ট্রিগভে হাভডেন লি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ট্রিগভে হাভডেন লি
Trygve Lie 1938.jpg
১৯৩৮ সালে ট্রিগভে লি
জাতিসংঘের ১ম মহাসচিব
কাজের মেয়াদ
২ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৬ – ১০ নভেম্বর ১৯৫২
পূর্বসূরীগ্লাডউইন জেব (ভারপ্রাপ্ত)
উত্তরসূরীদগ হামারহোল্ড
Minister of Foreign Affairs
কাজের মেয়াদ
19 November 1940 – 2 February 1946
প্রধানমন্ত্রীJohan Nygaardsvold
Einar Gerhardsen
পূর্বসূরীHalvdan Koht
উত্তরসূরীHalvard Lange
Minister of Justice
কাজের মেয়াদ
20 March 1935 – 1 July 1939
প্রধানমন্ত্রীJohan Nygaardsvold
পূর্বসূরীArne T. Sunde
উত্তরসূরীTerje Wold
Minister of Industry
কাজের মেয়াদ
25 September 1963 – 20 January 1964
প্রধানমন্ত্রীEinar Gerhardsen
পূর্বসূরীKaare Meland
উত্তরসূরীKarl Trasti
কাজের মেয়াদ
4 July 1963 – 28 August 1963
প্রধানমন্ত্রীEinar Gerhardsen
পূর্বসূরীKjell Holler
উত্তরসূরীKaare Meland
Minister of Trade and Shipping
কাজের মেয়াদ
20 January 1964 – 12 October 1965
প্রধানমন্ত্রীEinar Gerhardsen
পূর্বসূরীErik Himle
উত্তরসূরীKåre Willoch
Minister of Provisioning and Reconstruction
কাজের মেয়াদ
1 October 1939 – 21 February 1941
প্রধানমন্ত্রীJohan Nygaardsvold
পূর্বসূরীPosition established
উত্তরসূরীArne T. Sunde
Minister of Trade
কাজের মেয়াদ
1 July 1939 – 2 October 1939
প্রধানমন্ত্রীJohan Nygaardsvold
পূর্বসূরীAlfred Madsen
উত্তরসূরীAnders Frihagen
Member of the Norwegian Parliament
কাজের মেয়াদ
1 January 1937 – 31 December 1949
সংসদীয় এলাকাOslo
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মট্রিগভে হাভডেন লি
(১৮৯৬-০৭-১৬)১৬ জুলাই ১৮৯৬
Kristiania, Sweden–Norway (now Oslo, Norway)
মৃত্যু৩০ ডিসেম্বর ১৯৬৮(1968-12-30) (বয়স ৭২)
Geilo, Buskerud, নরওয়ে
জাতীয়তাNorwegian
রাজনৈতিক দলLabour
দাম্পত্য সঙ্গীHjørdis Jørgensen (বি. ১৯২১; মৃ. ১৯৬০)
সন্তান3
স্বাক্ষর
ট্রিগভে হাভডেন লি

ট্রিগভে হাভডেন লি (নরওয়েজীয় উচ্চারিত: [ˌtɾyɡʋə ˈliː] (এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন); জুলাই ১৬, ১৮৯৬ – ডিসেম্বর ৩০, ১৯৬৮) জাতিসংঘের প্রথম মহাসচিব। ১৯৪৬ সালের ২ ফেব্রুয়ারি তিনি জাতিসংঘের মহাসচিবের দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং ১৯৫২ সালের ১০ নভেম্বর পর্যন্ত এই পদে বহাল থাকেন। ট্রিগভে লি নরওয়ের নাগরিক ছিলেন।[১]

কোরিয়া যুদ্ধের সময় যুক্তরাষ্ট্র ও সাবেক সেভিয়েত ইউনিয়নের মধ্যে বৈরি সম্পর্কের জন্য পদত্যাগ করেন।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

লি ১৮৯৬ সালের ১৬ জুলাই ক্রিস্টিয়ানিয়ায় (বর্তমানে অসলো) জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা কাঠমিস্ত্রি মার্টিন লি, ১৯০২ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী হতে পরিবার ছেড়ে চলে যান এবং আর কখনও তার কথা শোনা যায়নি। ট্রিগভে তার মা হুলডা এবং সেই সময় ছয় বছর বয়সী এক বোনের সাথে একসাথে খারাপ পরিস্থিতিতে বড় হয়েছিলেন। তার মা অসলোর গ্রোরুডে একটি বোর্ডিং হাউস এবং ক্যাফে চালাতেন।[২]

লি ১৯১১ সালে লেবার পার্টিতে যোগ দেন এবং ১৯১৯ সালে অসলো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন ডিগ্রী পাওয়ার পরপরই দলের জাতীয় সম্পাদক হিসেবে মনোনীত হন। তিনি ১৯১৯ থেকে ১৯২১ সাল পর্যন্ত দেত ২০দে আরহুন্দ্রে ('বিংশ শতাব্দী') এর প্রধান সম্পাদক ছিলেন। ১৯২২ থেকে ১৯৩৫ সাল পর্যন্ত তিনি ওয়ার্কার্স ন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়নের (১৯৫৭ সাল থেকে নরওয়েজিয়ান কনফেডারেশন অফ ট্রেড ইউনিয়নস নামে) আইনী পরামর্শক ছিলেন। তিনি ১৯৩১ থেকে ১৯৩৫ সাল পর্যন্ত নরওয়েজিয়ান ওয়ার্কার্স কনফেডারেশন অফ স্পোর্টসের সভাপতিত্ব করেন।[৩]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

স্থানীয় রাজনীতিতে তিনি ১৯২২ থেকে ১৯৩১ সাল পর্যন্ত আকের পৌরসভা কাউন্সিলের নির্বাহী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৩৭ সালে আকেরশুস থেকে নরওয়ের সংসদে নির্বাচিত হন। ১৯৩৫ সালে জোহান নাইগার্ডস্ভোল্ড লেবার পার্টির সরকার গঠন করলে তিনি বিচার মন্ত্রী নিযুক্ত হন। লি পরে বাণিজ্যমন্ত্রী (জুলাই থেকে অক্টোবর ১৯৩৯) এবং সরবরাহ মন্ত্রী (অক্টোবর ১৯৩৯ থেকে ১৯৪১) নিযুক্ত হন।

অল্প বয়স থেকেই সমাজতান্ত্রিক লি একবার মস্কোতে লেবার পার্টির সফরে ভ্লাদিমির লেনিনের সাথে দেখা করেছিলেন এবং সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে নির্বাসিত হওয়ার পরে লিওন ত্রোত্‌স্কিকে নরওয়েতে বসতি স্থাপনের অনুমতি দিয়েছিলেন।[২] তবে জোসেফ স্ট্যালিনের চাপের কারণে তিনি ত্রোত্‌স্কিকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করেন।[৪]

১৯৪০ সালে নাৎসি জার্মানি যখন নরওয়ে আক্রমণ করে, তখন তিনি নরওয়ের সমস্ত জাহাজকে মিত্র বন্দরে যাওয়ার নির্দেশ দেন। ১৯৪১ সালে লি-কে নরওয়ে সরকারের নির্বাসিত পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করা হয় এবং তিনি ১৯৪৬ সাল পর্যন্ত এই পদে ছিলেন।[৫]

জাতিসংঘে কর্মজীবন[সম্পাদনা]

লি ১৯৪৫ সালে সান ফ্রান্সিসকোতে জাতিসংঘের সম্মেলনে নরওয়ের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন এবং জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বিধানের খসড়া তৈরিতে একজন নেতা ছিলেন। তিনি ১৯৪৬ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে নরওয়ের প্রতিনিধি দলের নেতা ছিলেন। ১৯৪৬ সালের লা ফেব্রুয়ারী, প্রধান শক্তিগুলোর মধ্যে সমঝোতার ফলে তিনি জাতিসংঘের প্রথম মহাসচিব হিসেবে নির্বাচিত হন, মাত্র অল্পের ব্যবধানে প্রথম সাধারণ পরিষদের সভাপতি নির্বাচিত হতে পারেননি।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

মহাসচিব হিসেবে তিনি ইজরায়েল এবং ইন্দোনেশিয়ার ভিত্তিকে সমর্থন করেন। ইজরায়েলের প্রতি তার আবেগপূর্ণ সমর্থনের মধ্যে ছিল ইজরায়েলি কর্মকর্তাদের কাছে গোপন সামরিক ও কূটনৈতিক তথ্য পৌঁছে দেওয়া।[৬] তিনি ১৯৪৮ সালে ফিলিস্তিনের প্রাক্তন ব্রিটিশ ম্যান্ডেট এবং "ইউএনটিএসও"-তে যুদ্ধবিরতি রদের তদারকিতে মধ্যস্থতাকারীকে সহায়তা করার জন্য লেক সাকসেস থেকে জাতিসংঘের গার্ড ফোর্সের ৫০ জন সদস্যকে প্রেরণ করেন, যা জাতিসংঘ দ্বারা প্রথম শান্তিরক্ষা অভিযান প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।[৭] তিনি ইরানে সোভিয়েত বাহিনী প্রত্যাহার এবং কাশ্মীরে লড়াইয়ের যুদ্ধবিরতির জন্য কাজ করেছিলেন।

তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নের ক্রোধানলে পড়েন যখন তিনি ১৯৫০ সালে দক্ষিণ কোরিয়া আক্রমণের পর দেশটির প্রতিরক্ষার জন্য সমর্থন সংগ্রহে সহায়তা করেন[৮] এবং পরে জাতিসংঘের বৈঠক সোভিয়েত বয়কট বন্ধ করার জন্য কাজ করেন, যদিও সোভিয়েত ইউনিয়নের শেষ পর্যন্ত জাতিসংঘে প্রত্যাবর্তনের সাথে তার জড়িত থাকার খুব কম সম্পর্ক ছিল। ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কোর সরকারের বিরোধিতার কারণে তিনি জাতিসংঘে স্পেনের প্রবেশের বিরোধী ছিলেন।[৯]

জাতীয়তাবাদী সরকার তাইওয়ানে নির্বাসিত হওয়ার পর তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী চীনকে জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃত করার চেষ্টা করেন, এই যুক্তিতে যে গণপ্রজাতন্ত্রী একমাত্র সরকার যারা সদস্যপদের বাধ্যবাধকতা সম্পূর্ণভাবে পালন করতে পারে।[৮] [১০]

ব্যক্তিগত জীবন ও মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯২১ সালে Hjørdis Jørgensenকে (১৮৯৮-১৯৬০) বিয়ে করেন। এই দম্পতির সিসেল, গুরি এবং মেট নামে তিনটি কন্যা ছিল।

১৯৬৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর নরওয়ের গেইলোতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ট্রিগভে হাভডেন লি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স ছিল ৭২ বছর।[১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "About Trygve Lie" (Trygve Lie Gallery)
  2. "Immigrant to What?"Time। ২৫ নভেম্বর ১৯৪৬। পৃষ্ঠা 1–2। ১৫ জানুয়ারি ২০০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  3. Trygve Halvdan Lie (LoveToKnow, Corp)
  4. Deutscher, Isaac (২০০৩)। The Prophet Outcast: Trotsky, 1929-1940 (reprint সংস্করণ)। Verso। পৃষ্ঠা 274–282। আইএসবিএন 978-1859844519। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০২০ 
  5. Sze, Szeming (ডিসেম্বর ১৯৮৬)। Working for the United Nations: 1948-1968 (Digital সংস্করণ)। University of Pittsburgh। পৃষ্ঠা 2। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৪ 
  6. Waage, Hilde Henriksen (২০১১)। "The Winner Takes All: The 1949 Island of Rhodes Armistice Negotiations Revisited"। Middle East Journal65 (2): 279–304। এসটুসিআইডি 145309069ডিওআই:10.3751/65.2.15 
  7. "Fifty U.N. Guards to go to Palestine" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। ১৭ জুন ১৯৪৮। ২৩ নভেম্বর ২০০১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০২০ 
  8. "Milestones"Time। ১০ জানুয়ারি ১৯৬৯। পৃষ্ঠা 2। ১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  9. Barros, James (১৯৮৯)। Trygve Lie and the Cold War: The UN Secretary-General Pursues Peace, 1946-1953। Northern Illinois Univ Press। পৃষ্ঠা 80–85। আইএসবিএন 978-0875801483। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০২০ 
  10. "The U. N. and Trygve Lie"Foreign Affairs (ইংরেজি ভাষায়)। ১ অক্টোবর ১৯৫০। সংগ্রহের তারিখ ৮ জানুয়ারি ২০২০ 
  11. "Trygve Lie, Secretary General Of U.N. From '46 to '53, Dies; Trygve Lie, First Secretary General of the U.N., Dies at 72"The New York Times। ৩১ ডিসেম্বর ১৯৬৮। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০২০