেতরে আটকে থাকার পরে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এবং আবার ফিরে আসার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি আর ফিরে যাননি।[১২]

বাস্তব অনুষ্ঠান[সম্পাদনা]

বছর নাম ভূমিকা মন্তব্য
২০২১ বিগ বস মারাঠি ৩ প্রতিযোগী বহিষ্কৃত
৪৯তম দিন

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Goyal, Prateek (৩০ জানুয়ারি ২০১৬)। "Meet Bhumata Brigade's Trupti Desai: Devout Hindu, aggressive activist"The News Minute। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০১৬ 
  2. Biographia (২০১৮-১০-২৪)। "Trupti Desai Wiki-Age-Height-Husband-Controversies and More"Biographia (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-১১-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-১৬ 
  3. Anand, Geeta; Raj, Suhasini (২৯ এপ্রিল ২০১৬)। "Forging a Path for Women, Deep Into India's Sacred Shrines"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৬ 
  4. "Shani Shingnapur temple entry ban row: Who is Bhumata Ranragini Brigade's chief Trupti Desai?"Zee News। ২৬ জানুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০১৬ 
  5. Alexander, Sneha (২০১৮-১১-১৭)। "Janam TV Peddles Fake News Of Trupti Desai Converting To Christianity | BOOM"boomlive.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২২ 
  6. Chavan, Vijay (৩ অক্টোবর ২০১৩)। "Activist gets arrest warrant 4.5 years after FIR is filed"Pune Mirror। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০১৬ 
  7. Joshi, Yogesh (২৯ জানুয়ারি ২০১৬)। "Trupti Desai: The woman spearheading Shani Shingnapur protest"Hindustan Times। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০১৬ 
  8. Waghmode, Vivek (১৭ এপ্রিল ২০১৬)। "5 priests among 7 booked for assaulting Trupti Desai"Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মে ২০১৬ 
  9. Hebbar, Prajakta (২৯ এপ্রিল ২০১৬)। "Trupti Desai Claims There's A Bounty Of ₹1 Lakh To Stop Her From Entering Haji Ali"The Huffington Post। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০১৬ 
  10. "Activist Trupti Desai enters Haji Ali, stops short of going into inner sanctum"The Times of India। ১২ মে ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১২ মে ২০১৬ 
  11. "Social activist Trupti Desai to visit Sabarimala during Mandalam month"Mathrubhumi 
  12. "Trupti Desai heads back home after protesters bloch her Sabarimala trek, says "will certainly return""news18